সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১২:১৮ অপরাহ্ন

আর ৪৬ (সামনের বাহু এবং হাতের বাতজনিত রোগ) 

আরোগ্য হোমিও হল / ২৮ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ শনিবার, ২৭ এপ্রিল, ২০২৪, ৫:৩১ অপরাহ্ন
আর ৪৬ (সামনের বাহু এবং হাতের বাতজনিত রোগ) 

Dr. Reckeweg R 46/ আর ৪৬ (সামনের বাহু এবং হাতের বাতজনিত রোগ) 
Dr. Reckeweg R 46 (In rheumatism of fore-arms and hands)
আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “  (আর ৪৬ সামনের বাহু এবং হাতের বাতজনিত রোগ) ” কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।
প্রস্তুত প্রণালী : Dr. Reckeweg R 46 জার্মান কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ।
ব্যবহার : আর ৪৬ ড্রপসটি রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিসে ব্যবহার করা হয়।
আর ৪৬ ড্রপসটি প্রতিকার : আর ৪৬ ড্রপসটি হল একটি হোমিওপ্যাথিক প্রতিকার যা বিশেষ ভাবে বাতজনিত আর্থ্রাইটিস, বিশেষ করে যখন এটি হাতকে প্রভাবিত করে। এটি হাতের জয়েন্টগুলিতে স্থানীয় ব্যথা উপশম করে। ফেরাম ফসফোরিকাম এবং নাক্স ভোমিকার মতো বেশ কিছু ঔষধ মতো উপাদান থাকায় যা বাত নিয়ন্ত্রণে তাদের কার্যকারিতা এবং ইউরিক অ্যাসিডের অনুপযুক্ত বিপাকের জন্য বাত অথবা হাত ও বাহুতে গাউটের দিকে পরিচালিত করার জন্য নির্বাচিত হয়। এর মধ্যে জয়েন্ট ফোলা এবং ব্যথার মতো লক্ষণগুলি রয়েছে যা আবহাওয়ার পরিবর্তন, বিশেষ করে আর্দ্রতার সাথে আরো খারাপ হতে পারে।
আর ৪৬ ড্রপসটির ইঙ্গিত : আর ৪৬ ড্রপসটি সাধারণত সেই ব্যক্তিদের জন্য যারা বাত এবং হাতের বাহুতে এবং গাউটে ভুগছেন, যা জয়েন্টগুলোতে ফোলাভাব দ্বারা চিহ্নিত করা হয়। এটি বিশেষত তীব্র ক্ষেত্রে উপকারী যেখানে লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে অসাড়তা এবং উচ্চারিত জয়েন্ট ফুলা যা সম্ভাব্য বিকৃতির সাথে আর্থ্রাইটিসের ইঙ্গিত দেয়। সায়াটিকা, হাঁটু ও কাঁধের বাত, স্যাক্রাল ব্যথা, হাঞ্চ আর্টিকুলেশন প্রদাহ, ইন্টারকোস্টাল নিউরালজিয়া বা অসিপুট রিউম্যাটিজম সহ স্যাঁতসেঁতে আবহাওয়ার কারণে আরও খারাপ হওয়া অন্যান্য বাতজনিত অবস্থার জন্যও এটি প্রযোজ্য।

আরও পড়ুন –  অ্যাডাল-২৭ ( বাত ও আঘাত)

নরম টিস্যু রিউম্যাটিজম বোঝবেন কী ভাবে : নরম টিস্যু রিউম্যাটিজম টেন্ডন, লিগামেন্ট, বারসা, জয়েন্ট ক্যাপসুল, পেশী ও ফ্যাসিয়াকে প্রভাবিত করে যার ফলে ব্যথা, ফোলা অথবা প্রদাহ হয় যা বাতের সাথে সরাসরি যুক্ত নয়। এটি সংযোগকারী টিস্যু রোগের একটি সাধারণ প্রকাশ, যা বাতজনিত আর্থ্রাইটিসের মতো লক্ষণগুলি উপস্থাপন করে যেমন – জয়েন্টে ব্যথা, ক্লান্তি, ফোলাভাব, কোমলতা, লালভাব, কঠোরতা ও উষ্ণতা। “রিউম্যাটিজম” শব্দটি প্রায়শই জয়েন্ট, পেশী অথবা তন্তুযুক্ত টিস্যুকে প্রভাবিত করে প্রদাহ এবং ব্যথায় ব্যবহৃত হয়।
আর ৪৬ ড্র্রপটির মুল উপাদান :
(ক) লিথিয়াম কার্ব (Lithium Carbonate)।
(খ) নাক্স ভোম (Nux vomica)।
(গ) ন্যাট্রিয়াম সালফিউরিকাম (Natrum sulphuricum)।
(ঘ) রডোডেনড্রন (Rhododendron)।
(ঙ) ফেরাম ফসফোরিকাম  (Ferrum phosphoricum)।
(চ) স্পিরিয়া উলমারিয়া (Spiraea ulmaria)।

আরও পড়ুন –  অ্যাডাল-৫৫ (ঘাড় ও পিঠে ব্যথা)

আর ৪৬ ড্রপনটি এর কার্যকারিতা :
(ক) লিথিয়াম কার্বোনিকাম (Lithium Carbonate) : বাত এবং গাউটে নির্দিষ্ট প্রভাব, বিকৃতি এবং বাত-গাউটি রোগের সাথে আর্থ্রাইটিস রোগে কাজ করে।
(খ) নাক্স ভোম (Nux vomica) : সকালে ঘুম থেকে ওঠার সময় প্রফুল্লতা কম এবং খারাপ হওয়া ব্যথা উপশম করে।
(গ) ন্যাট্রিয়াম সালফিউরিকাম (Natrum sulphuricum) : হাঁপানি ও বাতজনিত আর্দ্রতা থেকে উত্তেজনা হ্রাস করে।
(ঘ) রডোডেনড্রন (Rhododendron) : দীর্ঘস্থায়ী বাত ও হাত এবং বাহুর হাড়ের ব্যথার সমাধান করে।
(ঙ) ফেরাম ফসফোরিকাম (Ferrum phosphoricum) : এটি প্রদাহের সাথে লড়াই করে ও সেকেন্ডারি অ্যানিমিয়াকে মোকাবেলা করে যা প্রায়ই আর্থ্রাইটিস এবং রিউম্যাটিজম দেখা যায়।
(চ) স্পিরিয়া উলমারিয়া (Spiraea ulmaria) : কনুইতে আর্টিকুলেশনে স্থানীয়ভাবে ঝাঁঝালো ব্যথা এবং জয়েন্টে ব্যথা লক্ষ্য করে।
আর ৪৬ ড্রপের জন্য প্রশংসাসূচক প্রতিকার : নারীদের স্যাক্রোইলিয়াক জয়েন্টে ব্যথার জন্য আর ৫০-আর ৪৬ যা নিতম্বে বা পিঠের নিচের অংশে ব্যথা। এ ব্যথা এক বা উভয় পা নিচে প্রসারিত করতে পারে। এ রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস সাধারণত ছোট জয়েন্টগুলিকে প্রভাবিত করে যেমন – হাত এবং কব্জি, এটি স্যাক্রোইলিয়াক জয়েন্টে গুলিকে প্রভাবিত হতে পারে। ২২% রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস রোগীদের মধ্যে স্যাক্রোইলাইটিস পাওয়া গেছে ইন্টারকোস্টাল নিউরালজিয়ায় আর ২৪-আর ৪৬। যদিও অস্বাভাবিক, রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস পাঁজরে ব্যথা হতে পারে। এটি স্নায়ুর ক্ষতি করে যা ইন্টারকোস্টাল নিউরালজিয়াতে নেতৃত্ব দেয়।

আরও পড়ুন –  এইচ আর – ২০ (সায়াটিকার চিকিৎসায় কার্যকর)

আর ৪৬ ঔষধ সেবন বিধি : প্রাপ্ত বয়স্করা জন্য ১৫ থেকে ২০ ফোঁটা, শিশুরা ৭ থেকে ১০ ফোঁটা ঔষধ ১/৪ কাপ পানিতে মিশিয়ে দিনে ৩ বার অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করতে হবে।
চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।
সতর্কতা : গর্ভবতী মা অথবা দুগ্ধদানকারী মারা ঔষধ সেবনের পূর্বে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করা উত্তম।
শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।
পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : হোমিওপ্যাথি সর্বোত্তম চিকিৎসা প্রদান করে কারণ এটি নিরাপদ এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুক্ত।
ঔষধ সংরক্ষণ : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।
ঔষধের গুণগতমাণ : এটি একটি প্রাকৃতিক পণ্য, এটি কখনও কখনও সামান্য বৃষ্টিপাত অথবা মেঘলা হতে পারে, কিন্তু এটি পণ্যের গুণমান এবং এর কার্যকারিতা প্রভাবিত করে না। যদি এটি ঘটে তবে পণ্যটি ব্যবহার করার আগে ভালভাবে ঝাঁকি নিন। একবার আপনি সীলটি ভেঙে ফেললে, ওষুধগুলি দ্রুত ব্যবহার করা উচিত।
আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন।  এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।  সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন।  আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev