সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০১:১৯ অপরাহ্ন

আর ৪০ (ডায়াবেটিস ড্রপস)

আরোগ্য হোমিও হল / ৮৫ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ মঙ্গলবার, ৩০ এপ্রিল, ২০২৪, ৬:১১ অপরাহ্ন

Dr. Reckeweg R 40 (Diabetes Drops)
R 40 (Diabetes Drops)
আর ৪০ (ডায়াবেটিস ড্রপস)
আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “  আর ৪০ (ডায়াবেটিস ড্রপস)” কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।
প্রস্তুত প্রণালী : Dr. Reckeweg R 40/ জার্মান কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ।
ব্যবহার : আর ৪০ ড্রপসটি ডায়াবেটিস রোগের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়।
আর ৪০ ডায়াবেটিস ড্রপস সম্পর্কে : আর ৪০ ড্রপসটি হোমিওপ্যাথিক ডায়াবেটিস মেলিটাসের অপ্রীতিকর সেকেন্ডারি লক্ষণগুলির চিকিত্সা করে এবং এটির কারণে সৃষ্টি অবক্ষয়জনিত পরিবর্তনগুলিকে প্রতিরোধ করে। এর মধ্যে রয়েছে – লোহিত রক্তকণিকার উৎপাদনের ঘাটতি (ক্ষতিকর রক্তাল্পতা), লিউকেমিয়া, লিম্ফোগ্রানুলোমাটোসিস (লিম্ফ্যাটিক সিস্টেমের বিস্তৃত সংক্রামক গ্রানুলোমা) ইত্যাদি।
ডাঃ প্রাঞ্জলি, ডায়াবেটিসের কার্যকরী ব্যবস্থাপনার জন্য সিজিজিয়াম জাম্বোলানাম ১ী ট্যাবলেটের সাথে আর ৪০ ড্রপগুলি সুপারিশ করেন।
আর ৪০ ড্রপসটির  ইঙ্গিত : ডায়াবেটিস, ক্ষতিকারক অ্যানিমিয়া এবং অবক্ষয়ের পর্যায়গুলি রক্ত এবং গ্রন্থিতন্ত্রকে কেন্দ্র করে, যেমন – লিউসেমিয়া, অ্যানিমিয়া, আইমফোগ্রানুলোমাটোসিস, তবে বিশেষত ডায়াবেটিস। আর ৪০ গৌণ লক্ষণগুলিকে কমিয়ে দেয় যেমন – বিষণ্নতা, উত্তেজনা, পেট ফাঁপা, ক্ষুধার অভাব, আবহাওয়া পরিবর্তনের সময় উত্তেজনা, তৃষ্ণা, চুলকানি ইত্যাদি। তবে ইনসুলিন-নির্ভর ডায়াবেটিস রোগীদের ক্ষেত্রে, আর ৪০ ড্রপসটির দীর্ঘ ডোজ অব্যাহত রাখার পরে ইউনিটগুলির একটি সাবধানে পরিমাপ করা সম্ভব।

আরও জানুন –  অ্যাডাল-১৮ (ডায়াবেটিস)

আর ৪০ ডায়াবেটিসের ক্ষতিকর প্রভাব ও চিকিৎসা :  ডায়াবেটিস মেলিটাসের সাধারণ উপসর্গগুলির মধ্যে রয়েছে – তীব্র তৃষ্ণা, ক্ষুধামন্দা, ঘন ঘন প্রস্রাব, ওজন বৃদ্ধি, ক্লান্তি, অস্বাভাবিক ওজন হ্রাস, অসাড়তা, পায়ে এবং হাতে ঝাঁকুনি, কাটা শীঘ্রই নিরাময় হয় না ও দৃষ্টি ঝাপসা হয়ে যায়। ডায়াবেটিস একটি বিপাকীয় রোগ যা উচ্চ রক্তে শর্করা থাকে। দীর্ঘ সময়ের জন্য শরীরে স্তর। যদি আপনার ডায়াবেটিসের চিকিৎসা না করা হয় তবে এটি কিডনি ব্যর্থতা, কার্ডিওভাসকুলার রোগ, চোখের ক্ষতি, পায়ের আলসার, স্নায়ুর ক্ষতি ইত্যাদির মতো অনেক জটিল ব্যাধিতে আক্রান্ত হতে পারে। অগ্ন্যাশয় পর্যাপ্ত ইনসুলিন তৈরি না করলে অথবা শরীরের কোষগুলি উৎপাদিত ইনসুলিনের প্রতি সঠিকভাবে সাড়া না দিলে ডায়াবেটিস হয়ে থাকে।
ডায়াবেটিস সাধারণত তিন ধরনের রয়েছে:
(ক) টাইপ ১ ডায়াবেটিস : টাইপ ১ সাধারণত আপনার শরীরে প্রয়োজনীয় ইনসুলিন তৈরি করতে ব্যর্থ হয়।
(খ) টাইপ ২ ডায়াবেটিস : টাইপ ২ সাধারণত আপনার শরীরের কোষগুলি সঠিক ভাবে ইনসুলিনের প্রতিক্রিয়া জানাতে ব্যর্থ হয়।
(গ) গর্ভকালীন ডায়াবেটিস : এই ক্ষেত্রে মহিলারা গর্ভাবস্থায় রক্তে শর্করার উচ্চ মাত্রায় আক্রান্ত হয়ে থাকেন।
যদিও অপনার ডায়াবেটিসের কারণগুলি অজানা কিছু কারণ যেমন – খাদ্য, স্থূলতা, জেনেটিক্স ও ব্যায়ামের অভাবে ডায়াবেটিস বিকাশে ভূমিকা পালন করতে পারে।

আরও জানুন –  বায়ো কম্বিনেশন ৭ (ডায়াবেটিস)

ডায়াবেটিসে মানুষিক লক্ষণ : রক্তে শর্করার ওঠানামা মেজাজের ব্যাঘাত ঘটাতে পারে, যখন উচ্চ রক্তের গ্লুকোজ অথবা হাইপারগ্লাইসেমিয়া রাগ বা দুঃখের কারণ এটি হতে পারে, রক্তে শর্করার হ্রাস অথবা হাইপোগ্লাইসেমিয়া স্নায়বিকতার কারণ হিসাবে এটি পরিচিত। হাইপোগ্লাইসেমিয়া যা আপনার মানসিক প্রতিক্রিয়াকে ব্যাপক ভাবে বৃদ্ধি করতে পারে যা উদ্ভট অথবা হিংসাত্মক প্রতিক্রিয়া হতে পারে।
ডায়াবেটিস ও শরীরের চাহিদা : আপনার রক্তে অতিরিক্ত গ্লুকোজ তৈরির কারণে কিডনি অতিরিক্ত গ্লুকোজ ফিল্টার ও শোষণ করতে আপনার ওভারটাইম কাজ করে যার ফলে আপনার অতিরিক্ত পিপাসা ও প্রস্রাব হয়। ডায়াবেটিক হাইপারফ্যাজিয়ায়, একজন ব্যক্তি ক্রমাগত ক্ষুধার্ত বোধ করে। তিনি খান অথবা না খান বা কতটুকু খান।
আর ৪০ ড্রপসটির মুল উপাদান :
(১) অ্যাসিডাম ফসফরিকাম D12 (Acid. Phosphoric D12)।
(২) আর্সেনিকাম অ্যালবাম D8 (Arsenicum Album D8)।
(৩) ইউরেনিয়াম নাইট্রিকাম D30 (Uranium Nitric D30)।
(৪) লাইকোপোডিয়াম D30 (Lycopodium D30)।
(৫) নেট্রাম সালফ D12 (Natrium Sulfuric D12)।
(৬) সিকেলি কর্নিউটাম D4 (Secale Cornut D4)।
(৭) ফেসোলাস নানুসD12 (Phaseolus Nanus D12)।

আরও জানুন –  এইচ আর – ০১ (ব্লাড সুগারের চিকিৎসায় কার্যকর)

আর ৪০ ড্রপসটির পৃথক উপাদানের কর্মের মোড : আর ৪০-এর মূল বৈশিষ্ট্যগুলি ডায়াবেটিস মেলিটাসের লক্ষণগুলির চিকিৎসার জন্য নিম্নলিখিত উপাদানগুলি থেকে নেওয়া হয়েছে।
(ক) অ্যাসিড ফসফরিক (Acid. Phosphoric) : এটি তৃষ্ণা, যৌন অক্ষমতার বিকাশ অথবা ইরেকশন বজায় রাখতে অক্ষমতা (পুরুষত্বহীনতা) এবং মানসিক বিষণ্নতার চিকিৎসা করে। এটি ডায়াবেটিস রোগীর মানসিক অথবা শারীরিক, চরম দুর্বলতার জন্য একটি চমৎকার প্রাকৃতিক প্রতিকার। বিশেষ করে এই ধরনের রোগীরা সব সময় ক্লান্ত বোধ করে। তাদের স্মৃতিশক্তি দুর্বল এবং অনেক কিছু ভুলে যায়। আবার এসব রোগীদের মধ্যে কিছু ধরণের দুঃখের ইতিহাস পাওয়া যেতে পারে। ডায়াবেটিস মেলিটাসের রোগীদের পায়ের অসাড়তার জন্য অ্যাসিড ফসফরিক সেরা প্রতিকার।
(খ) আর্সেনিকাম অ্যালবাম (Arsenicum Album) : অতৃপ্ত (অনিবার্য) তৃষ্ণা এবং ক্লান্তির চিকিৎসা করে। এটি ডায়াবেটিসের (ডায়াবেটিক নেফ্রোপ্যাথি) কারণে কিডনির ক্ষতি ও দুর্বল রক্ত সঞ্চালনের কারণে দুর্বলতার ক্ষেত্রেও খুব উপকারী।
(গ) ইউরেনিয়াম নাইট্রিকাম (Uranium Nitric) : বিভিন্ন জেনেসিসে ডায়াবেটিস রোগের চিকিৎসা করে।

আরও জানুন –  কেন্ট ০৪ (ডায়াবেটিস রোগে কার্যকর)

(ঘ) লাইকোপোডিয়াম (Lycopodium) : এটি লিভার, ফোলা সংবেদন এবং পানি খে লে গ্যাস জমে  (পেট ফাঁপা) এর প্রতিকার হিসাবে কাজ করে। পায়ের গোড়ালি পর্যন্ত শীতলতা অথবা ডায়াবেটিসের কারণে পায়ে ঝাঁকুনি অথবা অস্থিরতায় কাজ করে।
(ঙ) নেট্রাম সালফ (Natrium Sulfuric) : এটি মুলত লিভারের প্রতিকার হিসাবে কাজ করে এবং স্যাঁতসেঁতে আবহাওয়ায় আরো খারাপ হয় অথবা আরও গুরুতর (উত্তেজনা) হওয়ার ক্ষেত্রে এর নির্দিষ্ট কার্য রয়েছে। এটি ডায়াবেটিসের কারণে কোষ্ঠকাঠিন্যের জন্য ভাল কাজ করে।
(চ) সিকেলি কর্নিউটাম D4 (Secale Cornut) : তৃষ্ণা, অস্বাভাবিক সংবেদন যেমন টিংলিং অথবা প্রিকিং (ঢ়ধৎবংঃযবংরধ) এবং ঠান্ডার জন্য আকাঙ্ক্ষার চিকিৎসায় কাজ করে। এটি ডায়াবেটিস রোগীদের ত্বকের আলসারের জন্যও চমৎকার চিকিৎসা করে।
(ছ) ফেসোলাস নানুস (Phaseolus Nanus) :এটি ডায়াবেটিস মেলিটাসের লক্ষণ যেমন – প্রস্রাবে চিনি এবং অনিয়মিত কার্ডিয়াক অ্যাকশনের চিকিৎসা করে।

আরও জানুন –  এন – ৪০ (ডায়াবেটিস ড্রপস)

আর ৪০ ঔষধ সেবন বিধি : প্রাপ্ত বয়স্করা জন্য ১৫ থেকে ২০ ফোঁটা, শিশুরা ৭ থেকে ১০ ফোঁটা ঔষধ ১/৪ কাপ পানিতে মিশিয়ে দিনে ৩ বার অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করতে হবে। গর্ববতী নারীরা ঔষধ সেবনের পূর্বে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ করুণ।
চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।
সতর্কতা : গর্ভবতী মা অথবা দুগ্ধদানকারী মারা ঔষধ সেবনের পূর্বে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করা উত্তম।

আরও জানুন –  সিজিয়াম জ্যাম্বো Q (ডায়াবেটিসিসের জন্য)

শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।
পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : হোমিওপ্যাথি সর্বোত্তম চিকিৎসা প্রদান করে কারণ এটি নিরাপদ এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুক্ত।
ঔষধ সংরক্ষণ : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।
ঔষধের গুণগতমাণ : এটি একটি প্রাকৃতিক পণ্য, এটি কখনও কখনও সামান্য বৃষ্টিপাত অথবা মেঘলা হতে পারে, কিন্তু এটি পণ্যের গুণমান এবং এর কার্যকারিতা প্রভাবিত করে না। যদি এটি ঘটে তবে পণ্যটি ব্যবহার করার আগে ভালভাবে ঝাঁকি নিন। একবার আপনি সীলটি ভেঙে ফেললে, ওষুধগুলি দ্রুত ব্যবহার করা উচিত।
আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন।  এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।  সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন।  আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev