সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১১:৩৩ পূর্বাহ্ন

আর ৭১ (সায়াটিকা ও স্নায়ু ব্যথা)

আরোগ্য হোমিও হল / ৭১ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ সোমবার, ৮ এপ্রিল, ২০২৪, ৪:৫১ অপরাহ্ন

Dr.Reckeweg R 71/ আর ৭১ (সায়াটিকা ও স্নায়ু ব্যথা)
R 71 (sciatica and neuralgia)
আর ৭১ (সায়াটিকা ও স্নায়ু ব্যথা)
আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “ আর ৭১ (সায়াটিকা ও স্নায়ু ব্যথা)” কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।
প্রস্তুত প্রণালী : Dr.Reckeweg R 71/ জার্মান কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ।
আর ৭১ ড্রপ সায়াটিকা সম্পর্কে ধারণা : ডিজেনারেটিভ ডিস্ক রোগের লক্ষণগুলিকে বেশ কয়েকটি হোমিওপ্যাথিক ঔষধে পাওয়া যায়। এতে অ্যাকোনিটাম, আর্সেনের মতো মূল উপাদান রয়েছে। এটি পিঠ, নিতম্ব ও পায়ের বাইরের দিকের ব্যথার উপর কাজ করে যা পিঠের নীচের অংশে একটি মেরুদণ্ডের স্নায়ুর মূলের সংকোচনের কারণে সৃষ্টি হয় (ডিজেনারেটিভ ডিস্ক রোগ বা সায়াটিকা)। এটি ঝনঝন অথবা কাঁটা (প্যারেস্থেসিয়াস) ও পায়ে চামড়ার উপর পোকামাকড়ের হামাগুড়ি দেওয়ার মতো সংবেদনকেও সম্বোধন করে (ফর্মিকেশন)।

আর ৭১ ড্রপসিট সায়াটিকা ইঙ্গিত : সায়াটিকা, কশেরুকার ডিস্কের প্রল্যাপসের ফলে সায়াটিকা। প্যারেস্থেসিয়াস, পায়ে গঠন ইত্যাদি।
আর ৭১ ড্রপ সায়াটিকা ভূমিকা : এ ডিজেনারেটিভ ডিস্ক রোগ মেরুদণ্ডের সাথে যুক্ত ও সাধারণত নীচের পিঠের ডিস্কে ঘটে। সায়াটিকা এমন ব্যথাকে বোঝায় যা পায়ের নিতম্ব, পিছনে ও বাইরের দিকে প্রভাবিত করে, এটি তার সবচেয়ে সাধারণ লক্ষণ। ঘাড় ব্যথা, নিম্ন পিঠে ঘটে যা কখনও কখনও আবার উরু অথবা নিতম্ব পর্যন্ত বিকিরণ করে। পিঠের নিচের অংশে মেরুদণ্ডের খাল সরু হয়ে যাওয়া এবং স্নায়ুর মূলের জ্বালার কারণে ডিজেনারেটিভ ডিস্ক ডিজিজ হতে পারে। বাঁকানো, মোচড়ানো, বসা অথবা তোলার সময় ব্যথা বাড়তে পারে। সে ব্যথা ঘাড়ের ব্যথা কাঁধ, মাথা, হাত ও বাহুতে ছড়িয়ে পড়তে পারে। সায়াটিকার লক্ষণগুলি হলো পা বা নিতম্বের একপাশে ব্যথা, বসে থাকার সময় আরও খারাপ ব্যথা, টনটন করা, জ্বলন্ত অথবা ছিঁড়ে যাওয়া পায়ে ব্যথা ও পায়ের নড়াচড়ার সময় অসাড়তা অথবা দুর্বলতা অনুভব করা ইত্যাদি।

আরও পড়ুন –   অ্যাডাল-৩৯ (সায়াটিকা, বাত ব্যথা)

আর ৭১ সায়াটিকা ড্রপসটির মুল উপকরণ :
(১) অ্যাকোনিটাম D4 (Acontium D4)।
(২) আর্সেনিক অ্যালবাম D30 (Arsenicum Album D30)।
(৩) কোলোসিনথিস D4 (Colocynthis D4)।
(৪) গ্নাফালিয়াম পলিসেফালাম D3 (Gnaphalium Polycephalum D3)।
(৫) ম্যাগনেসিয়াম ফসফোরিকাম D8 (Magnesium Phosphoricum D8)।

আরও পড়ুন –  অ্যাডাল-২৭ ( বাত ও আঘাত)

আর ৭১ সায়াটিকা ড্রপসটির পৃথক উপাদানের কর্মের মোড : এর মূল বৈশিষ্ট্যগুলি ডিজেনারেটিভ ডিস্ক রোগ বা সায়াটিকার চিকিৎসায় নিম্নলিখিত উপাদানগুলি থেকে উদ্ভূত হয়েছে।
(ক) অ্যাকোনিটাম (Aconitum) : শুষ্ক ঠান্ডা বাতাসের কারণে সর্দি, পায়ে ব্যথা ও গঠনের কারণে সর্দি-কাশির চিকিৎসা করে। এটি প্রধানত রাতে সৃষ্ট প্যারেস্থেসিয়াসকের চিকিত্সা করে।
(খ) আর্সেনিক অ্যালবাম  (Arsem Albnicuum) : মধ্যরাতে বিশেষভাবে জ্বলন্ত ব্যথার চিকিৎসা করে।  উষ্ণ প্রয়োগের দ্বারা খারাপ বা অসন্তোষজনক কিছুকে আরও ভাল (উন্নত) করে তোলে।
(গ) কোলোসিনথিস (Colocynthis ) : সহিংস ব্যথা যা সামান্য নড়াচড়া, ঠান্ডা এমনকি স্পর্শেও বৃদ্ধি পায়। এটি সায়াটিক স্নায়ুর সাথে ব্যথার মতো ক্র্যাম্পেরও চিকিৎসা করে।
(ঘ) গ্নাফালিয়াম পলিসেফালাম (Gnaphalium Polycephalum) :  ডিজেনারেটিভ ডিস্ক ডিজিজ অথবা সায়াটিকার যেমন – স্নায়ুর মূলে ব্যথা ও বসার সময় উপশম হয়।
(ঙ) ম্যাগনেসিয়াম ফসফোরিকাম (Magnesium Phosphoricum)  :  নিশাচর ব্যথা এবং উষ্ণ চাপ ও প্রয়োগের মাধ্যমে উপশম হয়।

আরও পড়ুন –  এইচ আর – ২০ (সায়াটিকার চিকিৎসায় কার্যকর)

চিকিৎসকের মন্তব্য :
(ক) ভিজে যাওয়ার পরে সায়াটিকায় : আর ১১ এর ১০ থেকে ১৫ ফোঁটা ঔষধ ১/৪ পানিতে মিশিয়ে প্রতিদিন সকাল-দুপর-রাতে তিবার বার সেবন করুন।
(খ) ডায়াবেটিস মেলিটাসের উপস্থিতিতে : আর ৪০ এর সাথে তুলনা করুন।
(গ) ইন্টারকোস্টাল নিউরালজিয়া : আর ৬৯ তুলনা করুন।
(ঙ) প্রোস্টেট গ্রন্থির হাইপারট্রফির উপস্থিতিতে : প্রয়োজনে আর ৭১ ছাড়াও আর ২৫ দিন।
(চ) পেরিফেরাল ভাস্কুলার ডিসঅর্ডার একত্রে অ্যাক্রোপ্যারাস্থেসিয়া: আর ৬৩ তুলনা করুন।
(চ) ট্রাইজেমিনাল এবং ফেসিয়াল নিউরালজিয়াতে: আর ৭০ তুলনা করুন।
(ছ) প্রয়োজনে লুম্বাগিন আর ৬১ রিউম্যাটিক মলম ব্যবহার করুন।

আরও পড়ুন –  এইচ আর – ৩১ (অস্টিওআর্থারাইটিস, রিউম্যাটিজম এবং গাউট চিকিৎসায় কার্যকর)

আর ৭১ ঔষধ সেবন বিধি : প্রাপ্ত বয়স্করা জন্য ১৫ থেকে ২০ ফোঁটা, শিশুরা ৭ থেকে ১০ ফোঁটা ঔষধ ১/৪ কাপ পানিতে মিশিয়ে দিনে ৩ বার অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করতে হবে। গর্ববতী নারীরা ঔষধ সেবনের পূর্বে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ করুণ।
চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।
সতর্কতা : গর্ভবতী মা অথবা দুগ্ধদানকারী মায়েরা ঔষধ সেবনের পূর্বে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করা উত্তম।

আরও পড়ুন –  কেন্ট ৩৮ (আর্থ্রাইটিস রোগে কার্যকর)

শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।
পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : হোমিওপ্যাথি সর্বোত্তম চিকিৎসা প্রদান করে কারণ এটি নিরাপদ এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুক্ত।
 ঔষধ সরক্ষণ : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।
ঔষধের গুণগতমাণ : এটি একটি প্রাকৃতিক পণ্য, এটি কখনও কখনও সামান্য বৃষ্টিপাত অথবা মেঘলা হতে পারে, কিন্তু এটি পণ্যের গুণমান এবং এর কার্যকারিতা প্রভাবিত করে না। যদি এটি ঘটে তবে পণ্যটি ব্যবহার করার আগে ভালভাবে ঝাঁকি নিন। একবার আপনি সীলটি ভেঙে ফেললে, ওষুধগুলি দ্রুত ব্যবহার করা উচিত।
আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন।  এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।  সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন।  আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।

 

 

 

 

 

 

 

 

 


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev