সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১১:৪০ পূর্বাহ্ন

আর ২৯ (ভার্টিগো এবং সিনকোপ)

আরোগ্য হোমিও হল / ২৬ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ শনিবার, ১১ মে, ২০২৪, ১১:১৭ অপরাহ্ন
আর - ২৯ (ভার্টিগো এবং সিনকোপ)

Dr. Reckeweg R29 (ভার্টিগো এবং সিনকোপ)
আর – ২৯ (ভার্টিগো এবং সিনকোপ)
R – 29 (vertigo and syncope)
 প্রস্তুত প্রণালী : Dr. Reckeweg R29 / জার্মাম কম্বিনেশর হোমিওপ্যাথি ঔষধ।
ব্যহার : আর ২৯ ড্রপসটি সেবনে ভার্টিগো এবং সিনকোপ থেকে মুক্তি মিলে।
আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো  “ আর – ২৯ (ভার্টিগো এবং সিনকোপ)” কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।
আর – ২৯ ড্রপসটির ইঙ্গিত : ভার্টিগো বিভিন্ন কারণে সৃষ্টি হতে পারে। মেনিয়ার রোগের ভার্টিগো। সেরিব্রাল স্ক্লেরোসিসের ফলে সেরিব্রাল ভাস্কুলার ব্যাঘাত, ANS নির্ভর সংবহন ব্যাঘাত। ভ্রমণ অসুস্থতা ইত্যাদি।
আর – ২৯ ড্রপসটির উপকারিতা : আর – ২৯ হল একটি জার্মান পেটেন্ট ঔষধ যা মেনিয়ারের রোগ, সেরিব্রাল স্ক্লেরোসিসের ফলে সেরিব্রাল ভাস্কুলার ব্যাঘাত, ট্র্যাভেল সিকনেস ও স্নায়ুতন্ত্র (ANS)–নির্ভর সঞ্চালনের সাথে সম্পর্কিত ব্যাঘাত সহ বিভিন্ন কারণ থেকে ভার্টিগোতে কাজ করে।

আরও পড়ুন – অ্যাডল-১ (মাথা ব্যথা ও মাইগ্রেন)

আর ২৯ এই প্রতিকারটি বিশেষভাবে জন্য নির্দেশিত :
(ক) মেনিয়ার ডিজিজের ভার্টিগো : অভ্যন্তরীণ কানের একটি সমস্যা যার ফলে গুরুতর মাথা ঘোরা এবং শ্রবণশক্তি হ্রাস পায়।
(খ) সেরিব্রাল ভাস্কুলার ব্যাঘাত :সেরিব্রাল ধমনী শক্ত হয়ে যাওয়া থেকে উদ্ভূত সমস্যায় কাজ করে।
(গ) ANS নির্ভরশীল সংবহন সংক্রান্ত ব্যাঘাত : স্বায়ত্তশাসিত স্নায়ুতন্ত্রের সাথে সম্পর্কিত সমস্যা, রক্ত প্রবাহের কার্যকর।
(ঘ) ট্রাভেল সিকনেস : এটি একটি মোশন সিকনেসের সমস্যা যার ফলে ভার্টিগো হয়।
আর ২৯ ভার্টিগোর পরিচিতি : ভার্টিগোকে প্রায়ই মাথা ঘোরা অথবা আপনার চারপাশ ঘুরছে এমন অনুভূতি হিসাবে বর্ণনা করা হয়। এই অবস্থাটি বিভিন্ন উৎস থেকে উদ্ভূত হতে পারে।
* Benign Paroxysmal Positional Vertigo (BPPV) :  সবচেয়ে সাধারণ ফর্ম, যেখানে আপনার মাথার অবস্থানের নির্দিষ্ট একটি পরিবর্তনের কারণে হালকা থেকে তীব্র মাথা ঘোরার সংক্ষিপ্ত পর্বগুলি শুরু হয়ে থাকে।
* মেনিয়ারের রোগ এবং অন্যান্য স্নায়বিক সমস্যা : মস্তিষ্কের টিউমার অথবা স্ট্রোক সহ।
* ওষুধের প্রভাব এবং অন্যান্য শারীরিক অবস্থা : যেমন – মাইগ্রেন অথবা ঘাড় বা মাথায় আঘাত ইত্যাদি।
আর – ২৯ এর মুল উপাদান :
(১) আর্জেন্টাম নাইট্রিকাম D30 (Argentum Nitricum D30)।
(২) ককুলাস D30 (Cocculus D30)।
(৩) কোনিয়াম D30 (Conium D30)।
(৪) থেরিডিয়ন কুরাসাভিকাম D30 (Theridion Curassavicum D30)।

আরও পড়ুন – আর ২৯ (ভার্টিগো এবং সিনকোপ)

আর – ২৯ ড্রপসটির কিভাবে প্রতিটি উপাদান সাহায্য করে।
(ক) আর্জেন্টাম নাইট্রিকাম (Argentum Nitricum) : এটি সাধারণ অস্থিরতা, কাঁপুনি, কানের মধ্যে গুঞ্জন এবং মাথা ঘোরার মতো লক্ষণগুলির সাথে স্নায়বিক দুর্বলতাকে সম্বোধন করে।
(খ) ককুলাস (Cocculus) : এটি সেরিব্রো-স্পাইনাল সিস্টেমের উপর কাজ করে, যা বমি বমি ভাবের সাথে মাথা ঘোরা ও বসলে আরও খারাপ হয়ে যায়।
(গ) কোনিয়াম (Conium) : এটি সেরিব্রাল অ্যানিমিয়া ও মাথা ঘোরা অনুভূতি পরিচালনা করে, বিশেষ করে এটি বয়স্কদের জন্য উপকারী।
(ঘ) থেরিডিয়ন কুরাসাভিকাম (Theridion Curassavicum) : চোখ বন্ধ করলে অথবা শব্দ এবং তাপের এক্সপোজারের কারণে মাথা ঘোরার জন্য অত্যান্ত কার্যকরী।
আর – ৩৩ ঔষধ সেবন বিধি : দীর্ঘস্থায়ী নিরাময়ের ক্ষেত্রে সকাল-দুপুর-রাতে অথবা সকালে রাতে ১০-১৫ ফোঁটা ঔষধ ১/৪ জলে মিশিয়ে সেবন করুণ। আক্রমণের আগে প্রতি দুই ঘন্টার জন্য ২০ ফোঁটা দেওয়া হয়। চিকিৎসার পর তিন মাস পর্যন্ত চলতে পারে। অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করুণ।

আরও পড়ুন – বায়ো কম্বিনেশন ১২ (মাথাব্যথা ও নিদ্রাহীনতা)

অত্যধিক সংবেদনশীলতা : আপনার যদি ড্রপের কোনো উপাদান থেকে অ্যালার্জি থাকে তবে ব্যবহার করবেন না।
চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।
সতর্কতা : গর্ভবতী মা অথবা দুগ্ধদানকারী মারা ঔষধ সেবনের পূর্বে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করা উত্তম।
শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।
পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : হোমিওপ্যাথি সর্বোত্তম চিকিৎসা প্রদান করে কারণ এটি নিরাপদ এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুক্ত।
ঔষধ সংরক্ষণ : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।
ঔষধের গুণগতমাণ : এটি একটি প্রাকৃতিক পণ্য, এটি কখনও কখনও সামান্য বৃষ্টিপাত অথবা মেঘলা হতে পারে, কিন্তু এটি পণ্যের গুণমান এবং এর কার্যকারিতা প্রভাবিত করে না। যদি এটি ঘটে তবে পণ্যটি ব্যবহার করার আগে ভালভাবে ঝাঁকি নিন। একবার আপনি সীলটি ভেঙে ফেললে, ওষুধগুলি দ্রুত ব্যবহার করা উচিত।
আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন।  এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।  সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন।  আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev