সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০১:১৬ অপরাহ্ন

আর ৩৫ (দাঁত ব্যথা)

আরোগ্য হোমিও হল / ২৩ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ বুধবার, ৮ মে, ২০২৪, ৫:৫০ অপরাহ্ন
আর ৩৫ (দাঁতে ব্যথা)

Dr.Reckeweg R 35 (দাঁতে ব্যথা)

R 35 (toothache)

আর – ৩৫ (দাঁত ব্যথা)

প্রস্তুত প্রণালী : Dr.Reckeweg R 35/ জার্মান কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ।

ব্যবহার : আর ৩৫ ড্রপসটি দঁতের ব্যথায় ব্যবহার করা হয়।

আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “ আর ৩৫ (দাঁতে ব্যথা) ” কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।

আর – ৩৫ দাঁতের ব্যথার ড্রপসটির উপকারিতা : আর – ৩৫ ড্রপসটি হল একটি হোমিওপ্যাথিক পেটেন্ট ঔষধ। যার মধ্যে রয়েছে শক্তিশালী উপাদানগুলি প্রাপ্তবয়স্ক ব্যাক্তি এবং শিশুদের দাঁতের ব্যথায় থেরাপিউটিক প্রভাব প্রদান করে। এটি মাড়ির প্রদাহ, ঝাঁকুনির ব্যথার সাথে সম্পর্কিত মানসিক উত্তেজনাকে মোকাবেলা করে এবং শিশুদের দাঁত তোলার প্রক্রিয়াকে আরও সহজ করে।

আর – ৩৫ ড্রপসটির ইঙ্গিত : এটি বেদনাদায়ক দাঁত নির্গমন, দাঁতের ক্র্যাম্প, বিলম্বে দাঁত উঠা। দাঁতের গোড়ায় অথবা দাঁতের আশেপাশের স্নায়ুতে জ্বালাপোড়া ব্যথায় কার্যকর। দাঁতে সংক্রমণ, ক্ষয়, আঘাত, অথবা দাঁত নষ্ট হওয়া দাঁতের ব্যথার সবচেয়ে এটি সাধারণ কারণ। দাঁত নিষ্কাশনের পরেও ব্যথা হতে পারে (দাঁত বের করা হয়)। এছাড়াও দাঁতের ক্র্যাম্প অথবা ব্যথা একটি জৈব সমস্যা যেমন – ডেন্টাল ক্যারিস, পিরিয়ডোনটাইটিস, পাল্পাইটিস এবং ট্রমা দ্বারা সৃষ্ট হয়। আবার বিলম্বিত শিশুর দাঁত উঠতে পারে বিকাশজনিত সিন্ড্রোম, অকাল জন্ম অথবা জেনেটিক্স, কম জন্ম ওজন, দুর্বল, পুষ্টির অভাব।

আরও জানুন –   এইচ আর – ১০০ (শিশুর দাঁত ও কোলিক ব্যথা কার্যকর)

আর – ৩৫ ড্রপসটি মুল উপাদান :

(১) অ্যাকোনিটাম নেপেলাস D6 ( Aconitum Napellus D6)।
(২) ইগ্নেশিয়া আমারা (Ignatia Amara D30)।
(৩) ক্যালকেরিয়া কার্ব (Calc Carb D30)
(৪) ক্যামোমিলা (Chamomilla D4)।
(৫) কলোসিন্থিস (Colocynthis)
(৬) ব্রায়োনিয়া এল্বা (Bryonia Alba D30)।
(৭) স্ট্যাফিস্যাগ্রিয়া (Staphysagria D8)।

আরও জানুন –  র‌্যাক্স নং – ৬৫ (দাঁত ব্যাথা)

আর – ৩৫ ড্রপসটির পৃথক উপাদানগুলির কর্মের মোড : আর – ৩৫ ড্রপসটির মূল বৈশিষ্ট্যগুলি শিশু ও শিশুদের দাঁতের সমস্যাগুলির চিকিৎসার জন্য নিম্নলিখিত উপাদানগুলি থেকে উদ্ভূত হয়েছে।

(ক) অ্যাকোনিটাম নেপেলাস ( Aconitum Napellus) : জ্বরজনিত অবস্থা, ঠাণ্ডা লাগা, পর্যায়ক্রমে অথবা এককভাবে দাঁতের ব্যথার চিকিৎসা করে।

(খ) ইগ্নেশিয়া আমারা (Ignatia Amara) : হিস্টেরিক্যাল (অনিয়ন্ত্রিত আবেগ) প্রতিক্রিয়া, ক্রমাগত ঝকঝকে (অসুখ) ও স্নায়বিক উত্তেজনার চিকিৎসা করে। যে কোনো খাবার অথবা পানীয় দাঁতের স্পর্শে দাঁতের ব্যথার চিকিৎসা করে।

(গ) ক্যালকেরিয়া কার্ব (Calc Carb) : এটি দাঁতের বিকাশে কাজ করে এবং দাঁত তোলার সুবিধা দেয়।

(ঘ) কলোসিন্থিস (Colocynthis) : এটি দাঁতের ব্যথা, কম্পন যন্ত্রণা, রাগ ফিট, উত্তেজনা (স্নায়বিক উত্তেজনা) ইত্যাদি উত্তেজিত অবস্থার চিকিৎসা করে।

(ঙ) ব্রায়োনিয়া এল্বা (Bryonia Alba) : এটি সিরাস ত্বকের প্রদাহের চিকিৎসা করে।

(চ) স্ট্যাফিস্যাগ্রিয়া (Staphysagria) : এটি খুবই কার্যকর নিরাময় যোগ্য। দাঁতের ব্যথা, ক্ষয়প্রাপ্ত দাঁত অথবা দাঁত শির শির দেখা দিতে পারে। কোল্ড ড্রিঙ্কস খেলে ব্যথা আরও বেড়ে যায়। মুখের অত্যধিক লালা ও মাড়ি থেকে রক্তপাত হয়।

পরামর্শ : ডাঃ কীর্তি বিক্রম বলেছেন আর – ৩৫ আক্কেল দাঁতের ব্যথা উপশমে কার্যকরী। রোগী সিদ্ধার্থ কুমার বলেন, “আমি এটা ব্যবহার করি। এটি খুব উপকারী ওষুধ তবে আপনার দাঁত রক্ষা করার জন্য ডেন্টিস্টের সাথে পরামর্শ করুন।

আরও জানুন –  আর ৩৬ ড্রপ (স্নায়ু রোগ)

আর – ৩৫ ঔষধ সেবন বিধি : আর -৩৫ ড্রপসটি সেবন বিধি : তীব্র ক্ষেত্রে ঘন ঘন ঔষধ সেবন করানো করা হয়. ছোট বাচ্চাদের প্রতি ৫-১০ মিনিটে এক চা চামচ করে ১৫ থেকে ২০ ফোঁটা ঔষধ ১/৪ কাপ পানিতে মিশিয়ে দেওয়া যেতে পারে। বয়স্ক শিশুদের সঙ্গে, এবং কম তীব্র ক্ষেত্রে ১০ থেকে ১৫ ঔষধ, ঘন ঘন, সামান্য জলে। ফাঁপা দাঁতের কারণে সৃষ্ট ব্যথার জন্য, বিশুদ্ধ আকারে এই ঔষধটি সামান্য ভিজিয়ে একটি তুলো প্রলেপ দিতে পারেন।

চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।

সতর্কতা : গর্ভবতী মা অথবা দুগ্ধদানকারী মারা ঔষধ সেবনের পূর্বে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করা উত্তম।

শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : হোমিওপ্যাথি সর্বোত্তম চিকিৎসা প্রদান করে কারণ এটি নিরাপদ এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুক্ত।

ঔষধ সংরক্ষণ : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।

ঔষধের গুণগতমাণ : এটি একটি প্রাকৃতিক পণ্য, এটি কখনও কখনও সামান্য বৃষ্টিপাত অথবা মেঘলা হতে পারে, কিন্তু এটি পণ্যের গুণমান এবং এর কার্যকারিতা প্রভাবিত করে না। যদি এটি ঘটে তবে পণ্যটি ব্যবহার করার আগে ভালভাবে ঝাঁকি নিন। একবার আপনি সীলটি ভেঙে ফেললে, ওষুধগুলি দ্রুত ব্যবহার করা উচিত।

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন। এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন। সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev