সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১২:৪২ অপরাহ্ন

জেনিটাল হারপিস এর ঘরোয়া উপায়

আরোগ্য হোমিও হল / ১৮৮ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ সোমবার, ১ জানুয়ারী, ২০২৪, ৫:৫১ অপরাহ্ন
জেনিটাল হারপিস এর ঘরোয়া উপায়

জেনিটাল হারপিস এর ঘরোয়া উপায়
আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো জেনিটাল হারপিস এর ঘরোয়া উপায়
পদ্ধতি কি তা নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।

হারপিস সিমপ্লেক্স ভাইরাস – ১ (HSV-1) এবং হারপিস সিমপ্লেক্স ভাইরাস -২ (HSV-2) হল দুটি ধরণের ভাইরাস যৌনাঙ্গে হারপিস সৃষ্টি করে। HSV-1 এটি প্রধানত মৌখিক হারপিস সৃষ্টি করে এবং এটি ঠান্ডা ঘা এবং জ্বর, মুখের চারপাশে এবং মুখে ফোস্কা সৃষ্টি করে। এটি চুম্বন অথবা টুথব্রাশ এবং পাত্রের যে কোন জিনিস ভাগ করে নেওয়ার মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়তে পারে HSV-1। HSV-1 এটি প্রাথমিক ভাবে যৌনাঙ্গে হারপিসের দিকে পরিচালিত করে থাকে এবং যৌনাঙ্গে হারপিসই প্রাদুর্ভাবের জন্য দায়ী। একজন ব্যক্তি শুধুমাত্র যৌনাঙ্গে (HSV-2) সংক্রমণে আক্রান্ত ব্যক্তির সাথে যৌন মিলনের কারণে হারপিস টাইপ ২ সংক্রমণ ছড়াতে পারে।

হারপিস জোস্টার ভাইরাসে আক্রান্ত হলে দাদ এবং চিকেনপক্স হতে পারে। হার্পিস ভাইরাস টিস্যুর পাতলা স্তরের মাধ্যমে শরীরে প্রবেশ করে। যা শরীরের খোলা অংশটিকে মিউকাস মেমব্রেন বলা হয়। এই ভাইরাসটি আক্রান্ত ব্যক্তির নাক, মুখ এবং যৌনাঙ্গে দেখা যায়। ভাইরাসটি শরীরে প্রবেশের পর দেহের কোষে প্রবেশ করে। এই ভাইরাসগুলি দিনদিন সংখ্যাবৃদ্ধি করে এবং খুব সহজেই তাদের পরিবেশের সাথে খাপ খাইয়ে নিতে পারে, তাদের চিকিৎসা করা খুব কঠিন হয় ।

আরও পড়ুন –   সহবাস কালে যৌনি জ্বালাপোড়া, ব্যথার কারণ ও এর প্রতিকার

যৌনাঙ্গে হারপিসের লক্ষণ :
ত্বকে ফোস্কা দেখা দেওয়া হার্পিস সংক্রমণের সবচেয়ে এটি সাধারণ লক্ষণ। ভাইরাসের সংস্পর্শে আসার পর লক্ষণগুলি দেখা দিতে ৩ দিন থেকে ১ মাস সময় লাগতে পারে। মহিলাদের এবং পুরুষদের যৌনাঙ্গে হারপিসের সাধারণ লক্ষণগুলির মধ্যে শরীরের নিম্নলিখিত অঞ্চলে ফোসকা দেখা যায়।
মহিলা:
(ক) যোনি।
(খ) নিতম্ব মলদ্বার।
(গ) সার্ভিক্স।

পুরুষ :
(১) লিঙ্গ ।
(২) অণ্ডকোষ।
(৩)নিতম্ব।
(৪) মলদ্বার।

আরও পড়ুন –  পুরুষদের যৌনাঙ্গে হারপিসের হোমিওপ্যাথিক ঔষধ

নারী এবং পুরুষদের মধ্যে যৌনাঙ্গে হারপিসের অন্যান্য সাধারণ লক্ষণ হল:
(ক) ফোস্কা দেখা দেওয়ার পূর্বে সংক্রামিত যৌনাঙ্গে প্রায়ই চুলকানি অনুভূত হয়।
(ক) যৌনাঙ্গে বেদনাদায়ক ফোসকা যা ফুলে যেতে পারে।
(গ) ফোসকা বা ঘা থেকে তরল বের হয়।
(ঘ) এক সপ্তাহের মধ্যে ঘাগুলির উপর একটি ভূত্বক তৈরি করে।
(ঙ) ফোলা লিম্ফ নোড জ্বর, ক্লান্তি, শরীরের ব্যাথা, মাথাব্যথা, ঠাণ্ডা যৌনাঙ্গে জ্বালা ইত্যাদি।

আরও পড়ুন –  ক্ল্যামিডিয়া বা STD এর রোগ লক্ষণ, কারণ ও হোমিওপ্যাথি ঔষধ

ঘরোয়া উপায়েও হারপিস :
(১) জলপাইয়ের তেল : জলপাইয়ের তেল ব্যাকটেরিয়া গুলি মেরে ফেলতে সহায়তা করে। এটিতে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সংক্রমন রোধ করতে সাহায্য করে।
(২) আপেল সিডার ভিনেগার : আপেল সিডার ভিনেগার ব্যাকটেরিয়াকে শরীরে ছড়ানো থেকে প্রতিরোধ করে। হারপিসের কারণে দেহের যেসব অংঙ্গে ব্যাথা বা ঘা হয়েছে AB সব স্থানে এই ভিনেগার লাগালে উপশ্রম পাওয়া যায়। পানির সাথে আপেল সিডার ভিনেগার মিশিয়ে পান করলেও অনেক উপকারী।
(৩) চা গাছের তেল : চা গাছের তেল প্রাচীন কাল থেকে এ রোগ সংক্রমনের ঔষধ হিসেবে ব্যবহার হয়ে আসছে। এটি ভাইরাল ও ফাংগাল চিকিৎসার ক্ষেত্রেও ব্যবহার করা হয়। এটি ব্যবহার করলে হারপিসের ব্যাথা এবং অস্বস্থি থেকে উপশ্রম পাওয়া যায়।

আরও পড়ুন –  নারীর যৌনাঙ্গে হারপিসের হোমিওপ্যাথিক ঔষধ

(৪) যষ্টিমধুর শিকড় : অ্যান্টঅক্সিডেন্ট ও ব্যাকটেরিয়া বিরোধীর বৈশিষ্ঠ্য যষ্টিমধুতে পাওয়া যায়। পানির সাথে যষ্টিমধু গুড়ো করে ব্যাথা যুক্ত স্থানে লাগিয়ে দিলে উপকার হয়।
(৫) লেবুর সুগন্ধি নির্যাস : হারপিসের ব্যাথা প্রতিকার করতে এটি অনেক ব্যবহার করে। হারপিসের প্রাদুর্ভাব থেকে আরাম দিতে লেবুর সুগন্ধি নির্যাস অনেক উপকারী ।
(৬) ঘৃতকুমারী জেল : ঘৃতকুমারী জেল ব্যাথা উপশম করতে সাহায্য করে। সেই সাথে এটি হারপিস সংক্রমন ছড়ানো প্রতিরোধ করে ।
পরামর্শ
যে ব্যক্তির হারপিস আছে তারা গোসল করার সময় হালকা ক্লিনজার অথবা উষ্ণ গরম পানি ব্যবহার করা উচিত। হারপিসে আক্রান্ত স্থান পরিষ্কার প্রায় সময় রাখতে হবে। আক্রান্ত স্থান থেকে আরামদায়ক রাখার জন্য ঢিলেঢালা ও সুতি কাপড় পরিধান করবেন।

আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন। যদি এই পোস্টটি আপনার ভালো লাগে এবং প্রয়োজনীয় মনে হয় তবে অনুগ্রহ করে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেন না যেন।

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ। এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev