সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১১:২৫ পূর্বাহ্ন

আর ৬২ (হামের ড্রপস)

আরোগ্য হোমিও হল / ৩৬ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ শনিবার, ১৩ এপ্রিল, ২০২৪, ৫:৫৭ অপরাহ্ন

Dr. Reckeweg R 62  আর ৬২ (হামের ড্রপস)
আর ৬২ (হামের ড্রপস)
R 62 Measles Drops
আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো  “ আর ৬২ (হামের ড্রপস)” কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।
প্রস্তত প্রণালী : Dr. Reckeweg R 62/ জার্মান কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ।
ব্যবহার :  আর ৬২ ড্রপসটি হাম ও মিউকাস মেমব্রেনের প্রদাহে ব্যবহার করা হয়।
আর ৬২ ড্রসটির ইঙ্গিত : শ্লেষ্মা ঝিল্লির সমস্ত ধরণের প্রদাহ কমাতে, বিশেষত চোখের প্রদাহ সহ; হাম
আর ৬২ হামের ড্রপ সম্পর্কে ধারণা : আর ৬২ ড্রপটি প্রাপ্তবয়স্কদের ও শিশুদের হামের লক্ষণগুলির জন্য নির্দেশিত হয় এবং এটি বেশ কয়েকটি হোমিওপ্যাথিক ঔষধ ড্রপটিতে পাওয়া যায়। এটিতে অ্যারাম ট্রাইফাইলাম, বেলাডোনা ইত্যাদির মতো গুরুত্বপূর্ণ ঔষধ রয়েছে যা শ্লেষ্মা, ঝিল্লির প্রদাহ, চোখের প্রদাহ ও হামের (সংক্রামক ভাইরাল রোগ যা জ্বর ও লাল ফুসকুড়ি সৃষ্টি করে) এর উপর কাজ করে।
আর ৬২ হামের ড্রসটির লক্ষণ : প্রাপ্তবয়স্ক ও শিশুদের হামের লক্ষণগুলি হলো জ্বর, কাশি, পেশী ব্যথা, লাল চোখ, আলোর সংবেদনশীলতা, নাক দিয়ে পানি পড়া (সর্দি), মুখে সাদা দাগ, গলা ব্যথা ইত্যাদি। হাম একটি ছোঁয়াচে সংক্রমণ যা হামের ভাইরাস দ্বারা হয়। এটি মরবিলি অথবা রুবেওলা নামেও পরিচিত। এটি একটি বায়ুবাহিত রোগ যা সংক্রামিতদের হাঁচি ও কাশির মাধ্যমে সহজেই ছড়িয়ে পড়ে। এটি অনুনাসিক স্রাব অথবা লালার সাথে যোগাযোগের মাধ্যমেও ছড়িয়ে পড়তে পারে। হাম শিশুদের মৃত্যুর প্রধান কারণ। এটি সাধারণত যে সবা শিশু টিকা গ্রহণ করেনি সেসব শিশুদের মধ্যে ঘটে। ভিটামিন এ-এর অভাব হলে হাম হওয়ার ঝুঁকি থাকে। হামের কারণে পুরো শরীরের ত্বকে ফুসকুড়ি হয়। প্রাপ্তবয়স্ক এবং শিশুদের মধ্যে হামের লক্ষণগুলির সাথে সম্পর্কিত জটিলতাগুলির  হলো ব্রঙ্কাইটিস (ব্রঙ্কিয়াল টিউবে শ্লেষ্মা ঝিল্লির প্রদাহ), কানের সংক্রমণ, গর্ভপাত, অন্ধত্ব, রক্তের প্লেটলেট হ্রাস, গুরুতর ডায়রিয়া ইত্যাদি। এই রোগে আক্রান্ত শিশুদেরও কোপ্লিকস দাগ হতে পারে। যা মুখের ভিতরে নীল সাদা কেন্দ্রের সাথে ছোট লাল দাগ দেখা যায়।

আরও পড়ুন –   কেন্ট ৬৩ (হাম জ্বরে কার্যকর)

আর ৬২ হামের ড্রসটির মুল উপকরণ মিশ্রণ :
(১) অ্যারাম ট্রাইফাইলাম D3 (Arum Triphyllum D3)।
(২) বেলাডোনা D4 (Belladonna D4)।
(৩) ফেরাম ফসফিক D8 (Ferrum Phosphoric D8)।
(৪) মারকিউরিয়াস সলুবিলিস হ্যানিমানি D8 (Merc Solub Hahnem. D8)।
(৫) পালসেটিলা D4 (Pulsatilla D4)।
.

আরও পড়ুন – কেন্ট ৬৪ (জ্বর ও কাশিতে কার্যকর)

আর ৬২ হামের ড্রসটির পৃথক উপাদানের কর্মের মোড :
আর ৬২ হামের ড্রসটির মূল বৈশিষ্ট্যগুলি প্রাপ্তবয়স্কদের এবং শিশুদের মধ্যে হামের লক্ষণগুলির চিকিত্সার জন্য নিম্নলিখিত উপাদানগুলি থেকে উদ্ভূত হয়েছে :
(ক) অ্যারাম ট্রাইফাইলাম (Arum Triphyllum) :  চোখের জ্বালা, হাম ও ত্বকের ফুসকুড়ি সহ সেলাইয়ের ব্যথা, স্ফীত মিউকাস মেমব্রেন জ্বালার চিকিৎসা করে।
(খ) বেলাডোনা (Belladonna) : প্রাপ্তবয়স্ক ব্যাক্তিদের এবং শিশুদের হামের লক্ষণগুলির চিকিৎসা করে যেমন – তীব্র প্রদাহ, মাথার ভিড় ও জ্বর (জ্বর সম্পর্কিত) অবস্থা। এটি শুষ্ক শ্লেষ্মা ঝিল্লিরও চিকিৎসা করে যা শ্বাসযন্ত্রের সিস্টেমকে প্রভাবিত করে।
(গ) ফেরাম ফসফিক (Ferrum Phosphoric) :  ফেরাম ফসফিক এবং পারদ দ্রবণীয় হ্যানেম-ক্যাটারহ্যাল (ক্যাটারহ একটি শ্লেষ্মা ঝিল্লির প্রদাহ) স্নেহ, ফটোফোবিয়া (আলোর প্রতি চরম সংবেদনশীলতা) ও আঠালো ঘাম (ঘাম) এর চিকিৎসা করে।
(ঘ) মারকিউরিয়াস সলুবিলিস হ্যানিমানি (Merc Solub Hahnem) : ক্যাটারহাল স্নেহ, ফটোফোবিয়া, আঠালো ঘাম।
আর ৬২ ঔষধ সেবন বিধি : প্রাপ্ত বয়স্করা জন্য ১৫ থেকে ২০ ফোঁটা, শিশুরা ৭ থেকে ১০ ফোঁটা ঔষধ ১/৪ কাপ পানিতে মিশিয়ে দিনে ৩ বার অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করতে হবে। গর্ববতী নারীরা ঔষধ সেবনের পূর্বে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ করুণ।

আরও পড়ুন –  র‌্যাক্স নং- ৬৯ (হাম )

চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।
সতর্কতা : গর্ভবতী মা অথবা দুগ্ধদানকারী মারা ঔষধ সেবনের পূর্বে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করা উত্তম।
শর্তাবলী :কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।
পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : হোমিওপ্যাথি সর্বোত্তম চিকিৎসা প্রদান করে কারণ এটি নিরাপদ এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুক্ত।
ঔষধ সংরক্ষণ : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।
ঔষধের গুণগতমাণ : এটি একটি প্রাকৃতিক পণ্য, এটি কখনও কখনও সামান্য বৃষ্টিপাত অথবা মেঘলা হতে পারে, কিন্তু এটি পণ্যের গুণমান এবং এর কার্যকারিতা প্রভাবিত করে না। যদি এটি ঘটে তবে পণ্যটি ব্যবহার করার আগে ভালভাবে ঝাঁকি নিন। একবার আপনি সীলটি ভেঙে ফেললে, ওষুধগুলি দ্রুত ব্যবহার করা উচিত।
আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন।  এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক  – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।  সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন।  আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।

 

 

 

 

 

 


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev