সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১২:৪০ অপরাহ্ন

আর ১৮ (কিডনি এবং মূত্রাশয় ড্রপ)

আরোগ্য হোমিও হল / ৮৯ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ রবিবার, ১৯ মে, ২০২৪, ১২:০৪ পূর্বাহ্ন
আর - ১৮ (কিডনি এবং মূত্রাশ ড্রপ)

Dr. Reckeweg R18/Kidney and Bladder Drops

আর – ১৮ (কিডনি এবং মূত্রাশয় ড্রপ)

প্রস্তুত প্রণালী : Dr.Reckeweg R18/ ড্রপসটি জার্মান হোমিওপ্যাথি কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ।

ব্যবহার : আর -১৮ ড্রপসটি কিডনি ও ব্লাডার ড্রপস, ইউটিআই, সিস্টাইটিস কিডনি এবং মূত্রাশয়ে ব্যবহার করা হয়।

আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “ আর – ১৮ কিডনি এবং মূত্রাশয় ড্রপ” কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।

আর – ১৮ ড্রপসটির উপকারিতা : কিডনি ও মূত্রাশয় ড্রপস ( সিস্টোফাইলিন নামেও পরিচিত) এটি একটি জার্মান হোমিওপ্যাথিক বিশেষ ওষুধ যা কিডনি এবং পিত্তথলির (সংক্রমণ) স্ফীত, জ্বালা, ব্যথা এবং রঙিন প্রস্রাবের লক্ষণগুলি দুর করে।

বায়ো কম্বিনেশন ২৫ (অম্লতা, পেট ফাঁপা ও বদহজম)

আর – ১৮ ড্রপসটির ইঙ্গিত : এটি কিডনির প্রদাহ, রেনাল ক্যালকুলি, কিডনিতে তীক্ষ্ণ স্টিংিং ব্যথা, স্যাক্রাল অঞ্চলে ব্যথা, পেরিটোনাইটিস, মেট্রিটাইটিস এছাড়াও মূত্রাশয়ে ছিদ্রে ব্যথা, মূত্রাশয়ের প্রদাহ, প্রস্রাবের সময় জ্বালাপোড়া, হলুদ প্রস্রাব, ঘোলাটে প্রস্রাব।

আরও পড়ুন –  এন – ২৭ (কিডনীর পাথরের ড্রপস)

আর – ১৮ ড্রপসটির মুল উপকরণ :
(১) ইকুইসেটাম হাইমেল D6 (Equisetum Hiem D6)।
(২) ইউপেটোরিয়াম পার্ফেলিয়েটাম D3 (Eupatorium Purpureum D3)।
(৩) ক্যান্থারিস D4 (Cantharis D4)।
(৪) ডালকামারা D4 (Dulcamara D4)।
(৫) বারবারিস D4 (Berberis D4)।

আরও পড়ুন –  র‌্যাক্স নং- ১৮ (ডান কিডনী পাথর)

আর – ১৮ ড্রপগুলিতে পৃথক উপাদানগুলির কর্মের মোড :

(ক) ইকুইসেটাম হাইমেল (Equisetum Hiem) : এটি কিডনি ও মূত্রাশয়ের উপর ক্যান্থারিস (ঈধহঃযধৎরং) এর মতো একই রকম প্রভাব এবং এর উপাদান সিলিসিক অ্যাসিডের মাধ্যমে। এটি মূত্রাশয় টেনেসমাস ও রক্তাক্ত প্রস্রাব হ্রাস। এনুরেসিস, মূত্রাশয়ে জ্বালা (প্রধানত মহিলাদের মধ্যে), অ্যালবুমিন ও প্রস্রাবে রক্ত। ইউরিক অ্যাসিড দূর করে (প্রস্রাব করার সময় ব্যথা হয়)।

(খ) ইউপেটোরিয়াম পার্ফেলিয়েটাম (Eupatorium Purpureum) : এটি বিশেষ করে মূত্রাশয় জ্বালা ক্ষেত্রে নির্দেশিত হয়. ঘন ঘন প্রস্রাব করা, বেদনাদায়ক প্র¯্রাব, প্রচুর পরিমাণে প্রস্রাবের অভাব, রঙিন, চকচকে প্র¯্রাব ।

(গ) ক্যান্থারিস (Cantharis) : এটি কিডনি অঞ্চলে নিস্তেজ ব্যথা, প্রস্রাব করার সময় জ্বলা ও ব্যথা, প্রস্রাব করার অবিরাম তাগিদ। প্রস্রাব ফোঁটা ফোঁটা, লালচে, চকচকে, রক্তে রঞ্জিত হয় ও সিস্টাইটিস।

আরও পড়ুন –  র‌্যাক্স নং- ২৭ (বাম দিকের কিডনীর পাথর)

(ঘ) ডালকামারা (Dulcamara) : এটি মূত্রাশয়ের জ্বালা, প্রস্রাব করার অবিরাম ইচ্ছা এবং বেদনাদায়ক তাগিদ। প্রস্রাব করার সময়, প্রচুর পরিমাণে প্রস্রাবের অভাব যা রঙিন ও চকচকে। মূত্রাশয় অবশ, স্যাঁতসেঁতে আবহাওয়ায় খারাপ। মূত্রাশয়ের শ্লেষ্মায় নির্দিষ্ট প্রভাব ও দুর্গন্ধযুক্ত প্রস্রাব।

(ঙ) বারবারিস (Berberis) : এটি কিডনি অঞ্চলে ছিদ্রের ব্যথা চাপের কারণে আরও খারাপ হয়। এটি স্যাক্রাল অঞ্চলে ব্যথা, পিঠের অনমনীয়তা ও অসাড়তা, ত্বকের মধ্য দিয়ে পানি প্রবাহিত হওয়ার মতো অনুভূতি হয়।

 আর -১৮ ড্রপসটি  সেবন বিধি : তীব্র সিস্টাইটিস ও সিস্টো-পাইলাইটিসে, ১০ ফোঁটা ঔষধ এক ঢোক পরিমাণ মতো পানিতে মিশিয়ে এক ঘন্টা পর পর, পরবর্তীতে দুই ঘন্টা পরপর। উন্নতি হওয়ার সাথে সাথে দিনে ৩ থেকে ৪ বার কিছু জলে মিশিয়ে ১০-১৫ ঔষধ ফোঁটা দিন। দীর্ঘস্থায়ী সিস্টাইটিস, সিস্টো-পাইলাইটিস ও ব্যাকটেরিয়া লক্ষণগুলি অদৃশ্য না হওয়া পর্যন্ত খাবারের আগে প্রতিদিন ২ থেকে ৩ বার কিছু জলে মিশিয়ে ১০ থেকে ১৫ ফোঁটা করে ঔষধ সেবন করতে হবে।।

মূত্রাশয়ের জ্বালায: প্রতিদিন একবার বা দুবার ১০-১৫ ফোঁটা ঔষধ কিছু জলে শিশিয়ে সেবন করুণ।

চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।

আরও পড়ুন – আর ২৭ (কিডনিতে পাথর, মেঘলা প্রস্রাব) 

সতর্কতা : গর্ভবতী মা অথবা দুগ্ধদানকারী মারা ঔষধ সেবনের পূর্বে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করা উত্তম।

শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : হোমিওপ্যাথি সর্বোত্তম চিকিৎসা প্রদান করে কারণ এটি নিরাপদ এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুক্ত।

ঔষধ সংরক্ষণ : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।

ঔষধের গুণগতমাণ : এটি একটি প্রাকৃতিক পণ্য, এটি কখনও কখনও সামান্য বৃষ্টিপাত অথবা মেঘলা হতে পারে, কিন্তু এটি পণ্যের গুণমান এবং এর কার্যকারিতা প্রভাবিত করে না। যদি এটি ঘটে তবে পণ্যটি ব্যবহার করার আগে ভালভাবে ঝাঁকি নিন। একবার আপনি সীলটি ভেঙে ফেললে, ওষুধগুলি দ্রুত ব্যবহার করা উচিত।

2454

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন। এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন। সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev