সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১২:৩১ অপরাহ্ন

এইচ আর – ২৭ (লিভার ও জন্ডিস চিকিৎসায় কার্যকর)

আরোগ্য হোমিও হল / ৬৭ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ বৃহস্পতিবার, ১২ অক্টোবর, ২০২৩, ৫:৩৪ অপরাহ্ন

এইচ আর – ২৭ (লিভার ও জন্ডিস চিকিৎসায় কার্যকর)

ক্যাটাগরি : কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথিক ঔষধ, পাকিস্তান।

প্রস্তত প্রণালী : এইচআর মাসুদ/হোমিওপ্যাথিক ফার্মাকোপিয়া অনুযায়ী প্রস্তুত।

ব্যবহার : এইচ আর – ২৭ (HEPAREG) লিভার ডিসঅর্ডার ও হেপাটাইটিসের চিকিৎসায় ব্যবহার করা হয়।

এইচ আর – ২৭ লিভার ও হেপাটাইটিসের বর্ণনা :

ক/ এইচ আর – ২৭ লিভার ডিসঅর্ডার ও হেপাটাইটিসের চিকিৎসায় কার্যকর। লিভারের ব্যাধি এবং এর সাথে সম্পর্কিত লক্ষণগুলির জন্য কার্যকরী।

ক/ লিভার অঞ্চল জুড়ে দমকা ব্যথা ও জ্বলার ক্ষেত্রে নির্দেশিত।

খ/ ত্বক ফ্যাকাশে ও জন্ডিসে কার্যকর।

গ/ হজম সংক্রান্ত সমস্যা যেমন – বদহজম, কোষ্ঠকাঠিন্য এবং হার্ট পোড়ার জন্য ভালো।

ঘ/ যকৃতের ফোড়া ও অন্ত্রের শূল বেদনায় উপকারী।

ঙ/ এছাড়াও ক্ষুধা মন্দা দুর করে।

আরও পড়ুন – কেন্ট ১১ (লিভার এবং গল ব্লাডার রোগে কার্যকর)

এইচ আর – ২৭ লিভার ও হেপাটাইটিস চিকিৎসার ভূমিকা: লিভার হল পেশীবহুল অঙ্গ যা পেটের ডান দিকে অবস্থিত। এর ওজন প্রায় ৩ পাউন্ড, লিভারটি লালচে-বাদামী বর্ণের হয়, স্পর্শে রাবারী অনুভব করে। যকৃতের সাধারণত দুটি বড় অংশ রয়েছে, যাকে ডান এবং বাম লোব বলা হয়। গলব্লাডার অগ্ন্যাশয় এবং অন্ত্রের অংশগুলির সাথে লিভারের নীচে থাকে। লিভার এবং এই অঙ্গগুলি খাদ্য হজমে সাহায্য করে, শোষণ এবং প্রক্রিয়াকরণের জন্য উভয় একসাথে কাজ করে।
লিভার একটি গ্রন্থি হিসাবে শ্রেণীবদ্ধ করা হয় এবং ইহা অনেক ফাংশনের সাথে যুক্ত।

আরও পড়ুন –  র‌্যাক্স নং ১০৬ (লিভার জনিত সমস্যা)

লিভারের প্রধান কাজগুলি হল :

১/ পিত্ত উৎপাদন : পিত্ত ক্ষুদ্রান্ত্রকে ভেঙ্গে চর্বি, কোলেস্টেরল ও কিছু ভিটামিন শোষণ করতে সাহায্য করে। পিত্তে পিত্ত লবণ, কোলেস্টেরল, বিলিরুবিন, ইলেক্ট্রোলাইট ও জল থাকে।

২/ বিলিরুবিন শোষণ ও বিপাককরণ : সাধারণত হিমোগ্লোবিন ভেঙে বিলিরুবিন তৈরি হয়। হিমোগ্লোবিন থেকে নিঃসৃত আয়রন লিভার ও অস্থিমজ্জায় জমা হয় এবং পরবর্তীতে রক্তকণিকা তৈরিতে ব্যবহৃত হয়।

৩/ রক্ত জমাট বাঁধতে সহায়তা করে : রক্ত জমাট বাঁধতে সাহায্য করে। এমন কিছু জমাট বাঁধার জন্য ভিটামিন কে প্রয়োজন হয়। পিত্ত ভিটামিন কে শোষণের জন্য অপরিহার্য এবং যকৃতে তৈরি হয়। যদি লিভার পর্যাপ্ত পিত্ত উৎপাদন না করে তবে জমাট বাঁধার কারণ তৈরি করা যায় না।

৪/ চর্বি বিপাক: পিত্ত চর্বি ভেঙে দেয় ও তাদের হজম করা সহজ করে।

৫/ ইমিউনোলজিক্যাল ফাংশন : লিভার মনোনিউক্লিয়ার ফ্যাগোসাইট সিস্টেমের একটি অংশ। এটিতে প্রচুর পরিমাণে কুফফার কোষ রয়েছে যা ইমিউন কার্যকলাপে সঙ্গে জড়িত। এই কোষগুলি অন্ত্রের মাধ্যমে লিভারে প্রবেশ করতে পারে এমন কোনও রোগ সৃষ্টিকারী সংক্রমণকে ধ্বংস করে।

৬/ অ্যালবুমিন উৎপাদন: অ্যালবুমিন হল রক্তের সিরামের সবচেয়ে সাধারণ প্রোটিন। এটি ফ্যাটি অ্যাসিড ও স্টেরয়েড হরমোন পরিবহন করে সঠিক চাপ বজায় রাখতে সাহায্য করে এবং রক্তনালীগুলির ফুটো প্রতিরোধে সহায়তা করে।

লিভার রোগের অবস্থা :
লিভার রোগের প্রকারগুলি নিন্ম রুপ :

ক/ হেপাটাইটিস : লিভারের প্রদাহ, হেপাটাইটিস A, B, এবং C এর মতো ভাইরাস আক্রান্ত। হেপাটাইটিসের A-সংক্রামক কারণও থাকতে পারে, যার

মধ্যে রয়েছে প্রচুর মদ্যপান, ওষুধ, অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়া বা স্থূলতা ইত্যাদি।

খ/ কোষ্ঠকাঠিন্য : হজম ব্যবস্থার একটি অবস্থা যেখানে একজন ব্যক্তির মল খুব শক্ত থাকে যা বের হতে চাই না।

গ/ পেট ফাঁপা: চিকিৎসার পরিভাষায় “মলদ্বার দিয়ে বহিষ্কৃত ফ্ল্যাটাস” বা “ফাঁপা হওয়ার গুণমান বা অবস্থা” হিসাবে বিবেচনা করা হয়।

ঘ/ অন্ত্রের কোলিক : একটি ক্র্যাম্পের মতো ব্যথা যা ছোট বা বড় অন্ত্রে ব্যথা অনুভত হয়। এটি বাধার কারণে ঘটে যা খাদ্য এবং তরলকে শরীরের মধ্য দিয়ে যেতে বাধা দেয়।

আরও পড়ুন – কেন্ট ৫৩ (হেপাটাইটিস এ, বি, ই রোগে কার্যকর)

এইচ আর – ২৭ লিভার ও হেপাটাইটিস ইঙ্গিত: মানুষের স্বাস্থ্য সম্পন্নটা লিভারের স্বাস্থ্যের উপর নির্ভর করে। খাবারে ভেজাল এবং বায়ুমণ্ডলীয় দূষণ আমাদের জীবনে আরো খারাপ প্রভাব ফেলে যার ফলে লিভারের ত্রুটি দেখা দেয় ইহার ফলে রক্তস্বল্পতা, হজমের সমস্যা, কোষ্ঠকাঠিন্য, ডিসপেপসিয়া, অ্যানোরেক্সিয়ার মতো রোগ হয়। এই সমস্ত সমস্যায় এইচ আর – ২৭ ব্যবহার করা যায়।

এইচ আর – ২৭ ঔষধ সেবন বিধি : ২০ ফোঁটা ঔষধ একঢোক সমপরিমান পানির সাথে শিশিয়ে প্রতি ৬ ঘন্টা পর পর সেবন করতে হবে। শিশুরা ৫ ফোঁটা ঔষধ একঢোক সমপরিমান পানির সাথে শিশিয়ে প্রতি ৬ ঘন্টা পর পর সেবন করতে হবে। সুস্থ হলে প্রতিদিন ৩ বার সেবন করুন। অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করুন।

আরও পড়ুন – হেপা-সেফ সিরাপ (হেপাটািইইসি “বি” ও “সি” লিভারে কার্যকর)

বিশেষে দ্রষ্টব্য : চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া কোন ঔষধ খাবেন না এতে শারীরিক ও মানুষিক ক্ষতি হতে পারে। ঔষধ সেবনে পুর্বে একজন রেজিষ্টার্ড চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করুণ। লক্ষণগুলি অব্যাহত থাকলে, আপনার চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ করুন।

বিশেষ সর্তকর্তা : গর্ভবতী মহিলারা রেজিষ্টর্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ঔষধ সেবন সম্পন্ন নিষেধ।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : এইচ আর – ২৭ ঔষধ সেবনে কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া জানা নাই।

ঔষধ সংরক্ষণ : সুগন্ধ-দুগন্ধ থেকে দুরে, শীতল ও শুস্ক স্থানে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : এ ওয়েব সাইটের মুল উদ্দেশ্যে হচ্ছে স্বাস্থ্য সম্পের্ক কিছু দান করা বা তুলে ধরা। সাধারণ মনুষের উপকার হবে। বিশেষ করে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক ও ছাত্ররা উপকৃত হবেন। এ ওয়েব সাইটে থাকছে পুরুষ স্বাস্থ্য বা যৌনস্বাস্থ্য, গাইনি স্বাস্থ্য, শিশুস্বাস্থ্য, মাদার টিংচার, সিরাপ, বম্বিনেশন ঔষধ, বাইকেমিক ঔষধ, হোমিওপ্যাথিক বই, ইউনানি, হামদর্দ, হারবাল, ভেজষ, স্বাস্থ্য কথা ইত্যাদি। এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev