সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ০১:১৭ অপরাহ্ন

এইচ আর – ৫৫ (মৃগী রোগের কার্যকর)

আরোগ্য হোমিও হল / ৬৪ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ মঙ্গলবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২৩, ৪:৫৯ অপরাহ্ন

এইচ আর – ৫৫ (মৃগী রোগের কার্যকর)

ক্যাটাগরি : কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথিক ঔষধ, পাকিস্তান।

প্রস্তত প্রণালী : এইচআর মাসুদ/হোমিওপ্যাথিক ফার্মাকোপিয়া অনুযায়ী প্রস্তুত।

ব্যবহার : এইচ আর – ৫৫ মৃগী রোগের চিকিৎসায় ব্যহার করা হয়।

এইচ আর – ৫৫ বর্ণনা :
ক/ এইচ আর – ৫৫ হল মৃগীরোগ বা এর সঙ্গে সম্পর্কিত লক্ষণগুলির জন্য সর্বোত্তম প্রতিকার হিসাবে কাজ করে।

খ/ স্নায়বিক বিপর্যয়ের কারণে খিঁচুনিতে কার্যকরী।

গ/ পেশী প্রসারিত এবং দুর্বলতায় অত্যান্ত কার্যকরী।

ঘ/ বমি বমি ভাব, ভার্টিগো এবং শ্বাসরোধে সহায়ক হিসাবে ব্যবহার হয়।।

ঙ/ এটি নিদ্রাহীনতা, হস্তমৈথুন এবং বিরক্তিকরতাও নিয়ন্ত্রণ করে।

এইচ আর – ৫৫ ভূমিকা :

মৃগীরোগ : মৃগী রোগ এমন একটি রোগ যে একজন ব্যক্তির বারবার খিঁচুনিতে আক্রান্ত হয়। খিঁচুনিকে মস্তিষ্কের স্নায়ু কোষের অস্বাভাবিক, উচ্ছৃঙ্খলভাবে নিঃসরণ হিসাবে সংজ্ঞায়িত হয়। ফলে সংবেদনশীল বা মানসিক ক্রিয়াকলাপের অস্থায়ী ব্যাঘাত ঘটে।দুটি প্রধান ধরনের খিঁচুনি হয়ে থাকে।

১/ ফোকাল খিঁচুনি : মস্তিষ্কের একটি নির্দিষ্ট অংশে শুরু হয় এবং তাদের নামগুলি যে অংশে ঘটে তার উপর ভিত্তি করে থাকে। তারা শারীরিক এবং মানসিক উভয় প্রভাব সৃষ্টি করতে পারে। আপনাকে অনুভব করতে, দেখতে বা শুনতে পেতে পায়।

২/ সাধারণ খিঁচুনি : এ খিঁচুনি যখন ঘটে মস্তিষ্কের উভয় দিকের স্নায়ু কোষগুলি বিকৃত হয়ে যায়, যা পেশীতে খিঁচুনিতে কালো হয়ে যায় বা পড়ে যায় ।

আরও পড়ুন – কেন্ট ৫৫ (মৃগী রোগে কার্যকর)

ছয় ধরনের সাধারণ খিঁচুনি রয়েছে যেমন :

ক/ টনিক-ক্লোনিক খিঁচুনি : এ খিঁচুনি গুলো সবচেয়ে বেশি লক্ষণীয়। আপনার যখন এই ধরনের হয়, আপনার শরীর শক্ত হয়ে যায়, ঝাঁকুনি দেয় এবং কাঁপতে থাকে। এসময় আপনি জ্ঞান হারাবেন। কখনও কখনও আপনার মূত্রাশয় বা অন্ত্রের নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলে। এ লক্ষনগুলি সাধারণত ১ থেকে ৩ মিনিট স্থায়ী হয়।

খ/ ক্লোনিক খিঁচুনি : পেশীতে খিঁচুনি আছে, যা আপনার মুখ, ঘাড় এবং বাহুর পেশীগুলিকে ছন্দময় ভাবে ঝাঁকুনি দেয়। এ লক্ষণ কয়েক মিনিট স্থায়ী হতে পারে।

গ/ টনিক খিঁচুনি : বাহু, পা বা ট্রাঙ্কের পেশীগুলি উত্তেজনাপূর্ণ। এ সমস্যা গুলি সাধারণত ২০ সেকেন্ডেরও কম স্থায়ী হয় এবং আপনি যখন ঘুমিয়ে থাকেন তখন প্রায়শই এ ঘটে।

ঘ/ অ্যাটোনিক খিঁচুনি : পেশীগুলি হঠাৎ করে নিস্তেজ হয়ে যায় এবং কাাজ করে না এবং মাথা সামনের দিকে ঝুঁকে যেতে পারে, যদি ওই ব্যক্তি কিছু ধরে রাখে তবে তা ফেলে দিতে পারে। এ সমস্যা সাধারণত ১৫ সেকেন্ডের কম স্থায়ী হয়।

ঙ/ মায়োাক্লোনিক খিঁচুনি : পেশীগুলি হঠাৎ এমন ভাবে ঝাঁকুনি দেয় মনে হয় যেন অন্য ব্যক্তি ধাক্কা দিচ্ছে। এগুলি অ্যাটোনিক খিঁচুনি হিসাবে মস্তিষ্কের একই অংশে শুরু হয়। কিছু লোকের মায়োক্লোনিক এবং অ্যাটোনিক উভয় খিঁচুনি রয়েছে।

অনুপস্থিতি (বা সামান্য মাল) খিঁচুনি : এই ধরনের ব্যক্তি হঠাৎ করে ফাঁকা ভাবে মহাশূন্যের দিকে তাকিয়ে থাকে। চোখ মাথার দিকে ফিরে যেতে পারে। এসমস্যা গুলি সাধারণত কয়েক সেকেন্ড স্থায়ী হয়। ১৪ বছরের কম বয়সী শিশুদের মধ্যে সবচেয়ে সাধারণ বেশি দেখা যায়।

আরও পড়ুন –  র‌্যাক্স নং- ১ (সংক্রমণ এবং প্রদাহ)

এইচ আর – ৫৫ সাধারণ কারণ গুলি নিন্মরুপ :

১/ ঘা সংক্রান্ত মস্তিষ্কের আঘাত হতে।

২/ গুরুতর অসুস্থতা বা খুব বেশি জ্বর হলে।

৩/ স্ট্রোক করলে।

৪/ মস্তিষ্কে অক্সিজেনের অভাব দেখা দিলে।

৫/ ব্রেন টিউমার বা সিস্ট হলে।

৬/ আলঝেইমার রোগ থাকলে।

৭/ মাতৃ ওষুধ ব্যবহার বা জন্মপূর্ব আঘাত লাগলে।

৮/ সংক্রামক বা মেনিনজাইটিস রোগে আক্রান্ত থাকলে।

আরও পড়ুন –  র‌্যাক্স নং- ৫৬ (আমাশয়)

এইচ আর – ৫৫ খিঁচুনি যে কোনো প্রক্রিয়া মস্তিষ্কের স্থানাঙ্ককে প্রভাবিত করে। খিঁচুনি লক্ষণ :

ক/ সাময়িক বিভ্রান্তি হলে।

খ/ একটি অপলক মন্ত্র।

গ/ হাত ও পায়ের অনিয়ন্ত্রিত ঝাঁকুনি চলাচল করলে।

ঘ/ চেতনা বা সচেতনতা হারালে।

ঙ/ মানসিক লক্ষণ যেমন – ভয়, উদ্বেগ।

বিশেষ করে খিঁচুনি প্রকারের উপর নির্ভর করে লক্ষণগুলি পরিবর্তিত হতে পারে। বেশি ভাগ ক্ষেত্রে, মৃগীরোগে আক্রান্ত ব্যক্তি প্রতিবার একই ধরণের খিঁচুনি প্রবণতা থাকে। তাই উপসর্গগুলি সমস্যা একই রকম হবে।

এইচ আর – ৫৫ ইঙ্গিত : মস্তিষ্কের তারের অস্বাভাবিকতা। নিউরোট্রান্সমিটার নামক স্নায়ু একক রাসায় নিকের ভারসাম্যহীনতা এবং এই কারণগুলির কিছু সংমিশ্রণের কারণে মৃগীরোগ হতে পারে। গবেষকদের মতে জেনেটিক অস্বাভাবিকতা মৃগীরোগের ক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কারণ হতে পারে। মৃগীরোগের লক্ষণ ও উপসর্গ দেখা যেতে পারে যেমন – পেশী পর্যায় ক্রমে সংকোচন এবং শিথিলতা, একটি প্রতিসম, অঙ্গের অঙ্গবিন্যাস, কথা আটকানো, বিভ্রম এবং হ্যালুসিনেশন, অপ্রীতিকর গন্ধ এবং স্বাদ, ফ্লাশিং, বমি বমি ভাব, প্যাপিলারি প্রসারণ, ঘাম, ভয় এবং রাগ। এইচ আর – ৫৫ সমস্ত মৃগী রোগের লক্ষণ এবং উপসর্গের একটি নিরাময়কারী।

এইচ আর – ৫৫ ঔষধ সেবন বিধি : ২০ ফোঁটা ঔষধ একঢোক সমপরিমান পানির সাথে শিশিয়ে প্রতি ৬ ঘন্টা পর পর সেবন করতে হবে। শিশুরা ৫ ফোঁটা ঔষধ একঢোক সমপরিমান পানির সাথে শিশিয়ে প্রতি ৬ ঘন্টা পর পর সেবন করতে হবে। সুস্থ হলে প্রতিদিন ৩ বার সেবন করুন। অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করুন।

বিশেষে দ্রষ্টব্য : চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া কোন ঔষধ খাবেন না এতে শারীরিক ও মানুষিক ক্ষতি হতে পারে। ঔষধ সেবনে পুর্বে একজন রেজিষ্টার্ড চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করুণ। লক্ষণগুলি অব্যাহত থাকলে, আপনার চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ করুন।

বিশেষ সর্তকর্তা : গর্ভবতী মহিলারা রেজিষ্টর্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ঔষধ সেবন সম্পন্ন নিষেধ।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : এইচ আর – ৫৫ ঔষধ সেবনে কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া জানা নাই।

ঔষধ সংরক্ষণ : সুগন্ধ-দুগন্ধ থেকে দুরে, শীতল ও শুস্ক স্থানে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : এ ওয়েব সাইটের মুল উদ্দেশ্যে হচ্ছে স্বাস্থ্য সম্পের্ক কিছু দান করা বা তুলে ধরা। সাধারণ মনুষের উপকার হবে। বিশেষ করে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক ও ছাত্ররা উপকৃত হবেন। এ ওয়েব সাইটে থাকছে পুরুষ স্বাস্থ্য বা যৌনস্বাস্থ্য, গাইনি স্বাস্থ্য, শিশুস্বাস্থ্য, মাদার টিংচার, সিরাপ, বম্বিনেশন ঔষধ, বাইকেমিক ঔষধ, হোমিওপ্যাথিক বই, ইউনানি, হামদর্দ, হারবাল, ভেজষ, স্বাস্থ্য কথা ইত্যাদি। এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev