মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:২৯ পূর্বাহ্ন

পাঁচ বছর পর্যন্ত মানবদেহে লুকিয়ে থাকতে পারে স্তন ক্যনসার

আরোগ্য হোমিও হল / ২০৫ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ শুক্রবার, ২৭ অক্টোবর, ২০২৩, ৫:৩৭ অপরাহ্ন
পাঁচ বছর পর্যন্ত মানবদেহে লুকিয়ে থাকতে পারে স্তন ক্যনসার
ছবি: সংগৃহীত

পাঁচ বছর পর্যন্ত মানবদেহে লুকিয়ে থাকতে পারে স্তন ক্যনসার
আরোগ্য হোমিও হল এ আপনাকে স্বাগতম, এখানে আজ আপনার মানব শরীরে পাঁচ বছর পর্যন্ত শরীরে লুকিয়ে থাকতে পারে স্তন ক্যনসার সেটা নিয়ে এখানে নিয়ে আলোচনা কররো। চলেন কথা না বাড়িয়ে মুল আলোচনায় যায়।

চিকিৎসকরা বলেন, স্তন ক্যানসারের ক্ষেত্রে রোগ নির্ণয়ের চাবিটি থাকে আক্রান্ত রোগীর কাছেই। তাঁদের মতে, ‘সেল্ফ ডিটেকশন’-এর বিকল্প নেই। কোন কোন লক্ষণ দেখলে সতর্ক হবেন? স্তন ক্যানসার, তিরিশ পেরোনো মহিলাদের এর থেকে বড় ভয় সম্ভবত আর কিছু নেই। চিকিৎসকদের মতে, দেশে ইদানীং স্তন ক্যানসারে আক্রান্তের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। দেশে ৩০-৫০ বছর বয়সিরা নারীরা এই অসুখের শিকার হচ্ছেন সবচেয়ে বেশি। বয়স ২৫ পেরোলেই, অস্বস্তি থাক আর না থাক, চিকিৎসকদের কাছে এসে বছরে এক বার স্বাস্থ্যপরীক্ষা করানো উচিত। মনে রাখতে হবে, স্তনে মাংসপিণ্ড (লাম্প) বা টিউমার হওয়া মানেই কিন্তু ক্যানসারের ঝুঁকি থাকে, এমনটা নয়। বরং ১০-১৫ শতাংশ টিউমারেই এই ভয় থাকে, কিন্তু সেই চিকিৎসা দ্রুত শুরু উচিত।

কী ভাবে বুঝবেন আপান শরীরে ক্যানসার বাসা বাঁধছে কি না এমন ঘোরতর অসুখ? দ্দধু লাম্প থাকলেই তা কি ভয়ের? না কি এই অসুখের পিছনে লুকিয়ে থাকে আরও নানা উপসর্গ? অনেকের ক্ষেত্রে আবার কোনও উপসর্গ ছাড়াই শরীরে ক্যানসার বাসা বাঁধে এই মারণরোগ। চিকিৎসকের পরিভাষায় একে বলে মেটাস্ট্যাটিক ব্রেস্ট ক্যানসার। এই ধরনের ক্যানসার সাধারণত উৎপত্তিস্থল থেকে শরীরের চারিপাশে ছড়াতে শুরু করে, বিশেষ করে ক্যানসারের একেবারে শেষ পর্যায় ধরা পড়ে এ মরণ ব্যাধি। বছনে না হলেও অন্তত এক বার স্তন পরীক্ষা করালে এই মারণব্যাধির সঙ্গে লড়াই করা সম্ভব। দুই বছরে এক বার ম্যামোগ্রাফি করানো দরকার।
এক্স-রে ম্যামোগ্রাফি, স্তনের আল্ট্রাসাউন্ড, এমআরআই, সিটি এবং পিইটি স্ক্যানের মাধ্যমে স্তন ক্যানসার নির্ণয় করা হয়। স্তন ক্যানসার সাধারণত ২ থেকে ৫ বছর ধরে শনাক্ত না-ও হতে পারে এবং তাই উপসর্গহীন ক্যানসারের ক্ষত্রে স্ক্রিনিংয়ের গুরুত্ব অনেক বেশি।

স্তন ক্যানসারের লক্ষণ অনেক সময়ে বাহুমূল বা কলার বোনের তলাতেও প্রকাশ পেয়ে থাকে। এ ছাড়া স্তনবৃন্তের আশপাশে এই ধরনের লাম্প থাকে যেগুলি টিপলে শক্ত লাগে এবং অবস্থান পরিবর্তন করে না। এমন কিছু দেখলে অবিলম্বে চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ করুণ । কোনও রকম র‌্যাশ নেই স্তনে, তবু চুলকানির মতো অনুভূতি হচ্ছে, এটাও কিন্তু একটি ক্যানসারের লক্ষণ। স্তনে টিউমার থাকলে তা আশপাশের টিস্যুগুলির উপর চাপ সৃষ্টি করে যাহার ফলে স্তনে একটা ফোলা ফোলা ভাব দেখা যায়। এরই সঙ্গে স্তনে লালচে ভাবও থাকে। স্তনে হাত দিলে বা চাপ দিলে ব্যথা করে। কাঁধ এবং ঘাড়ের ব্যথাও ব্রেস্ট ক্যানসারের লক্ষণ হতে পারে। কারণ, এই ক্যানসার স্তন থেকে খুব সহজেই ছড়িয়ে পড়ে শরীরের বিভিন্ন অংশগুলিতে। স্তনের আকার বিকৃত, বিছানায় শোয়ার সময়ে যদি ব্যথা লাগে, শিশুকে স্তন্যপান করাচ্ছেন না অথচ স্তনবৃন্ত থেকে অল্প অল্প দুধের মতো তরল পদার্থ নিঃসরণ হচ্ছে, তা হলে চিকিৎসকের কাছে যেতে দেরি করবেন না। এটি স্তন ক্যানসারের অন্যতম বড় লক্ষণ।

স্তনবৃন্ত হল নারীদের শরীরের অন্যতম সংবেদনশীল অংশ। যদি দেখেন যে, স্তনবৃন্ত স্পর্শ করলেও তেমন একটা অনুভূতি হচ্ছে না, বা একেবারেই অনুভূতিহীন হয়ে গিয়েছে, তবে মনে রাখবেন স্তন ক্যানসার হওয়ার আশঙ্কা খুবই বেশি। স্তনের উপরের ত্বক খসখসে হয়ে যাওয়া ক্যানসারের প্রথম লক্ষণ। এ ক্ষেত্রেও দেরি না করে চিকিৎসকের দ্বারস্থ হওয়াই উত্তম।

আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন। যদি এই পোস্টটি আপনার ভালো লাগে এবং প্রয়োজনীয় মনে হয় তবে অনুগ্রহ করে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেন না যেন।

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন  : এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ। এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev