সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:১৯ অপরাহ্ন

 ক্যালকেরিয়া সালফিউরিকা

আরোগ্য হোমিও হল / ১৪৯ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ রবিবার, ১৩ নভেম্বর, ২০২২, ৬:৪৯ পূর্বাহ্ন

ক্যালকেরিয়া সালফিউরিকা (Calcaria Sulphurica)

সাধারণ নাম – জিপসাম, প্লাষ্টার অব প্যারিস

ভিন্ন রাম – ক্যালসিয়াম সালফেট, ক্যালসিয়াই সালফাস, ক্যালসিয়াম সালফেট অব লাইম।

সংক্ষিপ্ত নাম – ক্যাক্ল সালফ (C. S)

ফরমূলা – Ca SO4

ক্যালকেরিয়া সালফ ঔষধটির  ক্রিয়াস্থান : চর্ম, চক্ষু এবং অন্ত্র (Intestime)

ডা: শুসলার যদিও এই ঔষধের পরিবর্তে নেট্রাম ফস ও সাইলিসিয়া ব্যবহার করার জন্য বলিয়াছেন, তথাপি ইহার উপকারীতা দেখিয়া ইহাকে বাদ দেওয়ার কথা চিন্তা করিতে পারি না। এই ঔষধটির ক্রিয়া সমস্ত সিরাস ঝিল্লী, শ্লৈম্মিক ঝিল্লী, সিরাম গহ্বর, সকল স্থানের ক্ষত, এমনকি টিউবারকুলার ক্ষত ইত্যাদির উপর বিশেষ ভাবে দৃষ্ট হয়। ডা: বঞ্জ বলেন, যে এই লবণটি কেবল মাত্র যকৃৎ হইতে নিঃসৃত পিত্ত মধ্যেই দেখা যায়। টিসু মধ্যস্থ অকমন্য পদার্থসমূহকে নি:সৃত পিত্ত মধ্যেই দেখা যায়। টিসু মধ্যস্থ অকর্মন্য পদার্থ সমূহকে নি:সৃত করিয়া দেওয়াই ইহার কাজ। যকৃৎ মধ্যস্থ অকর্মন্য রক্তের কেবলামাত্র জলীয়াংশ গ্রহণ করিয়াই তাহাকে দূরীভূত করে, তাই শরীরের স্বাভাবিক অবস্থার কোন পরিবর্তন লক্ষিত হয় না। কিন্ত যদি কোন কারণে পিত্তে ক্যাল্ক সালফের অভাব হয়, তাহা হইলে অপ্রয়োজনীয় রক্ত নি:সৃত হইতে না পারিয়া, চর্ম ও শ্লৈম্মিক ঝিল্লী পথে আসিয়া বিবিধ রোগের সৃষ্টি হয়। ইহার সেবন দ্বারা অভাবের পূরণ করিলে দেখা যায় যে, টিস্যু মধ্যে অকার্য্যকরী পদার্থ সমূহ সঞ্চিত হইয়া চর্মোপরি যে স্থান সমূহে স্ফীতি ও অবিরত পূঁজ নি:সৃত হইতেছিল, তাহা শীঘ্রেই স্বাভাবিক অবস্থায় পরিণত হয়। এই জন্য যে স্থান দিয়া বহুদিন হইতে পূঁজ নিঃসৃত হইতে থাকে, কিছুতেই পূঁজ বন্ধ হয় না, সেই সকল ক্ষেত্রে ইহা মন্ত্র শক্তির ন্যায় কার্য্য করিয়া থাকে। এই ঔষধ প্রয়োগে অত্যল্পকাল মধ্যেই ঐ প্রকার ক্ষত শুস্ক হইয়া যায়। কোন প্রদাহের প্রারম্ভাবস্থায় ইহার ব্যবহার দৃষ্ট হয় না। নাসিকার সর্দ্দি, ফুসফুসের সর্দ্দি, অন্ত্রস্থ সর্দ্দি ইত্যাদি সকল প্রকার সর্দ্দি তৃতীয়বস্থায় ইহা ব্যবহৃত হয়। সর্ব প্রকার ক্ষতের তৃতীয়য়াবস্থায় ইহা কার্য্যকরী।

ডা: ক্যারে  বলেন, অন্য লাবণিক পদার্থের অভাব হইলেও যদিও পূঁজোৎপত্তি হইয়া থাকে, তথাপি ইহার অভাব না হইলে যথার্থরুপে পূঁজোৎপত্তি হয় না। কারণ শরীরে এই লাবণিক পদার্থ আবশ্যক মত থাকিলে কখনই পূজোৎপত্তি হইতে পারে না এই লাবণিক পদার্থসহ অন্য লাবণিক পদার্থের অভাব হইলেই তখন পূঁজের অবস্থা তদনুযায়ী বিকৃত হয়। যেমন ইহার সহিত নেট্রাম মিউরের অভাব বা ন্যুনতা দেথা দিলে পূঁজ তরল ক্যাক্লেরিয়া ফস এর অভাব হইলে পূঁজ সৌত্রিক অবস্থাপন্ন হয়। সুতরাং চিকিৎসা কালে ইহার সহিত অন্য যে ঔষধের ক্রিয়া দৃষ্টি হইবে, অনেক সময় সেই ঔষধই ইহার সহিত পর্য্যায়ক্রমে ব্যবহারের প্রয়োজন হইয়া পড়ে।

ক্যালকেরিয়া সালফ ঔষধটির  বিশেষত্ব : যে কোন নামের রোগই কোন না কেন এবং যে কোন স্থান হইতেই উহা নির্গত হোক না কেন, যদি হরিদ্রা বর্ণের গাঢ় পূঁজবৎ অথবা রক্তের ছিটযুক্ত পূঁজ স্রাব নির্গত হয় এবং ঐ স্রাবে যদি বহু দিন হইতে নিঃসৃত হইবার ইতিহাস পাওয়া য়ায় তাহা হইলে ক্যাক্লেরিয়া সালফ প্রয়োগ করিলে আশ্চর্য্যজনক ফল পাওয়া যায়। ইহা সর্ব প্রকার পীড়ায় তৃতীয়াবস্থায় ব্যবহৃত হয়।

ক্যালকেরিয়া সালফ ঔষধটির  পরিচায়ক লক্ষাবলী :

১/ মানসিক অবস্থার পরিবর্তনশীলতা। মনঃস্থির করিয়া কোন কার্যই করিতে পারে না। স্মরণশক্তির হ্রাস।

২/ ঠাণ্ডা লগিয়া শিরঃপীড়া এবং উন্মুক্ত বায়ুতে তাহার উপশ্রম।

৩/ বালিকাদিগের মস্তকের ক্ষত হরিদ্রবর্ণের গাঢ় পূঁজ, কিংবা হরিদ্রবর্ণের মামড়ী পড়ে।

৪/ মস্তকের অতিশয় খুসকি জন্মে।

৫/ যে কোন স্থানের এবং যে কোন, তাহাতে হরিদ্রাবর্ণের গাঢ় পূঁজ, থাকিলে ইহা নিম্ফল হয় না। যে সমস্ত ক্ষত হইতে বহুদিন ধরিয়া পূর্বোক্ত প্রকার পূঁজ নিঃসৃত হয়, কিছুতেই ক্ষতস্থান শুস্ক হইতে চাহে না, তাহাতে ইহা অব্যর্থ।

৬/ সর্দ্দি, কাশি, নিউমোনিয়া, ব্রঙ্কাইটিস, ক্ষয়কাশ, স্ফোটক, ক্ষত, কর্ণপীড়া, চক্ষুপীড়া, ফিশ্চুলা ইত্যাদি যাবতীয় ব্রাবশীল পীড়ার তৃতীয়য়বস্থায় ইহার ৫ম সংখ্যক লক্ষণে ক্ষতস্থান শুস্ক হইতে চাহে না, তাহাতে ইহা অব্যর্থ।

৭/ ইহার স্রাবের সহিত সাইলিসিয়ার স্রাবের সাদৃশ্য আছে, তাবে সাইলিসিয়ার স্রাবে অতিশয় দুর্গন্ধ থাকে, আর ইহার স্রাবে দুর্গন্ধ থাকে না।

৮/ কোন স্থানের স্ফীতি, যেমন স্ফোটক ইত্যাদিতে ইহার দ্বিবিধ ক্রিয়া দৃষ্ট হয়। ক্যাল্কেরিয়া সালফ কোন স্থানের পূঁজ নিঃসরণ বন্ধ করিতে যেমন অদ্বিতীয়, আবার পূঁজোৎপত্তির পূর্বে প্রদত্ত হইলে পূঁজোৎপত্তি নিবারণ করে। পূঁজোৎপত্তি নিবারণ করিতে হইলে প্রায়ই প্রথমবস্থায় ফেরাম ফস অথবা দ্বিতীয়বস্থায় কেলি মিউরের সহিত পর্যায়ক্রমে দিবার প্রয়োজন হয়।

৯/ কোন গভীর স্থানে পূঁজোৎপত্তি হওয়া।

১০/ জানুসন্ধিতে সূচীবিদ্ধবৎ বেদনা এবং স্পর্শাসহিষ্ণুতা। পুজোৎপত্তির পূর্বে ফেরাম ফস সহ পর্যায়ক্রমে।

১১/ কোন জিনিষের অর্ধাংশ মাত্র দেখা।

১২/ উদরাময় ও রক্তমাশেয়ে পূঁজবৎ, পূঁজের সহিত রক্তসংযুক্ত ও পূঁজসংযুক্ত শ্লেম্মা থাকিলে উৎকৃষ্ট। পাকাশয়ের ক্ষত, টাইফয়েড, টাইফাস ইত্যাদি পীড়ায় পূর্বোক্তরুপ মল থাকিলে।

১৩/ ঋতুস্রাব অতিশয় বিলম্বে হয় এবং বহুদিন পর্যন্ত থাকে।

১৪/ জিহ্বায় কর্দমবৎ ময়লা। জিহ্বার আস্বাদ সাবানের ন্যায় তীক্ষ্ণ।

১৫/ আর্দ্রতায় বৃদ্ধি এবং শুস্কতায় হ্রাস। উন্মুক্ত বায়ুতে রোগী আরাম বোধ করে।

ক্যালকেরিয়া সালফ ঔষধটির  হ্রাস -বৃদ্ধি :

বৃদ্ধি : জলে কার্য্য করিবার পর বা জলে ধৈাত হইবার পর, জলে থাকিলে বা জল অগিলে। ঠান্ডা লাগিলে, ঋুত পরিবর্তনকালে লক্ষণ সমূহের বৃদ্ধি হয়।

হ্রাস : শুস্ক উত্তপ্ত বায়ু দ্বারা এই ঔষধের কার্য্যর সহাযতা করে। উন্মুক্ত বায়ুতে রোগী আরাম বোধ করে।

ক্যালকেরিয়া সালফ ঔষধটি বিশেষ বিশেষ রোগে ব্যবহার :

কর্ণিয়ার ক্ষত, কাশি, জলপূর্ণ অর্বুদ ,শোথ, পুরাতন ও তরুণ রক্তমশায়, একজিমা, ফিশ্চুলা, পুরাতন গ্রন্থি স্ফীতি, স্ফোটক, গুহ্যদ্বারের গণেরিয়া, রক্তস্রাব, আঘাত জনিত ক্ষত, পলিপাস, স্কার্লেটিনা, স্পর্ষ্মাটেরিয়া, উপদংশ। টনসিলাইটিসের তৃতীয়াবস্থা, দন্তমাড়ির ক্ষত, বৃদ্ধবস্থায় নিউর‌্যালজিয়া, টাইফয়েড জ্বরের উদরাময়, অর্ব্বুদ ক্ষত, শিশুদের মস্তকে ক্ষত, যকৃত স্ফোটক, সর্দ্দির তৃতীয়াবস্থা, টনসিলের পূজোৎপত্তি, চিলপ্লেন, বরফ বা তৎসদৃশ, শীতলদ্রব্য স্পর্শে ক্ষত প্রভৃতিতে ইহা ব্যবহৃত হয়।

ক্যালকেরিয়া সালফ ঔষধটির  শক্তি ব্যবহার : ডা: সুসলার এই ঔষধকে 6X শক্তিতে ব্যবহার করিতে বলেন, কিন্ত ডা: বোরিক ও ডিউই বলে 6X এবং 12X চুর্ণই সবিশেষ উপকারী। ডা: চ্যাপম্যান ও ডা: ক্যারে বলেন 3X হইতে 200X শক্তি পর্য্যন্ত ইহা ব্যবহার করিলে ভাল ফল পাওয়া যায়। বৃদ্ধদের স্নায়ুশূল পীড়ায় 12X এবং তাহাদের স্নায়ু যদি সহজেই উত্তেজিত হয়, তাহা হইলে 30X, 60X, পূঁজোৎপত্তি বন্ধ করিতে 200X, তীক্ষ্ণ উত্তেজক দ্রব্য পানের ইচ্ছা স্ফোটক 30X, সাধারণ স্ফোটকে 2X শক্তি ব্যবহারের উপদেশ দেন।

ক্যালকেরিয়া সালফ ঔষধটির সেবন বিধি : প্রাপ্ত বয়স্কারা ৫টি করে ট্যাবলেট দিনে ৩ অথবা ৪ বার। অপ্রাপ্ত বয়স্করা ৩টি করে ট্যাবলেট দিনে ৩ অথবা ৪ বার কুসুম কুসম গরম পানির সহিত সেবন করতে হবে অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেনব করুন।

সমাপ্ত

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : এ ওয়েব সাইটের মুল উদ্দেশ্যে হচ্ছে স্বাস্থ্য সম্পের্ক কিছু দান করা বা তুলে ধরা। সাধারণ মনুষের উপকার হবে। বিশেষ করে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক ও ছাত্ররা উপকৃত হবেন। এ ওয়েব সাইটে থাকছে পুরুষ স্বাস্থ্য বা যৌনস্বাস্থ্য, গাইনি স্বাস্থ্য, শিশুস্বাস্থ্য, মাদার টিংচার, সিরাপ, বম্বিনেশন ঔষধ, বাইকেমিক ঔষধ, হোমিওপ্যাথিক বই, ইউনানি, হামদর্দ, হারবাল, ভেজষ, স্বাস্থ্য কথা ইত্যাদি। এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev