সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ০১:৪৩ অপরাহ্ন

আর ৮৬ (লো ব্লাড সুগার)

আরোগ্য হোমিও হল / ৬৩ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ শনিবার, ৩০ মার্চ, ২০২৪, ৪:৫৮ অপরাহ্ন

Dr. Reckeweg R 86/ আর ৮৬ (লো ব্লাড সুগার)
আর ৮৬ (লো ব্লাড সুগার) 

R 86  (Low Blood Sugar)

আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “ আর ৮৬ (লো ব্লাড সুগার)” কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।
প্রস্তুত প্রণালী : Dr. Reckeweg R 86/ জার্মান কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ।
পরিচিত : আর ৮৬ হাইপোসিন এই নামেও পরিচিত।
আর ৮৬ (লো ব্লাড সুগার) ঔষধের লক্ষণ :  এটি  ক্লান্তি, বিষণ্ণতা (প্রান্ডিয়ালের পর), বিরক্তি, মাথাব্যথা, মনোনিবেশ করতে অক্ষমতা, খাবারের লোভ, খাওয়া উপসর্গ, উদ্দীপক লোভ, হাইপোঅ্যাড্রেনিয়া অথবা অন্যান্য হাইপোগ্লাইসেমিক লক্ষণে কার্যকরী।
আর ৮৬ (লো ব্লাড সুগার) ঔষধের ইটিওলজি : হাইপোগ্লাইসেমিয়া অথবা কম ব্লাড সুগার বলতে সাধারণত খাবারে হাইপার ইনসুলিনের প্রতিক্রিয়াকে বোঝায়৷ ক্লাসিক হাইপোগ্লাইসেমিকে দীর্ঘস্থায়ী ভাবে কম রক্তে শর্করা থাকে না, বরং এটি অত্যন্ত পরিবর্তনশীল রক্তে শর্করা থাকে যা উচ্চ থেকে খুব নিম্ন স্তরে ওঠানামা করে৷ এই বার বার ওঠানামা মস্তিষ্কের কার্যকারিতা এবং পেশীগুলির কার্যকারিতা ব্যাহত করে যা মানব দেহে ও মনের অস্থিরতা, বিরক্তি, বিষণ্ণতা, সিদ্ধান্তহীনতা, এবং বিবিধ লক্ষণগুলি একটি হোস্টের দিকে পরিচালিত করে।

আরও পড়ুন –  অ্যাডাল-১৮ (ডায়াবেটিস)

রক্তে শর্করার নিয়ন্ত্রণের প্রাকৃতিক প্রক্রিয়া হাইপোথ্যালামাস বা পিটুইটারি দ্বারা পরিচালিত হয় যা রক্তে শর্করার মাত্রা কম সনাক্ত করার পরে হরমোন নিঃসরণ করে। এই হরমোন বার্তাটি তিনটি উপায়ে কাজ করে। যদিও পরিপাকতন্ত্রে খাবার থাকে, এই হরমোনগুলি অগ্ন্যাশয়ের ইনসুলিনকে ট্রিগার করে। খনিজ পদার্থের নিঃসরণ এবং গ্লাইকোজেনোলাইসিস, হরমোনগুলি লিভারের গ্লাইকোজেন স্টোরের মুক্তিকে উদ্দীপিত করার জন্য খনিজ এবং গ্লুকোকোর্টিকয়েডের অ্যাড্রিনাল নিঃসরণকে প্রম্পট করে। এটি গ্লুকোজে অ্যাডিপোজ রূপান্তর গ্লাইকোনিওজেনেসিসের মাধ্যমে ঘটে থাকে যা পিটুইটারি ও হাইপোথার দ্বারা নিঃসরণে সহায়ক।
সম্ভবত হাইপোগ্লাইসেমিয়ার প্রকৃত কারণ : মানসিক চাপ, উদ্বেগ, ভয়, অপ্রাকৃতিক খাবার, সামান্য কন্ডিশনিং, বিষাক্ত বাতাস এবং বয়স। হাইপোগ্লাইসেমিয়া অন্যান্য অসুস্থতার দরজা খুলে দেয়; এই দরজাটি বন্ধ করার জন্য আপনার সম্পূর্ণ প্রচেষ্টা প্রয়োজন। এটি আপনার ভাল শুরু হতে পারে, কিন্তু অনুগ্রহ করে জীবনধারা পরিবর্তনগুলিকে উৎসাহিত করুন।

আরও পড়ুন –  বায়ো কম্বিনেশন ৭ (ডায়াবেটিস)

আর ৮৬ (লো ব্লাড সুগার) ঔষধের মুল উপকরণ :
(১) অ্যাডেনোসিন-ট্রাই-ফসফ্যাট D30 (Adenosin-Tri-Phosphat D30)।
(২) অ্যাড্রেনালিনাম D12 (Adrenalinum D30)।
(৩) আর্সেনিকাম অ্যালবাম D12 (Arsenicum Album D12)।
(৪) ইনসুলিনাম D30 (Insulinum D30)।
(৫) ওয়েনোথেরা বিয়েনিস (Oenothera Biennis D3)।
(৬) নাক্স ভোমিকা D30 (Nux Vomica D30)।
(৭) স্যাকারাম D30 (Saccharum D30)।
(৮) হাইপোথ্যালামাস D30 (Hypothalamus D30)।
(৯) হাইপোফাইসিস D30 (Hypophysis D30)।
(১০) হপার D30 (Hepar D30)

আরও পড়ুন –  কেন্ট ০৪ (ডায়াবেটিস রোগে কার্যকর)

আর ৮৬ (লো ব্লাড সুগার) ঔষধের কার্যকারিতা :
(ক) অ্যাড্রেনালিনাম (Adrenalinum), হেপার (Hepar), হাইপোফাইসিস (Hypophysis), হাইপোথ্যালামাস (Hypothalamus),ইনসুলিনাম (Insulinum) : রক্ত-শর্করার চেইনের গ্রন্থি নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে।।
(খ) আর্সেনিকাম অ্যালবাম (Arsenicum album) : মানসিক অবসাদ ও অবসাদ দূর করে।
(গ) অ্যাডেনোসিন-ট্রাই-ফসফ্যাট (Adenosin-Tri-phosphat) : শক্তি স্থিতিশীলতার জন্য ব্যবহার হয়।
(ঘ) নাক্স ভমিকা (Nux vomica) : খাবারের লোভের জন্য।
(ঙ) ওনোথেরা বিয়েনিস (Oenothera biennis) : চিনির বিপাক নিয়ন্ত্রণ করে।
(চ) স্যাকারাম (Saccharum) : আসক্তির বৈশিষ্ট্যগুলিকে বিপরীত করতে সাহায্য করে।

আরও পড়ুন –  এন – ৪০ (ডায়াবেটিস ড্রপস)

আর ৮৬ ঔষধ সেবন বিধি : প্রাপ্ত বয়স্করা জন্য ১৫ থেকে ২০ ফোঁটা, শিশুরা ৭ থেকে ১০ ফোঁটা ঔষধ ১/৪ কাপ পানিতে মিশিয়ে দিনে ৩ বার অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করতে হবে।
চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।
সতর্কতা : গর্ভবতী মা অথবা দুগ্ধদানকারী মারা ঔষধ সেবনের পূর্বে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করা উত্তম।

আরও পড়ুন –  র‌্যাক্স নং- ১০ (ডায়াবেটিস)

শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।
পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : এই ঔষধ সেবনে কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই।
ঔষধ সংরক্ষণ : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।
আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন।  এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।  সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন।  আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev