সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০১:১২ অপরাহ্ন

আর ৫২ (বমি বমি ভাব)

আরোগ্য হোমিও হল / ৩৯ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ সোমবার, ২২ এপ্রিল, ২০২৪, ৬:০৩ অপরাহ্ন

Dr.Reckeweg R 52/ আর ৫২ (বমি বমি ভাব)
আর ৫২ (বমি বমি ভাব)
R 52 (nausea)
আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “ আর ৫২ (বমি বমি ভাব)” কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।
প্রস্তুত প্রণালী : Dr.Reckeweg R 52/ জার্মান কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ।
ব্যবহার : আর ৫২ মোশন সিকনেস ড্রপসটি বমি, ভ্রমণ অসুস্থতা, বমি বমি ভাবের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়।
আর ৫২ মোশন সিকনেস কি?
এটি ট্র্যাভেল সিকনেস নামেও পরিচিত মোশন সিকনেস বলতে বোঝায় চলন্ত গাড়িতে ভ্রমণের সময় অস্বস্তি, মাথা ঘোরা এবং ঘামের প্রগতিশীল অনুভূতি। মোশন সিকনেস হল ভেতরের কানের সাধারণ ব্যাঘাতের ফলে যা বারবার গতির কারণে এটি হয়। এটি সাধারণত বমি ও বমি বমি ভাব দ্বারা অনুসরণ করা হয়। চোখ ও ভিতরের কানের দ্বারা মস্তিষ্কে প্রেরিত মিশ্র সংকেতের মাধ্যমে ইন্দ্রিয়ের মধ্যে সংঘর্ষের ফলে গতি অসুস্থতা হতে পারে। শিশু এবং গর্ভবতী মহিলারা মোশন সিকনেসের প্রবণতা বেশি। বিশেষ করে কিছু মানুষ চলন্ত ট্রেন, নৌকা, বিমান অথবা বিনোদন পার্কের রাইডগুলিতে গতির অসুস্থতা অনুভব করে। মোশন সিকনেসের উপসর্গগুলি হল বমি, বমি বমি ভাব, মাথা ঘোরা, ফ্যাকাশে ত্বক, লালা বৃদ্ধি, অসুস্থ বোধ করা, তন্দ্রা, মাথাব্যথা, ক্লান্তি ও ঠান্ডা ঘাম ইত্যাদি।
আর ৫২ মোশন সিকনেস ড্রপস :
আর ৫২ হল একটি পেটেন্ট জার্মান হোমিওপ্যাথিক ওষুধ যা বমি বমি ভাব, বমি এবং ভ্রমণের অসুস্থতার চিকিৎসায় কার্যকর। এতে অ্যাথুসা সাইন্যাপ, অ্যাপোমরফিনের মতো মূল উপাদান দিয়ে প্রস্তুত করা হয়েছে যা হাইড্রোক্লোর ইত্যাদি যা বমি বমি ভাব, সামুদ্রিক অসুস্থতা, অসুস্থ অনুভূতি (যেমন গাড়ি চালানোর সময়), গর্ভাবস্থায় বমি বমি ভাব এবং অন্যান্য রোগের ফলে বমি বমি ভাব। এছাড়াও এটি গ্যাস্ট্রিক ক্যাটারার (অতিরিক্ত স্রাব বা শ্লেষ্মা তৈরি), শিশুদের বমি বমি ভাব, অ্যাসিটোনেমিক বমি, ঠান্ডা ঘাম (ঘাম), মদ্যপানকারীদের গ্যাস্ট্রিক ক্যাটারা, বিলিয়ারি কোলিক (পিত্তথলির সাথে সম্পর্কিত ব্যথা) এবং রেনাল কোলিক (পেটে ব্যথা সাধারণত সৃষ্ট) এর সমাধান করে। কিডনি পাথর দ্বারা)।
আর ৫২ মোশন সিকনেস ড্রপসটির ইঙ্গিত :
আর ৫২ মোশন সিকনেস ড্রপসটি বমি বমি ভাব, অসুস্থ অনুভূতি (যেমন – ড্রাইভিং বা মিমানে উড়ে যাওয়ার সময়), সমুদ্র পথে ভ্রমের সময় অসুখ, গর্ভাবস্থায় বমি বমি ভাব ও বমি অন্যান্য ব্যাধির প্রভাব হিসাবে বমি বমি ভাব, রক্ত সঞ্চালনের দুর্বলতা, শিশুদের বমি বমি ভাব (অ্যাট্রোফি এবং ডিস্ট্রোফি)। স্তন্যপান এবং বাচ্চাদের অ্যাসিটোনেমিক বমি। গ্যাস্ট্রিক ক্যাটারা,  মদ্যপানকারীদের গ্যাস্ট্রিক ক্যাটারার উপর বমি বা বমি বমি ভাব। ঠাণ্ডা ঘাম এবং বমি বমি ভাব বিশেষ করে রক্ত সঞ্চালনের দুর্বলতা বিশেষ করে পিত্তথলির কোলিক হওয়ার আগে। বমির সাথে রেনাল কোলিকের পরিপূরক প্রতিকার, বমির সাথে ডিম্বাশয়ের সিস্টে, অন্ত্রের খিঁচুনি ও কোলিক, বমি বমি ভাব এবং বমি সহ মেটিওরিজমের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য।

আরও পড়ুন –  বায়ো-কম্বিনেশন ২৬ (গর্ভাবস্থায় ব্যথা)

আর ৫২ মোশন সিকনেস ড্রপসটির মুল উপাদান :
(ক) অ্যাপোমরফিনাম হাইড্রোক্লোরিকাম D12 (Aethusa cynapium D12)।
(খ) ইথুজা সাইনেপিয়াম D6 (Aethusa cynapium D6)।
(গ) ইপিকাক D8 (Ipecac D8)।
(ঘ) কোলচিকাম D12 (Colchicum D12)।
(ঙ) ককুলাস ইন্ডিকাস D12 (Cocculus D12)।
(চ) নাক্স ভোম উ৩০ (ঘীঁ ঠড়স উ৩০)
(ছ) পেট্রোলিয়াম  D12 (Petroleum D12)।
(জ) ভিরেট্রাম এলবাম D30 (Veratrum Album D30)।
আর ৫২ মোশন সিকনেস ড্রপসটির উপাদানের কর্মের মোড :
আর ৫২ ড্রপসের মূল বৈশিষ্ট্যগুলি, গতির অসুস্থতার জন্য নির্দেশিত ওষুধগুলি নিম্নলিখিত উপাদানগুলি থেকে উদ্ভূত হয়েছে।
(১) অ্যাপোমরফিনাম হাইড্রোক্লোরিকাম (Aethusa cynapium ) : এটি বিভিন্ন ধরণের বমি এবং হাইপারমেসিস গ্র্যাভিডারাম (গর্ভাবস্থার প্রথম দিকে অবিরাম বমি করে। এছড়াও এটি গ্যাস্ট্রিক ক্যাটারার সাথে বমি করার তাগিদ ও বমি বমি ভাবের চিকিৎসায় কার্যকর।
(২) ইথুজা সাইনেপিয়াম  (Aethusa cynapium) : এটি বমি বমি ভাব এবং বমি সহ গ্যাস্ট্রিক ক্যাটারার ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট, এছাড়াও শিশু এবং স্তন্যপান করায় বমি।
(৩) ইপিকাক (Ipecac) : এটি মাতাল ও ধূমপানের বমি সহ বমি বমি ভাব, বমির চিকিৎসা উপকার।
(৪) কোলচিকাম (Colchicum) : এটি মোশন সিকনেসের ওষুধ হিসাবে কাজ করে ও খাবারের গন্ধের কারণে বমি এবং বমি বমি ভাব ও বমির চিকিৎসা করে।
(৫) পেট্রোলিয়াম (Petroleum) : এটি চলমান বস্তুর দিকে তাকানোর করণে সৃষ্ট বমি বমি ভাবের বিরুদ্ধে কার্যকর।
(৬) ভিরেট্রাম এলবাম (Veratrum Album) : এটি ধস, ঘাম এবং ঘোরের সাথে রক্ত সঞ্চালন দুর্বলতায় কার্যকরী।

আরও পড়ুন –  এন – ০৯ (কফ ড্রপস)

আর ৫২ ঔষধ সেবন বিধি :  আপনার যদি গর্ভাবস্থায় বমি হওয়ার প্রবণতা সহ বমি বমি ভাব, সামুদ্রিক অসুস্থতায়, অ্যাপেন্ডিক্সের প্রদাহ, গলব্লাডারের প্রদাহ, অন্ত্রের ক্র্যাম্প, রক্ত সঞ্চালনের দুর্বলতা, স্তন্যপানের গ্যাস্ট্রিক ক্যাটারা ইত্যাদিতে ১০  থেকে ১৫ ফোঁটা ঔষধ (একঢোক পরিমাণ পানি মিশিয়ে ৫-১০ মিনিট পরপর সেবন করুণ, যেমন গাড়ি চারার সময় হাতে রাখুন)। বিশেষ করে অপ্রীতিকর প্রভাবগুলিকে ভয় করা উচিত নয় কারণ এই প্রতিকারটি লিভারের জন্য ক্ষতিকারক নয় কিন্তু বিপরীত ভাবে এটি উদ্দীপক হিসাবে কাজ করে। বিষাক্ত খাবার শোষণের পর শুরুতে সবচেয়ে বেশি বমি হতে পারে। জৈবিক দৃষ্টিকোণ থেকে এই প্রতিক্রিয়াটি অপ্রীতিকর নয়। অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করতে হবে। গর্ববতী নারীরা ঔষধ সেবনের পূর্বে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ করুণ।
চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।
সতর্কতা : গর্ভবতী মা অথবা দুগ্ধদানকারী মারা ঔষধ সেবনের পূর্বে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করা উত্তম।
শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।
পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : হোমিওপ্যাথি সর্বোত্তম চিকিৎসা প্রদান করে কারণ এটি নিরাপদ এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুক্ত।
ঔষধ সংরক্ষণ : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।
ঔষধের গুণগতমাণ : এটি একটি প্রাকৃতিক পণ্য, এটি কখনও কখনও সামান্য বৃষ্টিপাত অথবা মেঘলা হতে পারে, কিন্তু এটি পণ্যের গুণমান এবং এর কার্যকারিতা প্রভাবিত করে না। যদি এটি ঘটে তবে পণ্যটি ব্যবহার করার আগে ভালভাবে ঝাঁকি নিন। একবার আপনি সীলটি ভেঙে ফেললে, ওষুধগুলি দ্রুত ব্যবহার করা উচিত।
আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন।  এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।  সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন।  আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev