মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:৩৮ পূর্বাহ্ন

এইচ আর – ২২ (একজিমা সোরিয়াসিসের চিকিৎসায় কার্যকর)

আরোগ্য হোমিও হল / ৫৪ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ রবিবার, ২২ অক্টোবর, ২০২৩, ৪:৩১ অপরাহ্ন

এইচ আর – ২২ (একজিমা সোরিয়াসিসের চিকিৎসায় কার্যকর)

ক্যাটাগরি : কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথিক ঔষধ, পাকিস্তান।

প্রস্তত প্রণালী : এইচআর মাসুদ/হোমিওপ্যাথিক ফার্মাকোপিয়া অনুযায়ী প্রস্তুত।

ব্যবহার : এইচ আর – ২২ (DERMAHEAL) একজিমা এবং সোরিয়াসিসের চিকিৎসায় ব্যবহার করা হয়।

এইচ আর – ২২ একজিমা সোরিয়াসিসের চিকিৎসার বর্ণনা :

ক/ এইচ আর – ২২ একজিমা এবং সোরিয়াসিসের মতো চর্মরোগে কার্যকর।

খ/ অস্বাস্থ্যকর, সংবেদনশীল ও আঁশযুক্ত ত্বকে কার্যকর।

গ/ লাল, ফোলা চর্মরোগে সহায়ক।

ঘ/ মহিলাদের ঋতু¯্রাবের সময় তীব্র চুলকানিতে ব্যবহার করা হয়।

ঙ/ তীব্র এবং দীর্ঘস্থায়ী একজিমায় কার্যকরী।

চ/ pustular অগ্ন্যুৎপাত নির্দেশিত।

আরও পড়ুন – কেন্ট ১৮ (চর্ম রোগে কার্যকর)

এইচ আর – ২২ একজিমা সোরিয়াসিসের চিকিৎসার বর্ণনা ভূমিকা :

সোরিয়াসিস : সোরিয়াসিস হল একটি সাধারণ চর্মরোগ, দীর্ঘস্থায়ী, অসংক্রামক চর্মরোগ যা সাদা আঁশ দিয়ে আচ্ছাদিত লাল দাগ দ্বারা ইহাকে চিহ্নিত করা হয়।

এইচ আর – ২২ একজিমা সোরিয়াসিসের চিকিৎসার বর্ণনা কারণ :

সোরিয়াসিস হল জেনেটিক্স, পরিবেশগত কারণ এবং ইমিউন সিস্টেম সহ বিভিন্ন কারণে হতে পারে।

আরও পড়ুন – এন – ৮৪ (এল্যার্জির সমস্যায় কার্যকর)

এইচ আর – ২২ একজিমা সোরিয়াসিসের চিকিৎসার বর্ণনা প্রকার :

প্ল্যাক সোরিয়াসিস :- চর্ম রোগের সবচেয়ে সাধারণ রূপ এবং মৃত চামড়া কোষের রূপালী সাদা বিল্ডআপ দিয়ে আচ্ছাদিত লাল দাগ হিসাবে দেখা যায়। এই ছোপ বা ফলকগুলি প্রায়শই মাথার ত্বক, হাঁটু, কনুই এবং পিঠের নীচে প্রায় দেখা যায়।

গুটাতে : ছোট, বিন্দুর মতো ক্ষত হিসাবে প্রকাশ পায় । এই ধরনের সোরিয়াসিস প্রায়শই শৈশব বা যৌবন কালে শুরু হয়। আবার স্ট্রেপ্টোকক্কাস সংক্রমণের কারণে শুরু হতে পারে। প্লেক সোরিয়াসিসের পরে এটি দ্বিতীয়-সবচেয়ে সাধারণ ধরনের সোরিয়াসিস।

ইনভার্স সোরিয়াসিস : শরীরের ভাঁজে খুব লাল ক্ষত হিসাবে দেখায় যেমন – হাঁটুর পিছনে, বাহুর নীচে বা কুঁচকিতে। এটি মসৃণ এবং চকচকে প্রদর্শিত হতে পারে।

পুস্টুলার সোরিয়াসিস : লাল ত্বক দ্বারা বেষ্টিত সাদা পুস্টুলস (অসংক্রামক পুঁজের ফোস্কা) দ্বারা চিহ্নিত। পুঁজ শ্বেত রক্তকণিকা নিয়ে গঠিত। পাস্টুলার সোরিয়াসিস শরীরের যেকোনো অংশে ঘটতে পারে, তবে প্রায়শই হাত বা পায়ে ঘটে।

এরিথ্রোডার্মিক সোরিয়াসিস : সোরিয়াসিসের একটি বিশেষভাবে খুব গুরুতর রূপ যা শরীরের বেশিরভাগ অংশে বিস্তার করে এটি জ্বলন্ত লালচে হয়ে যায়।

এইচ আর – ২২ একজিমা সোরিয়াসিসের সবচেয়ে সাধারণ লক্ষণ:

১/ ত্বকে লাল দাগ।

২/ আঁশযুক্ত, কখনও কখনও রূপালি, ত্বকে দাগ দেখা যায়।

৩/ রঃপযু চামড়া।

৪/ জয়েন্ট ফোলা, শক্ত হওয়া বা ব্যথা সোরিয়াটিক আর্থ্রাইটিসের সাথে যুক্ত।

আরও পড়ুন – এন – ৬৫ (চুলকানী যুক্ত চর্মরোগে কার্যকর)

একজিমা : ত্বকের একটি বিশেষ ধরনের প্রদাহজনক প্রতিক্রিয়া যেখানে এরিথেমা (লাল হয়ে যায়), শোথ (ফোলা), প্যাপিউলস (বাম্পস) এবং ত্বকের ক্রাস্টিং থাকে, অবশেষে, লাইকেনিফিকেশন (ঘন হয়) এবং ত্বকের স্কেলিং দ্বারা। একজিমা সাধারণত একজন ব্যক্তির ত্বকের অংশগুলি স্ফীত, চুলকানি ও লাল হয়ে যায়। অ্যাটোপিক একজিমা, কন্টাক্ট ডার্মাটাইটিস ও ডিসকয়েড একজিমা সহ বিভিন্ন ধরণের একজিমা রয়েছে।

এইচ আর – ২২ একজিমা সোরিয়াসিসের কারণ :
একজিমার সুনির্দিষ্ট কারণ এখনও অজানা, তবে জেনেটিক এবং পরিবেশগত কারণগুলির সংমিশ্রণের কারণে এটি বিকাশ লাভ করেছে বলে মনে করা হয়।

এইচ আর – ২২ একজিমা সোরিয়াসিসের সবচেয়ে সাধারণ লক্ষণ:

ক/ শুষ্ক ত্বক।

খ/ বিরক্তিকর।

গ/ মানসিক চাপ।

ঘ/ জলবায়ু এবং ঘাম।

ঙ/ সংক্রমণ।

৭/ অ্যালার্জেন।

আরও পড়ুন – এন – ৮৪ (এল্যার্জির সমস্যায় কার্যকর)

এইচ আর – ২২ একজিমা সোরিয়াসিসের প্রকার :

ক/ স্ট্যাসিস ডার্মাটাইটিস : এটি নিম্ন পায়ের ত্বকের জ্বালা সাধারণত সংবহনজনিত সমস্যার সাথে সম্পর্কিত।

খ/ অ্যালার্জিক কন্টাক্ট ডার্মাটাইটিস : এটি একটি পদার্থ বা অ্যালার্জেনের সংস্পর্শের পরে ত্বকের প্রতিক্রিয়া যা ইমিউন সিস্টেম বিদেশী হিসাবে স্বীকৃতি দেয়।

গ/ ডিশিড্রোটিক একজিমা : এটি হাতের তালু এবং পায়ের তলায় ত্বকের জ্বালা। এটি ফোস্কা দ্বারা ডিশিড্রোটিক একজিমা চিহ্নিত করা হয়।

ঘ/ নিউরোডার্মাটাইটিস : এটি মাথা, বাহু, কব্জি এবং নীচের পায়ে ত্বকের আঁশযুক্ত ছোপ তৈরি করে। এটি পোকামাকড়ের কামড়ের মতো স্থানীয় চুলকানির কারণে হয়ে থাকে।

ঙ/ নিউমুলার একজিমা: এগুলি খিটখিটে ত্বকের বৃত্তাকার প্যাচ হিসাবে দেখা যায় যা ক্রাস্টেড, আঁশযুক্ত ও চুলকানি হতে পারে।

চ/ Seborrheic একজিমা: এটি ত্বকের তৈলাক্ত, আঁশযুক্ত, হলুদ ছোপ, সাধারণত মাথার ত্বক এবং মুখের উপর দেখা যায়।

আরও পড়ুন – গ্রাফাইটিস (চর্ম রোগের জন্য)

এইচ আর – ২৩ একজিমার সবচেয়ে সাধারণ লক্ষণ ও উপসর্গ :

১/ চুলকানি।

২/ ত্বক লাল হওয়া।

৩/ শুষ্ক, আঁশযুক্ত, বা ক্রাস্টেড ত্বক যা দীর্ঘমেয়াদী ঘামাচি থেকে পুরু এবং চামড়ায় হতে পারে।

৪/ ছোট, তরল-ভর্তি ফোস্কা তৈরি হয় যা ঘামাচি জলে ঝরে পড়তে পারে।

৫/ ত্বক ভেঙ্গে যায় এবং সেই অংশের সংক্রমণ।

আরও পড়ুন – র‌্যাক্স নং- ৩২ (একজিমা)

এইচ আর – ২৩ একজিমার সবচেয়ে সাধারণ ইঙ্গিত :
দাদ, হারপিস, প্রুরিটাস, সোরিয়াসিস, ডার্মাটাইটিস ও অন্যান্য অনেক চর্মরোগ নিরাময়কারী। বায়ুমণ্ডলীয় দূষণ, অম্লীয় বৃষ্টি এবং রাসায়নিক অস্ত্রের প্রচুর বিস্ফোরণে আধুনিক দিনে চর্মরোগের জন্ম দিচ্ছে। এইচ আর – ২২ এই সমস্যাগুলি থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য সেরা এবং শর্টকাট ঔষধ।

এইচ আর – ২২ ঔষধ সেবন বিধি : ২০ ফোঁটা ঔষধ একঢোক সমপরিমান পানির সাথে শিশিয়ে প্রতি ৬ ঘন্টা পর পর সেবন করতে হবে। শিশুরা ৫ ফোঁটা ঔষধ একঢোক সমপরিমান পানির সাথে শিশিয়ে প্রতি ৬ ঘন্টা পর পর সেবন করতে হবে। সুস্থ হলে প্রতিদিন ৩ বার সেবন করুন। অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করুন।

বিশেষে দ্রষ্টব্য : চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া কোন ঔষধ খাবেন না এতে শারীরিক ও মানুষিক ক্ষতি হতে পারে। ঔষধ সেবনে পুর্বে একজন রেজিষ্টার্ড চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করুণ। লক্ষণগুলি অব্যাহত থাকলে, আপনার চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ করুন।

বিশেষ সর্তকর্তা : গর্ভবতী মহিলারা রেজিষ্টর্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ঔষধ সেবন সম্পন্ন নিষেধ।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : এইচ আর – ২২ ঔষধ সেবনে কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া জানা নাই।

ঔষধ সংরক্ষণ : সুগন্ধ-দুগন্ধ থেকে দুরে, শীতল ও শুস্ক স্থানে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : এ ওয়েব সাইটের মুল উদ্দেশ্যে হচ্ছে স্বাস্থ্য সম্পের্ক কিছু দান করা বা তুলে ধরা। সাধারণ মনুষের উপকার হবে। বিশেষ করে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক ও ছাত্ররা উপকৃত হবেন। এ ওয়েব সাইটে থাকছে পুরুষ স্বাস্থ্য বা যৌনস্বাস্থ্য, গাইনি স্বাস্থ্য, শিশুস্বাস্থ্য, মাদার টিংচার, সিরাপ, বম্বিনেশন ঔষধ, বাইকেমিক ঔষধ, হোমিওপ্যাথিক বই, ইউনানি, হামদর্দ, হারবাল, ভেজষ, স্বাস্থ্য কথা ইত্যাদি। এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev