সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ০১:৪১ অপরাহ্ন

অ্যাডাল-৪৯ (ডায়রিয়া)

আরোগ্য হোমিও হল / ১১০ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪, ৫:৩৮ অপরাহ্ন
অ্যাডেল নং – ৪৯ (ডায়রিয়া)

Adele – 49 (Diarrhea)।

অ্যাডাল নং – ৪৯ (ডায়রিয়া)।

আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “অ্যাডাল নং – ৪৯ (ডায়রিয়া)” কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।

প্রস্তুত প্রণালী :  জার্মান কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ।

ব্যবহার : অ্যাডাল নং – ৪৯ ঔষধ পুষ্টির ব্যাঘাত এবং গ্যাস্ট্রোএন্টেরাইটিস সহ সব ধরনের ডায়রিয়ার জন কার্যকর যা পাকস্থলী ও অন্ত্রের প্রদাহ, পেটের ক্র্যাম্পস এবং ফুড পয়জনিং এ ব্যবহার করা হয়।

অ্যাডাল নং – ৪৯ লক্ষণ : এটি বমি বমি ভাব, পেট ফাঁপা ও এবং ডায়রিয়ার হালকা ক্ষেত্রে উপশম করার জন্য নির্ধারিত হতে পারে যা প্রায়শই গ্রীষ্মকালে সংক্রমণ অথবা খাদ্যের বিষক্রিয়ার কারণে হয়ে থাকে। এটি কোলাইটিসের দীর্ঘস্থায়ী ফর্মগুলি যেমন – ক্রোনের রোগ এবং ইরিটেবল বাওয়েল সিনড্রোম মোকাবেলায় ব্যবহার করা যেতে পারে। ডায়রিয়ার সাথে সম্পকিত এমন বিভিন্ন লক্ষণগুলি থেকেও মুক্তি দেয় যেমন – শিরা স্থবিরতা এবং অন্ত্রের ট্র্যাক্টের প্রদাহ। পাচনতন্ত্রের টিস্যুতে সঠিক সঞ্চালন, হজম এবং একটি স্বাস্থ্যকর অন্ত্রের শ্লেষ্মাকে সমর্থন করে ডায়রিয়া সমাধানে সহায়তা করে।

আরও পড়ুন – বায়ো কম্বিনেশন ৮ (ডায়রিয়া)

আডাল নং – ৪৯ ঔষধের মিশ্রণ :
(১) আর্টেমিসিয়া অ্যাব্রোটানাম 4X (Artemisia abrotanum 4X)।
(২) ওকাউবাকা আউব্রেভিলি 2X (Okoubaka aubrevillei 2X)।
(৩) পডোফাইলাম 6X (Podophyllum 6X)।
(৪) পটেনটিলা আনসারিন 4X (Potentilla anserin 4X)।
(৫) সিট্রুলাস কোলোসিনথিস 6X (Citrullus colocynthis 6X)
(৬) সিনারা স্কোলিমাস 6X (Cynara scolymus 6X)।
(৭) ভেরাট্রাম অ্যালবাম 6X (Veratrum album 6X)।

আরও পড়ুন – এইচ আর – ০৭ (ডায়রিয়া চিকিৎসায় কার্যকর)

অ্যাডাল – ৪৯ ঔষধের কার্যকারিতা :

(ক) আর্টেমিসিয়া অ্যাব্রোটানাম (Artemisia abrotanum) : এটি একটি অনুপ্রবেশকারী লিম্ফ্যাটিক যার প্রভাব পরিপাকতন্ত্রে, এটি অন্যদের মধ্যে, ইঙ্গিতের দিকে পরিবর্তিত হয় যেমন – পরিবর্তনশীল ক্ষুধা, অম্বল, কোলিক পেটে ব্যথা ও মেটিওরিজম, কোষ্ঠকাঠিন্যের সাথে পর্যায়ক্রমে ডায়রিয়ার সাথে কোলাইটিসের চিত্রটি পূরণ করে। এটি সংক্রমণ এবং প্রদাহের জন্য নিরাপদ ইঙ্গিতগুলির মালিক।

(খ) ওকাউবাকা আউব্রেভিলি (Okoubaka aubrevillei): এটি একটি প্রথম শ্রেণীর ডিটক্সিফিকেশন ঔষধ হিসাবে প্রমাণ করেছে। এটি ফ্লু, ফ্লেবিটিস, টক্সিপ্লাজমোসিস ও অনেক শৈশব রোগ সহ বিভিন্ন ধরণের রোগ উপশম করতে ব্যবহৃত হয়। এছাড়াও দীর্ঘস্থায়ী রোগের উপর গভীর প্রভাব ফেলে যা গ্রীষ্মমন্ডলীয় অঞ্চলের যাত্রীদের যেমন গুরুতর ডায়রিয়াতে আক্রান্ত করে।

(গ) পডোফাইলাম (Podophyllum) : তীব্র এন্টারাইটিস এবং গ্যাস্ট্রো-এন্টেরাইটিসের থেকে মুক্তি দেয় যেখানে এটি বিশেষ করে ডুডেনাম, লিভার ও পিত্তপথের দীর্ঘস্থায়ী-স্ফীত পরিস্থিতিতে পরিণত হয়। এই ধরনের রোগের সাথে পরিলক্ষিত আরেকটি লক্ষণ হল জিহ্বায় জ্বলন্ত সংবেদন এবং সবচেয়ে গুরুতর স্প্যাসমোডিক ব্যথার সাথে একটি ফোলা পেট ও সেইসাথে শিরাস্থ স্ট্যাসিস অতিরিক্তভাবে সেই পদার্থের প্রয়োগের ক্ষেত্রটিকে চিহ্নিত করে।

(ঘ) পটেনটিলা আনসারিন (Potentilla anserin) : এটি বিশিষ্ট ট্যানিনের জন্য এই নিরাময় কমপ্লেক্সে ব্যবহার করা হয়। এটি আলগা মিউকোসাল টিস্যুগুলির দৃঢ়তা বাড়ায় ও একটি ব্যাপক স্প্যাসমোলাইটিক হওয়ার কারণে এটি বিশেষত্বের সামগ্রিক কার্যকারিতার পক্ষে।

আরও পড়ুন – কন্ট ২৪ (ডায়রিয়া রোগে কার্যকর)

(ঙ) সিট্রুলাস কোলোসিনথিস (Citrullus colocynthis) : পেটের সমস্ত ফাঁপা অঙ্গে কোলিকি খিঁচুনি উপশম করার পাশাপাশি পাচনতন্ত্রের পেরিফেরাল স্নায়ুতে ব্যথা উপশমে কার্যকর। গুরুতর ছুরিকাঘাত করা অন্ত্রের কোলিকের সাথে সর্দি, খাওয়ার পরেই রক্তাক্ত মল, দ্বিগুণ হওয়ার সময় উন্নতি এবং স্নায়বিক ব্যথায় নির্ভরযোগ্যভাবে ভারসাম্যপূর্ণ।

(চ) সিনারা স্কোলিমাস (Cynara scolymus) : এটি হজম প্রক্রিয়ার রেচনযন্ত্রে কার্যকর। এটি সবচেয়ে উপযুক্ত যকৃতের প্রতিকারগুলির মধ্যে একটি, এটি অ্যামারয়েড সাইনারিনের সাথে, এনজাইম সাইনারেজ এটি হজম, ডায়ুরেসিসকে সমর্থন করে এবং প্রচার করে, রক্তে শর্করাকে কমায়, বিঘ্নিত বিপাকীয় প্রক্রিয়াগুলিকে ডিটক্সিফাই করে।

(ছ) ভেরাট্রাম অ্যালবাম (Veratrum album) : এটি গ্যাস্ট্রো-ইনটেস্টাইনাল রোগের প্রতিকার। এটি জ্বর-বিরোধী হিসাবে প্রকাশ করে এবং সংবহনতন্ত্রকে স্থিতিশীল করে, এইভাবে আসন্ন পতন পর্যন্ত সংবহনতন্ত্রের নিয়ন্ত্রক ব্যাধিগুলিকে প্রতিরোধ করে।

অ্যাডাল নং – ৪৯ ঔষধ সেবন বিধি : প্রাপ্ত বয়স্করা জন্য ১৫ থেকে ২০ ফোঁটা, শিশুরা ৭ থেকে ১০ ফোঁটা কাপ ১/৪ পানিতে মিশিয়ে দিনে ৩ বার অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করতে হবে।

আরও পড়ুন – র‌্যাক্স নং- ৪ (ডায়রিয়া)

চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।

শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : এই ঔষধ সেবনে কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই।

সতর্কতা : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন। এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন। সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev