শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:০৬ অপরাহ্ন

এইচ আর – ৭০-৭১-৭২ (জরায়ু ফাইব্রয়েডের চিকিৎসায় কার্যকর)

আরোগ্য হোমিও হল / ৮০ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ রবিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২৩, ২:২১ অপরাহ্ন

এইচ আর – ৭০-৭১-৭২ (জরায়ু ফাইব্রয়েডের চিকিৎসায় কার্যকর)

ক্যাটাগরি : কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথিক ঔষধ, পাকিস্তান।

প্রস্তত প্রণালী : এইচআর মাসুদ/হোমিওপ্যাথিক ফার্মাকোপিয়া অনুযায়ী প্রস্তুত।
ব্যবহার : এইচ আর – ৭২ ঔষধ জরায়ুর ফাইব্রয়েডের চিকিৎসার জন্য অত্যান্ত কার্যকরী।

ব্যবহার : এইচ আর – ৭২ ঔষধের বর্ণনা :

ক/ এইচ আর – ৭০ জরায়ুর ফাইব্রয়েডের চিকিৎসার জন্য কার্যকর।

খ/ ফাইব্রয়েডের কারণে জরায়ু ভারী, রক্তক্ষরণে নির্দেশিত।

গ/ তলপেটে চাপ এবং ভারী হওয়ার উপসর্গ কমায়।

ঘ/ রক্তশূন্যতা, অলসতা ও ডিসমেনোরিয়ার জন্য সহায়ক।

ঙ/ প্রস্রাব বা প্রসবের সময় অস্বস্তি হ্রাস করে।

চ/ এছাড়াও জরায়ু ফাইব্রয়েডের পুনরাবৃত্তি প্রতিরোধ করে।

এইচ আর – ৭২ ঔষধের ভূমিকা: জরায়ু ফাইব্রয়েড: জরায়ু ফাইব্রয়েড হলো পেশীবহুল টিউমার যা জরায়ুর দেয়ালে (গর্ভাশয়) বৃদ্ধি পায়। ফাইব্রয়েডের আরেকটি চিকিৎসা শব্দ হলো লিওমায়োমা বা শুধু “মায়োমা”। ফাইব্রয়েড প্রায় সবসময়ই (ক্যান্সারযুক্ত নয়)। ফাইব্রয়েড একটি একক টিউমার হিসাবে বৃদ্ধি পেতে পারে, বা জরায়ুতে টিউমার অনেকগুলি থাকতে পারে। এ টিউমার গুলো আপেলের বীজের মতো ছোট বা আঙ্গুরের মতো বড় হতে পারে। অস্বাভাবিক ক্ষেত্রে তারা খুব বড়ও হতে পারে।

আরও জানুন – কেন্ট ৪৬ (অতিরজঃস্রাব রোগে কার্যকর)

জরায়ু ফাইব্রয়েড টিউমারের প্রকার: ফাইব্রয়েডের ধরনটি জরায়ুতে বা তার অবস্থানের উপর নির্ভর করে থাকে।
সাবসারোসাল ফাইব্রয়েড : সাবসারোসাল ফাইব্রয়েড টিউমার গুলি জরায়ুর বাইরের দিকে তৈরি হয়, যাহাকে সেরোসা বলা হয়। গর্ভাশয়কে একদিকে বড় দেখাতে তারা যথেষ্ট বড় হতে পারে বা নাও হতে পারে।

আরও জানুন –এন – ১০ (অনিয়মিত সাসিকের ড্রপস)

পেডুনকুলেটেড ফাইব্রয়েড টিউমার : সাবসারোসাল টিউমারগুলি একটি স্টেম তৈরি করতে পারে, একটি পাতলা বেস যা টিউমারকে সমর্থন করে। এ ধরণে টিউমার গুলি পেডানকুলেটেড ফাইব্রয়েড হিসাবে পরিচিত।

সাবমিউকোসাল ফাইব্রয়েড টিউমার : এই ধরনের টিউমার জরায়ুর মধ্যম পেশী স্তর বা মায়োমেট্রিয়ামে বিকশিত হয়ে থাকে। সাবমিউকোসাল টিউমার অন্যান্য প্রকারের মতো সাধারণ টিউমার নয়।

জরায়ু ফাইব্রয়েড টিউমারের কারণসমূহ :
যদিও এর সঠিক কারণগুলি অজানা, গবেষণা প্রমাণ গুলি পরামর্শ দেয় যে এই কারণগুলির যে কোনও এবং সমস্ত জরায়ু ফাইব্রয়েডের বৃদ্ধিতে ভূমিকা পালন করে থাকে ।
এছাড়াও যে সব করণে হতে পারে যেমন –
১/ জেনেটিক্স  কারণ।

২/ বৃদ্ধির হরমোন।

৩/ ইস্ট্রোজেন এবং প্রোজেস্টেরন।

৪/ লৌহের মতো মাইক্রোনিউট্রিয়েন্ট যা শরীরের রক্তে অল্প পরিমাণে প্রয়োজন হয়। উদাহরণস্বরূপ, ভিটামিন ডি এর অভাব জরায়ু ফাইব্রয়েডের সাথে যুক্ত হতে পারে।

৫/ প্রধান চাপ।

আরও জানুন –র‌্যাক্স নং- ১৭ (টিউমার)

জরায়ু ফাইব্রয়েড টিউমারের লক্ষণ :

ক/ প্রচুর রক্তপাত বা বেদনাদায়ক পিরিয়ড।

খ/ পিরিয়ডের মধ্যে রক্তপাত।

গ/ নিম্ন পেটে চাপ অনুভব, ব্যথা বা পূর্ণতা।

ঘ/ বর্ধিত পেট ও জরায়ু।

ঙ/ কোষ্ঠকাঠিন্য।

চ/ ঘন ঘন প্রস্রাব হয় বা মূত্রাশয় খালি করতে সমস্যা হয়।

ছ/ সহবাসের সময় ব্যথা করে।

জ/ গর্ভপাত বা বন্ধ্যাত্ব।

জরায়ু ফাইব্রয়েড টিউমারের ইঙ্গিত: জরায়ু ফাইব্রয়েড হলো সৌম্য টিউমার যা সাধরণত জরায়ুতে তৈরি হয়। জরায়ু ফাইব্রয়েডে আক্রান্ত বেশির ভাগ মহিলাই এ লক্ষণ গুলি দেখা যায়। তবে ফাইব্রয়েডগুলি জরায়ুর মধ্যে তাদের আকারের অবস্থানের উপর নির্ভর করে বেশ কয়েকটি লক্ষণ দেখা যায়। জরায়ু ফাইব্রয়েডের সাধারণ লক্ষণ ও উপসর্গ হলো চাপ, শ্রোণীতে ব্যথা, ঘন ঘন প্রস্রাবের সাথে মূত্রাশয়ের উপর চাপ বা এমনকি বাধাগ্রস্ত হয়। বেদনাদায়ক বা কঠিন মলত্যাগের সাথে মলদ্বারে চাপ মাঝে মাঝে বারবার গর্ভপাত হয় ইত্যাদি।

আরও জানুন –র‌্যাক্স নং- ৭৮ (মহিলাদের বন্ধ্যাত্বতা)

ফার্মাকোলজি :
ফাইব্রোমাটাতে জ্যান্থোক্সিলিন রয়েছে। যা একটি প্রধান উপাদান এটির চমৎকার ব্যথা নিয়ন্ত্রণ করে হরমোনের ভারসাম্যকারী চরিত্র এবং যথেষ্ট পরিমাণে আয়রন ও ভিটামিন বি ১২ থাকার কারণে জরায়ু ফাইব্রয়েড গুলিতে সবচেয়ে ভাল কাজ করে থাকে। এটি জীবাণুনাশক হিসাবে সংক্রমণের বিরুদ্ধে এটি শারীরিক প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং ফোড়া, ইরিসিপেলাস, সেপ্টিসেমিয়া, ক্যান্সার, সিফিলিস এবং রক্তের অন্যান্য অমেধ্যের জন্য ব্যবহারিত হয়ে থাকে। এটিতে একটি অ্যাস্ট্রিঞ্জেন্ট এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি, অ্যারোমেটিক, অ্যাস্ট্রিঞ্জেন্ট এবং মূত্রবর্ধক রয়েছে। এটি বিরতিহীন জ্বর, বাত এবং ড্রপসিতে ব্যবহৃত হয়। এর সুনির্দিষ্ট ইঙ্গিত হলো দুর্বল টিস্যু, ভাঙা-ডাউন উপাদান দেরি করে অপসারণ এবং অংশগুলির ধীরগতিতে পুনর্নবীকরণ, শ্লেষ্মা ঝিল্লি, টিউমিড, লাল এবং চকচকে, স্বল্প ক্ষরণ সহ একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রতিকার সিফিলিটিক । এটি জরায়ু টনিক হিসাবে ব্যবহার হয়। এটি মহিলাদের প্রজনন অঙ্গগুলির উপর যথেষ্ট প্রভাব ফেলে। ডিম্বাশয় বা জরায়ুর অ্যাটোনিক অবস্থা, অ্যামেনোরিয়া, ডিসমেনোরিয়া এবং মেনোরেজিয়া এবং শ্লেষ্মা বা পিউরুলেন্ট নিঃসরণ বৃদ্ধি পাওয়া সমস্ত ক্ষেত্রে এটি ব্যবহারিত হতে পারে। এটি জরায়ুর রোগে, জরায়ুর টিউমারে, দ্রুত বৃদ্ধির ক্ষেত্রে এবং জরায়ুর হাইপারট্রফিতে নির্দেশিত হয়, এটি হাইপারট্রফিতে কোষকে প্রভাবিত করে, একটি বর্ধিত অঙ্গের আকার হ্রাস করতে এবং সঠিক অবস্থানের পুনরুদ্ধারে সাহায্য করে।

এইচ আর – ৭০-৭১-৭২ ঔষধ সেবন বিধি : ২০ ফোঁটা ঔষধ একঢোক সমপরিমান পানির সাথে শিশিয়ে প্রতি ৬ ঘন্টা পর পর সেবন করতে হবে। শিশুরা ৫ ফোঁটা ঔষধ একঢোক সমপরিমান পানির সাথে শিশিয়ে প্রতি ৬ ঘন্টা পর পর সেবন করতে হবে। অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করুন।

বিশেষে দ্রষ্টব্য : চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া কোন ঔষধ খাবেন না এতে শারীরিক ও মানুষিক ক্ষতি হতে পারে। ঔষধ সেবনে পুর্বে একজন রেজিষ্টার্ড চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করুণ। লক্ষণগুলি অব্যাহত থাকলে, আপনার চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ করুন।

বিশেষ সর্তকর্তা : গর্ভবতী মহিলারা রেজিষ্টর্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ঔষধ সেবন সম্পন্ন নিষেধ।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : এইচ আর – ৭২ ঔষধ সেবনে কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া জানা নাই।

ঔষধ সংরক্ষণ : সুগন্ধ-দুগন্ধ থেকে দুরে, শীতল ও শুস্ক স্থানে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : এ ওয়েব সাইটের মুল উদ্দেশ্যে হচ্ছে স্বাস্থ্য সম্পের্ক কিছু দান করা বা তুলে ধরা। সাধারণ মনুষের উপকার হবে। বিশেষ করে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক ও ছাত্ররা উপকৃত হবেন। এ ওয়েব সাইটে থাকছে পুরুষ স্বাস্থ্য বা যৌনস্বাস্থ্য, গাইনি স্বাস্থ্য, শিশুস্বাস্থ্য, মাদার টিংচার, সিরাপ, বম্বিনেশন ঔষধ, বাইকেমিক ঔষধ, হোমিওপ্যাথিক বই, ইউনানি, হামদর্দ, হারবাল, ভেজষ, স্বাস্থ্য কথা ইত্যাদি। এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev