সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০১:০৮ অপরাহ্ন

আর ৪৯ (সাইনোসাইটিস, পলিপাস, ক্যাটাহ) 

আরোগ্য হোমিও হল / ৩২ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল, ২০২৪, ৬:২৭ অপরাহ্ন

Dr.Reckeweg R 49/ আর ৪৯ (সাইনোসাইটিস, পলিপাস, ক্যাটাহ) 
Dr.Reckeweg R 49 (Polyps. Sinusitis. Catarrh)
আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “ আর ৪৯ (সাইনোসাইটিস, পলিপাস, ক্যাটাহ) ” কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।
প্রস্তুত প্রণালী : Dr.Reckeweg R 49/ জার্মান কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ।
ব্যবহার : আর ৪৯ ড্রপসটি তীব্র সাইনোসাইটিস, পলিপাস, ক্যাটার্হ ইত্যাদিতে ব্যবহার করা হয়।
আর ৪৯ সাইনোসাইটিস ড্রপস : আর ৪৯ হোমিওপ্যাথিক ঔষধ দীর্ঘস্থায়ী এবং তীব্র সাইনোসাইটিস এবং সংশ্লিষ্ট সম্যার চিকিৎসা করে। এতে আর্সেনিক এ্যাল্ব, ক্যালি কার্ব ইত্যাদি এর মতো ঔষধ মিশ্রণ যা দীর্ঘস্থায়ী এবং তীব্র অত্যধিক স্রাব বা নাকের শ্লেষ্মা (ক্যাটার্হ) তৈরি করতে পারে। এটি ম্যাক্সিলারি সাইনাস, সাইনোসাইটিস ও শিশুদের মধ্যে শ্লেষ্মা ঝিল্লি (পলিপ) থেকে প্রসারিত ছোট বৃদ্ধির গঠন, ঘ্রাণ অনুভূতির অভাব (ঘ্রাণ) এবং স্বাদে নির্দেশিত। এটি একটি পেটেন্ট ওষুধ, ক্যালকেরিয়া কার্ব থাকায় নিঃসরণে প্রদাহজনক মধ্যস্থতাকারী উৎপাদনের একটি সাংবিধানিক প্রতিকার হিসাবে বিবেচিত হয়, যেমন- গ্রন্থিগুলির ফুলে যাওয়া এবং পুরু রপি মিউকুওসা উৎপাদন যা অনুনাসিক বাধা ও অনুনাসিক ড্রিপের প্রধান কারণ।
দীর্ঘস্থায়ী সাইনোসাইটিস থেকে স্থায়ী সমাধান : দীর্ঘস্থায়ী সাইনোসাইটিস ও সাইনাসের মাথাব্যথার স্থায়ী নিরাময় সম্ভব। এটি রোগীর নির্দিষ্ট সাইনোসাইটিস চিকিৎসা পদ্ধতি। এখানে রোগীর প্রবণতা, প্রোফাইল ও প্রতিক্রিয়া দ্বারা নির্ধারিত হয়। এখানে প্রতিকারের পদ্ধতি নির্ভর করে আপনি কেন আক্রান্ত হয়েছেন তার উপর। তবে আর ৪৯ সাইনোসাইটিস ড্রপটি প্রস্তাব করে যা অনুনাসিক প্যাসেজের শ্লেষ্মা ঝিল্লির ফুলে যাওয়া, ক্যাটারাহাল অবস্থা, দীর্ঘস্থায়ী হওয়ার প্রবণতা (দীর্ঘস্থায়ী) ইত্যাদি।
আর ৪৯ ড্রপসটির ইঙ্গিত : নাক ও ম্যাক্সিলারি সাইনাসের তীব্র এবং দীর্ঘস্থায়ী ক্যাটারহ, সাইনোসাইটিস শিশুদের পলিপাস, ঘ্রাণ এবং স্বাদের অভাব ইত্যাদি ।

আরও পড়ুন –  নাসোলেক্স ড্রপস (নাকের সর্দি পলিপাস, সাইনোসাইটিস, রক্তধিক্যে কার্যকর)

সাইনোসাইটিস সম্পর্কে ধারণা : সাইনাস সংক্রমণের লক্ষণগুলি হল প্রদাহ, নাকের শ্লেষ্মা জ্বালা। ক্যাটারা শ্বাসনালী অথবা শরীরের গহ্বরে অত্যধিক শ্লেষ্মা জমা হওয়াকে বলা হয়। ক্যাটার্হ সাধারণত এটি সাইনাসে পাওয়া যায়। দীর্ঘস্থায়ী ক্যাটরহ হয় যখন উৎপাদিত কফ স্রাবে বাধা সৃষ্টি করে । ক্যাটারহ লক্ষণগুলি হল গলায় অস্বস্তি বোধ, নাক ফুঁকানো কিন্তু কোন প্রভাব না থাকা, কানে কর্কশ শব্দ, ক্রমাগত কাশি, অসুস্থ বোধ করা ইত্যাদি। ম্যাক্সিলারি সাইনাসের মধ্যে বড় বায়ু সাইনাস। ম্যাক্সিলারি সাইনাসের লক্ষণগুলো হল মাইগ্রেন, দাঁতের উপরের অংশে ব্যথা, চোখের নিচে চাপ অনুভূত হওয়া, জ্বর, দুর্বলতা, গালে ব্যথা ইত্যাদি।
ম্যাক্সিলারি সাইনাস সাধারণত দুই ধরনের যেমন – 
(১) তীব্র সাইনোসাইটিস
(২) ক্রনিক সাইনোসাইটিস।
তীব্র সাইনোসাইটিসের লক্ষণ যা নির্দিষ্ট প্রতিকারের মাধ্যমে চিকিৎসা করা যেতে পারে যেখানে দীর্ঘস্থায়ী সাইনোসাইটিসে পলিপ (মিউকাস মেমব্রেন থেকে ছোট আকারের বৃদ্ধি) এর মতো উপসর্গ থাকে যা চিকিৎসা করা কঠিন।
আর ৪৯ ড্রপসটির মুল উপাদান: 
(ক) আর্সেনিকাম এ্যাল্ব D12 (Ars Alb D12)।
(খ) ক্যালি কার্ব D30 (Calc Carb D30)।
(গ) ক্যালি বাইক্রোমিকাম D12 (Kali Bichromicum D12)।
(ঘ) পালসেটিলা D12 (Pulsatilla D12)।
(ঙ) সিনাবারিস D12 (Cinnabar D12)।

আরও পড়ুন – কেন্ট ১৭ ( সাইনোসাইটিস রোগে কার্যকর)

আর ৪৯ ড্রপসটির পৃথক উপাদানের কর্মের মোড : সাইনাস ইনফেকশন ও ক্যাটারার লক্ষণগুলির মূল বৈশিষ্ট্য নিম্নলিখিত উপাদানগুলি থেকে উদ্ভূত হয়েছে
(১) আর্সেনিকাম এ্যাল্ব (Ars Alb) : এটি সাধারণত বিষণ্নতায় দীর্ঘস্থায়ী রোগের চিকিৎসা করে।
(২) ক্যালি কার্ব (Calc Carb) : এটি গ্রন্থি ও শ্লেষ্মা ফোলাতে প্রতিকার হিসাবে কাজ করে। এটি মিউকোসা এবং suppurations এর suppurative প্রদাহের চিকিৎসা করে।
(৩) ক্যালি বাইক্রোমিকাম (Kali Bichromicum) : এটি সাদা আঠালো স্রাব (ম্যাক্সিলারি সাইনাস ও নাক) সাহায্য করে। এটি শ্লেষ্মার জ্বালা, থুথু ফেলা (অপেক্ষা) ও দীর্ঘস্থায়ী ক্যাটারার দীর্ঘস্থায়ী সমাধান করে।
(৪) পালসেটিলা (Pulsatilla) : এটি গ্রন্থি এবং মিউকোসার ফোলা নিয়ন্ত্রণে সহায্য করে।
(৫) সিনাবারিস (Cinnabar) : সাইনাস ইনফেকশন ও ক্যাটারার লক্ষণ যেমন- ম্যাক্সিলারি সাইনাস ও কপালের ক্যাটারার চিকিৎসা করে।
আর ৪৯ ড্রপসটির ইঙ্গিত : আর ৪৯-আর ৬ – ইনফ্লুয়েঞ্জায়: যদি আপনার একসাথে ফ্লু এবং সাইনাসের সংক্রমণ হয় এবং এই অবস্থায় সাইনোসাইটিস ফ্লুর থেকে বেশি সময় ধরে যদি থাকে। আপনার শ্বাস-প্রশ্বাস নিতে অসুবিধা হতে পারে কারণ আপনার স্ফীত সাইনাসগুলি এই সময়ে আপনার নাকের মধ্য দিয়ে বায়ু প্রবাহকে সীমাবদ্ধ করতে পারে। এই সমন্বয় চিকিৎসায় সাহায্য করবে।
আর ৪৯- আর ৪৫ –  স্বরযন্ত্র এবং ক্যাটারার কর্কশতায় : সাইনোসাইটিস সাধারণত একটি বিরক্তিকর সুড়সুড়ি হিসাবে শুরু হতে পারে এবং এটি আরো খারাপ হতে পারে। যদি আপনার সংক্রমণ কয়েক সপ্তাহ অথবা তার বেশি সময় ধরে থাকে, তাহলে শ্লেষ্মা ফোঁটা ফোঁটা করার সাথে সাথে আপনার গলাকে জ্বালাতন এবং প্রদাহ করতে পারে, যার ফলে একটি বেদনাদায়ক গলা ব্যথা ও কর্কশ কণ্ঠস্বর হয়। ঘন ঘন কাশি অথবা গলা পরিষ্কার করা একটি কর্কশ কণ্ঠস্বরকে আরো খারাপ করে তুলতে পারে।
আর ৪৯-আর ৮ অথবা আর ৯ – কাশি : সাইনোসাইটিসে আক্রান্ত হলে রোগীর গলা পরিষ্কার করার জন্য বারবার কাশি হতে পারে, কিন্তু অন্যরা অনিয়ন্ত্রিত কাশি অনুভব করে। এটি ঘটে কারণ একটি সাইনাস সংক্রমণের ফলে গলায় শ্লেষ্মা ও তরল ব্যাক আপ হতে পারে, যা গলা চুলকাতে পারে অথবা ভরা অনুভব করতে পারে।

আরও পড়ুন – এন – ৪৯ (পলিপাস ও সাইনোসাইটিস ড্রপস)

আর ৪৯ ঔষধ সেবন বিধি :
তীব্র অবস্থায় প্রতি ১ থেকে ২ ঘন্টা পর পর ১০ ফোঁটা এক ঢোক পানিতে মিশিয়ে সেবন করুণ।  আর ৫১ ঔষধ সেবন বিধি : প্রাপ্ত বয়স্করা জন্য ১৫ থেকে ২০ ফোঁটা, শিশুরা ৭ থেকে ১০ ফোঁটা ঔষধ ১/৪ কাপ পানিতে মিশিয়ে দিনে ৩ বার দীর্ঘস্থায়ী অবস্থায় প্রতিদিন ৩ থেকে ৪ বার ১০ থেকে ১৫ ফোঁটা সেবন করুণ। অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করতে হবে।
চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।
সতর্কতা : গর্ভবতী মা অথবা দুগ্ধদানকারী মারা ঔষধ সেবনের পূর্বে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করা উত্তম।
শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।

আরও পড়ুন – র‌্যাক্স নং- ৩৪ (নাকের প্রদাহ)

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : হোমিওপ্যাথি সর্বোত্তম চিকিৎসা প্রদান করে কারণ এটি নিরাপদ এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুক্ত।
ঔষধ সংরক্ষণ : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।
ঔষধের গুণগতমাণ : এটি একটি প্রাকৃতিক পণ্য, এটি কখনও কখনও সামান্য বৃষ্টিপাত অথবা মেঘলা হতে পারে, কিন্তু এটি পণ্যের গুণমান এবং এর কার্যকারিতা প্রভাবিত করে না। যদি এটি ঘটে তবে পণ্যটি ব্যবহার করার আগে ভালভাবে ঝাঁকি নিন। একবার আপনি সীলটি ভেঙে ফেললে, ওষুধগুলি দ্রুত ব্যবহার করা উচিত।
আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন।  এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।  সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন।  আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev