সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১২:৪৫ অপরাহ্ন

আর ৭৬ (অ্যাজমা ফোর্ট ড্রপস) 

আরোগ্য হোমিও হল / ৬২ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ শনিবার, ৬ এপ্রিল, ২০২৪, ৩:১৩ অপরাহ্ন
আর ৭৬ (অ্যাজমা ফোর্ট ড্রপস) 

Dr. Reckeweg R76/ আর ৭৬ (অ্যাজমা ফোর্ট ড্রপস) 
আর ৭৬ (অ্যাজমা ফোর্ট ড্রপস)
R 76 (Asthma Forte Drops)
আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “ আর ৭৬ (অ্যাজমা ফোর্ট ড্রপস) ” কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।
প্রস্তুত প্রণালী : Dr. Reckeweg R 76/ জার্মান কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ।
আর ৭৬ অ্যাজমা ফোর্ট ড্রপস সম্পকে ধারণা : এটি অ্যাজমা ড্রপস হিসাবে পরিচিত। শরীরের অ্যালার্জেন হাইপার রেসপন্স কমানো। এটি ফুসফুসের ছোট শ্বাসনালীগুলির প্রদাহ এবং সংকীর্ণতাকে আটকানোর চেষ্টা করে যা একটি সাংবিধানিক দুর্বলতা থেকে উদ্ভূত শ্বাসকষ্ট, বুকের আঁটসাঁটতা, কাশি এবং শ্বাসকষ্ট ইত্যাদি।
আর ৭৬ ড্রপসটির ইঙ্গিত : সাংবিধানিক হাঁপানি-থেরাপি। এটি দীর্ঘস্থায়ী নিরাময় হিসাবে হাঁপানি বা এ্যাজমা রোগীদের শরীরের গঠন এবং স্বভাব (সংবিধান) এর উপর একটি অনুকূল প্রভাব ফেলে।
আর ৭৬ ঔষধটি হাঁপানির চিকিৎসার সেরা : Dr. Reckeweg R  76 “এটি প্রমাণিত হয়েছে যে একজন রোগীর হাঁপানির দুটি স্বতন্ত্র পর্ব থাকতে পারে, দুটি ভিন্ন কারণ দ্বারা উত্তেজিত এই সিদ্ধান্তে যে উত্তেজনাপূর্ণ কারণটি রোগের মূল কারণ নয়”। হাঁপানির ভিত্তি একটি সাংবিধানিক রোগ। তিনি আরো বলেন যে হিস্টামিনের মুক্তি অ্যান্টিজেন-অ্যান্টিবডি বিক্রিয়ার ফলাফল ও এটির কারণ নয়। হাঁপানি রোগীর অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়া তৈরির জন্য অ্যান্টিবডিগুলি কোষে স্থির করা হয় যেখানে সাধারণ ব্যক্তির মধ্যে তারা অনাক্রম্যতা তৈরি করতে রক্ত প্রবাহে মুক্ত থাকে। হাঁপানির প্যাথোফিজিওলজি যেমন, শ্বাসনালীর সংকোচন, শ্বাসনালীর প্রদাহ ও শ্বাসনালীর হাইপার প্রতিক্রিয়াশীলতা রোগীর স্বভাব বোঝার মাধ্যমে কার্যকরভাবে নিয়ন্ত্রণ বা পরিচালনা করা যেতে পারে। হাঁপানি রোগীকেন্দ্রিক পন্থা অবলম্বন করে ফুসফুসের এই রোগের সমাধানের জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত। গ্লোবাল অ্যালার্জি এবং এয়ারওয়েজ প্ল্যাটফর্ম (এঅঅচচ ডট ওআরজি) অনুসারে “গুরুতর হাঁপানি হল এক ধরনের হাঁপানি যা স্ট্যান্ডার্ড অ্যাজমা চিকিৎসায় ভালোভাবে সাড়া দেয় না।” এই ক্ষেত্রে হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা নিরাপদ এবং কার্যকর বিকল্প অনুসরণ করা যেতে পারে।

আরও পড়ুন –  অ্যাডাল-১০ (হাঁপানি, ব্রংকাইটিস)

আর ৭৬ ঔষধটির মুল উপদান :
(১) অ্যাকোনিটাম D3 (Aconiturm D3)|
(২) আম্মি বিস্নাগা D2 (Ammi Visnaga D2)|
(৩) কনভালারিয়া মাজালিস D1 (Convalllaria Majalis D1)|
(৪) কালিয়াম জোডাটাম D3 (Kalium Jodatum D3)|
(৫) ড্রোসেরা D1 (Drosera D1)|
(৬) লোবেলিয়া ইনফ্লাটা D3 (Lobelia Inflata D3)|
(৭) মেনথোলাম D2 (Mentholum D2)|
(৮) স্ট্রামোনিয়াম D3 (Stramonium D3)|

আরও পড়ুন –   এইচ আর -৩৪ ( ব্রঙ্কাইটিস -হাঁপানির চিকিৎসায় কার্যকর)

আর ৭৬ ঔষধটি হাঁপানির চিকিৎসার জন্য হোমিওপ্যাথি ওষুধের কার্যকারিতা :
আর ৭৬ হাঁপানির ঔষধটির বৈশিষ্ট্যগুলি প্রাপ্তবয়স্কদের এবং শিশুদের মধ্যে হাঁপানির উপসর্গগুলির চিকিৎসার জন্য নিম্নলিখিত উপাদানগুলি থেকে উদ্ভূত হয়েছে
(ক) অ্যাকোনিটাম (Aconiturm) : বুকে ছুরিকাঘাতের ব্যথা, উদ্বেগ ও থানাটোফোবিয়া (মৃত্যুর ভয়) চিকিৎসা করে। এটি শুষ্ক কাশির হাঁফ এবং বুকে সংকোচনেরও চিকিৎসা করে।
(খ) আম্মি বিস্নাগা (Ammi Visnaga) :  কার্ডিয়াক স্নেহ ও সঞ্চালন ব্যাধির চিকিৎসা করে।
(গ) কনভালারিয়া মাজালিস (Convalllaria Majalis) :  এটি শ্বাসকষ্টের চিকিৎসা করে, বুকে ছুরি মারার ব্যথা ও অরিকুলার ফ্লটার।
(গ) কালিয়াম জোডাটাম (Kalium Jodatum) : এটি দুর্বলতার চিকিৎসা করে।

আরও পড়ুন –  কেন্ট ০১ (হাঁপানি বা এজমা রোগে কার্যকর)

(ঘ) ড্রোসেরা (Drosera) : এটি প্রাপ্তবয়স্ক এবং শিশুদের হাঁপানির উপসর্গের চিকিৎসা করে যেমন- হাঁপানির সাথে বমি ও এবং সায়ানোসিস (ত্বকের বর্ণহীনতা)।
(ঙ) লোবেলিয়া ইনফ্লাটা (Lobelia Inflata) : এটি ব্রঙ্কিয়াল হাঁপানি ও স্প্যাসমোডিক কাশির চিকিৎসা করে।
(চ) মেনথোলাম (Mentholum) :  এটি শ্বাসকষ্ট থেকে উপশম দেয়।
(ছ) স্ট্রামোনিয়াম (Stramonium) : এটি বুকের সংকোচন ও শ্বাসকষ্টের সংবেদনকে চিকিৎসা করে।

আরও পড়ুন –  এন – ৭৬ হাঁপানীর (এ্যাজমা) রোগে কার্যকর

আর ৭৬ ঔষধ সেবন বিধি : প্রাপ্ত বয়স্করা জন্য ১৫ থেকে ২০ ফোঁটা, শিশুরা ৭ থেকে ১০ ফোঁটা ঔষধ ১/৪ কাপ পানিতে মিশিয়ে দিনে ৩ বার অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করতে হবে।
চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।
সতর্কতা : গর্ভবতী মা অথবা দুগ্ধদানকারী মায়ের ঔষধ সেবনের পূর্বে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করা উত্তম।

আরও পড়ুন –র‌্যাক্স নং- ২ (এ্যাজমা )

শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।
পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : হোমিওপ্যাথি সর্বোত্তম চিকিৎসা প্রদান করে কারণ এটি নিরাপদ এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুক্ত।
ঔষধ সংরক্ষণ : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।
আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন।  এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।  সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন।  আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev