সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০১:১৫ অপরাহ্ন

 আর ৪৫ (স্বরযন্ত্রের অসুস্থতা)

আরোগ্য হোমিও হল / ৩২ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ রবিবার, ২৮ এপ্রিল, ২০২৪, ৫:৫০ অপরাহ্ন
আর ৪৫ (স্বরযন্ত্রের অসুস্থতা)

Dr. Reckeweg R45/  আর ৪৫ (স্বরযন্ত্রের অসুস্থতা)
Dr.Reckeweg R45 (illness of the larynx)
আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “  আর ৪৫ (স্বরযন্ত্রের অসুস্থতা)” কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।
প্রস্তুত প্রণালী : Dr. Reckeweg R45/ জার্মান কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ।
ব্যবহার : আর ৪৫ ড্রপসটি স্বরযন্ত্রের অসুস্থতা, কণ্ঠস্বর কর্কশতায় ব্যবহার করা হয়।
আর ৪৫ ভয়েস হর্সেনেস ড্রপ উপকারিতা : আর ৪৫ ড্রপসটি হল হোমিওপ্যাথিক ওষুধ যা বেশ কিছু হোমিওপ্যাথিক ঔষধ মিশ্রণ ড্রপগুলিতে পাওয়া যায়। এ ড্রপটি কণ্ঠস্বর কর্কশ হওয়ার কারণগুলির চিকিৎসা করে। এর মধ্যে যে সব ঔষধ রয়েছে যেমন – আর্জেন্টাম নাইট্রিকাম, আর্নিকা ইত্যাদি যাহা কর্কশতা (শব্দ করতে অসুবিধা) ও স্বরযন্ত্রে ক্যাটারা (অতিরিক্ত স্রাব অথবা শ্লেষ্মা জমা) ক্ষত হিসাবে সংবেদন সহ কাজ করে।
আর ৪৫ ড্রপটির ইঙ্গিত : কর্কশতা : গায়ক, অভিনেতা, শিক্ষক ও বক্তাদের প্রভাবিত করার জন্য দায়ী। একটি ক্ষত হিসাবে সংবেদন সঙ্গে স্বরযন্ত্রের মধ্যে ক্যাটার্হ,স্বরযন্ত্রের যক্ষ্মা এবং স্নায়ুজনিত ব্যাধি যেমন – হিস্টেরিক্যাল বল ও ইনফ্লুয়েঞ্জায় একটি পরিপূরক প্রতিকার হিসাবে কাজ করে।
আর ৪৫ ড্রপসটির ভূমিকা : কণ্ঠস্বর কর্কশ হওয়ার কারণ হল স্বরযন্ত্রের সাথে যুক্ত একটি সমস্যা। ল্যারিনক্স হল মানুষের ভয়েস বক্স যার আবস্থান গলার পিছনে। তরুণাস্থির রিংগুলি স্বরযন্ত্রকে সমর্থন করে। শরীরের অন্যান্য অংশ যা স্বরযন্ত্রকে প্রভাবিত করে তা হল মুখ, নাক, জিহ্বা, গলা ও চোয়াল। স্বরযন্ত্রের ব্যাধিগুলির লক্ষণগুলির মধ্যে হল – কণ্ঠস্বর হ্রাস, কর্কশ হওয়া, গলা ব্যথা, গলা পরিষ্কার করার জন্য ঘন ঘন তাগাদা, শ্বাস নিতে অসুবিধা ইত্যাদি।
আর ৪৫ মুল উপকরণ :
(ক) আর্জেন্টাম নাইট্রিক D12 (Argentum nitricum D12)|
(খ) আর্ণিকা D30 (Arnica D30)|
(গ) অ্যারাম ম্যাকুল্যাটাম D12 (Arum Maculatum D12)|
(ঘ) ক্যালসিয়াম কার্বোনিকাম হ্যানিমানি D30 (Calcium carbonicum Hahnemanni D30)
(ঙ) ফসফরাস D30 (Phosphorus D30)।
আর ৪৫ ড্রপসটির পৃথক উপাদানের কর্মের মোড :
আর ৪৫ ড্রপের মূল বৈশিষ্ট্যগুলি কণ্ঠস্বর কর্কশ হওয়ার কারণগুলির চিকিত্সার জন্য নিম্নলিখিত উপাদানগুলি থেকে নেওয়া হয়েছে
(১) আর্জেন্টাম নাইট্রিক (Argentum nitricum)  : এটি স্বরযন্ত্রের ক্যাটার্হ কমায় এবং ভোকাল কর্ডের জ্বালা দুর করে। এটি স্বরযন্ত্রের শ্লেষ্মায় নির্দিষ্ট প্রভাব ফেলে এবং স্বরযন্ত্রের কর্কশতা ও ব্যথা নিয়ন্ত্রণ করে।
(২) আর্ণিকা (Arnica) :  এটি অযাচিত চাপ ও কণ্ঠস্বরের আঘাতের প্রভাবকে প্রতিহত করে এবং প্রদাহ নিয়ন্ত্রণ করে।

আরও পড়ুন –  র‌্যাক্স নং- ৫৯ (থাইরয়েড হরমোন বৃদ্ধিজনিত সমস্য)

(৩) অ্যারাম ম্যাকুল্যাটাম (Arum Maculatum) :  এটি কন্ঠস্বর কর্কশতার কারণগুলির চিকিৎসা করে এবং স্বরযন্ত্রের ক্ষত সংবেদন ও অস্বস্তিকরতা (অসম্মত ভাবে কঠোর) হ্রাস করে। এটি মুখের কাছে ক্যাটারিয়া রোগেরও চিকিৎসা করে।
(৪) ক্যালসিয়াম কার্বোনিকাম হ্যানিমানি (Calcium carbonicum Hahnemanni) :  এটি বিশেষভাবে কর্কশতা চিকিত্সার জন্য নির্দেশিত।  স্নায়ুর পক্ষাঘাত (নার্ভাস রিকারেন্স) এর ক্ষেত্রেও পাওয়া যায় এমন ধরনের কর্কশতা (বেদনাদায়ক নয়) জন্য বিশেষভাবে নির্দেশিত।
আর ৪৫ ড্র্র্র্র্র্র্র্র্র্রপসটির সেবন বিধি : দীর্ঘস্থায়ী নিরাময় ক্ষেত্রে, ১০-১৫ ফোঁটা ঔষধ একঢোক পানি মিশিয়ে খাবারের আগে প্রতিদিন সকাল-দুপুর-রাত্রে সেবন করতে হবে। কর্কশতা এবং ভয়েসের উপর অযাচিত চাপের ক্ষেত্রে ঘন ঘন সেবন সুপারিশ করা হয ়: প্রতি ৫-১০-১৫ মিনিটে ১০-১৫ ফোঁটা সেবন করুণ।অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করতে হবে।
চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।
সতর্কতা : গর্ভবতী মা অথবা দুগ্ধদানকারী মারা ঔষধ সেবনের পূর্বে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করা উত্তম।
শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।
পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : হোমিওপ্যাথি সর্বোত্তম চিকিৎসা প্রদান করে কারণ এটি নিরাপদ এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুক্ত।
ঔষধ সংরক্ষণ : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।
ঔষধের গুণগতমাণ : এটি একটি প্রাকৃতিক পণ্য, এটি কখনও কখনও সামান্য বৃষ্টিপাত অথবা মেঘলা হতে পারে, কিন্তু এটি পণ্যের গুণমান এবং এর কার্যকারিতা প্রভাবিত করে না। যদি এটি ঘটে তবে পণ্যটি ব্যবহার করার আগে ভালভাবে ঝাঁকি নিন। একবার আপনি সীলটি ভেঙে ফেললে, ওষুধগুলি দ্রুত ব্যবহার করা উচিত।
আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন।  এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।  সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন।  আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev