সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ০১:৫৪ অপরাহ্ন

এইচ আর – ১৬ (বিষণ্নতা, উদ্বেগ এবং টেনশনের চিকিৎসায় কার্যকর)

আরোগ্য হোমিও হল / ৮০ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ সোমবার, ২৩ অক্টোবর, ২০২৩, ৫:০২ অপরাহ্ন
এইচ আর - ১৬ (বিষণ্নতা, উদ্বেগ এবং টেনশনের চিকিৎসায় কার্যকর)

এইচ আর – ১৬ (বিষণ্নতা, উদ্বেগ এবং টেনশনের চিকিৎসায় কার্যকর)

ক্যাটাগরি : কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথিক ঔষধ, পাকিস্তান।

প্রস্তত প্রণালী : এইচআর মাসুদ/হোমিওপ্যাথিক ফার্মাকোপিয়া অনুযায়ী প্রস্তুত।

র‌্যবহার : এইচ আর – ১৬ (RELAXOFOS) বিষণ্নতা, উদ্বেগ এবং টেনশনের চিকিৎসায় ব্যবহার করা হয়।

এইচ আর – ১৬ বিষণ্নতা, উদ্বেগ এবং টেনশনের বর্ণনা :

ক/ মেজাজের ব্যাঘাত সহ বিষণ্নতার জন্য নির্দেশিত।

খ/ নার্ভাসনেস, বিরক্তি ও অস্থিরতায় কার্যকর।

গ/ হিস্টিরিয়া এবং ডিসমেনোরিয়ায় ব্যবহৃত হয়।

ঘ/ মাইগ্রেন এবং নিউরালজিয়া কমায়তে সাহায্য করে।

ঙ/ এছাড়াও ক্ষুধা এবং স্নায়বিক দুর্বলতা দুর করে।

চ/ এইচ আর – ১৬ হতাশা, উদ্বেগ এবং সংশ্লিষ্ট উপসর্গ থেকে মুক্তির জন্য কার্যকরী।

আরও পড়ুন – কেন্ট ১৯ (অনিদ্রা রোগে কার্যকর)

এইচ আর – ১৬ বিষণ্নতা, উদ্বেগ এবং টেনশনের ভূমিকা :
বিষণ্নতা হল একটি মানসিক ব্যাধি, যা ক্রমাগত বিষণ্ণতা এবং স্বাভাবিক ভাবে জীবন যাবনের ক্রিয়াকলাপের প্রতি আগ্রহ হারানোর দ্বারা চিহ্নিত করা হয়, যার সাথে কমপক্ষে দুই সপ্তাহের জন্য প্রতিদিনের ক্রিয়াকলাপ পরিচালনা করতে অক্ষমতা। বিশষে করে পুরুষদের তুলনায় মহিলাদের মধ্যে দ্বিগুণ বেশি দেখা যায়। এটি যে কোনো বয়সে হতে পারে।

এইচ আর – ১৬ বিষণ্নতা, উদ্বেগ এবং টেনশনের প্রকারভেদ :
সাধারণ ধরনের বিষণ্নতার মধ্যে নিম্নলিখিতগুলি অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে –

মেজর ডিপ্রেসিভ ডিসঅর্ডার (MDD) : গউউ বিশেষ করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে সাধারণ মানসিক ব্যাধিগুলির মধ্যে একটি। এটিকে ক্লিনিকাল ডিপ্রেশন হিসাবে উল্লেখ করা হয়। মেজাজ এবং আচরণের পাশাপাশি বিভিন্ন শারীরিক ফাংশন যেমন – ক্ষুধা এবং ঘুমকে প্রভাবিত করে। গউউ সহ লোকেরা প্রায়শই স্বাভাবিক কার্যকলাপে আগ্রহ হারিয়ে ফেলে। তিনি মাঝে মাঝে মনে করেন তার যে জীবন বেঁচে থাকার যোগ্য নয়।
ক্রমাগত বিষণ্নতাজনিত ব্যাধি : ডিসথিমিয়া যা ক্রমাগত বিষণ্নতাজনিত ব্যাধি হিসাবে পরিচিত। কমপক্ষে দুই বছর ধরে বিদ্যমান এক ধরণের দীর্ঘস্থায়ী বিষণ্নতাকে বোঝায়। এটি হালকা, মাঝারি বা গুরুতর হতে পারে।

আরও পড়ুন – এন – ৫৪ (স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধিতে কার্যকর)

সিজনাল অ্যাফেক্টিভ ডিসঅর্ডার (SAD) : SAD শরীরের স্বাভাবিক সার্কেডিয়ান ছন্দে ব্যাঘাত ঘটায় । চোখের মধ্য দিয়ে প্রবেশ করা আলো এই ছন্দকে প্রভাবিত করে, এবং রাত/দিনের প্যাটার্নে যেকোন ঋতুগত পরিবর্তন বিষণ্নতার দিকে পরিচালিত করে।

বাইপোলার ডিসঅর্ডার : একটি মেজাজ ব্যাধি যা ম্যানিয়া নামে পরিচিত। অস্বাভাবিক ভাবে উন্নত মেজাজের সময়কাল দ্বারা চিহ্নিত করা হয়। একটি প্রধানের এই সময়কালগুলি হালকা (হাইপোম্যানিয়া) হতে পারে বা এটি এতটাই চরম হতে পারে যে একজন ব্যক্তির জীবনে চিহ্নিত বৈকল্য সৃষ্টি করতে পারে।

নিম্নলিখিত কারণগুলি সহ বিষণ্নতার সম্ভাবনা বাড়িয়ে তুলতে পারে এমন অনেকগুলি মধ্যে রয়েছে :
গালি : অতীতের শারীরিক, যৌন বা মানসিক নির্যাতন পরবর্তী জীবনে ক্লিনিকাল বিষণ্নতার ঝুঁকি বাড়াতে পারে।

দ্বন্দ্ব : বিষণ্নতা বিকাশের জৈবিক দুর্বলতা আছে এমন কারো মধ্যে হতাশা বা ব্যক্তিগত দ্বন্দ্ব অথবা পরিবারের সদস্য বা বন্ধুদের সাথে বিবাদের ফলে হতে পারে।

মৃত্যু বা ক্ষতি : প্রিয়জনের মৃত্যু বা হারিয়ে যাওয়া থেকে দুঃখ বা শোক, যদিও স্বাভাবিক,তাতেও বিষণ্নতার ঝুঁকি বাড়াতে পারে।

গুরুতর অসুস্থতা : কখনও কখনও হতাশা একটি বড় অসুখের সাথে সহ-অবস্থিত থাকে বা অন্য কোনও চিকিৎসা অবস্থার কারণেও হতে পারে।

জেনেটিক্স : বিষণ্নতার পারিবারিক ইতিহাস ঝুঁকি বাড়াতে পারে। এটি মনে করা হয় যে বিষণ্নতা একটি জটিল বৈশিষ্ট্য, যার অর্থ সম্ভবত এমন অনেকগুলি ভিন্ন জিন রয়েছে যেগুলির প্রতিটি ছোট প্রভাব পড়ে, একটি একক জিনের পরিবর্তে যা রোগের ঝুঁকিতে বাড়ে।

এইচ আর – ১৬ বিষণ্নতার সাধারণ লক্ষণগুলি অন্তর্ভুক্ত :

১/ রাগ বা বিরক্তি।

২/ ক্ষুধা বা ওজন পরিবর্তন।

৩/ দৈনন্দিন কাজকমের্র আগ্রহ হারিয়ে ফেলা।

৪/ ঘুমের পরিবর্তন।

৫/ অসহায়ত্বের অনুভূতি।

৬/ শক্তির ক্ষয়।

৭/ আত্ম-ঘৃণা।

৮/ বেপরোয়া আচরণ।

আরও পড়ুন – র‌্যাক্স নং- ৪৮ (অনিদ্রা)

এইচ আর – ১৬ বিষণ্নতা, উদ্বেগ এবং টেনশনের ইঙ্গিত : এইচ আর – ১৬ খিটখিটে, বিষণ্নতা, অনিদ্রা, স্নায়ুবিক ব্যথা, স্নায়বিক মাথাব্যথা, ধড়ফড়, স্নায়বিক অস্বস্তি এবং হিস্টিরিয়া এবং ডিসমেনোরিয়াতে অত্যান্ত কার্যকর।

এইচ আর – ১৬ ঔষধ সেবন বিধি : ২০ ফোঁটা ঔষধ একঢোক সমপরিমান পানির সাথে শিশিয়ে প্রতি ৬ ঘন্টা পর পর সেবন করতে হবে। শিশুরা ৫ ফোঁটা ঔষধ একঢোক সমপরিমান পানির সাথে শিশিয়ে প্রতি ৬ ঘন্টা পর পর সেবন করতে হবে। সুস্থ হলে প্রতিদিন ৩ বার সেবন করুন। অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করুন।

বিশেষে দ্রষ্টব্য : চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া কোন ঔষধ খাবেন না এতে শারীরিক ও মানুষিক ক্ষতি হতে পারে। ঔষধ সেবনে পুর্বে একজন রেজিষ্টার্ড চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করুণ। লক্ষণগুলি অব্যাহত থাকলে, আপনার চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ করুন।

বিশেষ সর্তকর্তা : গর্ভবতী মহিলারা রেজিষ্টর্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ঔষধ সেবন সম্পন্ন নিষেধ।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : এইচ আর – ১৬ ঔষধ সেবনে কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া জানা নাই।

ঔষধ সংরক্ষণ : সুগন্ধ-দুগন্ধ থেকে দুরে, শীতল ও শুস্ক স্থানে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : এ ওয়েব সাইটের মুল উদ্দেশ্যে হচ্ছে স্বাস্থ্য সম্পের্ক কিছু দান করা বা তুলে ধরা। সাধারণ মনুষের উপকার হবে। বিশেষ করে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক ও ছাত্ররা উপকৃত হবেন। এ ওয়েব সাইটে থাকছে পুরুষ স্বাস্থ্য বা যৌনস্বাস্থ্য, গাইনি স্বাস্থ্য, শিশুস্বাস্থ্য, মাদার টিংচার, সিরাপ, বম্বিনেশন ঔষধ, বাইকেমিক ঔষধ, হোমিওপ্যাথিক বই, ইউনানি, হামদর্দ, হারবাল, ভেজষ, স্বাস্থ্য কথা ইত্যাদি। এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev