সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ০১:২৫ অপরাহ্ন

জরায়ু ইনফেকশনের কারণ, লক্ষণ, করনীয় কী?

আরোগ্য হোমিও হল / ২৫১ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ সোমবার, ১৮ ডিসেম্বর, ২০২৩, ৬:১৯ অপরাহ্ন
পেলেভিক-ইনফ্ল্যামেটরি-ডিজিজ-পিআইডি-কারণ-লক্ষণ-ও-করনীয়

জরায়ু ইনফেকশনের কারণ, লক্ষণ, করনীয় কী:

আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো জরায়ু ইনফেকশনের কারণ, পেলেভিক ইনফ্ল্যামেটরি ডিজিজ (পিআইডি): কারণ, লক্ষণ ও করনীয় কী? তা নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।

পেলেভিক ইনফ্ল্যামেটরি ডিজিজ (পিআইডি): কারণ, লক্ষণ ও করনীয় : মহিলার প্রজনন অঙ্গ যেমন- ডিম্বাশয়, ফ্যালোপিয়ান টিউব, গর্ভাশয়, সার্ভিক্স, কোষ, ও ভালভা কিছু নির্দিষ্ট রোগের জন্য সংবেদনশীল হয় যা বন্ধ্যাত্বের কারণ হতে পারে । ইনফেকশন, মহিলার শারীরিক ক্ষতি অথা হরমোনাল চক্রবৃদ্ধির নির্দিষ্ট অবস্থার সূত্রপাত হতে পারে। এই ধরনের একটি সমস্যাটি হল পেলভিক ইনফ্ল্যামেটরি ডিজিজ (পিআইডি) বলা হয়। প্রাথমিক পর্যায়ে রোগ নির্ণয় এবং চিকিৎসা করালে দীর্ঘমেয়াদী পরিণতি প্রতিরোধ করতে পারে।

পিআইডি কি:  পিআইডি হল একটি সংক্রমণ রোগ যা গর্ভাশয়, ডিম্বাশয় এবং ফ্যালোপিয়ান টিউবগুলির আক্রান্ত করে। যদি এই সংক্রমণ দীর্ঘদিন ধরে চিকিৎসা না করা হয় তবে এটি প্রভাবিত এলাকায় বাধা সৃষ্টি করে। এছাড়াও এটি আঠালো জিনিস হিসাবে পরিচিত, এই ব্লকের ফলে ফ্যালোপিয়ান টিউবের মধ্যে প্রজননে অক্ষমতা কমে যায়। পিআইডি বিভিন্ন ব্যাকটেরিয়া একটি সংখ্যা দ্বারা সৃষ্ট।।

পেলেভিক ইনফ্ল্যামেটরি ডিজিজের কারণ কী : একটি যৌন মিলনের মাধ্যমে সংক্রমণ (এসটিআই) প্রায়শই পিআইডির কারণে হয় । সংক্রামনটি সার্ভিক্সের মাধ্যমে গর্ভাশয়, ফ্যালোপিয়ান টিউব এবং ডিম্বাশয়গুলিতে ভ্রমণ করতে পারে। আপনার অসুস্থতা অনুভব করতে অথবা উপসর্গগুলি প্রকাশ পেতে কয়েক সপ্তাহ বা মাস সময় লাগতে পারে । এভাবে, একজনকে প্রভাবিত অংশীদারের সাথে যৌন মিলন করার দীর্ঘদিন পরে পিআইডি বিকাশিত হয়। ক্লামিডিয়া বা গনোরিয়া হলো কিছু সাধারণ STI, যা পিআইডি হতে পারে । কিছু কিছু ক্ষেত্রে, পিআইডি কোন এসটিআই দ্বারা সৃষ্ট হয় না । এটি সম্পূর্ণ একটি ভিন্ন ব্যাকটেরিয়া হতে পারে যা ক্ষতিকারক বলে মনে করা হয় ও পিআইডির কারণ হতে পারে । এটি একটি গর্ভনিরোধক কুণ্ডলী ঢোকানো পদ্ধতির পরে বা শিশুর জন্মের পরে ঘটে থাকে ।

পেলেভিক ইনফ্ল্যামেটরি ডিজিজ (পিআইডি) কারণ, লক্ষণ

কোন কোন নারীর পিআইডি হওয়ার সম্ভাবনা বেশি হয়?
যে সব নারীদের ক্লামিডিয়া বা গনোরিয়া রয়েছে তাদের শেষ পর্যন্ত পিআইডি বিকাশের সম্ভাবনা বেশি থাকে । কিন্তু একটি পিআইডি ঘটার ক্ষেত্রে শুধু এসটিআই একমাত্র উপায় নয়। যদি আপনার এই ঝুঁকি এক বা একাধিক কারণ থাকে তবে পিআইডি হওয়ার সম্ভাবনা আরও বেশি তা নিন্ম দেওয়া হলো।
(১) যৌন মিলনের সময় কনডম ব্যবহার না করা।
(২) ২৫ বছরের কম বয়সী মহিলা হলে, ক্ল্যামিডিয়া তরুণদের মধ্যে আরো বেশি দেখা যায়।
(৩) অল্প বয়স থেকে যৌন মিলনে সক্রিয় হলে।
(৪) একাধিক যৌন-অংশীদার থাকলে।
(৫) আপনার বা আপনার সঙ্গীর এসটিআই-এর যদি ইতিহাস থাকে।
(৬) একটি ইন্টারাইউটেরিয়ান গর্ভনিরোধক যন্ত্র লাগানো অথবা একটি ইন্টারাইউটেরিয়ান তদন্ত ঘটলে।
(৭) অনিরাপদ গর্ভপাত করলে।
(৮) সন্তানের জন্মের পর হতে পারে।
(৯) ডিউশন।
(১০) পিআইডি-র একটি ইতিহাস থাকলে।

ঔষধ সম্পর্কে পড়ুন –   এইচ আর – ১৯ (মহিলা বন্ধ্যাত্বের চিকিৎসায় কার্যকর)

পিআইডি–র উপসর্গ ও লক্ষণ কি কি?
কোন লক্ষন অথবা উপসর্গ দেখাতে যাওয়ার আগে সংক্রমণের কারণে ব্যাকটেরিয়া দীর্ঘ সময়ের জন্য আপনার শরীরের মধ্যে উপস্থিত হতে পারে যেমন –
(ক) পেটের অঞ্চলে বা পেলভিসে ব্যথা করে।
(খ) জ্বর বা ঠান্ডা লাগা।
(গ) অস্বাভাবিক গন্ধ, ঘনত্ব, অথবা রঙযুক্ত যোনির তরলের উপস্থিতি দেখা যায়।
(ঘ) যৌন মিলনের পর রক্তপাত হলে।
(ঙ) ক্লান্তি অথবা ঘুম ঘুম ভাব।
(চ) ঘন ঘন মূত্রত্যাগ করা।
(ছ) ক্ষুধা মন্দা।
(জ) মাসিক মিস হওয়া।
(ঝ) বমি বমি ভাব ও বমি হওয়া।
(ঞ) যোনি থেকে অস্বাভাবিক পরিমাণে রক্তপাত যা পিরিয়ডের সময় অথবা দুটি পিরিয়ডের মধ্যে হতে পারে।
যদি আপনি পিআইডি-র চিকিৎসা না করান তবে গর্ভবতী হওয়ায় সমস্যার মতো সমস্যা এবং অজ্ঞান হওয়ার মতো গভীর শোকের লক্ষণ গুলি গুরুতর হয়ে উঠতে পারে। এই লক্ষণগুলি একটি এক্টোপিক গর্ভাবস্থা অথবা অ্যাপেন্ডিসাইটিস-এর মানে হতে পারে ।

ঔষধ সম্পর্কে পড়ুন –  এইচ আর – ২১ (মাসিক সমস্যায় কার্যকর)

কিভাবে ডায়াগনোসিস সম্পন্ন হয়?
আপনার যদি পিআইডির কোন উপসর্গ থাকে অথবা অন্য কারণগুলি আপনার সন্দেহের কারণ হয়, যে আপনার পিআইডি থাকতে পারে, তবে আপনার চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ করুন। আপনার লক্ষণগুলি যদি হালকা হয়, তবে এটি PID-এর নির্ণয়ের জন্য একটু বেশি সময় নিতে পারে। নিম্নলিখিত গুলি আপনার চিকিৎসকে এটি নির্ণয়ে পৌঁছাতে সাহায্য করতে পারে :
(১) একটি এক্টোপিক গর্ভাবস্থার সম্ভাবনা বাতিল করতে প্রথমে একটি গর্ভাবস্থা পরীক্ষা করতে হবে ।
(২) সার্ভিক্স এবং গর্ভাশয়ে কোন ব্যাকটেরিয়া আছে কিনা পরীক্ষা করতে হবে।
(৩) এছাড়াও রক্ত ও প্রস্রাব পরীক্ষায় ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণের কোন উপস্থতি আছে কিনা পরিক্ষা করাতে হবে।
(৪) যদি এই ফলাফলগুলি PID-এর নিশ্চিত নির্ণয়ের কোনো প্রমাণ সরবরাহ না করে তবে আপনার চিকিৎসক একটি আল্ট্রাসাউন্ড স্ক্যানের সুপারিশ করতে পারেন কারণ আল্ট্রাসাউন্ড স্ক্যানের ফ্যালোপিয়ান টিউবগুলির প্রদাহ সনাক্ত করতে সহায়তা করতে পারে ।
(৫) আপনার চিকিৎসক আপনার পেটের গহ্বরের ভিতরে ঘনিষ্ঠভাবে নজর দেওয়ার প্রয়োজন হলে, একটি ল্যাপরোস্কপির প্রয়োজন হতে পারে ।

ঔষধ সম্পর্কে পড়ুন –  এইচ আর – ৭৯ (মাসিকের আগে উপসর্গে কার্যকর)

ক্ষতি বিশ্লেষণ : একবার পিআইডি রোগ নির্ণয় করার পরেও যদি আপনার পেলভিক এলাকায় ক্ষতির পরিমাণ নির্ধারণ করতে আপনার চিকিৎসক আরও পরীক্ষা করার পরামর্শ দিতে পারেন । আপনার অন্যান্য প্রজনন অঙ্গের ক্ষতি থাকতে পারে কারণ ফেলোপিয়ান টিউব ক্ষতপ্রবণ হয় । একটি পেলভিক আল্ট্রাসাউন্ড, এন্ডোমেট্রিয়াল বায়োপসি ও ল্যাপারোসকপি হলো কিছু অতিরিক্ত পরীক্ষা ও পদ্ধতি যা করতে হতে পারে ।

কিভাবে PID প্রতিরোধ করবেন : আপনার সম্পূর্ণরূপে PID এড়ানোর একমাত্র উপায় হল একাধিক নারী বা পুরুষ সাথে যৌন মিলন থেকে বিরত থাকা।, যেহেতু যৌনসঙ্গম সংক্রমণ প্রেরণ করতে পারে, পর্যাপ্ত সতর্কতাগুলি গ্রহণ করলে কিছুটা ঝুঁকি কমতে পারেন। আপনাকে যৌন অংশীদারদের সংখ্যা সীমাবদ্ধ করা এবং যৌন মিলনের সময় কনডম ব্যবহার করা এটি একটি অত্যন্ত কার্যকরী উপায়। নিয়মিত এসটিআই পরীক্ষা করে নিশ্চিত করুন, যদি আপনার একাধিক যৌন-অংশীদার থাকে। ডিউশন এড়ান এবং বাথরুম ব্যবহার করার পর পিছন থেকে সামনের দিকে মুছবেন না ।

ঔষধ সম্পর্কে পড়ুন –  কেন্ট ৪৫ (বাধক বেদনায় কার্যকর) 

পিআইডি–এর মধ্যে ঘটতে পারে এমন সম্ভাব্য কিছু জটিলতা :
পিআইডি যদি প্রাথমিকভাবে সনাক্ত হয় তবে ওষুধের দ্বারা চিকিৎসা হলে কোন জটিলতা নেই । পিআইডির গুরুতর ক্ষেত্রে, নিম্নলিখিত জটিলতাগুলির সম্ভবনা থাকে যেমন –
(ক) পিআইডি দ্বারা সৃষ্ট ফ্যালোপিয়ান টিউবের ক্ষতির ফলে গর্ভবতী হওয়ায় অসুবিধা। পিআইডির জন্য চিকিৎসা করার পর গর্ভবতী হতে গেলে, একটি এক্টোপিক গর্ভাবস্থার সম্ভাবনা ১০ জনের মধ্যে ১ জন থাকে যা একটি উচ্চ সম্ভাবনা ।
(খ) ফ্যালোপিয়ান টিউবে ক্ষতি কারণে, এক্টোপিক গর্ভাবস্থার বৃহত্তর ঝুঁকি।
(গ) গর্ভাবস্থার জটিলতা যেমন- গর্ভপাত, অকাল প্রসব, ও মৃত সন্তান প্রসব হওয়ার সম্ভাবনা খুব বেশি থাকে ।
(ঘ) অবিরত ব্যথা এবং সহবাসের সমযও় ব্যথা ।
(ঙ) রেইটার সিন্ড্রোমের সংক্রমণের সম্ভাবনা বেশি যা আর্থথ্রিটিস এবং চোখের প্রদাহ হয়।
(চ) পিআইডি-এর গুরুতর ক্ষেত্রে গর্ভাশয়ের কাছাকাছি অংশ ফুলে যায় অথবা ফোঁড়া হয় ।

কখন চিকিৎসকের সাথে যোগাযোগ করবেন? হালকা ও মাঝারি মাত্রার মাঝখানে ব্যথা কোথাও হতে পারে এবং যদি সংক্রমণ রক্তপ্রবাহ আপনার শরীরের অন্যান্য অংশে ছড়িয়ে পড়ে তবে এটি খুব দ্রুত জীবনহানীকর পরিস্থিতি হতে পারে। এই ধরণে গুরুতর উপসর্গগুলি দেখে, আপনি আপনার চিকিৎসকের সঙ্গে অবিলম্বে যোগাযোগ করুন। যদি আপনি যদি অনুভব করেন এসটিআই সংক্রামিত হয়েছেন বা কোনও এসটিআইয়ের জন্য চলমান চিকিৎসাটি কার্যকর হচ্ছে না বলে মনে হয় তবে আপনাকে চেক-আপের জন্য চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে ।

ঔষধ সম্পর্কে পড়ুন –  এন – ১০ (অনিয়মিত সাসিকের ড্রপস)

আপনার সঙ্গীর কি চিকিত্সা করা প্রয়োজন রয়েছে : হ্যাঁ, গত ৬ মাসে আপনার সঙ্গী বা অংশীদার যাদের সাথে আপনার যৌন সম্পর্ক ছিল তাদের সংক্রমণ নির্ণয় ও চিকিৎসার জন্য অবশ্যই পরীক্ষা করা উচিত। যদি আপনার সঙ্গীর সংক্রমণের পরীক্ষা নেতিবাচক ফলাফল দেয় তবে আপনার সঙ্গীর জন্য এটি ঔষধ খাওয়ার পরামর্শ দিতে পারে। কারণ ক্লামিডিয়া বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই PID -এর কারণ এবং এটি যৌন মিলনের মাধ্যেমেই হয়ে থাকে। তবে পুরুষদের ক্ল্যামিডিয়ার কোনো উপসর্গ দেখা দেয় না তবে যৌন মিলনের সময় সংক্রমণ পাস করে। যদি আপনার যৌন সঙ্গীর সংক্রমণ ঘটে তবে আপনার পরীক্ষা-নীরিক্ষা মাধ্যমে চিকিৎসা করানো দরকার।

এটা কি আবার ঘটতে পারে? দেখা গেছে প্রায় পাঁচজনের মধ্যে একজন মহিলা প্রথমবারের প্রায় ২ বছরের মধ্যে আবার পিআইডিতে সংক্রামিত হয়েছেন । আপনার সঙ্গীকে চিকিৎসা করার ব্যর্থতা, কনডম ব্যবহার করে নিরাপদ যৌন মিলনে অভ্যাসে ব্যর্থতা, ওষুধের কোর্স সম্পন্ন করার ব্যর্থতা, আপনার শরীরের মধ্যে থাকা সংক্রমণের আবার জেগে উঠতে পারে । পিআইডি-র ক্ষতি হিসাবে কিছু মহিলাদের পুনরায় সংক্রমণ আরও দুর্বল করতে পারে । পিআইডি একটি সাধারণ অবস্থা যা অনেক নারীর অভিজ্ঞতা হয় এবং প্রায় সবাি পুরোপুরি পুনরুদ্ধার করেছেন । পিআইডি থাকা প্রায় ১০% থেকে ১৫% নারী গর্ভবতী হতে অসুবিধা হতে পারে ও অন্যান্য সংক্রামক গর্ভধারণ থাকতে পারে । এই সংক্রমণের ফলে দীর্ঘস্থায়ী পেলেভিক ব্যথার বিকাশিত হতে পারে। কিন্তু সংক্রমণের চিকিৎসা না করাইলে বিপজ্জনক হতে পারে। এমনকি রক্তে ছড়িয়ে পড়লেও জীবন সংকটের সম্মুখীন হতে পারেন।

দাবি পরিত্যাগী: এই তথ্য একটি উপদেষ্টা মাত্র এবং একটি যোগ্যতা সম্পন্ন চিকিৎসার পরামর্শের একটি বিকল্প নয় ।আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন। যদি এই পোস্টটি আপনার ভালো লাগে এবং প্রয়োজনীয় মনে হয় তবে অনুগ্রহ করে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেন না যেন।

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ। এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev