মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:৪৫ পূর্বাহ্ন

আর ১৩০ (ডায়াবেটিস)

আরোগ্য হোমিও হল / ৪৭ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ বুধবার, ২৭ মার্চ, ২০২৪, ৫:৩০ অপরাহ্ন

Dr. Reckeweg/ R 130 আর ১৩০ (ডায়াবেটিস)
আর ১৩০ (ডায়াবেটিস)
R 130 (Diabetes)
আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “ আর ১৩০ (ডায়াবেটিস)” কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।
প্রস্তুত প্রণালী : Dr. Reckeweg/  আর ১৩০ (ডায়াবেটিস) ড্রপসটির জার্মান কম্বিনেশেন হোমিওপ্যাথি ঔষধ।
আর ১৩০ (ডায়াবেটিস) ড্রপসটির ইঙ্গিত : এটি অ্যাস্থেনিয়া, পুরুষদের সাধারণ দুর্বলতা, স্নায়বিক ক্লান্তি, অসুস্থতার পরবর্তী শরীরে প্রভাব, অকাল বীর্যপাত, ভার্টিগো ও স্মৃতিশক্তির দুর্বলতা ইত্যাদি।
আর ১৩০ ডায়াবেটিস ড্রপসটির লক্ষণ : ডায়াবেটিস হল অগ্ন্যাশয়ের কোষের ত্রুটি (যা অল্প বা কোন ইনসুলিন তৈরি করে না) ও কার্বোহাইড্রেট বিপাকের ফলে উচ্চ রক্তে শর্করা, গ্লাইকোজেন উৎপাদনে ব্যাঘাত অথবা লিভার এবং পেশীর টিস্যুতে এর সঞ্চয়ের ব্যাঘাতের এটি একটি দীর্ঘস্থায়ী দীর্ঘস্থায়ী রোগ। ব্যস্ত জীবনযাপন, অনুপযুক্ত খাদ্য এবং দেরীতে খাওয়ার অভ্যাস, অপর্যাপ্ত শারীরিক পরিশ্রম, অতিরিক্ত ওজন, কোলেস্টেরল বৃদ্ধি এবং টেনশন ইত্যাদি। ডায়াবেটিস সারা বিশ্বে দ্রুত ছড়িয়ে পড়া রোগে এটি পরিণত হয়েছে। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণের জন্য উল্লিখিত কারণগুলি মেনে চলার দরকার যেমন – নিয়মিত ব্যায়াম, দীর্ঘ হাঁটাহাঁটি, খাবার এবং ওষুধের মাধ্যমে সমাধান করা উচিত, অন্যথায় গুরুতর স্বাস্থ্যের পরিণতি খারাপ ঘটবে।

আরও পড়ুন –   অ্যাডাল-১৮ (ডায়াবেটিস)

আর ১৩০ (ডায়াবেটিস) ড্রপসটির উপকারিতা : এটি একটি অনন্য ফর্মুলা (ইনসুলিন এবং এপিনেফ্রিন) নিয়ে গঠিত যা ডায়াবেটিস ও মেলিটাসের জন্য অন্যান্য নিয়মিত নির্দেশিত প্রতিকারের সঙ্গে মিলিত হয়ে বিপাক এবং অগ্ন্যাশয়ের মলত্যাগের কর্মহীনতার জন্য আরো কার্যকর প্রভাব ফেলে।
আর ১৩০ (ডায়াবেটিস) হলে ক্ষতি : এটি লিভার, কিডনি, হার্ট ইত্যাদির মতো মানবদেহের বিভিন্ন অঙ্গে উচ্চ রক্তে শর্করার দীর্ঘমেয়াদী সম্ভাব্য ক্ষতি বিবেচনা করে।

আরও পড়ুন –  বায়ো কম্বিনেশন ১ (রক্তশূন্যতা)

আর ১৩০ (ডায়াবেটিস) ড্রপসটির মুল উপাদান মিশ্রণ :
(ক) অ্যাসিড ফস D1 (Acid Phos D1)।
(খ) আর্সেনিক অ্যালব D2 (Arsenic Alb D2)।
(গ) আলকেমিলা ভালগারিস D1 (Alchemilla Vul D1)।
(ঘ) অ্যালিয়াম স্যাটিভাম D1 (Allium Sativa D1)।
(ঙ) আর্সেনিক অ্যালব D2 (Arsenic Alb D2)।
(ট) ইনসুলিন D8 (Insulin D8)।
(ঠ) এপিনেফ্রিন (অ্যাড্রেনালিন D6) Epinephrin (Adrenalin) D6।
(ড) মারটিলাস D2 (Myrtillus D2)।
(ঢ) নাক্স ভমিকা D2 (Nux Vomica D2)।
(ণ) ট্যারেক্সেকাম D1 (Taraxacum D1)।
(ত) স্টিগমাটা D2 (Stigmata D2)।
(থ) সিজিজিয়াম জাম্ব D2 (Syzgyium Jamb D2)।

আরও পড়ুন –   এইচ আর – ১৩ (ডায়াবেটিস রোগে কার্যকর)

আর ১৩০ (ডায়াবেটিস) ড্রপসটির মুল উপাদানে কার্যকারিতা :
(১)  অ্যাসিড ফস (Acid Phos) : এটি ঘন ঘন প্রস্রাব বিশেষ করে রাতে। মানসিক ও শারীরিক দুর্বলতা। রাতে পায়ে খিঁচুনি ইত্যাদি।
(২) আর্সেনিক অ্যালব (Arsenic Alb) : এটি দুর্বলতা, তৃষ্ণা বৃদ্ধি ও অস্থিরতা। কিডনির স্নেহ, প্রস্রাবে রক্ত, অ্যালবুমিন ও পুঁজ যুক্ত থাকে।
(৩)  আলকেমিলা ভালগারিস (Alchemilla Vul ) : এটি অকার্যকর লিভারকে উদ্দীপিত করে।
(৪) অ্যালিয়াম স্যাটিভাম  (Allium Sativa) : ভাসো ডাইলেটর, কোলেস্টেরল কমায়। হার্ট উদ্দীপক করে।

আরও পড়ুন –   কেন্ট ০৪ (ডায়াবেটিস রোগে কার্যকর)

(৫) ইনসুলিন (Insulin) : এটি অগ্ন্যাশয় এনজাইম যা কার্বোহাইড্রেট অক্সিডাইজ করার ও রক্তে শর্করার মাত্রা বজায় রাখার ক্ষমতা পুনরুদ্ধারে সহায়তা করে।
(৬) এপিনেফ্রিন (অ্যাড্রেনালিন)) Epinephrin (Adrenalin) : এটি শর্করার মাত্রা বৃদ্ধির কারণে এনজিনা ও উচ্চ রক্তচাপ হতে পারে।
(৭) মারটিলাস (Myrtillus) : এটি ডায়াবেটিসে মূত্রনালীর সংক্রমণ।
(৮) নাক্স ভমিকা (Nux Vomica) : এটির রোগী খুব খিটখিটে, উচ্চ মেজাজ এবং সংবেদনশীল রোগী, ঘন ঘন প্রস্রাব করার ইচ্ছা ইত্যাদি।

আরও পড়ুন –   এন – ৪০ (ডায়াবেটিস ড্রপস)

(৯) স্টিগমাটা (Taraxacum) : রক্ত ও ফসফেট সহ প্রস্রাব কমে যাওয়া।
(১০) সিজগিয়াম জাম্ব (Syzgyium Jamb) : এটি ডায়াবেটিসের জন্য সবচেয়ে নির্দিষ্ট প্রতিকারগুলির মধ্যে এটি একটি। উচ্চ রক্তে শর্করা, তৃষ্ণা বৃদ্ধি ও দুর্বলতা। শরীরে ক্রমাগত চুলকানি এবং ফুসকুড়ি ইত্যাদি।
(১১) ট্যারেক্সেকাম D1 (Taraxacum) : এটি লিভার বড় হয়ে গেছে, কোষ্ঠকাঠিন্য, মুখের স্বাদ তেতো ওফোলা সহ ক্ষুধা হ্রাস।

আরও পড়ুন –   র‌্যাক্স নং- ১০ (ডায়াবেটিস)

আর ১৩০ ঔষধ সেবন বিধি : প্রাপ্ত বয়স্করা জন্য ১৫ থেকে ২০ ফোঁটা, শিশুরা ৭ থেকে ১০ ফোঁটা ঔষধ ১/৪ কাপ পানিতে মিশিয়ে দিনে ৩ বার অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করতে হবে।
চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।
শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।

আরও পড়ুন –   এন – ৪০ (ডায়াবেটিস ড্রপস)

সতর্কতা : গর্ভবতী মা অথবা দুগ্ধদানকারী মায়েরা ঔষধ সেবনের পূর্বে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করা উত্তম।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : এই ঔষধ সেবনে কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই।

সতর্কতা : গর্ভবতী মহিলারা ঔষধ সেবনে পূর্বে একজন চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ কওর ঔষধ সেবন করুণ।
ঔষধ সংরক্ষণ :  সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।
আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন।  এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।  সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন।  আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev