সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১২:৩৩ অপরাহ্ন

আর ৩৭ (অন্ত্রের কোলিক ড্রপ)

আরোগ্য হোমিও হল / ৫৩ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ সোমবার, ৬ মে, ২০২৪, ৬:১৮ অপরাহ্ন
আর ৩৭ (অন্ত্রের কোলিক ড্রপ)

Dr. Reckeweg R37 (Intestinal Colic Drops)

আর ৩৭ (অন্ত্রের কোলিক ড্রপ)

আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “ আর ৩৭ (অন্ত্রের কোলিক ড্রপ)” কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।

আর ৩৭ ড্রপসটির ইঙ্গিত : এটি ফ্ল্যাটুলেন্ট কোলিক, মেটিওরিজম, পোরফাইনিউরিয়া, অন্ত্রের শূল, পেটের খিঁচুনি যা পোরফাইনিউরিয়া এবং আক্রান্ত এটি লিভারের বৈশিষ্ট্য। লিভারের সিরোসিস, বিলিয়াস কোলিক, ডিসমেনোরিয়া, রেনাল কোলিকের এটি পরিপূরক প্রতিকার হিসাবে কাজ করে। দীর্ঘস্থায়ী কোষ্ঠকাঠিন্যের ক্ষেত্রে ধীরে ধীরে নিয়মিতকরণ প্রভাব রয়েছে।

আর ৩৭ প্রধান উপাদানগুলির কর্মের পদ্ধতি : এটি একটি সত্য যে লিভারের প্রায় পুরো ডিটক্সিকেটিং সিস্টেমকে নিয়ন্ত্রণ করে, বিশেষ করে অন্ত্রে। অন্ত্রের মধ্যে পচনশীল সমস্ত খাবার লিভারের দিকে পরিচালিত হয়, এমন ঘটনাগুলি ব্যতীত যা কাইলিফারগুলিতে ঘনীভূত হয়। এটি লিভারের কার্যকরী ব্যাধিগুলি অন্ত্রে (স্টপেজ) একটি প্রতিক্রিয়া জড়িত করে। অন্যদিকে লিভার অন্ত্রের মাধ্যমে বিষাক্ত উপাদান বাইরের দিকে পাঠিয়ে দেয়। এই ক্ষেত্রে কোলেস্টেরিন ও পোরফাইরিন হোমোগ্লোবিন টিস্যুগুলির মধ্যস্থতাকারী হিসাবে বিশেষ উল্লেখ যোগ্য দাবি রাখে। তারা লিভার দ্বারা গ্রাস করা হয়. আধুনিক থেরাপিতে লিভার বিভিন্ন উপায়ে ক্ষতিকারক রিটক্সিকেশনের সংস্পর্শে আসে। এবং এটি মধ্যস্থতাকারী উপাদানগুলির একটি নিছক বিরতিহীন নির্গমন ও শোষণকে অন্তর্ভুক্ত করে। এই বিরতিটিই অন্ত্রে প্রভাব ফেলে। এর ফলে পেট ফাঁপা, মেটোরিজম, পেট ফাঁপা শূল, অন্ত্রের ক্র্যাম্প যা প্রায়ই অ্যাপেন্ডিসাইটিস, যা টিউমারের পরবর্তী প্রভাব হিসাবে বিবেচিত হয়। এই রোগগুলি নিকোটিন দ্বারা প্ররোচিত হতে পারে। দীর্ঘস্থায়ী কোষ্ঠকাঠিন্য ঘন ঘন হয়।

আরও জানুন – অ্যাডাল-৩৪ (প্লীহা ও লিভার)

আর ৩৭ ড্রপসটির মুল উপদান :
(১) অ্যালুমিনা (Alumina)।
(২) কোলোসিনথিস (Colocynthis)।
(৩) ল্যাকেসিস (Lachesis)।
(৪) লাইকোপোডিয়াম (Lycopodium)।
(৫) ব্রায়োনিয়া (Bryonia)।
(৬) মার্ক কর (Merc. Cor)।
(৭) প্লাম্বাম ক্রোমিকাম (Plumbum aceticum)।
(৮) সালফার (Sulfur)।

আর ৩৭ ড্রপসটির কর্ম মোর্ড :

(ক) অ্যালুমিনা (Alumina) : ছোট পিণ্ডে মল ও কোষ্ঠকাঠিন্য।

(খ) কোলোসিনথিস (Colocynthis) : ফ্ল্যাটুলেন্ট কোলিক, সংকোচনের প্রবণতা ও অন্ত্রের খিঁচুনি।

(গ) ল্যাকেসিস (Lachesis) : বদ হজম বিশেষত কুইনাইন অথবা অ্যালকোহলের অতিরিক্ত পরে।

(ঘ) লাইকোপোডিয়াম (Lycopodium) : সন্ধ্যায় ফ্ল্যাটুলেন্ট।

(ঙ) ব্রায়োনিয়া (Bryonia) : কোষ্ঠকাঠিন্য ও অন্ধকার মল

(চ) মার্ক কর (Merc. Cor) : ঞবহবংসঁং, ডিসেনটেরিফর্ম অন্ত্রের ক্র্যাম্প ইত্যাদি।

(ছ) প্লাম্বাম ক্রোমিকাম (Plumbum aceticum) : অন্ত্রের শূল, জলযুক্ত ও বমি বমি ভাবযুক্ত মল. দীর্ঘস্থায়ী ডায়রিয়া। পেট স্পর্শ করার জন্য খুব সংবেদনশীল ইত্যাদি।

(জ) সালফার (Sulfur) : অস্বস্তিকর পেট ফাঁপা, পেট ফুলে যাওয়া। ম্যাটিউটিনাল ডায়রিয়া। এটি মল নিয়মিত করে এবং অনেক ক্ষেত্রে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে।

আরও জানুন –  র‌্যাক্স নং- ৯১ (ঘাড়ের ব্যথা)

বিরতিহীন ব্যথা, কোলিক, মেটিওরিজম ও সন্দেহজনক ছিদ্রের ক্ষেত্রে, (অবশেষে অবিচ্ছিন্ন ফোঁটাগুলি মুখের মধ্যে আটকে রেখে ছিটকে যেতে পারে), অল্প সময়ের জন্য নিন, ১/২-১ ঘন্টা প্রতি ৩-৫ মিনিটে ৫-১০-১৫ ফোঁটা

আর ৩৭ ড্রপসটির মৌলিক পরিবর্তন, বিলিয়াস কোলিক, রেনাল কোলিক, অ্যাপেন্ডিক্সের প্রদাহ এবং অন্যান্য ক্ষেত্রে, নিম্নলিখিত মন্তব্যগুলি প্রযোজ্য।

চিকিৎসকের মন্তব্য :

(ক) পিত্তথলির শূল : অতিরিক্ত বা পর্যায়ক্রমে হলে আর – ৭ এর সাথে।
(খ) কিডনি স্টোন কোলিক্সে : অতিরিক্ত অথবা পর্যায়ক্রমে হলে আর – ২৭ এর সাথে।
(গ) শান্ত করতে : আর – ১৪ তুলনা করুন
(ঘ) এন্টারোকোলাইটিসে : আর – ৪ এর সাথে বিকল্প
(ঙ) ডুওডেনাল আলসার অথবা গ্যাস্ট্রাইটিসে: অতিরিক্ত আর – ৫।
(চ) প্যানক্রিয়াটাইটিসে : আর – ৭২ দেখুন।

আরও জানুন –  অ্যাডাল-৫০ (অন্ত্রের কৃমি)

আর ৩৭ ঔষধ সেবন বিধি : প্রাপ্ত বয়স্করা জন্য ১৫ থেকে ২০ ফোঁটা, শিশুরা ৭ থেকে ১০ ফোঁটা ঔষধ ১/৪ কাপ পানিতে মিশিয়ে দিনে ৩ বার অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করতে হবে।

চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।

সতর্কতা : গর্ভবতী মা অথবা দুগ্ধদানকারী মারা ঔষধ সেবনের পূর্বে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করা উত্তম।

শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : হোমিওপ্যাথি সর্বোত্তম চিকিৎসা প্রদান করে কারণ এটি নিরাপদ এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুক্ত।

ঔষধ সংরক্ষণ : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।

ঔষধের গুণগতমাণ : এটি একটি প্রাকৃতিক পণ্য, এটি কখনও কখনও সামান্য বৃষ্টিপাত অথবা মেঘলা হতে পারে, কিন্তু এটি পণ্যের গুণমান এবং এর কার্যকারিতা প্রভাবিত করে না। যদি এটি ঘটে তবে পণ্যটি ব্যবহার করার আগে ভালভাবে ঝাঁকি নিন। একবার আপনি সীলটি ভেঙে ফেললে, ওষুধগুলি দ্রুত ব্যবহার করা উচিত।

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন। এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন। সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যতœবান হউন এবং সাবধানে থাকুন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev