সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১২:০৯ অপরাহ্ন

আডাল-৩৩ ( হাত-পা ফুলা)

আরোগ্য হোমিও হল / ১৮৫ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪, ৫:৪৭ অপরাহ্ন
আডেল নং – ৩৩ ( হাত-পা ফুলা)

Adel-33 (swollen hands and feet)।

অ্যাডাল -৩৩ ( হাত-পা ফুলা)।

প্রস্তুত প্রণালী :  জার্মান কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ।

আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “আডাল– ৩৩ ( হাত-পা ফুলা)” কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।

ব্যবহার : আডাল – ৩৩ (ওডেমা) ড্রপসটি পানি ধরে রাখার জন্য এবং হাত/পা ফুলে যাওয়া, কার্ডিয়াক, হেপাটিক, কিডনি, লিম্ফ্যাটিক এবং সাবকুটেনিয়াস কোষের টিস্যু সহ বিভিন্ন ধরণের শোথ যা গোড়ালি ফোলা এবং ফোলাভাব সৃষ্টিতে ব্যবহার করা হয়।

আডাল – ৩৩ (ওডেমা) ইঙ্গিত : জটিল চিকিৎসার অংশ হিসাবে হেপাটিক, কিডনি, লিম্ফ্যাটিক অথবা কার্ডিয়াক সম্পর্কিত বিভিন্ন ধরণের শোথে সহায়ক চিকিৎসা যা একটি জটিল চিকিৎসার অংশ হিসাবে পায়ের ফোলা গোড়ালি এবং অ্যাসাইটস সৃষ্টি করে।

আডেল নং – ৩৩ (ওডেমা) লক্ষণ :
কার্ডিয়াল, হেপাটিক, রেনাল, লিম্ফ্যাটিক এবং সাবকুটেনিয়াস সেল টিস্যু সহ বিভিন্ন ধরণের শোথের চিকিৎসায় ব্যবহার হয়। শোথের বিকাশকে ট্রিগার বা সহগামী করতে পারে যেমন – প্রদাহ, জমা, রক্তসঞ্চালনে বাধা এবং করোনারি অপ্রতুলতার মাধ্যমে রক্ত সঞ্চালন দুর্বলতা এবং কিডনির কার্যকারিতা হ্রাস। এটি জল ধারণ, পেট ফোলা এবং শিরাস্থ স্ট্যাসিসের কারণে ফোলা গোড়ালি উপশম করে।

আরও পড়ুন – এইচ আর – ৯৮ (অ্যালার্জি, সর্দি, হাঁচি, কাশিতে কার্যকর)

আডাল – ৩৩ (ওডেমা) ঔষধের কম্বিনেশন :
(১) এপোসাইনাম কেনাবিনাম 8x (Apocynum cannabinum 8x)।
(২) এস্কিউলাস হিপ্পোক্যাষ্টানাম 8x (Aesculus hippocastanum 8x)।
(৩) কনভালারিয়া মাজালিস 8x (Convalllaria majalis 8x)।
(৪) ফিলিপেন্ডুলা উলমারিয়া 6x (Filipendula ulmaria 6x)।
(৫) থুজা অক্সিডেন্টালিস 8x (Thuja occidentalis 8x)।
(৬) সাম্বুকাস নিগ্রা 6x (Sambucus nigra 6x)।
(৭) স্টিগমাটা মেডিস 8x (Stigmata maydis 8x)।
(৮) হেলেবোরাস নাইগার 8x (Helleborus Niger 8x)।

আডাল – ৩৩ (ওডেমা) ঔষধের কার্যকারিতা :

(ক) এপোসাইনাম ক্যানাবিনাম (Apocynum cannabinum) : এটি রেনাল ও হেপাটোজেনিক শোথের দিকে পরিচালিত ক্ষতির বিরুদ্ধে হার্টের পেশীকে শক্তিশালী করে। জলের জন্য প্রচণ্ড তৃষ্ণার সাথে জলোচ্ছ্বাসের জন্য এটি নির্দিষ্ট। এটি অ্যাসাইটস (পেটের ফুলে যাওয়া), হাইড্রোথোরাক্স (প্লুরাল গহ্বরের তরল) ও অ্যানাসারকা (পুরো শরীরের সাধারণ ফোলা) জন্য কার্যকর। নাড়ির কম্পাঙ্ক হ্রাস, স্বাভাবিকের চেয়ে কম প্রস্রাব প্র¯্রাব ঘোলাটে এবং গরম, বমি বমি ভাব বা অত্যধিক বমি এবং তন্দ্রা। অ্যাসাইট (পেট ফুলে যাওয়া), পেট থেকে পানি বের করার জন্য ভাল কাজ করে।

(খ) এস্কিউলাস হিপ্পোক্যাষ্টানাম (Aesculus hippocastanum) : এটি পুরো শরীরে কনজেশনের বিরুদ্ধে কাজ করে, যা স্বাভাবিক সঞ্চালনকে বাধা দেয়। হাত ও পায়ের ফোলাভাব কমিয়ে কিডনির কার্যকারিতা উন্নত করে। এটি কিডনিকে উদ্দীপিত করে এবং রক্ত চলাচলের সমস্যা দূর করে যার ফলে পা ও হাত ফুলে যায়।

(গ) কনভালারিয়া মাজালিস (Convalllaria majalis) : এটি নার্ভাস হার্টের অবস্থার চিকিৎসা করে যা হৃৎপিণ্ডের পেশীতে সংক্রামক বিষাক্ত ব্যাঘাতের কারণে সৃষ্ট হয়। অঙ্গের শক্তিকে শক্তিশালী করে নার্ভাস হার্টের অভিযোগ দূর করে।

(ঘ) ফিলিপেন্ডুলা উলমারিয়া (Filipendula ulmaria) : এটি বিপাকীয় উদ্দীপক হিসাবে কাজ করে। এটি মূত্রবর্ধক হিসেবেও কাজ করে যা কনক্রিমেন্ট দ্রবীভূত করতে সাহায্য করে। বাতজনিত প্রক্রিয়াগুলির বিরুদ্ধে একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ প্রতিকার যা পরিস্থিতির সাথে জড়িত হতে পারে।

(ঙ) থুজা অক্সিডেন্টালিস (Thuja occidentalis) : সমস্ত শরীরের দীর্ঘস্থায়ী এবং তীব্র ক্যাটারহ্যালিক (অতিরিক্ত জমা হওয়া বা শ্লেষ্মা নিঃসরণের চিকিৎসা করে। এটি শুধুমাত্র মূত্রতন্ত্রের গভীর দীর্ঘস্থায়ী প্রদাহের সাথে সাইকোটিক গঠনে কার্যকর নয় তবে এটি প্রচুর পরিমাণে বিপাকীয় নিয়ম দেখায়, যা ড়বফবসধঃরপ অবস্থার জন্য অত্যান্ত প্রয়োজনীয়।

(চ) সাম্বুকাস নিগ্রার (Sambucus nigra) : শরীরের বিভিন্ন অংশে ড্রপসিকাল বিকাশে প্রতিকার রয়েছে। এটি মূত্রবর্ধক হিসাবে কাজ করে এবং স্বল্প প্রস্রাব প্রবাহের সাথে নেফ্রাইটিসের যা উরু, পা ইত্যাদি সহ সারা শরীরে ফোলাভাব কমাতে সাহায্য করে।

(ছ) স্টিগমাটা মেডিস (Stigmata maydis) : একটি শক্তিশালী মূত্রবর্ধক ঔষধ। এটি জৈব হৃদরোগে সাফল্যের সাথে ব্যবহার করা হয়েছে যার নিম্ন প্রান্তের শোথ এবং স্বল্প প্রস্রাব। এটি প্রস্রাবের অঙ্গগুলির প্রদাহের বিরুদ্ধে কাজ করে ও এর গুরুত্বপূর্ণ বিপাকীয় ক্রিয়াকলাপগুলি নিয়ন্ত্রণ করে।

(জ) হেলেবোরাস নাইজার (Helleborus Niger) : তীব্র নেফ্রাইটিসের চিকিৎসায় ব্যবহার হয়, এর লক্ষণ, সাধারণভাবে পেশীগুলির দুর্বলতার সাথে সংমিশ্রণে ভিড় এবং কিডনির প্রদাহ সৃষ্টি করে। সংক্রামক ব্যাকটেরিয়াজনিত জ্বর এবং স্কারলেট ফুসকুড়ি সৃষ্টি করে), মেনিনজাইটিস (তীব্র মাথাব্যথা এবং জ্বর দ্বারা চিহ্নিত মেনিনজেসের প্রদাহ), হার্টের দুর্বলতা ও ব্রঙ্কিয়াল কনজেশনের মতো শোথের লক্ষণ গুলির চিকিৎসা করে। এটি হজম অঙ্গগুলিকে নিয়ন্ত্রণ করে এবং স্নায়বিক মানসিক সংবেদনগুলি দূর করে।

আরও পড়ুন – কেন্ট ৬৬  (টিউমার ও ক্যান্সার রোগে কার্যকর)

অ্যাডাল নং – ৩৩ ঔষধ সেবন বিধি : প্রাপ্ত বয়স্করা জন্য ১৫ থেকে ২০ ফোঁটা, শিশুরা ৭ থেকে ১০ ফোঁটা ঔষধ  ১/৪ কাপ পানিতে মিশিয়ে দিনে ৩ বার অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করতে হবে।

চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।

শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : এই ঔষধ সেবনে কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই।

সতর্কতা : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন। এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন। সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev