সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১২:৫৫ অপরাহ্ন

আর ৩১ (রক্তশূন্যতা, দুর্বল ক্ষুধা)

আরোগ্য হোমিও হল / ২৩ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ শুক্রবার, ১০ মে, ২০২৪, ৬:০৮ অপরাহ্ন
৩১ (রক্তাল্পতা, দুর্বল ক্ষুধা)

Dr. Reckeweg R 31 (রক্তশূন্যতা, দুর্বল ক্ষুধা)

আর ৩১ (রক্তশূন্যতা, দুর্বল ক্ষুধা)

Dr. Reckeweg R 31 (anemia, poor appetite)

প্রস্তুত প্রণালী : Dr. Reckeweg R 31 / জার্মান কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ।

ব্যবহার : আর – ৩১ ড্রপসটি রক্তশূণ্যতা, দুর্বল ক্ষুধা বৃদ্ধিতে ব্যবহার করা হয়।

আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “ আর – ৩১ (রক্তাল্পতা, দুর্বল ক্ষুধা)” কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।

আর – ৩১ অ্যানিমিয়া ড্রপসটি : আর ৩১ হোমিওপ্যাথিক ড্রপটি হল একটি জার্মান ঔষধ যা ক্ষুধা বাড়ায় এবং লিভারকে শক্তিশালী করতে শরীরে রক্তের সরবরাহ বৃদ্ধি করে। এর মূল উপাদান রয়েছে যেমন – অ্যারেনিয়া ডায়াডেমা (Aranea diadema), , আর্সেনিকাম আয়োডাটাম (Arsenicum Iodatum) ইত্যাদি যা রক্তাল্পতা (লাল কোষের ঘাটতি), ক্ষুধা না লাগার সাথে ফুলে যাওয়া ইত্যাদিতে কাজ করে।

আর – ৩১ ড্রপসটির ইঙ্গিত : রক্তাশূন্যতা, ক্ষুধা কম, বিশেষ করে শিশুদের মধ্যে তীব্র ব্যাধির পরে প্রভাব। অন্যান্য অসুস্থতার চিকিৎসার নতুন বিষাক্ত প্রভাব দ্বারা ঘন ঘন রক্তাল্পতা সব ধরণের চিকিৎসা করে।

অ্যানিমিয়া সম্পর্কে ধারণা : কম হিমোগ্লোবিনের উপসর্গগুলির মধ্যে রয়েছে শারীরিক শক্তির অভাব, শ্বাসকষ্ট, হৃদস্পন্দন (অনিয়মিত হৃদস্পন্দন), ফ্যাকাশে বর্ণ চেহারা ইত্যাদি। শরীরে আয়রনের ঘাটতি এটি লোহিত রক্তকণিকার হ্রাসের দিকে পরিচালিত করে। এই অবস্থাকে অ্যানিমিয়া বলা হয়। অ্যানিমিয়া অ স্টেরয়েডাল অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি ড্রাগ গ্রহণ, পাকস্থলীর আলসার, পাকস্থলী অথবা অন্ত্রের ক্যান্সার, দীর্ঘস্থায়ী কিডনি রোগ, ট্রমা, অ¤øনালীর প্রদাহ ইত্যাদির কারণে হতে পারে। মহিলাদের মধ্যে, গর্ভাবস্থা এবং ভারী পিরিয়ডও রক্তাল্পতার কারণ হতে পারে। অ্যানিমিয়া মা থেকে শিশুর মধ্যে ছড়িয়ে যেতে পারে যা জন্মের সময় থেকেই তাদের প্রভাবিত হতে পারে। বয়স্ক ব্যক্তিরা খারাপ ডায়েট এবং অন্যান্য বিভিন্ন চিকিৎসার কারণে এই অবস্থার বেশি প্রবণতা দেখ যায়।

আরও পড়ুন –  বায়ো কম্বিনেশন ১ (রক্তশূন্যতা)

আর – ৩১ মুল উপাদান মিশ্রণ :
(ক) আরেনিয়া ডায়াডেমা D30 (Aranea diadema D30)।
(খ) আর্সেনাম আয়োডাটাম D6 (Arsenum Iodatum D6)।
(গ) লাইকোপোডিয়াম D6 (Lycopodium D6)।
(ঘ) ফেরাম ক্লোরাট D6 (Ferrum Chlorat D6)।
(ঙ) সালফার D30 (Sulfur D30)।
(চ) সিয়ানোথাস– অ্যামেরিকানাস D6 (Ceanothus Americanus D6)।

আর – ৩১ ড্রপগুলিতে পৃথক উপাদানগুলির কর্মের মোড : আর – ৩১ ড্রপসটির মূল বৈশিষ্ট্যগুলি নিম্ন হিমোগ্লোবিনের লক্ষণগুলির চিকিৎসার জন্য নিম্নলিখিত উপাদানগুলি থেকে উদ্ভূত হয়েছে।

(১) অ্যারেনিয়া ডায়াডেমা (Aranea diadema) : এটি আবহাওয়ার পরিবর্তনের সংবেদনশীলতায় কার্যকর।

(২) আর্সেনাম আয়োডাটাম (Arsenum Iodatum) : এটি টিস্যু দ্বারা সম্পাদিত বৈচিত্রের উপর নির্বাচনী ক্রিয়াগুলির বিভিন্নতার উপর কার্যকর। এটি সেলুলার বিপাককে প্রভাবিত করে।

(৩) লাইকোপোডিয়াম (Lycopodium) : এটি টনিক সাধারণত হিসাবে কাজ করে এবং লিভারের জন্য এটি কার্যকরী প্রতিকার যা ফোলাভাব, ক্ষুধার অভাব এবং প্রস্রাবে লালচে জমার চিকিৎসা করে।

(৪) ফেরাম ক্লোরাট (Ferrum Chlorat) : এটি সেকেন্ডারি অ্যানিমিয়ার চিকিৎসা করে ও হেমাটাইটের সংখ্যা বৃদ্ধি পায়।

(৫) সালফার (Sulfur) : এটি সম্পূর্ণ বিপাকের সক্রিয়কারী হিসাবে কাজ করে এবং বিঘ্নিত সঞ্চালনের চিকিৎসা করে।

(৬) সিয়ানোথাস অ্যামেরিকানাস (Ceanothus Americanus)  : এটি কম হিমোগ্লোবিন ও আহত প্লীহার লক্ষণের চিকিৎসা করে। এটি পেটে ব্যথা (বিশেষ করে বাম দিকে) এবং রক্ত সঞ্চালনে বিশৃঙ্খলার চিকিৎসা করে। চিকিৎস এস গোপী বলেন, যকৃত ও প্লীহার কার্যকারিতার কারণে রক্তশূন্যতা হলে সিয়ানোথাস– অ্যামেরিকানাস নির্ধারিত হয়। রক্তশূন্যতায় প্লীহা বৃদ্ধির জন্য এটি নির্দিষ্ট।

আরও পড়ুন –  এইচ আর – ৩৩ (রক্তশূন্যতা ও ক্ষুধামন্দায় কার্যকর)

আর – ৩১ ড্রপসটি পর্যালোচনা: চিকিৎসক রুকমণি তার ইউ টিউব ভিডিও শিরোনামের ‘লার্জ স্প্লিন? বড় প্লীহা ও আয়রন টনিক’ হিসাবে কাজ করে।

চিকিৎসক দীপ্তি মাহুরে এম.ডি ইন পেডিয়াট্রিক্স(হোম)। শিশুদের ক্ষুধা বাড়ানোর জন্য আর – ৩১ সুপারিশ করেন, বলেছেন এটি রক্তশূন্য শিশুদের জন্য অত্যান্ত কার্যকর।

আর – ৩৩ ঔষধ সেবন বিধি : আর – ৩১ ড্রপসিটি সেবন বিধি : প্রতিদিন খাবরের আগে ১০ থেকে ১৫ ফোঁটা ঔষধ একঢোক পরিমাণ পানি মিশিয়ে সকাল-দুপুর-রাতে (তিনবার) সেবন করতে হবে। চিকিৎসার প্রথম দিন উচ্চ রক্তশূন্যতার ক্ষেত্রে ঘন ঘন ডোজ সেবন করুণ। ঔষধ সেবনে উন্নতি হলে প্রতিদিন ২-৩ বার সেবন করুণ। এটা চকলেট, মিষ্টি এবং ডিম সঙ্গে শিশুদের গুরুত্বপূর্ণ, শিশুদের জন্য প্রস্তাবিত খাবার: দুধ পুডিং, ওটস ফ্লেক্স, সবজি এবং ফল. মাংসকে পরিপূরক খাদ্য। এটি রক্তশূন্য প্রাপ্তবয়স্কদের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য।

চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।

আরও পড়ুন –  রক্ত স্রাবে হোমিওপ্যাথিক ঔষধ

সতর্কতা : গর্ভবতী মা অথবা দুগ্ধদানকারী মারা ঔষধ সেবনের পূর্বে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করা উত্তম।

শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : হোমিওপ্যাথি সর্বোত্তম চিকিৎসা প্রদান করে কারণ এটি নিরাপদ এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুক্ত।

ঔষধ সংরক্ষণ : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।

ঔষধের গুণগতমাণ : এটি একটি প্রাকৃতিক পণ্য, এটি কখনও কখনও সামান্য বৃষ্টিপাত অথবা মেঘলা হতে পারে, কিন্তু এটি পণ্যের গুণমান এবং এর কার্যকারিতা প্রভাবিত করে না। যদি এটি ঘটে তবে পণ্যটি ব্যবহার করার আগে ভালভাবে ঝাঁকি নিন। একবার আপনি সীলটি ভেঙে ফেললে, ওষুধগুলি দ্রুত ব্যবহার করা উচিত।

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন। এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন। সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev