মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:২২ পূর্বাহ্ন

অ্যাডাল-৩৮ (ক্র্যাম্প, খিঁচুনি ড্রপস)

আরোগ্য হোমিও হল / ৯৪ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪, ৫:২৭ অপরাহ্ন
আডেল নং – ৩৮ (ক্র্যাম্প, খিঁচুনি ড্রপস)

Adele – 38 (Cramps, Convulsions Drops)।

অ্যাডাল -৩৮ (ক্র্যাম্প, খিঁচুনি ড্রপস)।

আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো অ্যাডাল – ৩৮ (ক্র্যাম্প, খিঁচুনি ড্রপস)“ কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।

প্রস্তুত প্রণালী :  জার্মান কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ।

ব্যবহার : অ্যাডাল – ৩৮ স্পাস্ট ড্রপসটি ক্র্যাম্প, খিঁচুনি, প্যারালাইটিক ফিট, মোচড়ানো চিকিৎসা শরীরের সমস্ত অংশে খিঁচুনি ক্স্যাম্পে জন্য ব্যবহার করা হয়।

 

অ্যাডাল নং -৩৮ স্পাস্ট ড্রপস সম্পের্কে ধারণা : এতে অ্যামি ভিসনাগা, অ্যাট্রোপা বেলাডোনা ইত্যাদি মতো মুল উপদান রয়েছে যা খিঁচুনি (ফিট) এবং ক্স্যাম্পে কাজ করে। এটি আকস্মিক ঝাঁকুনি মোচড়ানো পক্ষঘাতের অবস্থা এবং কঠোরতার জন্যও নির্দেশিত।

আরও পড়ুন – বায়ো কম্বিনেশন ২৭ (জীবনীশক্তির অভাব)

অ্যাডাল নং -৩৮ স্পাস্ট ড্রপসের ভুমিকা : মৃগী রোগের লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে ঝাঁকুনিসহ অনিয়ন্ত্রিত নড়াচড়া, চেতনা হ্রাস, মানসিক লক্ষণ ইত্যাদি। মৃগী বলতে কেন্দ্রীয় ¯œায়ুতন্ত্রের ব্যাধিকে বোঝানো হয়েছে যেখানে স্নায়ু কোষের কার্যকলাপ ব্যাহত হয় যা অরো অজ্ঞান, ফিট অথবা খিঁচুনি সৃষ্টি করতে পারে। ফিট অথবা খিঁচুনি চেতানার পরিবর্তিত অবস্থানেক উল্লেখ করা হয়। খিঁচুনিতে আপনার শরীরের পেশী সংকুচিত হয় এবং দ্রুত শিথিল হয়ে যায়। এর ফলে অনিয়ন্ত্রিত ভাবে শরীর কাঁপতে থাকে। মস্তিস্কে অস্বাভাবিক এবং হঠাৎ বৈদ্যুতিক কার্যকলাপের কারণে এটি ঘটতে পারে। এই লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে – অন্ত্রেও ক্ষতি, সংক্ষিপ্ত ব্লাকআউট অবস্থা, পেশীতে খিঁচুনি, হঠাৎ শরীরের আরসাম্য নষ্ট হওয়া, উদ্বেগ, দাঁত চেপে যাওয়া, বমি বা বমি ভাব ইত্যাদি। এর কারণগুলির মধ্যে রয়েছে – অ্যালকোহল সেবন, মস্তিস্কে আঘাত, অসুস্থতা, আঘাত, জ্বর, হৃদরোগ, কম রক্তে শর্করা, উচ্চ রক্তচাপ ইত্যাদি।

আরও পড়ুন – এইচ আর – ৫৫ (মৃগী রোগের কার্যকর)

অ্যাডাল নং – ৩৮ স্পাস্ট ড্রপসের উপকারিতা: এটি এনজাইনা পেক্টোরিস, নিউরোসার্কলেটরি ডাইস্টনিক স্টেটস, হাইপারটোনিয়া, কোলন ক্র্যাম্প এবং স্পাস্টিক পরিস্থিতির জন্য একটি নির্ভরযোগ্য প্রতিকার এবং এটি প্রস্রাবের পাথর দ্বারা উত্পাদিত হয়|

এটি খিঁচুনি, শরীরের সমস্ত পেশীর ক্র্যাম্প, পেশীর বিশেষ গোষ্ঠী, বাছুরের ক্র্যাম্প, কোলিক এবং পতনের বিরুদ্ধে একটি সুপরিচিত প্রতিকার।
এটির ইঙ্গিতগুলি করোনারি খিঁচুনি, এনজাইনা পেক্টোরিস, স্ক্লেরোটিক প্রসেস এবং মনের অস্থিরতার সংমিশ্রণে ভেঙে পড়ার জন্য একটি খুব ভাল চিকিৎসা।

এটি নিদ্রাহীনতা, পেটে কোলিক অবস্থা এবং অন্যান্য খিঁচুনি সহ মস্তিষ্কের উত্তেজনাকে একটি নির্ভরযোগ্য উপায়ে নিয়ন্ত্রণ করে।

এটি একটি অত্যন্ত দরকারী বিষয়, কারণ এটি গ্যাস্ট্রাইটিস, আলসার ভেন্ট্রিকুলি এবং ডুওডেনি ক্র্যাম্পস এবং কোলাইটিস অবস্থার জন্য সর্বশক্তিমান স্পাসমোলাইটিক।

আরও পড়ুন – কেন্ট ৫৫ (মৃগী রোগে কার্যকর)

অ্যাডাল নং -৩৮ স্পাস্ট ড্রপসের কম্বিনেশ মিশ্রণ :
(১) আম্মি বিস্নাগা 12x (Ammi visnaga 12x)।
(২) অ্যাট্রোপা বেলেডোনা 12x (Atropy Belladona 12x)।
(৩) কাপরাম অ্যাসিটিকাম 12x (Atropy Belladona 12x)।
(৪) নিকোটিয়ানা ট্যাবাকাম 10x (Nicotana Tabacum 10x)।
(৫)পোটেনটিলা আনসেরিনা 6x (Potentilla Anserine 6x)।
(৬)স্ট্রিশনস ইগনাটিই 12x (Strychnos Lgnatii 12x)।
(৭) সেকেল কর্নুটাম 12x (Secale Comutum 12x)।
(৮) হায়োসায়ামাস নাইজার 10x (Hyoscyamus niger 10x)।

আরও পড়ুন – এন – ১৫ (নার্ভ টনিক ড্রপস)

অ্যাডাল নং -৩৮ স্পাস্ট ড্রপসরি কার্যকারিতা:

(ক) আম্মি বিস্নাগা (Ammi visnaga) : শ্বাসনালীর পেশী, হাঁপানির ক্স্যাম্পের বিরুদ্ধে এটি কাজ করে। এটি এনজাইনা পেক্টোরিস (বুকে তীব্র ব্যথা), হাইপারটোনি (অস্বাভাবিকভাবে উচ্চ পেশীর স্বর), স্পাস্টিক (পেশীর খিঁচুনি দ্বারা প্রভাবিত) অবস্থা ও কোননের ক্স্যাম্পের চিকিৎসায় ব্যবহার হয়।

(খ) অ্যাট্রোপা বেলেডোনা (Atropy Belladona) : সারা শরীর জুড়ে ক্স্যাম্প ও খিঁচুনি নিরাময়ে সাহায্য করে। এটি মাথার ভিড় ও অস্থিরতার অনুভুতির চিকিৎসা করে।

(গ) কাপরাম অ্যাসিটিকাম (Cuprum aceticum) : পেশীর ক্স্যাম্প, খিঁচুনি, কেলিফস (হাওয়া বা অন্ত্রে বাধার কারণে পেটে তীব্র ব্যথা) এবং পতনের চিকিৎসা করে।

(গ) ন্যটিয়ানা ট্যাবাকাম (Nicotana Tabacum) : এটি একটি প্রত্যয়িত সীমাবদ্ধ এবং ভাসোডিলেশন বিরুদ্ধে কাজ করে। এটি এনজাইনা পেক্টোরিস, মনের অস্থিরতা ইত্যাদি চিকিৎসা করে। এর ইঙ্গিতগুলি করোনারি খিঁচুনি, এনজাইনা পেক্টোরিস, স্ক্লেরোটিক প্রক্রিয়া এবং মনের অস্থিরতার সাথে মিলিত হয়ে ভেঙে পড়ার প্রবণতার জন্য খুব ভাল। অভ্যন্তরীণ এবং অন্ত্রের অঙ্গগুলির জন্য বা শক্ততা এবং ফ্ল্যাসিড পক্ষাঘাত সহ পেশীবহুল সিস্টেমের জন্য বিষয়টি নির্দেশিত হয়।

আরও পড়ুন – র‌্যাক্স নং- ৭০ (মৃগী রোগ)

(ঘ) পোটেনটিলা আনসেরিনা (Potentilla Anserine) : এটি বেদনাদায়ক মাসিক (dysnmenorrhoe) ক্স্যাম্পের বিরুদ্ধে কাজ করে। (dysnmenorrhoe) – আলসেরা ভেন্ট্রিকুলি পেটের আলসার, গ্যাস্টাইটিস পেটের আস্তবণের প্রদাহ, কোলাইটিস, কোলনের আস্তরণের প্রদাহ) ইত্যাদি চিকিৎসায় কাজ করে। এছাড়াও এটি তাপ জমা হওয়া এবং সায়ানোসিসের লক্ষণ নীল বা বেগুনি, ত্বক বা শ্লেম্মা ঝিল্লির রঙ্গেও চিকিৎসা করে। এটি ডিসমেনোরিয়া ক্র্যাম্প এবং ব্যথার বিরুদ্ধে কাজ করে।

(ঙ) স্ট্রিশনস ইগনাটিই(Strychnos ignatii) : মোচড়ানো, ক্স্যাম্প, কনজেশন ও হিস্টেরিক (অতিরিক্ত প্রতিক্রিয়া) অবস্থার চিকিৎসা করে। এটি মনস্তিাত্বিক (অভ্যান্তরীন দ্ব›দ্ব বা চাপ) পরিস্থিতিতে চিকিৎসা করে। এগুলি মানসিক চাপ বা দীর্ঘ ক্রমাগত দুঃখের পরে মনোদৈহিক পরিস্থিতি, এবং তাই এটি প্রায়শই একক বা সংমিশ্রণ প্রতিকার হিসাবে ব্যবহৃত হয়।

(চ) হায়োসায়ামাস নাইজার (Hyoscyamus niger) : মৃগী রোগের লক্ষণ যেমন – মোচড়ানো স্পাস্টিক বিকাশ ও হজমের উপায়ে খিঁচুনি এবং স্বাসযন্ত্রের অঙ্গগুলির চিকিৎসায় ব্যবহার হয়। এটি নিদ্রাহীনতা, কোলিক ও খিঁচুনি সহ মস্তিস্কের উত্তেজনা নিয়ন্ত্রণ করে।

আরও পড়ুন – এইচ আর – ৩৬ (প্যারালাইসিস চিকিৎসায় কার্যকর)

অ্যাডাল নং – ৩৮ ঔষধ সেবন বিধি : প্রাপ্ত বয়স্করা জন্য ১৫ থেকে ২০ ফোঁটা, শিশুরা ৭ থেকে ১০  ফোঁটা ১/৪ কাপ পানিতে মিশিয়ে দিনে ৩ বার অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করতে হবে।

চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।

শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : এই ঔষধ সেবনে কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই।

সতর্কতা : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন। এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন। সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev