সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১১:৩৫ পূর্বাহ্ন

আর ৩৪ (রিক্যালসিফাইং ড্রপস)

আরোগ্য হোমিও হল / ২৫ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ বুধবার, ৮ মে, ২০২৪, ৬:১৯ অপরাহ্ন

Dr. Reckeweg R34 (রিক্যালসিফাইং ড্রপস)

R 34 (Recalcifying Drops)

আর – ৩৪ (রিক্যালসিফাইং ড্রপস)

প্রস্তুত প্রণালী : Dr. Reckeweg R34 ড্রপসটি জার্মান কম্বিনেশর হোমিওপ্যাথি ঔষধ।

ব্যবহার :  আর – ৩৪ ড্রপসটি (রিক্যালসিফাইং ড্রপস) ক্যালসিয়াম ঘাটতিতে ব্যবহার করা হয়।

আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “ আর – ৩৪ (রিক্যালসিফাইং ড্রপস)” কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।

আর – ৩৪ রিক্যালসিফাইং ড্রপস সম্পর্কে ধারণা : আর – ৩৪ ড্রপসটি হল হোমিওপ্যাথিক ওষুধ যা ক্যালসিয়ামের ঘাটতি এবং অন্যান্য হাড়ের স্বাস্থ্য সমস্যাগুলির লক্ষণে চিকিৎসা করে। এটিতে ক্যালসিয়াম ফ্লোরাট, ক্যালসিয়াম ফসফরিক ইত্যাদির মতো গুরুত্বপূর্ণ উপাদান রয়েছে যা চুনযুক্ত (ক্যালসিয়াম কার্বনেট ধারণকারী) টিস্যু এবং হাড়ের বৃদ্ধিতে উদ্বেগ (বিক্ষিপ্ততা) উপর কাজ করে। এটি ওসিয়াস সিস্টেম (হাড় নিয়ে গঠিত বা পরিণত), এক্সোস্টোসিস (হাড়ের উপর কার্টিলাজিনাস টিস্যুর সৌম্য বৃদ্ধি), পেরিওস্টাইটিস (হাড়ের আবরণে থাকা ঝিল্লির প্রদাহ) এবং হাড়ের ভঙ্গুরতা (সহজে ভাঙ্গা বা ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার গুণমান) এর জন্যও নির্দেশিত। এটি অস্টিওম্যালাসিয়া (হাড়ের নরম হওয়া), রিকেটস (অসিদ্ধ ক্যালসিফিকেশন, নরম হয়ে যাওয়া ও হাড়ের বিকৃতি দ্বারা চিহ্নিত রোগ), কক্সাইটিস (নিতম্বের জয়েন্টের প্রদাহ) এবং আর্থ্রাইটিস (অস্থিসন্ধির বেদনাদায়ক প্রদাহ ও শক্ত হওয়া) চিকিৎসা করে।

আর – ৩৪ ড্রপসটির ইঙ্গিত : এটি চুনযুক্ত টিস্যু ও হাড়ের বৃদ্ধি, ওসিয়াস সিস্টেমের প্যাথলজিকাল বৈশিষ্ট্যগুলির সমস্যা, এক্সোস্টোসিস, পেরিওস্টাইটিস, হাড়ের ভঙ্গুরতা, অস্টিওম্যালাসিয়া, রিকেটস, কক্সাইটিস ও আর্থ্রাইটিস, সেইসাথে নিউক্লিয়াস পালপোসাস (পরিপূরক) হিসাবে ব্যবহার হয়।

আরও পড়ুন –  অ্যাডাল-২৬ (হাড় এবং জয়েন্টগুলিকে পুনরুজ্জীবিত করে)

হাড় স্বাস্থ্য সমস্যা সম্পর্কে ধারণা : ক্যালসিয়ামের অভাবের লক্ষণগুলি হাড়ের গঠনের উপর বিরূপ প্রভাব ফেলে যেমন – পেশীর খিঁচুনি, পায়ে-হাত ও মুখমন্ডলে খিঁচুনি ও অসাড়তা, বিষণ্নতা ইত্যাদি। শক্তিশালী হাড় তৈরি করতে এবং রক্তচাপকে স্থিতিশীল করতে শরীরে ক্যালসিয়াম প্রয়োজন হয়। পেশী, হার্টের ছন্দ এবং আরও অনেক কিছুর সঠিক কার্যকারিতার জন্য ক্যালসিয়াম প্রয়োজন। এটি রক্তচাপ বজায় রাখে, রক্ত জমাট বাঁধা নিয়ন্ত্রণ করে এবং ক্যান্সার প্রতিরোধ করে। শরীরে ক্যালসিয়ামের অভাব হলে অস্টিওপোরোসিস, রিকেট ইত্যাদির মতো রোগ হয়। ক্যালসিয়ামের ঘাটতি হলে যে সমস্যা দেখা যায় যেমন – অপুষ্টি, ম্যালাবসর্পশন অর্থাৎ যখন শরীর খাওয়া খাবার থেকে প্রয়োজনীয় খনিজগুলি শোষণ করে না। মহিলাদের মেনোপজের সময় এবং পরে প্রায় ১৫০০ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম খাওয়া উচিত। অস্টিওপোরোসিসের কারণে হাড় ভঙ্গুর হয়ে যায়। অস্টিওপোরোসিস মেরুদণ্ডের ফ্র্যাকচার, অক্ষমতা ইত্যাদি মতো জটিলতা সৃষ্টি করতে পারে। ক্যালসিয়ামের ঘাটতির কারণে ক্যান্সার, হৃদরোগ, বন্ধ্যাত্ব ইত্যাদির মতো বড় রোগ হতে পারে।

আর – ৩৪ ড্রপসটি হাড়ের রোগের চিকিৎসার জন্য হোমিওপ্যাথি ওষুধের  মুল উপাদান:
(১) ক্যালসিয়াম ফ্লোরাট D12 (Calcium fluoratum D12)।
(২) ক্যালসিয়াম ফসফরিক (Calcium hypophosphorosum D12)।
(৩) ক্যালসিয়াম হাইপোফসফোরিক (Calcium hypophosphorosum)।
(৪) ক্যামোমিলা D6 (Chamomilla D6)।
(৫) মেজেরিয়াম D6 (Mezereum D6)।
(৬) মারকিউরিয়াস প্রিসিপিটাস রুবার D12 (Mercurius praecipitatus ruber D12)।
(৭) সালিসিয়া D30 (Silicea D30)।
(৮) হেকলা লাভা D12 (Hekla Lava D12)।

আরও পড়ুন –  বায়ো কম্বিনেশন ২১ (দাঁত উঠতে বিলম্বিত ও ডায়রিয়া)

আর – ৩৪ ড্রপসটির পৃথক উপাদানের কর্মের মোড :  আর – ৩৪ ড্রপসটির মূল বৈশিষ্ট্যগুলি ক্যালসিয়ামের অভাবের লক্ষণগুলির চিকিত্সার জন্য নিম্নলিখিত উপাদানগুলি থেকে উদ্ভূত হয়েছে।

(ক) ক্যালসিয়াম ফ্লোরাট (Calcium fluoratum) : এটি দাঁতের এনামেলের চিকিৎসা করে।

(খ) ক্যালসিয়াম হাইপোফসফোরিক (Calcium hypophosphorosum) : এটি গর্ভাবস্থায় ক্যালসিয়াম উৎপাদনের উপর নিয়ন্ত্রণ করে।

(গ) ক্যালসিয়াম ফসফরিক (Calcium hypophosphorosum) : এটি হাড়ের বৃদ্ধি, ক্যালসিয়াম উৎপাদনের ঘাটতি এবং রক্তাল্পতায় আক্রান্ত শিশু, দীর্ঘস্থায়ী মাথাব্যথার, লাল রক্তকণিকার অভাবের চিকিৎসা করে।

(ঘ) ক্যামোমিলা (Chamomilla) : এটি ক্যালসিয়ামের অভাবের উপসর্গ যেমন – মাথার ঘাম, দাঁত ও বিরক্তি, রাগান্বিত জ্বালা, মাথায় ঘাম, বাচ্চাদের দাঁতের চিকিৎসা করে।

(ঙ) মেজেরিয়াম (Mezereum) : এটি হাড়ের ত্বকের ব্যথা ও প্রদাহের চিকিৎসা করে।

(চ) মারকিউরিয়াস প্রিসিপিটাস রুবার (Mercurius praecipitatus ruber) : এটি ওসিয়াস সিস্টেমের ঘাটতি, পেরিওস্টাইটিস, এক্সোস্টিসিস সহ হাড়ের ব্যথা কাজ করে।

(ছ) সালিসিয়া (Silicea) : এটি বৃদ্ধির উদ্দীপক হিসাবে কাজ করে ও হাড়ের ফিস্টুলার (ফাঁপা অথবা টিউবুলার অঙ্গ এবং শরীরের পৃষ্ঠের মধ্যে অস্বাভাবিক অথবা অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে তৈরি।

(জ) হেকলা লাভা (Hekla Lava) : এক্সোস্টিসিসের চিকিৎসা করে যা পায়ে প্রভাব ফেলে।

চিকিৎসকের মন্তব্য
(১) বেদনাদায়ক দাঁত : অতিরিক্ত আর – ৩৫।
(২) ক্র্যাডল ক্যাপে : প্রয়োজনে অতিরিক্ত আর ২৩।
(৩) হাইপারহাইড্রোসিসে: আর -৩২ তুলনা করুন।
(৪) অস্টিওআর্থারাইটিসে : অতিরিক্ত আর ৭৩।
(৫) ভার্টিব্রাল ডিস্কের অস্টিওকন্ড্রাইটিসে, মেরুদণ্ডের অস্টিওআর্থারাইটিস, উপরন্তু আর – ১১।

আরও পড়ুন –  এইচ আর – ৫৬  (হাড়ের চিকিৎসায় কার্যকর)

আর- ৩৪ ঔষধ সেবন বিধি : স্তন্যপান করানো এবং বাড়ন্ত বয়সে শিশুদের নিয়মিতভাবে দিনে একবার দুবার ১০-১৫ ফোঁটা দেওয়া হবে (দুগ্ধের বাচ্চাদের জন্য উপযুক্তভাবে ঝাঁকানো ফিডিং বোতলে স্বাভাবিক দুধের সাথে মিশ্রিত করে সেবন করানো যাবে)। রিকেট বা হাড়ের অন্যান্য রোগের মতো রোগের ক্ষেত্রে, আগে থেকে নেওয়া ভিটামিনের সাথে খাবারের আগে ১/৪ জলে ১০-১৫ ফোঁটা দিনে ৪-৬ বার যোগ করতে হবে। রাতে হাড়ের ব্যথা ঘন ঘন ডোজ জন্য প্রতি ১/৪ ঘন্টা ১০-১৫ ফোঁটা সেবন করুণ।
শিশুদের সাথে দাঁত উঠতে অসুবিধা হলে, দীর্ঘমেয়াদী নিরাময়ের উপায়ে দিনে ৩-৪ বার, এবং, তীক্ষ্ণ ব্যথার ক্ষেত্রে, প্রতি ১০ মিনিটে ৮-১০-১৫ ফোঁটা ১/৪ পানি মিশিয়ে দিন।

চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।

সতর্কতা : গর্ভবতী মা অথবা দুগ্ধদানকারী মারা ঔষধ সেবনের পূর্বে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করা উত্তম।

শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : হোমিওপ্যাথি সর্বোত্তম চিকিৎসা প্রদান করে কারণ এটি নিরাপদ এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুক্ত।

ঔষধ সংরক্ষণ : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।

ঔষধের গুণগতমাণ : এটি একটি প্রাকৃতিক পণ্য, এটি কখনও কখনও সামান্য বৃষ্টিপাত অথবা মেঘলা হতে পারে, কিন্তু এটি পণ্যের গুণমান এবং এর কার্যকারিতা প্রভাবিত করে না। যদি এটি ঘটে তবে পণ্যটি ব্যবহার করার আগে ভালভাবে ঝাঁকি নিন। একবার আপনি সীলটি ভেঙে ফেললে, ওষুধগুলি দ্রুত ব্যবহার করা উচিত।

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন। এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন। সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev