সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:৪৫ অপরাহ্ন

নারীর যৌনাঙ্গে হারপিসের হোমিওপ্যাথিক ঔষধ

আরোগ্য হোমিও হল / ১৪৬ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ বুধবার, ২৭ ডিসেম্বর, ২০২৩, ৬:২২ অপরাহ্ন

নারীর যৌনাঙ্গে হারপিসের হোমিওপ্যাথিক ঔষধ

আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো যৌনাঙ্গে হারপিসের হোমিওপ্যাথিক ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।

হারপিস সিমপ্লেক্স ভাইরাস (HSV) দ্বারা সৃষ্ট একটি সাধারণ যৌন সংক্রমণ রোগ। পুরুষ ও নারীর যৌনাঙ্গে হারপিসের প্রধান লক্ষণের মধ্যে রয়েছে মলদ্বারের আশেপাশে অথবা কাছাকাছি ফোস্কা পড়ে, চুলকায় ও জ্বালাপোড়া, ব্যথা সহ বিস্ফোরণ যৌনাঙ্গে হারপিসের একটি লক্ষণ হতে পারে। এই ফোস্কাগুলি শেষ পর্যন্ত এক সময়ে ভেঙ্গে যায়, কিন্তু তারা এমন ঘা রেখে যায় যেগুলি খুব কোমল এবং সারতে প্রায় দুই থেকে ৪ সপ্তাহ সময় লাগে। এটি প্রথমবার ফোসকা ফুটে যায়। কিন্ত পরবর্তীতে প্রাদুর্ভাবগুলি প্রথম বিস্ফোরণের চেয়ে কিছু ছোট এবং কম গুরুতর হয়। যৌন মিলনের মাধ্যমে রোগটি সংক্রমণ হয় এবং কোন স্পষ্ট লক্ষণ দেখা না গেলেও চিসিৎসকের সাথে পরামর্শ করা উচিত। জেনিটাল হার্পিস যৌনাঙ্গে ঝাঁঝালো সংবেদন এবং প্রচুর অস্বস্তি সৃষ্টি করে।

যৌনাঙ্গে হারপিসের কারণ কী ?

যৌনাঙ্গে হারপিস সংক্রমণ প্রধানত ২টি ভিন্ন ধরনের (HSV) বা হারপিস সিমপ্লেক্স ভাইরাস দ্বারা সৃষ্ট একটি রোগ। প্রথম ধরণের হারপিস সিমপ্লেক্স ভাইরাস সাধারণত ঠোঁটকে সংক্রামিত করে এবং তারা ঠান্ডা ঘা সৃষ্টি করে, যা জ্বরের ফোস্কা হিসাবে পরিচিত। প্রথম ধরনের (HSV) টাইপ ১ ভাইরাসও যৌনাঙ্গে ঘা তৈরি করে। যৌনাঙ্গে হারপিসের স্বাভাবিক কারণ হলো (HSV) টাইপ ২ এবং এটি মুখকে সংক্রমিত করে। যৌনাঙ্গের হারপিস সাধারণত যৌনমিলনের সময় একজন ব্যক্তি থেকে অন্য ব্যক্তির কাছে ছড়িয়ে পড়ে। হার্পিসের লক্ষণ গুলি শরীরের স্নায়ু কোষে থাকার কারণে কিছু লোকের মধ্যে চালু অথবা বন্ধ হতে পারে।

আরও পড়ুন –  জরায়ুর মুখে ঘা বা সারভিক্সে সংক্রমনের লক্ষন

যৌনাঙ্গে হারপিসের লক্ষণ কি কি?

(১) যৌনাঙ্গে জ্বালাপোড়া বা চুলকানি অনুভূতি হয়, যা ২-৩ সপ্তাহের বেশি সময় ধরে থাকে।
(২) যৌনাঙ্গে, পা এবং নিতম্বে ব্যথা করে।
(৩) যোনি থেকে তরল নিঃসৃত হয় এবং পেটে চাপ অনুভব করে ।
(৪) যোনি অথবা মুখের মতো ভাইরাস প্রবেশ করেছে এমন অঞ্চলে কয়েক দিন পরে ঘা দেখা দিতে পারে।
এছাড়াও অন্যান্য সাধারণ উপসর্গ দেখা দিতে পারে :
(ক) মাথাব্যথা ও জ্বর।
(খ) পেশী ব্যথা।
(গ) প্রস্রাব করতে অসুবিধা।
(ঘ) কুঁচকির আশেপাশের গ্রন্থিগুলোও মাঝে মাঝে ফুলে যায়।

আরও পড়ুন –   ক্ল্যামিডিয়া বা STD এর রোগ লক্ষণ, কারণ ও হোমিওপ্যাথি ঔষধ

যৌনাঙ্গে হারপিসের হোমিওপ্যাথিক ওষুধ :
এটি একটি সাধারণত ছোঁয়াচে রোগ এবং হার্পিসের চিকিৎসায় হোমিওপ্যাথিক প্রতিকারের ব্যবহার অথ্যান্ত কার্যকর। হোমিওপ্যাথিক ওষুধ সেবনের আপনি উল্লেখযোগ্য ফলাফল পাবেন এবং এ ঔষধ অত্যন্ত নিরাপদ। হোমিওপ্যাথিক ওষুধ সেবনের ফলে কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই এবং এটি রোগকে মূল থেকে নির্মূল করতে খুব কার্যকরী । যৌনাঙ্গে হারপিস অগ্ন্যুৎপাতের ফ্রিকোয়েন্সি এবং তীব্রতা ধীরে ধীরে শুকিয়ে যায় যতক্ষণ না রোগটি সম্পূর্ণভাবে কমে যায়।

যৌনাঙ্গে হারপিসের চিকিৎসায় সর্বাধিক ব্যবহৃত হোমিওপ্যাথিক
(১) ন্যাট্রাম মিউর (Natrum Mur) : যৌনাঙ্গে হারপিসের জন্য শীর্ষ প্রাকৃতিক ওষুধ ন্যাট্রাম মিউর। এ ঔষধ পুরুষ ও নারী উভয়ের যৌনাঙ্গে হারপিসের চিকিৎসায় হোমিওপ্যাথিক ওষুধের তালিকায় শীর্ষে।

যোনি, ভালভা ও মলদ্বারের চারপাশে বাম্প তৈরি হলে ন্যাট্রাম মিউর ব্যবহার করা যেতে পারেন। প্রস্রাবের পর যদি যোনিপথে জ্বালাপোড়া ও ব্যথা অনুভূত হতে পারে। মাসিকের পূর্বে এটি খারাপ হতে পারে। যোনিতে চুলকানিও হতে পারে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে, যোনি থেকে সাদা স্রাবসহ চুলকানি ও জ্বালা সহ উদ্ভূত হতে পারে।

ন্যাট্রাম মিউর ঔষধ কখন ব্যবহার করবেন : এই ওষুধটি যৌনাঙ্গে হারপিসের একটি বড় সংখ্যক ক্ষেত্রে ভাল ফলাফল দেখিয়েছে, তাই এটি  মহিলা যৌনাঙ্গে হারপিসের চিকিৎসায় শীর্ষ-সবচেয়ে ওষুধ হিসাবে ব্যবহার করা হয়। নেট্রাম মিউর হারপিস ঘা নিরাময় এবং সংশ্লিষ্ট চুলকানি পরিচালনায় অত্যন্ত কার্যকর। এ ঔষধুটি নিম্ন থেকে উচ্চ শক্তি পর্যন্ত ব্যবহার করা যেতে পারে, তবে সবচেয়ে পছন্দের হল নেট্রাম মিউর 6X ক্ষমতা। যৌনাঙ্গে হারপিসের নির্ণয় নিশ্চিত হলেই, অভিযোগের তীব্রতা অনুযায়ী নেট্রাম মিউর 6X শক্তি দুই থেকে চারটি ডোজ নেওয়া যেতে পারে।

নারীর যৌনাঙ্গে হারপিসের হোমিওপ্যাথিক

(২) পেট্রোলিয়াম (Petroleum) : চিহ্নিত চুলকানি ও লালভাব সহ যৌনাঙ্গে হারপিসে পেট্রোলিয়াম হলো পরবর্তী এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রতিকার যখন বাম্পগুলি চিহ্নিত চুলকানি এবং লালভাব দ্বারা অনুষঙ্গী হয় সে ক্ষেত্রে পেট্রোলিয়াম ব্যবহার করা হয়।

পেট্রোলিয়াম ওষুধ বিশেষত যখন চুলকানির সঙ্গে ব্রেকআউট গুলি বেশিরভাগ পিরিয়ডের সময় ঘটে। যৌনাঙ্গের যে কোনো অংশে চুলকানি বাম্প ছড়িয়ে ছিটিয়ে দেখা দিতে পারে। যোনিতে জ্বালাপোড়া অনুভূত হয়। পিরিয়ডের সময় বেশিরভাগ ক্ষেত্রে যৌনাঙ্গে চুলকানি বাম্প তৈরি হলে এর ব্যবহার অত্যন্ত বাঞ্ছনীয়।

পেট্রোলিয়াম ঔষধটি কখন ব্যবহার : পেট্রোলিয়াম ঔষধটি বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই উপযুক্ত যেখানে ঘাগুলিতে চুলকানি এবং লালভাব ভালভাবে চিহ্নিত করা হয়।

পেট্রোলিয়াম ঔষধ সেবন বিধি : পেট্রোলিয়াম 30C শক্তিতে দিনে দুবার অথবা তিন বার শুরুতে ব্যবহার করা যেতে পারে, যখন কিছু উন্নতি দেখা দিলে তখন ডোজ ধীরে ধীরে হ্রাস পায়। হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক তার অবিজ্ঞাতার উপর নির্ভর করে এটি উচ্চ শক্তি ব্যবহার করতে পারেন।

আরও পড়ুন –   যৌনাঙ্গ চুলকানির কারণ, প্রতিকার ও হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা

(৩) নাইট্রিক এসিড (Nitric Acid) : আলসারের চিকিৎসা ও যৌনাঙ্গে হারপিসের আলসারের চিকিৎসায় নাইট্রিক অ্যাসিড একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ওষুধ।

নাইট্রিক অ্যাসিড উপকারী যখন কোন নারীর যোনিতে আলসার তৈরি হয় যা জ্বলন্ত সংবেদন সহ চুলকায়। যোনিতে চুলকানি, জ্বলন্ত আলসার হলেই ব্যবহার করা হয়।

নাইট্রিক এসিড ঔষধ ব্যবহার করবেন? আলসার তৈরি হলে এই ওষুধটি ব্যবহার করা হয়।

নাইট্রিক এসিড ঔষধ সেবন বিধি : দিনে একবার 30C শক্তিতে এই ওষুধটি ব্যবহার করার পরামর্শ দেওয়া হয়।

(৪) সিপিয়া অফ (Sepia off) : মহিলাদের যৌনাঙ্গে হারপিসের চিকিৎসায় সেপিয়া হলো শীর্ষস্থানীয় একটি ওষুধ। সিপিয়া ব্যবহার হয় যখন মহিলাদের যৌনাঙ্গের বিভিন্ন স্থানে ফোসকা মতো তৈরি হয়। যৌনাঙ্গের চিহ্নিত কোমলতা অনুভূত হয়। এছাড়াও বাহ্যিক যৌনাঙ্গে চুলকানিও হয়। যোনি চুলকানি সহ হলুদ ও সবুজ স্রাব দেখা দিতে পারে, ।

সিপিয়া ব্যবহার করবেন : যৌনাঙ্গে ফোসকা সহ চিহ্নিত কোমলতা ও যোনি স্রাব হলে সিপিয়া ব্যবহার হয়। প্রতিটি ব্যক্তির ক্ষেত্রে শক্তি কম থেকে উচ্চ পর্যন্ত পরিবর্তিত হয়।

সিপিয়া ঔষধ সেবন বিধি : Sepia 30C দিনে একবার বা দুইবার দেওয় যেতে পারে। পরবর্তীতে, হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক যদি মনে করেন তবে উচ্চ ক্ষমতা বিবেচনা করতে পানে ।

(৫) হিপার সালফার (Hepar Sulphur) : নারীদের যৌনাঙ্গে অত্যন্ত সংবেদনশীল বিস্ফোরণের জন্য ব্যবহার করা হয়। এটি পুরুষ যৌনাঙ্গে সংবেদনশীল অগ্ন্যুৎপাতের চিকিৎসায় অত্যন্ত কার্যকর ওষুধ। যখন ছোট ফোস্কা দলবদ্ধভাবে তৈরি হয় তখন এটি অত্যান্ত ভালো কাজ করে।

আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন। যদি এই পোস্টটি আপনার ভালো লাগে এবং প্রয়োজনীয় মনে হয় তবে অনুগ্রহ করে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেন না যেন।

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ। এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev