সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ০১:০৩ অপরাহ্ন

আর ১৬ (মাইগ্রেন এবং নিউরালজিয়া ড্রপস)

আরোগ্য হোমিও হল / ৮২ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ রবিবার, ১৯ মে, ২০২৪, ১০:৫৭ অপরাহ্ন
আর - ১৬ (মাইগ্রেন এবং নিউরালজিয়া ড্রপস)

Dr.Reckeweg R 16 Migraine and Neuralgia drops
আর – ১৬ (মাইগ্রেন এবং নিউরালজিয়া ড্রপস)
R16 Migraine and Neuralgia drops
আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “ আর – ১৬ (মাইগ্রেন এবং নিউরালজিয়া ড্রপস)” কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।
প্রস্তুত প্রণালী : Dr.Reckeweg R -16 drops/ জার্মান হোমিওপ্যাথি কম্বিনেশন ঔষধ।
ব্যবহার : আর -১৬ ড্রপসটি মাইগ্রেন এবং নিউরালজিয়া ড্রপস মাথা ব্যথায় ব্যবহার করা হয়।
আর – ১৬ মাইগ্রেন এবং নিউরালজিয়া ড্রপস সম্পর্কে ধারণা : আর – ১৬ ড্রপসটি হল জার্মান হোমিওপ্যাথিক টেনশন সম্পর্কিত মাথাব্যথা, উদ্বেগজনিত মাথাব্যথা, অতিরিক্ত চিন্তাভাবনা ও মানসিক চাপের চিকিৎসা করে। এটি মাইগ্রেনের জন্য নির্দেশিত। ঠান্ডা লাগার কারণে মাথার স্নায়ু (নিউরালজিয়া) বরাবর তীব্র ব্যথা এবং আপনার মাইগ্রেন নিরাময়ের প্রাকৃতিক সহজ উপায়, চরম মাইগ্রেন এবং মাথাব্যথা ব্যথা উপশম হিসাবে বিস্ময়কর কাজ করে।
বায়ো কম্বিনেশন ২৫
ঠাণ্ডা ও মাথাব্যথা : ভাইরাল সংক্রমণ, যেমন – সাধারণ সর্দি এবং ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ, যেমন – খাদ্য বিষক্রিয়া, উভয়ই ঠান্ডা এবং মাথাব্যথার কারণ হতে পারে। যখন রোগীর জ্বর ছাড়াই ঠাণ্ডা লাগে, তখন কারণগুলির মধ্যে রক্তে শর্করার পরিমাণ কম, উদ্বেগ ও ভয় অথবা তীব্র শারীরিক ব্যায়াম অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে
আর – ১৬ ড্রপসটির ইঙ্গিত : মাইগ্রেন, স্নায়বিক মাথাব্যথা, মাথার স্নায়ুতন্ত্র, একটি সামান্য ঠান্ডার ফলে ক্রমাগত মাথা ব্যথা এবং এর কারণে অস্বস্তি। দেশে প্রায় ১০ জনের মধ্যে একজন মাইগ্রেনে ভুগছেন। মাইগ্রেন হচ্ছে একটি ভাস্কুলার মাথাব্যথার রূপ যা রক্তনালীগুলির বৃদ্ধি (ভাসোডিলেটেশন) এর কারণে হয়ে থাকে। মাইগ্রেনের কারণে স্নায়ুতন্ত্র থেকে রাসায়নিক পদার্থ নিঃসৃত হয় যা আরো ব্যথা,  প্রদাহ ইত্যাদি সৃষ্টি হয়। মাইগ্রেনের লক্ষণগুলি হল – বিরক্তি, বিষণ্ণতা, ঘুম, ক্লান্তি ইত্যাদি। আবার মাইগ্রেনের কারণ হতে পারে মানসিক চাপ, অনিয়মিত ঘুম, অ্যালার্জি, উচ্চ শব্দ, উজ্জ্বল আলো, নির্দিষ্ট পারফিউম, অ্যালকোহল সেবন ইত্যাদি।

আরও পড়ুন –  অ্যাডল-১ (মাথা ব্যথা ও মাইগ্রেন)

নিউরালজিয়া সাধারণত ঘাড় ও মুখের অংশে ক্ষতিগ্রস্ত নার্ভ বরাবর ছুরিকাঘাত, জ্বালা এবং বিচ্ছিন্ন ব্যথাকে বোঝায়। শরীরের স্নায়ুগুলি মায়লিন শিথ নামক একটি আবরণ দ্বারা সুরক্ষিত থাকে এবং যখন এই মায়েলিন ক্ষতিগ্রস্ত হয় তখন এটি স্নায়ুবিক রোগে পরিণত হয়। নিউরালজিয়ার কারণ  যে সমস্যা হয় যেমন -ডায়াবেটিস, বার্ধক্য, রাসায়নিক জ্বালা,  ট্রমা ইত্যাদি। নিউরালজিয়ার লক্ষণগুলির হল ক্ষতিগ্রস্ত স্নায়ুর সাথে ত্বকের সংবেদনশীলতা বৃদ্ধি, ছুরিকাঘাতে ব্যথা সহ জ্বলা, সংবেদন, দুর্বলতা ইত্যাদি।
আর – ১৬ ড্রপসটির মুলউপাদান :
(১) আইরিস ভার্স D2 (Iris Vers D2)।
(২) জেলসেমিয়াম D3 (Gelsemium D3)।
(৩) সিমিসিফুগা D4 (Cimicifuga D4)।
(৪) স্যাঙ্গুইনারিয়া D3 (Sanguinaria D3)।
(৫) স্পাইজেলিয়া D4 (Spigelia D4)।

আরও পড়ুন –  কেন্ট ২৯ (মাইগ্রেন রোগে কার্যকর)

আর – ১৬ ড্রপসটির পৃথক উপাদানের কর্মের মোড : আর – ১৬ ড্রপসটির মূল বৈশিষ্ট্যগুলি হল নিম্নলিখিত উপাদানগুলি থেকে উদ্ভূত মাথাব্যথার ওষুধ।
(ক) আইরিস ভার্স (Iris Vers) : এটি পর্যায়ক্রমিক মাইগ্রেনের চিকিৎসা করে, তীব্র মাথাব্যথার কারণে মাঝে মাঝে অস্থায়ী অন্ধত্ব, মাথাব্যথার কারণে বমি হওয়া। তীব্র বমি বমি ভাব, বমি অথবা অম্লতা সহ মাইগ্রেনের জন্য ভাল। অম্লীয়, টক, তেতো, স্টার্নামের পিছনে ও গলায় তীব্র জ্বালা সহ ঢেঁকুর বমি ইত্যাদি চিহ্নিত। অ্যাসিডিক পেট রিফ্লাক্স লক্ষণ মাথাব্যথার দিকে নিয়ে যায়। ডায়রিয়া সহ মাথাব্যথা, যেখানে মাইগ্রেন চোখের সামনে ঝাপসা হয় শুরু হয়, তবে এই ওষুধটিও কার্যকর।
(খ) জেলসেমিয়াম (Gelsemium) : সেরিব্রালের ভিড়,  প্রণাম (মাটিতে প্রসারিত করার ক্রিয়া) অনুভূতি,  প্রবল অপছন্দ অথবা আলোর প্রতি অনাগ্রহ (বিতৃষ্ণা) এবং চোখের উপরে ব্যথার চিকিৎসা করে। ডাঃ বিকাশ শর্মা বলেন, মাথাব্যথার জন্য ভাল যেখানে রোগীর মাথা ঘোরা ও ভারসাম্যহীনতায় ভোগে। মাইগ্রেনের জন্য ভালো মাথাব্যথা যা চোখের চাপের কারণে হয়। ব্যথা মাথার পেছন থেকে শুরু হয় এবং কপাল অথবা চোখের উপর স্থির হয়ে উপরের দিকে বিস্তার করে।
(গ) সিমিসিফুগা (Cimicifuga) : এটি ডিম্বাশয়ের ব্যাধিগুলির একটি রিফ্লেক্স উপসর্গ হিসাবে নিউরালজিয়াকে চিকিৎসা করে। এটি চোখের কক্ষপথের (সুপ্রোবিটাল) উপরে অবস্থিত ব্যথারও চিকিৎসা করে। ডাঃ কে এস গোপী বলেন, যখন ব্যথা বৈদ্যুতিক শকের মতো হয় এবং মাসিকের সময় আরো খারাপ হয়। প্রবাহ আরও বেশি কষ্ট হয়। উষ্ণতা এবং খাওয়ার মাধ্যমে ব্যথা ভাল হয়। মস্তিষ্কে খোলা ও বন্ধ করার সংবেদন।

আরও পড়ুন –  এন – ১০০ (মাইগ্রেন এবং স্নায়ুশূল ড্রপস)

(ঘ) স্যাঙ্গুইনারিয়া (Sanguinaria) : এটি মাথাব্যথার ওষুধ হিসাবে কাজ করে যেমন – স্নায়বিক বিরক্তি, পর্যায়ক্রমে কাঁপুনি এবং তাপ, মাথাব্যথা, আলো ও শব্দের প্রতি অসহিষ্ণুতা, শুয়ে থাকা উপশ্রম হয়। এটি ডান দিকের মাইগ্রেনে কার্যকর। ব্যথা মাথার পেছন দিক থেকে শুরু হয় অর্থাৎ অসিপুট, উপরে উঠে ডান চোখের উপর স্থির হয়। অন্ধকার ঘরে চুপচাপ শুয়ে থাকলে স্বস্তি পাওয়া যায়। কিছু ক্ষেত্রে, ঘুমে ব্যথা উপশম হয়। মেনোপজের সময় মহিলারা এবং যারা উপবাস (খাওয়া ছাড়া চলে) প্রায়ই নির্ধারিত ব্যক্তিদের মধ্যে মাইগ্রেনের মাথাব্যথা।
(ঙ) স্পাইজেলিয়া (Spigelia) : এটি একতরফা (শুধুমাত্র এক দিকে প্রভাবিত) তার মাথাব্যথার চিকিৎসা করে যা সূর্যের সাথে বৃদ্ধি পায় এবং কমে যায়। এটি বাম দিকের মাইগ্রেনের জন্য সবচেয়ে কার্যকর। মাথাব্যথা বাম দিকে অস্থায়ী অঞ্চল, কপাল এবং চোখের উপর অবস্থিত হলে এটি নির্দেশিত হয়।
আর – ১৬ ঔষধ সেবন বিধি : দীর্ঘস্থায়ী নিরাময়ের ক্ষেত্রে সকাল-দুপুর-রাতে অথবা সকালে রাতে ১০-১৫ ফোঁটা ঔষধ ১/৪ জলে মিশিয়ে সেবন করুণ। আক্রমণের আগে প্রতি দুই ঘন্টার জন্য ২০ ফোঁটা দেওয়া হয়। চিকিৎসার পর তিন মাস পর্যন্ত চলতে পারে। অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করুণ।

আরও পড়ুন –  আর ৭০ (নিউরালাজিয়া ড্রপস)

চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।
সতর্কতা : গর্ভবতী মা অথবা দুগ্ধদানকারী মারা ঔষধ সেবনের পূর্বে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করা উত্তম।
শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।
পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : হোমিওপ্যাথি সর্বোত্তম চিকিৎসা প্রদান করে কারণ এটি নিরাপদ এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুক্ত।
ঔষধ সংরক্ষণ : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।
ঔষধের গুণগতমাণ : এটি একটি প্রাকৃতিক পণ্য, এটি কখনও কখনও সামান্য বৃষ্টিপাত অথবা মেঘলা হতে পারে, কিন্তু এটি পণ্যের গুণমান এবং এর কার্যকারিতা প্রভাবিত করে না। যদি এটি ঘটে তবে পণ্যটি ব্যবহার করার আগে ভালভাবে ঝাঁকি নিন। একবার আপনি সীলটি ভেঙে ফেললে, ওষুধগুলি দ্রুত ব্যবহার করা উচিত।
2454
আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন।  এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।  সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন।  আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev