সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১২:৪৫ অপরাহ্ন

আর ৫৬ (কৃমির জন্য ড্রপস)

আরোগ্য হোমিও হল / ৩১ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২৪, ৫:২৮ অপরাহ্ন

Dr.Reckeweg R 56/  আর ৫৬ (কৃমির জন্য ড্রপস)
R 56 (drops for Worms)
আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “ আর ৫৬ (কৃমির জন্য ড্রপস)” কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।
প্রস্তুত প্রণালী : Dr.Reckeweg R 56/  জার্মান কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ।
আর ৫৬ ভার্মিফিউজ কৃমি ড্রপ সম্পর্কে ধারণা : আর ৫৬ হল একটি হোমিওপ্যাথিক ওষুধ যা প্রাপ্তবয়স্ক এবং শিশুদের মধ্যে কৃমির লক্ষণগুলির চিকিৎসার জন্য বেশ কয়েকটি হোমিওপ্যাথিক ঔষধ (ড্রপগুলিতে পাওয়া যায়) এর মিশ্রণের মধ্যে রয়েছে আর্টেমিসিয়া ভালগারিস, সিনা ইত্যাদির মতো গুরুত্বপূর্ণ ঔষধ রয়েছে যা সমস্ত ধরণের কৃমির উপর কাজ করে, পরজীবী নিমাটোড কীট যা সাধারণত মেরুদণ্ডের অন্ত্রে বাস করে (অ্যাসকারাইডস) ও শরীরের টিস্যুর মৃত্যুর নির্দিষ্ট প্রক্রিয়ায় (মর্তিকরণ) প্রতিরোধ করে।
আর ৫৬ ভার্মিফিউজ কৃমি ড্রপসটির ইঙ্গিত : এটি সব ধরনের কৃমি, অ্যাসকারাইড ও অক্সিউর। সুনির্দিষ্ট মর্টিফিকেশন প্রক্রিয়ায় সাবভেনশনাল প্রতিকার (যেমন টেনিয়া) ইত্যাদি।
আর ৫৬ ভার্মিফিউজ কৃমি ড্রপসটির ভূমিকা : প্রাপ্তবয়স্ক ব্যাক্তি এবং শিশুদের মধ্যে এ কৃমির লক্ষণ দেখা যায় এই পরজীবীদের দ্বারা উৎপাদিত বিষাক্ত বর্জ্য যা মানবদেহের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। প্রাণীজগতে হাজার হাজার বিভিন্ন কীট বিদ্যমান এবং যেগুলি মানবদেহে বাস করে তাকে পরজীবী বলা হয়। পরজীবীরা হোস্টের খাদ্য সরবরাহে বাস করে। যদি এই পরজীবীগুলিকে সঠিকভাবে চিকিৎসা না করা হয় তবে এগুলি মারাত্মক ব্যথা ও এমনকি চরম ক্ষেত্রে মৃত্যুও ঘটাতে পারে। পরজীবী দ্বারা সৃষ্টি সংক্রমণের সাধারণ লক্ষণ ও উপসর্গগুলি হল ক্রমাগত পেট ফুলে যাওয়া, ত্বকের ব্যাধি, শক্তির অভাব, উদ্বেগ, অস্থিরতা, কোষ্ঠকাঠিন্য, মলত্যাগ, ডায়রিয়া, খাদ্য অ্যালার্জি, পেশী এবং জয়েন্টে ব্যথা ইত্যাদি। ফিতাকৃমি- গোল কৃমি, অন্ত্রের কৃমি ইত্যাদি। এর সাথে বমি বমি ভাব, ক্ষুধা হ্রাস, ক্লান্তি, জ্বর, কাশি ইত্যাদি।

আরও পড়ুন –   অ্যাডাল-৫০ (অন্ত্রের কৃমি)

আর ৫৬ ভার্মিফিউজ কৃমি ড্রপসটির মুল উপকরণ :
(১) আর্টেমিসিয়া ভালগারিস D1 (Artemisia Vulg. D1)।
(২) গ্রাফাইটস D30 (Graphites D30)।
(৩) ট্যানাসেটাম ভালগার D1 (Tanacetum Vulg D1)।
(৪) ফিলিক্স মাস D3 (Filix D3)।
 (৫) মারকিউরিয়াস সলুবিলিস D6 (Mercur. Subl D6)।
(৬) সিনা D4 (Cina D4)।
আর ৫৬ ভার্মিফিউজ কৃমি ড্রপসটির পৃথক উপাদানের কর্মের মোড : আর ৫৬ ভার্মিফিউজ কৃমি ড্রপসটির মূল বৈশিষ্ট্যগুলি প্রাপ্তবয়স্ক ব্যাক্তি ও শিশুদের মধ্যে কৃমির লক্ষণগুলির চিকিৎসার জন্য নিম্নলিখিত উপাদানগুলি থেকে উদ্ভূত হয়েছে :
(ক) আর্টেমিসিয়া ভালগারিস  (Artemisia Vulg) : কৃমিতে ভুগছেন এমন শিশুদের খিঁচুনির চিকিৎসার ক্ষেত্রে ব্যবহার হয়।
(খ) গ্রাফাইটস (Graphites) : এটি সাংবিধানিক প্রতিকার হিসাবে কাজ করে যা বড় ক্ষুধা, মেটিওরিজম ও পেট ফাঁপা (খাদ্যনালীতে গ্যাস জমে) তাদের চিকিৎসা করতে সহায়তা করে।
(গ) ট্যানাসেটাম ভালগার (Tanacetum Vulg) :  এটি হেলমিন্থিক সংক্রমণের চিকিৎসা করে ও সহজেই চমকে যায়।
(ঘ) ফিলিক্স মাস (filix-mas) :  এটি অ্যান্টিহেলমিন্থিক যা পরজীবী কৃমি ধ্বংস করতে ব্যবহৃত হয়. বিশেষত টেপ ওয়ার্ম হিসাবেও কাজ করে।
(ঙ) মারকিউরিয়াস সলুবিলিস (Mercurius sublimate) :  এটি প্রাপ্তবয়স্ক ব্যাক্তি ও শিশুদের মধ্যে কৃমির লক্ষণগুলির চিকিৎসা করে যেমন – পেটের শ্লেষ্মা ঝিল্লির ফুলে যাওয়া অন্ত্র (টেনেসমাস) ও নিশাচর ঘাম বের করার জন্য বারবার প্রবণতা সহ।
(চ) সিনা (Cina) : ঘুমের সময় দাঁত ঝাঁঝরা, নাক চুলকানি এবং সহজেই চমকে যাওয়া ইত্যাদির চিকিত্সা করে। এটি অ্যাসকারাইডের বিরুদ্ধেও কাজ করে।
আর ৫৬ ঔষধ সেবন বিধি : প্রাপ্ত বয়স্করা জন্য ১৫ থেকে ২০ ফোঁটা, শিশুরা ৭ থেকে ১০ ফোঁটা ঔষধ ১/৪ কাপ পানিতে মিশিয়ে দিনে ৩ বার অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করতে হবে। পুনরায় সংক্রমণ প্রতিরোধের জন্য উপরে উল্লিখিত একই ডোজে নিবিড় চিকিৎসার ৪ থেকে ৬ সপ্তাহ পরে আবার গ্রহণ করা উচিত।
চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।

আর পড়ুন –  শিশুর কৃমি

সতর্কতা : গর্ভবতী মা অথবা দুগ্ধদানকারী মারা ঔষধ সেবনের পূর্বে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করা উত্তম।
শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।
পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : হোমিওপ্যাথি সর্বোত্তম চিকিৎসা প্রদান করে কারণ এটি নিরাপদ এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুক্ত।
ঔষধ সংরক্ষণ : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।
ঔষধের গুণগতমাণ : এটি একটি প্রাকৃতিক পণ্য, এটি কখনও কখনও সামান্য বৃষ্টিপাত অথবা মেঘলা হতে পারে, কিন্তু এটি পণ্যের গুণমান এবং এর কার্যকারিতা প্রভাবিত করে না। যদি এটি ঘটে তবে পণ্যটি ব্যবহার করার আগে ভালভাবে ঝাঁকি নিন। একবার আপনি সীলটি ভেঙে ফেললে, ওষুধগুলি দ্রুত ব্যবহার করা উচিত।
আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন।  এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।  সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন।  আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।

 

 

 

 

 

 

 

 

 


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev