সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ০১:৪০ অপরাহ্ন

এইচ আর -১২ (নিম্ন রক্তচাপের চিকিৎসায় কার্যকর)

আরোগ্য হোমিও হল / ৭৩ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ মঙ্গলবার, ২৪ অক্টোবর, ২০২৩, ৪:৩৬ অপরাহ্ন
এইচ আর -১২ (নিম্ন রক্তচাপের চিকিৎসায় কার্যকর)

এইচ আর -১২ (নিম্ন রক্তচাপের চিকিৎসায় কার্যকর)

ক্যাটাগরি : কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথিক ঔষধ, পাকিস্তান।

প্রস্তত প্রণালী : এইচআর মাসুদ/হোমিওপ্যাথিক ফার্মাকোপিয়া অনুযায়ী প্রস্তুত।

ব্যবহার : এইচ আর – ১২ নিম্ন রক্তচাপের চিকিৎসায় ব্যবহার করা হয়।

এইচ আর – ১২ রক্তচাপের চিকিৎসার বর্ণনা :

ক/ স্বাভাবিক হৃদযন্ত্রের ক্রিয়াকলাপ বজায় রাখতে সাহায্য করে।

খ/ নিম্ন রক্তচাপের কারণে বুক ধড়ফড় এবং মূর্ছাতে ব্যবহার করা হয়।

গ/ দুর্বলতা এবং বুকে সংকোচনের জন্য কার্যকরী।

ঘ/ এছাড়াও অনিয়মিত স্পন্দন এবং শক্তিশালী হৃদপিন্ডের পেশীতে ব্যবহার করা হয়।

ঙ/ এইচ আর – ১২ শরীরের শক্তির জন্য ভালো এবং রক্তচাপকে স্বাভাবিক রাখে।

আরও পড়ুন –  র‌্যাক্স নং- ২২ (নিন্ম রক্তচাপ)

এইচ আর – ১২ রক্তচাপের চিকিৎসার ভূমিকা :
নিম্ন রক্তচাপের নাম হাইপোটেনশন। রক্তচাপ স্বাভাবিকের চেয়ে অনেক কম হলে নিম্ন রক্তচাপ বলা হয়। এর অর্থ হৃৎপিণ্ড, মস্তিষ্ক এবং শরীরের অন্যান্য অংশে পর্যাপ্ত রক্ত পাওয়ার ফলে স্বাভাবিক রক্তচাপ বেশিরভাগই 90/60 mmHg এবং 120/80 mmHg এর মধ্যে। তবে রক্তচাপ একেকজনের একেক রকম দেখা যায় ।
হাইপোটেনশন বিভিন্ন ধরনের দেখা যায়। যাদের সবসময় নিম্ন রক্তচাপ থাকে তাদের দীর্ঘস্থায়ী অ্যাসিম্পটমেটিক হাইপোটেনশন থাকে। তাদের কোন লক্ষণ বা উপসর্গ নেই তবে এ ক্ষেত্রে কোন চিকিৎসার প্রয়োজন নেই। তাদের নিম্ন রক্তচাপ তাদের জন্য স্বাভাবিক।

হাইপোটেনশনের তিনটি প্রধান ধরন হলো – অর্থোস্ট্যাটিক হাইপোটেনশন, নিউরালি মেডিটেটেড হাইপোটেনশন (NMH), এবং শকের সাথে যুক্ত গুরুতর হাইপোটেনশন।

১/ অর্থোস্ট্যাটিক হাইপোটেনশন : বসা বা শুয়ে থাকা অবস্থান থেকে উঠে দাঁড়ালে এই ধরনের নিম্ন রক্তচাপ দেখা দেয়। এটি মাথা ঘোরা, হালকা মাথাব্যথা বা এমনকি অজ্ঞান হতে পারে। এই ধরনের নিম্ন রক্তচাপ সাধারণত দাঁড়ানোর পর মাত্র কয়েক সেকেন্ড বা এক মিনিট স্থায়ী হয়। অর্থোস্ট্যাটিক হাইপোটেনশন যে কোন বয়সের মধ্যে ঘটতে পারে, তবে এটি বয়স্ক প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যেই বেশি দেখা যায়। বিশেষ করে যারা দুর্বল বা দুর্বল স্বাস্থ্যে ভঙ্গুর।

২/ স্নায়বিক মধ্যস্থতা হাইপোটেনশন : NMH এর সাথে, দীর্ঘ সময় দাঁড়িয়ে থাকাকলে রক্তচাপ কমে যায়। আপনার যদি অপ্রীতিকর, বিরক্তিকর বা ভীতিকর অভিজ্ঞতা থাকে তবে এই ধরনের নিম্ন রক্তচাপও ঘটনা ঘটতে পারে।

৩/ শকের সাথে যুক্ত গুরুতর হাইপোটেনশন : এটি একটি জীবন-হুমকিপূর্ণ অবস্থা যেখানে রক্তচাপ কমে যায় যে মস্তিষ্ক, কিডনি এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গগুলি ভালভাবে কাজ করার জন্য পর্যাপ্ত রক্ত পায় না। রক্তচাপ অন্যান্য ধরনের হাইপোটেনশনের তুলনায় শকে অনেক কম হয়।

এইচ আর – ১২ রক্তচাপের চিকিৎসার কারণ :
কিছু ওষুধ এবং পদার্থ নিম্ন রক্তচাপের কারণ হতে পারে, নিন্ম আলোচনা করা হলো :

ক/ অ্যালকোহল পান।

খ/ উদ্বেগ-বিরোধী ওষুধ সেবন।

গ/ পর্যাপ্ত তরল পান না করা (ডিহাইড্রেশন)।

ঘ/ ব্যথানাশক।

ঙ/ মূত্রবর্ধক।

চ/ যকৃতের রোগ।

ছ/ তাপ নিঃশেষন।

জ/ হরমোনের সমস্যা।

আরও পড়ুন – কেন্ট ৬২ (নিম্ন রক্তচাপে কার্যকর)

এইচ আর – ১২ রক্তচাপের চিকিৎসার লক্ষণ :
নিম্ন রক্তচাপ বা হাইপোটেনশনের লক্ষণগুলি নিন্মে দেওয়া হলো :

১/ হালকা মাথাব্যথা।

২/ মাথা ঘোরা।

৩/ বমি বমি ভাব।

৪/ দুর্বলতা।

৫/ ক্লান্তি।

৬/ ঝাপসা দৃষ্টি।

৭/ ঠাণ্ডা, আঁটসাঁট ত্বক।

৮/ ফ্যাকাশে চামড়া।

৯/ অজ্ঞান হওয়া।

এইচ আর – ১২ রক্তচাপের চিকিৎসার ইঙ্গিত : আধুনিক জীবনে হাইপোটেনশনে অনেক ব্যাক্তিই জড়িত। হাইপোটেনশনের প্রধান কারণ হলো হৃৎপিণ্ডের কর্মক্ষমতা কম এবং শারীরিক দুর্বলতা। এইচ আর – ১২ আশ্চর্যজনক ভাবে শরীরকে শক্তিশালী করে এবং হাইপোটেনশন নিয়ন্ত্রণ করে।

এইচ আর – ১২ ঔষধ সেবন বিধি : ২০ ফোঁটা ঔষধ একঢোক সমপরিমান পানির সাথে শিশিয়ে প্রতি ৬ ঘন্টা পর পর সেবন করতে হবে। শিশুরা ৫ ফোঁটা ঔষধ একঢোক সমপরিমান পানির সাথে শিশিয়ে প্রতি ৬ ঘন্টা পর পর সেবন করতে হবে। সুস্থ হলে প্রতিদিন ৩ বার সেবন করুন। অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করুন।

বিশেষে দ্রষ্টব্য : চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া কোন ঔষধ খাবেন না এতে শারীরিক ও মানুষিক ক্ষতি হতে পারে। ঔষধ সেবনে পুর্বে একজন রেজিষ্টার্ড চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করুণ। লক্ষণগুলি অব্যাহত থাকলে, আপনার চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ করুন।

বিশেষ সর্তকর্তা : গর্ভবতী মহিলারা রেজিষ্টর্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ঔষধ সেবন সম্পন্ন নিষেধ।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : এইচ আর – ১২ ঔষধ সেবনে কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া জানা নাই।

ঔষধ সংরক্ষণ : সুগন্ধ-দুগন্ধ থেকে দুরে, শীতল ও শুস্ক স্থানে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : এ ওয়েব সাইটের মুল উদ্দেশ্যে হচ্ছে স্বাস্থ্য সম্পের্ক কিছু দান করা বা তুলে ধরা। সাধারণ মনুষের উপকার হবে। বিশেষ করে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক ও ছাত্ররা উপকৃত হবেন। এ ওয়েব সাইটে থাকছে পুরুষ স্বাস্থ্য বা যৌনস্বাস্থ্য, গাইনি স্বাস্থ্য, শিশুস্বাস্থ্য, মাদার টিংচার, সিরাপ, বম্বিনেশন ঔষধ, বাইকেমিক ঔষধ, হোমিওপ্যাথিক বই, ইউনানি, হামদর্দ, হারবাল, ভেজষ, স্বাস্থ্য কথা ইত্যাদি। এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev