সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১১:৩০ পূর্বাহ্ন

আর – ২১ (রক্ত ও ত্বকের রোগ, একজিমা, চুলকানি)

আরোগ্য হোমিও হল / ৯১ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ বৃহস্পতিবার, ১৬ মে, ২০২৪, ১২:১৭ পূর্বাহ্ন

Dr.Reckeweg R21-Reconstituant drops- Blood & Skin disorders, Eczema, Itching
আর – ২১ (রক্ত ও ত্বকের রোগ, একজিমা, চুলকানি)
আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “আর – ২১ (রক্ত ও ত্বকের রোগ, একজিমা, চুলকানি) ” কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।
প্রস্তত প্রণালী : Dr.Reckeweg R21/পুনর্গঠনকারী ড্রপসটি জার্মান কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ।
ব্যবহার : আর – ২১ ড্রপসটি দীর্ঘস্থায়ী একজিমা, চর্মরোগ প্রচলিত থেরাপি ফলন না. চর্মরোগের সাথে যুক্ত ক্ষেত্রে সাংবিধানিক উন্নতি।  প্রতিক্রিয়াশীলতা বাড়ানোর কাজে ব্যবহার হয়।
আর – ২১ পুনর্গঠনকারী ড্রপটির উপকারিতা : আর – ২১ পুনর্গঠনকারী ড্রপটি সমস্ত ধরণের চর্মরোগের জন্য নির্দেশিত হয়, একটি হোমিওপ্যাথিক ওষুধ বেশ কিছু ঔষধ মিশ্রণ এটি ড্রপ আকারে পাওয়া যায়। এতে মেডোরিনাম (Medorrhinum),  সোরিনাম (Psorinum)  ইত্যাদির মতো এটিতে মূল ঔষধ থাকায় যা দীর্ঘস্থায়ী একজিমা (ত্বকের প্যাচগুলি রুক্ষ হয়ে যায় এবং ফোস্কা দিয়ে ফুলে যায়) এবং অন্যান্য চর্মরোগের উপর কাজ করে।
বায়ো কম্বিনেশন ২৫
আর – ২১ ড্রপসটির ভূমিকা : সাধারণত চর্মরোগের মধ্যে রয়েছে একজিমা, আঁচিল, পুঁজ ইত্যাদি। ত্বক জীবাণু থেকে মানবদেহের শরীরকে রক্ষা করে এবং শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। ত্বক হল শরীরের বৃহত্তম অঙ্গ যার ওজন প্রায় ৩.৬ কেজি এবং পৃষ্ঠের ক্ষেত্রফল প্রায় দুই বর্গ মিটার। ত্বক অন্তরক ঢাল হিসাবে রক্ষা করে, জলরোধী যা ক্ষতিকারক রাসায়নিক, তাপমাত্রার প্রান্ত ও ক্ষতিকারক সূর্যালোক থেকে শরীরকে রক্ষা করে। ত্বকে জমাট বাঁধার কারণে  জ্বালাপোড়া, ফোলা বা লালভাব, চুলকানি, জ্বালাপোড়া ইত্যাদি লক্ষণ দেখা দেয়। বিরক্তিকর, অ্যালার্জি, ইমিউন সিস্টেমের সমস্যা ইত্যাদির কারণে ত্বকের সমস্যা হয়ে থাকে। ত্বকের লক্ষণ গুলোর মধ্যে রয়েছে – ফোঁড়া, ফোস্কা, ফুসকুড়ি, বাম্প , শুষ্ক ত্বক, ক্ষত, জ্বালাপোড়া, চুলকানি, প্যাচ, পুঁজ ভর্তি ফোঁড়া ইত্যাদি কারণগুলির মধ্যে রয়েছে অ্যালার্জেন, জেনেটিক্স, অসুস্থতা, সংক্রমণ, ইমিউন সিস্টেমের, দুর্বলতা, ডায়েট, স্ট্রেস ইত্যাদি।

আরও পড়ুন –  এন – ২৩ (একজিমা ড্রপস)

আর – ২১ ড্রপসটির মুল উপকরণ :
(১) থুজা অক্সিডেন্টালিস D30 (Thuja occidentalis D30)।
(২) মেডোরিনাম D30 (Medorrhinum D30)।
(৩) সোরিনাম D30 (Psorinum D30)।
(৪) ভ্যাকসিনাম D30 (Vaccininum D30)।

আরও পড়ুন –  বায়ো-কম্বিনেশন ২০ (চর্ম, ত্বক, ব্রণ, হারপিস)

আর – ২১ ড্রপসটির পৃথক উপাদানের কর্মের মোড : আর – ২১ ড্রপের মূল বৈশিষ্ট্যগুলি নিম্নলিখিত উপাদানগুলি থেকে উদ্ভূত হয়েছে যা সব চর্মরোগের চিকিত্সায় প্রযোজ্য।
(ক) থুজা অক্সিডেন্টালিস (Thuja occidentalis) : এই ঔষধটি অতি সংবেদনশীল এবং বেদনাদায়ক ত্বকের চিকিৎসা করে যা স্পর্শে আরও খারাপ হয়ে যায় যার সাথে গঠন (ত্বকের উপর পোকামাকড়ের মতো সংবেদন), জ্বলন ও চুলকানি। বিশেষ করে এটি  মাথার ত্বক এবং মুখের আঁচিল, ভেজা একজিমার চিকিৎসায় কার্যকর।
(খ) মেডোরিনাম (Medorrhinum) : এটি ত্বকের চুলকানি, লালভাব, আঁচিল (ত্বকের উপর সৌম্য বৃদ্ধি যা ভাইরাস দ্বারা সষ্টি) এবং চাপা গনোরিয়া (মূত্রনালী থেকে প্রদাহজনক স্রাবের সাথে জড়িত ভেনেরিয়াল রোগ) যা ছড়িয়ে দেয় ইত্যাদির চিকিৎসা করে।
(গ) সোরিনাম (Psorinum) : এটি গ্রন্থি এবং লিম্ফ্যাটিক সিস্টেমকে প্রভাবিত করে। এটি নোডুলস, ভেসিকল (ছোট তরল-ভরা মূত্রাশয়) এবং পুঁজ (ফোস্কা অথবা পিম্পলযুক্ত পুঁজ) সাধারণ দুর্বলতা (শারীরিক দুর্বলতা) এবং আপত্তিকর স্রাবের চিকিৎসা করে।
(ঘ) ভ্যাকসিনাম (Vaccininum) :  এটি স্মল পক্সের টিকা দেওয়ার প্রভাব, স্নায়ুতন্ত্র (একটি স্নায়ুর সাথে ব্যথা), ত্বকের বিস্ফোরণ ও সাধারণ ডিসক্রেসিয়া (শরীরের বিশৃঙ্খলা) এর প্রভাব সহ সাধারণ ত্বকের রোগের চিকিৎসা করে।

আরও পড়ুন – শিশুর শরীরে চুলকানি

আর –২১ ঔষধ সেবন বিধি : দীর্ঘস্থায়ী নিরাময়ের ক্ষেত্রে সকাল-দুপুর-রাতে অথবা সকালে রাতে ১০-১৫ ফোঁটা ঔষধ ১/৪ জলে মিশিয়ে সেবন করুণ। আক্রমণের আগে প্রতি দুই ঘন্টার জন্য ২০ ফোঁটা দেওয়া হয়। চিকিৎসার পর তিন মাস পর্যন্ত চলতে পারে। অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করুণ।
চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।
সতর্কতা : গর্ভবতী মা অথবা দুগ্ধদানকারী মারা ঔষধ সেবনের পূর্বে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করা উত্তম।

আরও পড়ুন –   যোনিতে চুলকানি ও চাকা চাকা সাদা স্রাব কেন হয়?

শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।
পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : হোমিওপ্যাথি সর্বোত্তম চিকিৎসা প্রদান করে কারণ এটি নিরাপদ এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুক্ত।
ঔষধ সংরক্ষণ : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।
ঔষধের গুণগতমাণ : এটি একটি প্রাকৃতিক পণ্য, এটি কখনও কখনও সামান্য বৃষ্টিপাত অথবা মেঘলা হতে পারে, কিন্তু এটি পণ্যের গুণমান এবং এর কার্যকারিতা প্রভাবিত করে না। যদি এটি ঘটে তবে পণ্যটি ব্যবহার করার আগে ভালভাবে ঝাঁকি নিন। একবার আপনি সীলটি ভেঙে ফেললে, ওষুধগুলি দ্রুত ব্যবহার করা উচিত।
2454
আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন।  এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।  সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন।  আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev