মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:২০ পূর্বাহ্ন

ম্যাগনেশিয়া ফসফোরিকাম

আরোগ্য হোমিও হল / ১৮১ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ রবিবার, ১৩ নভেম্বর, ২০২২, ৬:৩৭ পূর্বাহ্ন

ম্যাগনেশিয়া ফসফোরিকাম

(Magnesia Phosphoricum)

সাধরণ নাম – ফসফেট অব ম্যাগ্নেশিয়া।

উপদান : Magnesium Phosphate, Phosphate of Magnesia
ম্যাগনেশিয়া ফসফোরিকামের রাসায়নিক ফর্মুলা : MgHPO4-7H20

ম্যাগনেশিয়া ফসফোরিকামের ক্রিয়া স্থল :  স্নায়ুর, মাংসপেশী, মস্তিস্ক, মেরুদণ্ড।

ম্যাগনেশিয়া ফসফোরিকামের বিশেষত্ব : ম্যাগ ফস আক্ষেপ নিবারণের প্রধান ঔষধ। যে কোন পীড়ায় কলেরা, শিশুদের দন্তোদ্গমকালীণ পীড়া যাহাতেই কোন না কেন আক্ষেপ দেখা দিলেই ম্যাগ ফস ব্যবহার করিতে হইবে। কলেরা পীড়ায় রোগী যখন সকল কষ্ট অপেক্ষা হাত পায়ের খাল ধরা নিবারণের জন্য বার বার আকুতি মিনতি করিতে থাকে তখন ম্যাগ ফসই একমাত্র ঔষধ। শূল বেদনায় ইহাই একমাত্র ঔষধ। ইহার বেদনার যন্ত্রণা উষ্ণতায়, চাপে সামনের দিকে ঝুঁকিলে উপশম হয়, শীতলতায় বৃদ্ধি পায়।

ম্যাগনেশিয়া ফসফোরিকামের বিশেষ লক্ষণ : ম্যাগনেসিয়া ফসফরিকা সর্বপ্রকার শূল বেদনা (Colic) এবং আক্ষেপ (Convulsion) প্রধাণ ঔষধ। তলপেটে বায়ু সঞ্চয় হেতু প্রচণ্ড শূল বেদনা যাতে রোগী মাননের দিকে ঝুঁকে পড়তে বাহ্য হয়। যাবতীয় শূলবেদনা গরম এবং চাপ প্রয়েঅগে ও সমানের দিকে ঝুঁকলে উপমম হয়। এছাড়া, অতিশয় যন্ত্রণাদায় মাথা ব্যথা, ঋতুস্রাবের সময় অসহ্য বেদনা, আমাশয়, অ্যাপেন্ডিসাইটিস, স্নায়ুশূল, কর্ণশূল, পিত্তপাথরীজনিত বেদনা, বাতজ্বর, হৃদশূল, আক্ষেপযুক্ত হাঁপানী প্রচণ্ড আক্ষেপিক কাশি, হিক্কা, (Hiccough) তান্ডাব রোগে পেশী সমূহের কম্পন) এবং ম্যাগনেসিয়া ফসের অন্যান্য লক্ষণে কার্যকর।

ম্যাগনেশিয়া ফসফোরিকামের পরিচায়ক লক্ষণ :

১/ রোগী বেদনার জন্য সর্বদা দুঃখ প্রকাশ করে এবং ক্রন্দন করে।

২/ইহা সর্বপ্রকার শূলবেনার মহৌধ। বেদনা আক্ষেপিক, অথবা স্নায়বিক। শিশুদিগের শূলবেদনায় পা গুটাইয়া থাকে। উদরের স্ফীতিবশতঃ শলূ। উদরকামাড়ানি। বেদনা তী² ছুড়িবিদ্ধবৎ, স্থান পরিবর্তনশীল বেদনা, বিদ্যুৎবৎ বেদনা আসে আর হঠাৎ চলিয়া যায়। ইহার সর্বপ্রকার বেদনাই উত্তাপে, চাপনে, সম্মুখদিকে ঝুঁকিলে উপশ্রম এবং শীতলতায় বৃদ্ধি প্রাপ্ত হয়।

৩/ অতিশয় যন্ত্রণাজনক শিরঃপীড়া। স্নায়বীয় শিরঃপীড়া সহ বিদ্যুৎবৎ আলো দর্শন করে। ইহার বেদনা হ্রাস বৃদ্ধি এবং প্রকৃতি ২য় সংখ্যক লক্ষনের ন্যায়।

৪/ চক্ষুর স্নায়ুশূল এবং আক্ষেপিক স্পন্দন (ক্যাল-ফস, নেট্রাম মিউর)। দ্বিত্ব দৃষ্টি।
৫/ দন্তবেদনা বা ইহা সর্বপ্রকার শূলবেনার মহৌধ। বেদনা আক্ষেপিক, অথবা স্নায়বিক। শিশুদিগের দন্ত শূলবেদনায় পা গুটাইয়া থাকে। উদরের স্ফীতিবশতঃ শলূ। উদরকামাড়ানি। বেদনা তীক্ষ্ম ছুড়িবিদ্ধবৎ, স্থান পরিবর্তনশীল বেদনা, বিদ্যুৎবৎ বেদনা আসে আর হঠাৎ চলিয়া যায়। ইহার সর্বপ্রকার বেদনাই উত্তাপে, চাপনে, সম্মুখদিকে ঝুঁকিলে উপশ্রম এবং শীতলতায় বৃদ্ধি প্রাপ্ত হয়।

৬/ পাকস্থলী আক্ষেপিক বেদনাবশতঃ বমন। বমনে পিত্ত, শ্লেম্মা জমা দুগ্ধ এবং অজীর্ণকর পদার্থে উঠে। বেদনা তীক্ষ্ম ছুড়িবিদ্ধবৎ, স্থান পরিবর্তনশীল বেদনা, বিদ্যুৎবৎ বেদনা আসে আর হঠাৎ চলিয়া যায়। ইহার সর্বপ্রকার বেদনাই উত্তাপে, চাপনে, সম্মুখদিকে ঝুঁকিলে উপশ্রম এবং শীতলতায় বৃদ্ধি প্রাপ্ত হয়।

৭/ উদরাময়ে জলবৎ তরলমল পিচকারীর ন্যায় বেগে নির্গত হয় নেট্রাম সালফ)। উদরাময় সহ পায়েল ডিমে কামড়ানি বা খিলধরা। শিশুদিগের উদরে বায়ু জমিয়া শূলবেদনা এবং তজ্জনিত ক্রন্দন।

৮/ রক্তামাশয়ে অতিশয় উদরবেদনা ও কুস্থন থাকিলে কেলি মিউরসহ পর্যায়ক্রমে।

৯/ হিক্কার প্রধান ঔষধ।

১০/ লেখকদিগের এবং পিয়ানো বদকদিগের অঙ্গলির আক্ষেপ।
১১/ মুত্রশয় ও ইহার গলদেশের আক্ষেপিক বেদনা, প্রসবকালীন কুন্থন, জ্বালা এবং মুত্ররোধ। পাথুরি নির্গমনকালীন অসহ্য বেদনা।

১২/ কষ্টরজঃপীড়ার বেদনা নিবারণার্থ উৎকৃষ্ট। ঋতুস্রাব সহ্য অসহ্য বেদনা। স্রাব হইতে আরম্ভ করিলেই বেদনার উপশ্রম। ঋতুর রক্ত কাল, দড়াপানা এবং জরায়ু বাহির হইয়া যাইবে মনে হয়।

১৩/ আক্ষেপিক প্রসববেনা, সুতিকা-আক্ষেপ, ধুনুষ্টঙ্কার, কোরিয়া পীড়ায় নানাস্থানের স্পন্দনে, আক্ষেপিক পক্ষঘাত কেলিফস), হৃদশূল, অতিরিক্ত হস্তমৈথুনবশতঃ মৃগী, আক্ষেপ, হৃদস্পন্দন প্রভৃতি সর্বপ্রকার আক্ষেপিক ও স্নায়ুবিক বেদনায় ইহা একমাত্র ঔষধ বলিলেও অত্যুক্তি হয় না।
১৪/ ক্রপ, হাঁপানি, যক্ষ্মা প্রভৃতি সর্বপ্রকার কাশি আক্ষেপিক ধরনের হইলে কাশি অত্যান্ত কষ্টজনক, শুস্ক এবং থাকিয়া থাকিয়া হয়। শয়নকালে কাশির বৃদ্ধি। শ্বাস-প্রশ্বাসে কষ্ট। ক্ষয়কাশিতে যখন গুটিকা বিগলন হয়।

১৫/বাত বেদনার ইহা সর্বপ্রকার বাত বেদনার শূলবেনার মহৌধ। বাত বেদনায় আক্ষেপিক, অথবা স্নায়বিক। শিশুরা বাতবেদনায় শূলবেদনায় পা গুটাইয়া থাকে। উদরের স্ফীতিবশতঃ শলূ। উদরকামাড়ানি। বাতের বেদনা তীক্ষ্ম ছুড়িবিদ্ধবৎ, স্থান পরিবর্তনশীল বেদনা, বিদ্যুৎবৎ বেদনা আসে আর হঠাৎ চলিয়া যায়। ইহার সর্বপ্রকার বেদনাই উত্তাপে, চাপনে, সম্মুখদিকে ঝুঁকিলে উপশ্রম এবং শীতলতায় বৃদ্ধি প্রাপ্ত হয়। শয়ন করলে, রাত্রিকালে, সঞ্চালনে বৃদ্ধি-প্রাতে নিদ্রাভঙ্গেও পর ভ্রমণে হ্রাস।

ম্যাগনেশিয়া ফসফোরিকামের মানুসিক লক্ষণ : রোগী মানসিক পরিশ্রম করিতে অনিচ্ছক এবং মানসিক পরিশ্রমের শক্তি তাহার থাকে না। মন অবসন্ন, বই পত্র বড়িতে ও অনিচ্ছা, আবার পড়িতে গেলে নিদ্রিত হইয়া পড়ে। বৃদ্ধি ও মনেবৃত্তির গোলযোগ। দুঃখ বা খেদ করিয়া দীর্ঘ নিঃশ্বাস ত্যাগ করে, হাই উঠে। রোগী বেশী কথা বলে আবার চুপকরিয়াও থাকিতে পারে। বেদনার জন্য সর্বদাই দুঃখ প্রাকাশ করে এবং ক্রন্দন করে।

ম্যাগনেশিয়া ফসফোরিকামের  বিশেষ বিশেষ পীড়ায় ব্যহার :
ক্যাথিটার দেওয়ার সময় বা পড়ে মুত্রনলীল আক্ষেপ, কোরিয়া, সার্ব্বদৈহিক আক্ষেপ ও স্থানীয় আক্ষেপ, স্নায়বিক কাশি, শূলপীড়া, প্রসবকালীন অনিয়মিত বেদনা। ঠোঁট ফাটা, কলেরায় আক্ষেপ, আক্ষেপিক প্রস্রাব বন্ধ, অন্ত্র ও পাকস্থলীর শূল, প্রেষ্টেট গ্রন্থি বিবর্ন্ধন, পিত্তশূল, মুত্রগ্রন্থি বা মুত্রস্থলীতে পাথুরী হওয়ার জন্য শূল, হুপিং কাশি, সহবাসকালীণ স্ত্রী জননেন্দ্রিয়ের আক্ষেপ, লেখকদের হাতের আক্ষেপ, কোনস্থান কাটিয়া যাওয়া, দন্তোদ্গগমকালীন আক্ষেপ, শিরঃপীড়া, স্নায়ুবিক কষ্টরজঃ মেম্ব্রেনজ কষ্টরজঃ, মেনিনজাইটিস, স্নায়ু শূল, গুহ্যদ্বার নির্গমন, বিদ্যালয়েল ছাত্রদের শীরঃপীড়া, সায়েটিকা, পাকস্থলীল ক্যান্সার পীড়া, হাহুতাম করা, প্রভৃতিতে এই ঔষধ ব্যবহৃত হয়।

ম্যাগনেশিয়া ফসফোরিকামের  বৃদ্ধি : সকল প্রকার আক্রমণই ডানদিকে বেশী, সকল লক্ষণ শীতল বায়ূতে, জলে, সামান্য স্পর্শে, চিৎ হইয়া শয়ন করিলে, উন্মুক্ত বায়ুতে বৃদ্ধি হয়।

ম্যাগনেশিয়া ফসফোরিকামের উপশম : উত্তাপে, চাপে, ঘর্ষণে, সম্মুখ দিকে নত হইলে, সংকুচিত হইলে উপশম হয়। পেটের বেদনার জন্য রোগী উঠিয়া ভ্রমণ করিতে বাধ্য হয় এবং তাহাতে আরাম বোধও করে।

ম্যাগনেশিয়া ফসফোরিকামের  শক্তি : এই ঔষধ 3X 6X 12X 30X এবং 200X ও সময় সময় ব্যহহৃত হয়। নিন্ম শক্তিতে সুফল না দেখা গেলে উচ্চ শক্তি ব্যবহার্য্য। তবে শূল বেদনার প্রথমেই 1X, 2X শক্তি বা 3X শক্তি ব্যবহৃত করিতে হয়।

ম্যাগনেশিয়া ফসফোরিকামের সেবন বিধি : প্রাপ্ত বয়স্কারা ৫টি করে ট্যাবলেট দিনে ৩ অথবা ৪ বার। অপ্রাপ্ত বয়স্করা ৩টি করে ট্যাবলেট দিনে ৩ অথবা ৪ বার কুসুম কুসম গরম পানির সহিত সেবন করতে হবে অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেনব করুন।

সম্পাপ্ত

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : এ ওয়েব সাইটের মুল উদ্দেশ্যে হচ্ছে স্বাস্থ্য সম্পের্ক কিছু দান করা বা তুলে ধরা। সাধারণ মনুষের উপকার হবে। বিশেষ করে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক ও ছাত্ররা উপকৃত হবেন। এ ওয়েব সাইটে থাকছে পুরুষ স্বাস্থ্য বা যৌনস্বাস্থ্য, গাইনি স্বাস্থ্য, শিশুস্বাস্থ্য, মাদার টিংচার, সিরাপ, বম্বিনেশন ঔষধ, বাইকেমিক ঔষধ, হোমিওপ্যাথিক বই, ইউনানি, হামদর্দ, হারবাল, ভেজষ, স্বাস্থ্য কথা ইত্যাদি। এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev