সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০১:২৩ অপরাহ্ন

আর ২৭ (কিডনিতে পাথর, মেঘলা প্রস্রাব) 

আরোগ্য হোমিও হল / ২৪ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ সোমবার, ১৩ মে, ২০২৪, ১১:০৬ অপরাহ্ন
Dr. Reckeweg R 27 (কিডনিতে পাথর, মেঘলা প্রস্রাব) 

Dr. Reckeweg R 27 (কিডনিতে পাথর, মেঘলা প্রস্রাব) 
R – 27 (Kidney stones, cloudy urine)
আর – ২৭ (কিডনিতে পাথর, মেঘলা প্রস্রাব)
আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “  আর – ২৭ (কিডনিতে পাথর, মেঘলা প্রস্রাব) ” কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।
প্রস্তুত প্রণালী : Dr. Reckeweg R 27 / জার্মান কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ।
ব্যবহার : আর – ২৭ ড্রপটি রেনাল ক্যালকুলি, কিডনিতে তীক্ষ্ণ ব্যথা, পিঠের ছোট অংশ জুড়ে ব্যথা, কাঁটা, লালচে ও এপিথেলিয়াল কোষ এবং নিরাকার বর্জ্য পদার্থ সহ প্রস্রাব। প্রস্রাবে অক্সালিক অ্যাসিড, নুড়ি ইত্যাদিতে ব্যবহার করা হয়।
আর – ২৭ কিডনি স্টোন মেডিসিন সম্পর্কে ধারণা : আর – ২৭ ড্রপসটি হল অ্যাসিড নাইট্রিক (Acidum Nitric) বারবেরিস (Berberis) ইত্যাদি ঔষধ মিশ্রণ রয়েছে যা শুধু কিডনিতে পাথর (রেনাল ক্যালকুলি) অপসারণে সাহায্য করে এবং কিডনির তীব্র ব্যথা থেকেও মুক্তি দেয়। এটি এপিথেলিয়াল কোষ এবং নিরাকার বর্জ্য সহ পিঠ জুড়ে ব্যথা, লালচে, কাঁটা ও স্বচ্ছ এবং সান্দ্র ধারাবাহিকতা (গ্লারি) প্রস্রাবে কার্যকর। এটি প্রস্রাবের বিষাক্ত স্ফটিক অ্যাসিড (অক্সালিক অ্যাসিড) এবং নুড়ি (মূত্রনালীতে গঠিত স্ফটিকগুলির) চিকিৎসা করে।
আর – ২৭ ড্রপ কিডনিতে পাথরের লক্ষণগুলি হল – বমি, প্রস্রাবে রক্ত, বমি বমি ভাব, জ্বর, দুর্গন্ধযুক্ত অথবা বিবর্ণ প্রস্রাব ইত্যাদি। দেখা গেছে  যে প্রতি বিশ জনের মধ্যে একজন সাধারণত তাদের জীবনে কোনো না কোনো সময় কিডনিতে পাথর হয়। কিডনিতে পাথর হল একটি শক্ত ভর যা কিডনিতেই তৈরি হয় যা ক্যালসিয়ামের অদ্রবণীয় যৌগ নিয়ে গঠিত। কিছু ঝুঁকির কারণ যা বিবেচনা করা যেতে পারে যেমন – স্থূলতা, ডিহাইড্রেশন, হাইপারথাইরয়েডিজম, মলত্যাগ সংক্রান্ত প্রদাহজনিত রোগ ইত্যাদি। কিডনিতে পাথর হওয়ার কারণগুলি হলে যেমন – খাদ্য, বংশগতি, মূত্রবর্ধক জাতীয় ওষুধ, দীর্ঘস্থায়ী অসুস্থতা ইত্যাদি। কিডনিতে পাথর প্রস্রাবে রক্তের একটি সাধারণ কারণ এবং এর ফলে পেটে, পাশের অংশে ও কুঁচকিতে তীব্র ব্যথা করে। এটি হলে আপনাকে দ্রুত কিডনি/ইউরেটর পাথর নির্মূল করতে এবং রেনাল কোলিক (ব্যথা) থেকে পরিত্রাণ প্রদান করতে সাহায্য করে। আপনার কিডনির স্বাস্থ্য বজায় রাখুন এবং কার্যকরভাবে পাথর থেকে মুক্তি পান।

আরও পড়ুন –  এন – ২৭ (কিডনীর পাথরের ড্রপস)

আর – ২৭ ড্রপসটি কিডনির পাথরের চিকিৎসা : কিডনিতে পাথর অপসারণের জন্য অনেক ধরণের চিকিৎসা ব্যবস্থা রয়েছে। তবে উভয়ই ঔষধি অথবা অস্ত্রোপচার। ডাঃ কে এস গোপির মতে হোমিওপ্যাথি চিকিৎসাকে অধিকতর পরামর্শ দিয়েছেন, চিকিৎসক বলেছেন এটি নিরাপদ, কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। হোমিওপ্যাথিক ওষুধগুলি পাথরের পুনরাবৃত্তি প্রতিরোধ করে।  কিডনির পাথর হলে শুধু কিডনির ব্যথা নয় কিডনির অঞ্চলে জ্বালাপোড়া এবং ব্যথা করে। এর সঙ্গে জলে তুষের মতো দেখতে ঝিল্লিযুক্ত আঁশযুক্ত প্রস্রাব মেঘলা। প্রস্রাব সবুজাভ, রক্ত লাল, ঘন, পাতলা শ্লেষ্মা, স্বচ্ছ, লালচে অথবা পলির মতো জেলিরও হতে পাওে সহিংস স্প্যাসমোডিক ব্যথা যা পেট, কটি এবং নিতম্ব জুড়ে প্রদর্শিত হতে পারে। প্রস্রাবে ইউরিক এসিড আধিক্য থাকে। এটি রেনাল কোলিক, অক্সালিক অ্যাসিড গঠন এবং টার্বিড ইউরিনকে লক্ষ্য করে।

আরও পড়ুন –  অ্যাডাল-২২ (কিডনি ও পিত্তথলি পাথর)

আর ২৭ ড্রপসটির মুল উপাদান : 
(ক) অ্যাসিডাম নাইট্রিক D6 (Acidum Nitric D6)।
(খ) লাইকোপোডিয়াম D5 (Lycopodium D5)।
(গ) রুবিকা টিংক্টর D2 (Rubia Tinctor D2)।
(ঘ) সরসাপারিলা D3 (Sarsaparilla D3)।
(ঙ) বারবেরিস D3 (Berberis D3)।
আর – ২৭ ড্রপসরি পৃথক উপাদানের কর্মের মোড : কিডনিতে পাথরের লক্ষণে র্গের চিকিৎসার জন্য মূল বৈশিষ্ট্যগুলি নিম্নলিখিত উপাদানগুলি থেকে উদ্ভূত হয়েছে ।
(১) অ্যাসিডাম নাইট্রিক (Acidum Nitric) : এটি প্রস্রাবের পাথরের চিকিৎসা করে যা সাধারণত অক্সালিক অ্যাসিডের কারণে হয়, যা কিডনিতে পাথর গঠনের এটি একটি মূল উপাদান।
(২) লাইকোপোডিয়াম (Lycopodium) : এটি বেদনাদায়ক প্রস্রাব ও নুড়ি চিকিৎসা করে। এটি মূত্রনালী থেকে মূত্রাশয় বরাবর ব্যথার চিকিৎসা করে। ডান পাশে রেনাল কোলিক জন্য এটি নির্দিষ্ট।
(৩) রুবিকা টিংক্টর (Rubia Tinctor) : এটি ক্যালকুলির কারণে মূত্রাশয়েরর প্রদাহ (নাক অথবা গলায় শ্লেষ্মা বা শ্লেষ্মা তৈরি হওয়া) ও কিডনিতে পাথরের উপসর্গগুলির চিকিৎসা করে। এটি রাতে ঘন ঘন প্রস্রাব করার অনুভূতি, দুর্বলতা এবং কিডনি থেকে মূত্রনালী পর্যন্ত ব্যথার সমস্যা সমাধান করে।

আরও পড়ুন – কেন্ট ০৯ (কিডনি ও ব্ল্যাডার পাথর রোগে কার্যকর)

(৪) সরসাপারিলা (Sarsaparilla) : এটি প্রস্রাব করার সময় নুড়ি এবং তীব্র ব্যথার চিকিৎসা করে।
(৫) বারবেরিস (Berberis) : এটি কিডনির তীব্র ব্যথার চিকিৎসা করে যা চাপে সবচেয়ে খারাপ হয়। কিডনি থেকে স্যাক্রাল অঞ্চলে ব্যথা, যা রোগীকে অচল করে দেয়। এটি লালচে, চকচকে প্রস্রাবেরও চিকিৎসা করে।
আর – ২৭ ঔষধ সেবন বিধি : দীর্ঘস্থায়ী নিরাময়ের ক্ষেত্রে সকাল-দুপুর-রাতে অথবা সকালে রাতে ১০-১৫ ফোঁটা ঔষধ ১/৪ জলে মিশিয়ে সেবন করুণ। আক্রমণের আগে প্রতি দুই ঘন্টার জন্য ২০ ফোঁটা দেওয়া হয়। চিকিৎসার পর তিন মাস পর্যন্ত চলতে পারে। অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করুণ।
চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।

আরও পড়ুন – র‌্যাক্স নং- ১৮ (ডান কিডনী পাথর)

  সতর্কতা : গর্ভবতী মা অথবা দুগ্ধদানকারী মারা ঔষধ সেবনের পূর্বে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করা উত্তম।
শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।
পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : হোমিওপ্যাথি সর্বোত্তম চিকিৎসা প্রদান করে কারণ এটি নিরাপদ এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুক্ত।
ঔষধ সংরক্ষণ : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।
ঔষধের গুণগতমাণ : এটি একটি প্রাকৃতিক পণ্য, এটি কখনও কখনও সামান্য বৃষ্টিপাত অথবা মেঘলা হতে পারে, কিন্তু এটি পণ্যের গুণমান এবং এর কার্যকারিতা প্রভাবিত করে না। যদি এটি ঘটে তবে পণ্যটি ব্যবহার করার আগে ভালভাবে ঝাঁকি নিন। একবার আপনি সীলটি ভেঙে ফেললে, ওষুধগুলি দ্রুত ব্যবহার করা উচিত।
2454
আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন।  এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।  সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন।  আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev