সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১২:০৭ অপরাহ্ন

আর ৩৩ (মৃগীরোগ, খিঁচুনি)

আরোগ্য হোমিও হল / ২২ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ বৃহস্পতিবার, ৯ মে, ২০২৪, ৫:৩৭ অপরাহ্ন

Dr. Reckeweg R 33 (মৃগীরোগ, খিঁচুনি)

R – 33 (epileptic seizures)

আর – ৩৩ (মৃগীরোগ, খিঁচুনি)

আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “ আর – ৩৩ (মৃগীরোগ খিঁচুনি)” কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।

প্রস্তুত প্রণালী : Dr. Reckeweg R 33/ জার্মান কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ।

ব্যবহার : আর-৩৩ ড্রপসটি মৃগীরোগ খিঁচুনি, পেশী কামড়ানোর ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়।

আর- ৩৩ ড্রপসটির ইঙ্গিত: মৃগী, মৃগী আক্রমণ এবং পেশী কামড়ানো।

আর- ৩৩ ড্রপসটির উপকারিতা : আর ৩৩ ড্রপসটি মৃগীরোগের সাংবিধানিক চিকিৎসা হিসাবে নির্দিষ্ট থেরাপিউটিক অ্যান্টিজেন সরবরাহ করে। এতে বুফো, কাপরাম ইত্যাদির মতো গুরুত্বপূর্ণ উপাদান থাকায় মৃগীরোগে কাজ করে (স্নায়বিক ব্যাধি যা আকস্মিক সংবেদনশীল ব্যাঘাত, চেতনা হারানোর ঘটনা দ্বারা চিহ্নিত) এবং পেশী কামড়ানোতে কার্যকর।

মৃগীরোগের চিকিৎসার জন্য কিছু প্রাকৃতিক প্রতিকার : এপিলেপসি একটি স্নায়বিক ব্যাধি যা বারবার খিঁচুনি দ্বারা এটিকে চিহ্নিত করা হয়। যদিও একজন স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীর চিকিৎসা হল মৃগীরোগ পরিচালনার প্রাথমিক পদ্ধতি, কিছু লোক তাদের প্রচলিত চিকিৎসার পরিপূরক করার জন্য পরিপূরক এবং বিকল্প প্রতিকার খোঁজে। কোনো প্রাকৃতিক অথবা বিকল্প চিকিৎসার চেষ্টা করার আগে একজন স্বাস্থ্যসেবা পেশাদারের সাথে পরামর্শ করা উচিত। কারণ মৃগীরোগ ব্যবস্থাপনা ব্যক্তিগত প্রয়োজন অনুসারে করা উচিত এবং এটি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করা উচিত। এখানে কিছু প্রাকৃতিক ও বিকল্প প্রতিকার রয়েছে যা কিছু ব্যক্তি অন্বেষণ করেছেন।

আরও পড়ুন –  এইচ আর – ৫৫ (মৃগী রোগের কার্যকর)

কেটোজেনিক ডায়েট : কেটোজেনিক ডায়েট হল একটি উচ্চ-চর্বিযুক্ত খাবার যা কম কার্বোহাইড্রেট খাদ্য যা খিঁচুনি কমাতে কার্যকারিতা রয়েছে, বিশেষ করে ড্রাগ-প্রতিরোধী মৃগী রোগে। এটি মস্তিষ্কের বিপাক পরিবর্তনে কাজ করতে পারে। এই খাদ্যটি একজন স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারী ডায়েটিশিয়ান দ্বারা তত্ত্বাবধান করা উচিত, কারণ এটির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হতে পারে এবং এটি সবার জন্য উপযুক্ত নাও হতে পারে।

ভেষজ পরিপূরক : কিছু ভেষজ প্রতিকার- যেমন সিবিডি (ক্যানাবিডিওল) তেল ও ভ্যালেরিয়ান রুটের মতো ঔষধি ভেষজ, এন্টিকনভালসেন্ট বৈশিষ্ট্য থাকতে পারে এবং মৃগীরোগ ব্যবস্থাপনায় তাদের সম্ভাব্যতার জন্য অধ্যয়ন করা হচ্ছে।

আকুপাংচার : আকুপাংচার হল একটি ঐতিহ্যবাহী চীনা থেরাপি যা শরীরের নির্দিষ্ট বিন্দুতে পাতলা সূঁচ ঢোকানোর মাধ্যেমে চিকিৎসা করা হয়। মৃগীরোগে আক্রান্ত ব্যাক্তি আকুপাংচারের মাধ্যমে খিঁচুনির ফ্রিকোয়েন্সি হ্রাস এবং সামগ্রিক সুস্থতার উন্নতির কথা জানিয়েছেন। এর কার্যকারিতা সর্বজনীনভাবে গৃহীত হয় না এবং আরও গবেষণা প্রয়োজন রয়েছে।

যোগব্যায়াম ও ধ্যান : স্ট্রেস ও উদ্বেগ কিছু ব্যক্তির মধ্যে খিঁচুনি শুরু করতে পারে। যোগব্যায়াম বা ধ্যানের মতো অনুশীলনগুলি স্ট্রেস পরিচালনা করতে এবং শিথিলতা উন্নত করতে সাহায্য করতে পারে। তারা সরাসরি মৃগীরোগের চিকিৎসা না তবে সামগ্রিক সুস্থতার পরিপূরক হতে পারে।

অ্যারোমাথেরাপি : কিছু ব্যক্তি ল্যাভেন্ডার অথবা ক্যামোমাইলের মতো শান্ত অপরিহার্য তেল ব্যবহার করে অ্যারোমাথেরাপির মাধ্যমে উদ্বেগ ও স্ট্রেস-সম্পর্কিত থেকে মুক্তি পান। এই পদ্ধতিগুলি শিথিলকরণ কৌশলগুলির অংশ হিসাবে ব্যবহার করা যেতে পারে।

বায়োফিডব্যাক : বায়োফিডব্যাক হল এমন একটি কৌশল যা ব্যক্তিদের হৃদস্পন্দন ও পেশীর টান-এর মতো শারীরবৃত্তীয় ক্রিয়াকলাপ নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে। মৃগী রোগে আক্রান্ত ব্যাক্তির মানসিক চাপ কমাতে এবং সম্ভাব্য খিঁচুনি প্রতিরোধ করতে বায়োফিডব্যাক ব্যবহার করে।

ভ্যাগাস নার্ভ স্টিমুলেশন (ভিএনএস) : ভ্যাগাস নার্ভ স্টিমুলেশন হল একটি মেডিকেল ডিভাইস যা ত্বকের নিচে লাগানো হয়। এতে খিঁচুনির ফ্রিকোয়েন্সি কমাতে ভ্যাগাস স্নায়ুতে বৈদ্যুতিক আবেগ পাঠায়। যদিও এটি “প্রাকৃতিক” প্রতিকার নয়, এটি ওষুধ-প্রতিরোধী মৃগীরোগের সাথে এটি বিকল্প চিকিৎসার বিকল্প হিসাবে বিবেচিত হয়।

আরও পড়ুন –  কেন্ট ৫৫ (মৃগী রোগে কার্যকর)

হোমিওপ্যাথি : আইজেআরএইচ (ইন্ডিয়ান জার্নাল অফ রিসার্চ ইন হোমিওপ্যাথি) এ প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন পরামর্শ দেন যে একটি সঠিকভাবে নির্বাচিত হোমিওপ্যাথিক ওষুধ মৃগীরোগের চিকিৎসায় কার্যকর হতে পারে। এটা মনে রাখা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ যে মৃগীরোগ হল একটি জটিল রোগ। যার বিভিন্ন অন্তর্নিহিত কারণ এবং ধরনের খিঁচুনি। এক ব্যক্তির জন্য যা কাজ করে তা অন্যের জন্য কাজ নাও করতে পারে, এবং কিছু প্রাকৃতিক অথবা বিকল্প প্রতিকারে তাদের কার্যকারিতা সমর্থনকারী সীমিত বৈজ্ঞানিক প্রমাণ থাকতে পারে।

কোনো প্রাকৃতিক অথবা বিকল্প চিকিৎসা বিবেচনা করার আগে, মৃগীরোগে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ করুন। তারা এই পন্থাগুলির সুরক্ষা এবং সম্ভাব্য সুবিধাগুলির বিষয়ে নির্দেশিকা প্রদান করতে পারে এবং নিশ্চিত করতে পারে যে সেগুলি আপনার সামগ্রিক মৃগীরোগ ব্যবস্থাপনা পরিকল্পনায় একত্রিত হয়েছে। আপনার স্বাস্থ্যসেবা দলের দ্বারা নির্দেশিত যে কোনও নির্ধারিত ওষুধ এবং চিকিৎসা চালিয়ে যাওয়া অপরিহার্য, কারণ চিকিৎসায় হঠাৎ পরিবর্তন বিপজ্জনকও হতে পারে।

আর – ৩৩ ড্রপসটির মুল উপাদান :
(১) কুপ্রাম মেটালিকাম D12 (Cuprum metallicum D12)।
(২) জিঙ্কাম মেটালিকাম D12 (Zincum Met D12)।
(৩) পালসেটিলা D30 (Pulsatilla D30)।
(৪) সাইলিসিয়া D30 (Silicea D30)।
(৫) বিউফো রানা D20 (Bufo Rana D200)।

আরও পড়ুন –  র‌্যাক্স নং- ৭০ (মৃগী রোগ)

আর – ৩৩ মৃগীরোগের চিকিৎসায় হোমিওপ্যাথিক ঔষধের কার্যকারিতা :

(ক) কুপ্রাম মেটালিকাম (Cuprum metallicum) : এটি উরুর এবং মৃগীর ক্র্যাম্পের বিভিন্ন ধরণের ক্র্যাম্পের চিকিৎসা করে। সেরিব্রাল কনজেশন (মস্তিষ্কে রক্তের অপ্রতুল পরিমাণ চাপ সৃষ্টি করে)।

(খ) জিঙ্কাম মেটালিকাম (Zincum Met) : এটি খিঁচুনিতে (ফিট) উপকারী এবং দমবন্ধ (শ্বাসরোধ) শরীরে চর্মরোগ চাপা থাকলে তা বের করে দেয়।

(গ) পালসেটিলা (Pulsatilla) : এটি সাধারণত দুষ্ট প্রভাবের বিরুদ্ধে কাজ করে যা অতীতে চাপা রোগ পুনরায় আবির্ভূত হতে পারে ও প্রাপ্তবয়স্কদের মৃগীরোগের লক্ষণগুলির জন্য দায়ী করা যেতে পারে।

(ঘ) বিউফো রানা (Bufo Rana) : এপিলেপটিক ফিট (অনিয়ন্ত্রিত ঝাঁকুনি চলাচল ও ক্ষণিকের সচেতনতা হ্রাস) এবং প্রগতিশীল দুর্বলতার বিরুদ্ধে নির্দিষ্ট প্রতিকার হিসাবে কাজ করে।

(ঙ) সাইলিসিয়া (Silicea) : এটি পা থেকে ঘামের দমনের প্রভাবের চিকিৎসা করে। সংবিধানের উপর কাজ করে।

চিকিৎসকের মন্তব্য :

আর – ৩৬ এটি পরিপূরক প্রতিকার হিসাবে বিবেচিত হয় এবং এর নীচে তালিকাভুক্ত উপসর্গের সাথে তুলনা করার পরামর্শ দেওয়া হয়।
অস্থিরতা এবং উত্তেজনায় : আর – ১৪ তুলনা করুন।
হিস্টেরিক্যাল আক্রমণে : আর – ৪৭ দেখুন।
দাঁত উঠার সময় খিঁচুনি : আর -৩৫। টেটানি এবং একলাম্পসিয়া দেখুন: আর – ৩৪।

আরও পড়ুন – শিশুর মৃগীরোগ

আর – ৩৩ ঔষধ সেবন বিধি : মাধ্যাকর্ষণ মাত্রা অনুযায়ী প্রতিদিন ২ থেকে ৩ বার ১০ থেকে ১৫ ফোঁটা ঔষধ ১/৪ পানিতে মিশিয়ে সেবন করুণ।
তীব্র ক্ষেত্রে, ঘন ঘন ফিট হওয়া এবং ক্রমাগত খিঁচুনি ক্ষেত্রে , প্রতি ১ থেকে ২ ঘন্টা পর, ফিট হওয়ার তীব্র ক্ষেত্রে ওষুধটি অন্যান্য সাথে প্রতি পাঁচ মিনিটে (সম্ভবত পর্যায়ক্রমে) নেওয়া যেতে পারে। অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করুণ। সব ধরনের উদ্দীপক এড়িয়ে চলতে হবে, বিশেষ করে অ্যালকোহল এবং চা।

চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।

সতর্কতা : গর্ভবতী মা অথবা দুগ্ধদানকারী মারা ঔষধ সেবনের পূর্বে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করা উত্তম।

শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : হোমিওপ্যাথি সর্বোত্তম চিকিৎসা প্রদান করে কারণ এটি নিরাপদ এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুক্ত।

ঔষধ সংরক্ষণ : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।

ঔষধের গুণগতমাণ : এটি একটি প্রাকৃতিক পণ্য, এটি কখনও কখনও সামান্য বৃষ্টিপাত অথবা মেঘলা হতে পারে, কিন্তু এটি পণ্যের গুণমান এবং এর কার্যকারিতা প্রভাবিত করে না। যদি এটি ঘটে তবে পণ্যটি ব্যবহার করার আগে ভালভাবে ঝাঁকি নিন। একবার আপনি সীলটি ভেঙে ফেললে, ওষুধগুলি দ্রুত ব্যবহার করা উচিত।

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন। এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন। সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev