সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০১:২৬ অপরাহ্ন

আর ৩৬ ড্রপ (স্নায়ু রোগ)

আরোগ্য হোমিও হল / ৬৯ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ মঙ্গলবার, ৭ মে, ২০২৪, ৬:০৩ অপরাহ্ন
আর ৩৬ ড্রপ (স্নায়ু রোগ)

Dr.Reckeweg R36 drops (nervous disease)

আর ৩৬ ড্রপ (স্নায়ু রোগ)

আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “ আর ৩৬ ড্রপ (স্নায়ু রোগ) ” কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।

প্রস্তুত প্রণালী : Dr.Reckeweg R36 ড্রপসটি নার্ভাস ডিজিজ ড্রপসটি জার্মান কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ।

ব্যবহার : আর ৩৬ ড্রপসটি বিভিন্ন কারণের কারণে ঘটে যাওয়া ঘটনার ক্ষেত্রে শিশুদের স্নায়ুতন্ত্রের অতিরিক্ত সংবেদনশীলতা। স্নায়বিক রোগ, সেইসাথে সেন্ট ভিটাস’ড্যান্স, সব ক্ষেত্রেই মোড রেট অ্যাকশন এবং আর – ৩৬ হোমিওপ্যাথি ডিটক্সিক্যান্ট ওষুধের মাধ্যমে চিকিৎসা করা হয়।

আর ৩৬ ড্রপসটির উপকারিতা : আর ৩৬ ড্রপসটি হল সেন্ট ভিটাস এবং অনুরূপ ডিজেনারেটিভ স্নায়ু রোগ ব্যাধিগুলির জন্য একটি জার্মান পেটেন্ট ফর্মুলেশন। এতে এগারিকাস মাসকেরিয়াস (Agaricus Mus), ইগ্নেসিয়া (Ignatia) ইত্যাদির মতো গুরুত্বপূর্ণ ঔষধ মিশ্রণ রয়েছে যা স্নায়ুতন্ত্রের অতিরিক্ত সংবেদনশীলতা, স্নায়বিক রোগ, স্নায়বিক জ্বালা-যন্ত্রণার জন্য ইগ্নেসিয়া এবং ক্র্যাম্পের জন্য ম্যাগ ফস (Mag Phos ) এর উপর কাজ করে।

আরও জানুন –এইচ আর – ৪২ (শিরার প্রদাহে চিকিৎসায় কার্যকর)

আর ৩৬ স্নায়ু রোগ : সিডেনহাম কোরিয়া, যাকে আমরা সেন্ট ভিটাস ড্যান্সও বলি, কোরিয়া মাইনর, সংক্রামক কোরিয়া, অথবা রিউম্যাটিক কোরিয়া, একটি স্নায়বিক ব্যাধি যা শরীরের বিভিন্ন অংশে পেশী গোষ্ঠীর অনিয়মিত এবং অনিচ্ছাকৃত নড়াচড়ায় এটি চিহ্নিত করা হয় যা এটি স্ট্রেপ্টোকোকাল সংক্রমণকে অনুসরণ করে। সেন্ট ভিটাস নৃত্য, বাতজ্বরের একটি নিউরোসাইকিয়াট্রিক প্রকাশের ঘটনা যা ৫ থেকে ৩৫% পর্যন্ত পরিবর্তিত হয়। এটি বাতজ্বরের অন্যান্য প্রকাশের সাথে ঘটতে পারে। এটি ডিজেনারেটিভ স্নায়ু রোগের একটি বৃহত্তর গ্রুপের একটি অংশ যার মধ্যে রয়েছে হান্টিংটন ডিজিজ, পারকিনসন্স ডিজিজ, স্পাইনাল পেশির অ্যাট্রোফি ইত্যাদি।

আর ৩৬ ড্রপসটির ইঙ্গিত : এটি সেন্ট ভিটাস নৃত্য (দ্রুত, সমন্বয়হীন ঝাঁকুনি চলাচলের দ্বারা চিহ্নিত ব্যাধি), চোরিয়া। স্নায়ুতন্ত্রের অত্যধিক সংবেদনশীলতা ঝাঁকুনি, অনিয়ন্ত্রিত শরীরের নড়াচড়ারই এর কারণ।

আর – ৩৬ মুল উপকরণ :
(ক) ইগ্নেসিয়া D12 (Ignatia D12 )|
(খ) এগারিকাস মাসকেরিয়াস D12 (Agaricus Mus D12)|
(গ) জিংকাম মেটালিকান D8 (Zincum Metallicum D8)|
(ঘ) ল্যাকেসিস D30 (Lachesis D30)|
(ঙ) ম্যাগনেসিয়াম ফসফোরিকাম D12 (Magnesia Phosphorica D12)|
(চ) ফসফরাস D30 (Phosphorus D30)|

আরও জানুন –  অ্যাডাল-৩৯ (সায়াটিকা, বাত ব্যথা)

আর – ৩৬ ড্রপসটির উপাদানের কর্মের মোড :
আর -৩৬ ড্রপসটি স্নায়ুতন্ত্রের ব্যাধিগুলির চিকিৎসার জন্য নিম্নলিখিত উপাদানগুলি থেকে উদ্ভূত হয়েছে।

(১) ইগ্নেসিয়া (Ignatia ) : এটি স্নায়বিক জ্বালা ও অস্থির ঘুমের চিকিৎসা করে।

(২) এগারিকাস মাসকেরিয়াস (Agaricus Mus) : এটি পেশীর খিঁচুনি (ফিট) এবং স্নায়বিক মোচড় (হঠাৎ ঝাঁকুনি) চিকিৎসা করে।

(৩) জিংকাম মেটালিকান (Zincum Metallicum) : পায়ে অস্থিরতা, খিঁচুনি ও নার্ভাস টুইচের চিকিৎসা করে।

(৪) ল্যাকেসিস (Lachesis) : এটি স্নায়ুতন্ত্রের ব্যাধি যেমন – স্নায়বিক জ্বালা এবং অস্থির ঘুমের ও সমস্ত তীব্র ক্ষেত্রে চিকিৎসা করে।

(৫) ম্যাগনেসিয়াম ফসফোরিকাম (Magnesia Phosphorica) : এটি মেরুদণ্ডের মজ্জার ক্র্যাম্প ও জ্বালার সাধারণ প্রতিকার হিসাবে কাজ করে।

(৬) ফসফরাস (Phosphorus) : খুব দ্রুত বৃদ্ধির ক্ষেত্রে ও সাধারণভাবে খুব পাতলা হওয়ার ক্ষেত্রে সাংবিধানিক প্রতিকার হিসাবে কাজ করে।

আরও জানুন –  কেন্ট ১৭ ( সাইনোসাইটিস রোগে কার্যকর)

আর – ৩৬ ঔষধ সেবন বিধি : মাধ্যাকর্ষণ মাত্রা অনুযায়ী প্রতিদিন ২ থেকে ৩ বার ১০ থেকে ১৫ ফোঁটা ঔষধ ১/৪ পানিতে মিশিয়ে সেবন করুণ। তীব্র ক্ষেত্রে, ঘন ঘন ফিট হওয়া এবং ক্রমাগত খিঁচুনি ক্ষেত্রে , প্রতি ১ থেকে ২ ঘন্টা পর, ফিট হওয়ার তীব্র ক্ষেত্রে ওষুধটি অন্যান্য সাথে প্রতি পাঁচ মিনিটে (সম্ভবত পর্যায়ক্রমে) নেওয়া যেতে পারে। অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করুণ। সব ধরনের উদ্দীপক এড়িয়ে চলতে হবে, বিশেষ করে অ্যালকোহল এবং চা।

চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।

সতর্কতা : গর্ভবতী মা অথবা দুগ্ধদানকারী মারা ঔষধ সেবনের পূর্বে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করা উত্তম।

শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : হোমিওপ্যাথি সর্বোত্তম চিকিৎসা প্রদান করে কারণ এটি নিরাপদ এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুক্ত।

ঔষধ সংরক্ষণ : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।

ঔষধের গুণগতমাণ : এটি একটি প্রাকৃতিক পণ্য, এটি কখনও কখনও সামান্য বৃষ্টিপাত অথবা মেঘলা হতে পারে, কিন্তু এটি পণ্যের গুণমান এবং এর কার্যকারিতা প্রভাবিত করে না। যদি এটি ঘটে তবে পণ্যটি ব্যবহার করার আগে ভালভাবে ঝাঁকি নিন। একবার আপনি সীলটি ভেঙে ফেললে, ওষুধগুলি দ্রুত ব্যবহার করা উচিত।

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন। এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন। সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev