শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ০৩:০৯ অপরাহ্ন

অ্যাডাল-৬১ (হরমোনের সমস্যা)

আরোগ্য হোমিও হল / ১১৭ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ রবিবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪, ৬:০৭ অপরাহ্ন
অ্যাডেল নং - ৬১ (হরমোনের সমস্যা)

Adele -61 (Hormone Problems)।

অ্যাডাল – ৬১ (হরমোনের সমস্যা)।

আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “অ্যাডাল  – ৬১ সুপ্রেন ড্রপ (হরমোনের সমস্যা)” কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।

প্রস্তুত প্রণালী :  জার্মান কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ।

অ্যাডাল নং – ৬১ সুপ্রেন ড্রপ এর ব্যবহার : অ্যাড্রিনাল গ্রন্থি শক্তি শালী ও হরমোনের ভারসাম্যহীনতায় ব্যবহার করা হয়। অ্যাড্রিনাল গ্রন্থিগুলিকে ডিটক্সিফাই করে, শক্তিশালী করে তা নিয়ন্ত্রণ করে।

অ্যাডাল – ৬১ (হরমোনের সমস্যা) লক্ষণ : দীর্ঘস্থায়ী ক্লান্তিবোধ, ক্ষুধা হ্রাস এবং গ্যাস্টেইনটেস্টাইনাল অভিযোগ সহ দুর্বল অ্যাড্রিনাল সম্পর্কিত সব লক্ষণগুলির মসস্যায় কার্যকরী। অ্যাড্রিনাল গ্রন্থিগুলির কর্মহীনতার কারণে অ্যাড্রিনাল ক্লান্তি বর্তমান আধুনিক সমাজে ব্যাপক ভাবে বিস্তার করেছে। এই অবস্থা আক্রান্ত রোগীর স্বাস্থ্যের উপর গুরুতর প্রভাব ফেলতে পারে। যাহার ফলে এটি অপরিহার্য যে অ্যাডিনাল ক্লান্তিপ্রতিরোধের কোনও পাশর্^ প্রতিক্রিয়া ছাড়াই প্রাকৃতিক উপায়ে প্রতিকারের মাধ্যমে সমাধান করা উচিত।

আরও পড়ুন – এইচ আর -০৮ (মহিলাদের অবাঞ্ছিত মুখের চুলের চিকিত্সায় কার্যকর)

অ্যাডাল – ৬১ সুপ্রেন ড্রপ (হরমোনের সমস্যা) ঔষধের মিশ্রণ:
(১) অ্যাসিডাম আর্সেনিকোসাম 12x (Acidum arsenicosum12x)।
(২) অ্যাসিডাম সিলিসিকাম 12x (Acidum silicicum 12x)।
(৩) অ্যাসিডাম সালফিউরিকাম 8x (Acidum sulfuricum 8x)।
(৪) ক্রিওসোটাম 12x (Cryosotum 12x)।
(৫) চ্যামেলিবিয়াম লুটিয়াম 12x (Chamaelirium luteum 12x)।
(৬) লেমনা মাইনর (Lemna Minor 12x)।
(৭) ম্যাগনেসিয়াম ফ্লোরাটাম 12x (Magnesium floratum 12x)।
(৮) হাইড্রোস্টিম ক্যান 12x (Chamaelirium luteum 12x)।

আরও পড়ুন – এইচ আর – ৪৯ (মহিলাদের অনুন্নত গ্রন্থিতে কার্যকর)

অ্যাডাল নং – ৬১ সুপ্রেন ড্রপ (হরমোনের সমস্যা) ঔষধের কার্যকারিতা :

(ক) অ্যাসিডাম আর্সেনিকোসাম (Acidum arsenicosum) : এটি হল টস্ক ফোর্সেও অংশ যা শরীরের ক্রমবর্ধমান দুর্বলতা ও ওজন হ্রাসের বিরুদ্ধে লড়াই করে একটি সামগ্রিক ও নিয়ন্ত্রক উপায়ে লিভারে এবং প্লীহার ক্রিয়াকলাপকে ইতিবাচক ভাবে প্রভাবিত করে যার মধ্যে সম্ভবত বর্তমান ডায়াবেটিস রযেছে। এটি একটি রোগের ম্যালিগন্যাট কোর্সকেও প্রতিরোধ করতে সহায্য করে।

(খ) অ্যাসিডাম সিলিসিকাম (Acidum silicicum) : এটি প্রোটিনের সংমিশ্রণ যা অন্যান্য বহিরাগত উপদানের জমা হওয়া ভাইরাস, ব্যাকটেরিয়া, ছাত্রাকের ফ্যাগোসাইটিসকে উন্নীত করার মাধ্যমে সংযোগকারী টিস্যু এবং জঊঝ ভাবে এর কার্যকারিতা লক্ষ্য করে। অগ্ন্যাশয়ে ও প্লীহা সরাসরি সিলিকা অ্যাসিড সঞ্চয় রায় নিরাময় প্রক্রিয়াগুলিকে যথেষ্ট পরিমাণে উন্নীত করে এমনকি দীর্ঘস্থায়ী রোগেও ফিস্টুলেশন প্রতিরোধ করে ও মলত্যাগের প্রস্তুতি হিসাবে পুঁজের পরিপক্কতা প্রচার করে। তাই উপাদানটি ডায়াবেটিস রোগের জন্যও সহায়ক হিসাবে কাজ করে।

(গ) অ্যাসিডাম সালফিউরিকাম (Acidum sulfuricum) : এটি নি:সরণ প্রকিয়ার পাশাপাশি প্রোটিন বিপাক থেকে অ্যামিনো অ্যাডিডের ক্যাটাবোলাইসের যতœ নেয়। এখানেই লিভারের নিয়মগুলি রেটিকুলো-এন্ডোথেলিয়াম সিস্টেমের একটি অপরিহার্য অংশ ও গ্যাস্টো-ইনটেস্টাইনাল ট্র্যাক্ট অথবা শিরাস্থ সঞ্চালনের নেতিবাচক বিকাশের জন্য বিপাকের প্রধান অঙ্গ, বিলম্বিত স্বাস্থ্য পুররুদ্ধারের সাথে মিলিত দুর্বলতা, ক্ষুধা হ্রাস এবং ঘুমের ব্যাধি প্রায়ই হাস্যরসের স্থবিরতা হিসাবে কাজ করে।

(ঘ) ক্রিওসোটাম (Cryosotum) : ক্রিওসোটাম সাধারণত গভীর-সেট ক্যাটারাসকে প্রভাবিত করে যার সাথে তীব্র, চ্যাফিং নি:সরণ হয় যা এর কার্যকারিতা সমস্ত জৈব সিস্টেম পৌঁছায়। এছাড়াও পুরুরিটাস সহ ডায়াবেটিসের অভ্যন্তরে গ্যাংগ্রিনাস বিকাশসহ এর কার্যকারিতার পরিসীমা প্লিফেরোকনজাংটিস থেকে মাড়রি প্রদাহ, ব্রঙ্কো-পালমোনারি প্রদাহ, গ্যাস্টিক আলসারের গঠন, ত্বকের জ্বালা, ইউরেজিনিটাল অঙ্গগুলির প্রদাহ ও মাসিকের অভিযোগের মাধ্যমে রক্তের গুণমান পরিবর্তন পর্যন্ত চলে থাকে।

আরও পড়ুন – এন – ৫১ (থাইরয়েড হরমনের মাত্রারিক্ত বৃদ্ধিতে কার্যকর)

(ঙ) চ্যামেলিবিয়াম লুটিয়াম (Chamaelirium luteum) : চ্যামেলিবিয়াম কে প্রধানত মহিলাদের ঔষধ হিসাবে উল্লেখ করা হয়েছে। এটি মহিলাদের যৌনাঙ্গের কর্মহীনতার সাথে সম্পর্কিত প্রোটিন নি:সরণ বৃদ্ধি এবং পিঠের ও কিডনির ছোট অংশে বেদনাদায়ক বিকাশের সাথে সম্পর্ক। পদার্থটি অবসাদগ্রস্ত অবস্থারও বিরোধিতা করে যা ক্লান্তির দিকে পরিচালিত করে। এটি প্রায়শই যদিও বিক্ষিপ্ত হওয়ার সময় প্রশমিত হয়। এই উপদানটিও ডায়াবেটিস বিকাশের বিরোধিতা করে।

(চ) লেমনা মাইনর (Lemna Minor ) : এটি প্রধানত মাথার অঞ্চলের সাথে সম্পর্কিত ডাকউইড লেমনা সরা গ্রীস্মে সূর্যেও সংস্পর্শে এসে দাঁড়িয়ে থাকা জলের পৃষ্ঠে জন্মায় যাহার ফলে এটি সূর্যেও অত্যাবশ্যক শক্তি গ্রহণ করে ও সঞ্চয় করে। দীর্ঘস্থায়ী ফুসকুড়ি এবং প্রকৃতিক সর্বোত্তম কার্যকার ।

(ছ) ম্যাগনেসিয়াম ফ্লোরাটাম (Magnesium floratum) : সব ধরণের প্রদাহ জন্য এটি নির্দিষ্ট। এখানে সংমিশ্রণে স্বয়ংক্রিয় এবং প্যাথোজেনিক টক্সিনের জন্য বিশেষভাবে কার্যকরী ফাংশনে হিসাবে স্বীকৃত। এখানে ম্যাগনেসিয়ামের অংশটি প্রোটিনকে উদ্দীপিত হয়ে যা ব্যাকটেরিয়া এবং ভাইরাসগুলি কাটিয়ে উঠতে পারে। ম্যাগনেসিয়াম হল ফোকাল ইনফেকশনের ব্যাকটেরিয়া ফ্লোরাকে আক্রমণ করার উপদান এবং তাই মূলত জটিল ভাগ অ্যাসিডাম সালফিউরিকামের কার্যকারিতা সমর্থন করে। শক্তিশালী পদে সমস্ত জটিল শেয়ারের মিথিস্কিয়া অত্যান্ত দক্ষ বলে প্রমাণিত তাই এটি আসন্ন সংস্কারের থেরাপিতেও এর উচ্চ কার্যকারিতা রয়েছে অবদান রাখতে পারে।

(জ) হাইড্রোস্টিম ক্যান (Chamaelirium luteum) : এটি শ্লেম্মা ঝিল্লির দীর্ঘস্থায়ী রোগের সাথে সামগ্রিক জীবের দুর্বলতার সাথে লড়াই করে। এখানে এটি স্পষ্ট হয়ে যায় যে দীর্ঘস্থায়ী দীর্ঘস্থায়ীতাগুলি ক্যান্সারের বিকাশের একটি রুপান্তর হতে পারে তাই এটি একটি জীবের এই দীর্ঘস্থায়ী প্রক্রিয়াগুলিকে একটি নিয়ন্ত্রকভাব প্রভাবিত করে। এবং কোন ক্ষেত্রেই কেবল উপশ্রমকারী উপায়ে নয়। এই ধরনের উন্নয়নের সুযোগ এছাড়াও প্রতিকার করে।

আরও পড়ুন – র‌্যাক্স নং- ৬০ (থাইরয়েড হরমোন হ্রাসজনিত সমস্যা)

অ্যাডাল নং- ৬১ ঔষধ সেবন বিধি : প্রাপ্ত বয়স্করা জন্য ১৫ থেকে ২০ ফোঁটা, শিশুরা ৭ থেকে ১০ ফোঁটা ঔষধ ১/৪ কাপ পানিতে মিশিয়ে দিনে ৩ বার অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করতে হবে।

চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।

শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : এই ঔষধ সেবনে কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই।

সতর্কতা : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন। এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন। সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev