সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১২:৩৭ অপরাহ্ন

অ্যাডাল-২৯ (মূত্রনালীর সংক্রমণ)

আরোগ্য হোমিও হল / ১৫২ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ রবিবার, ৩ মার্চ, ২০২৪, ৫:৩০ অপরাহ্ন
অ্যাডেল নং – ২৯ (মূত্রনালীর সংক্রমণ)

Adel- 29 (Urinary Tract Infection)।
অ্যাডেল -২৯ (মূত্রনালীর সংক্রমণ)।
প্রস্তুত প্রণালী : জার্মান কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ।
আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো অ্যাডাল– ২৯ (মূত্রনালীর সংক্রমণ) কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।
ব্যবহার :  অ্যাডাল – ২৯ (আকুতুর) ড্রপসটি  তীব্র ও দীর্ঘস্থায়ী মূত্রনালীর সংক্রমণ যেমন – ইউরেথ্রাইটিস, সিস্টাইটিস, নেফ্রাইটিস, সিস্টোপাইলিটিস ও সিস্টোপাইলোনফ্রাইটিস ইত্যাদিতে ব্যবহার করা হয়।
অ্যাডাল – ২৯ (আকুতুর) ড্রপসটি লক্ষণ :  এটি সিস্টাইটিস, ইউরেথ্রাইটিস, নেফ্রাইটিস, সিস্টোপাইলিটিস, সিস্টোপাইলোনফ্রাইটিস ও নিউরালজিয়া ভেসিকাসহ তীব্র এবং দীর্ঘস্থায়ী ইউরোলজিক্যাল সংক্রমণের জন্য একটি দ্রুত, কাজ করে। এই প্রতিকারটি সবচেয়ে কঠিন মূত্রনালীর সংক্রমণ, বিশেষত অল্পবয়সী মেয়ে অথবা মহিলাদের মধ্যে প্রচলিত সমস্যা গুলি দূর করে। এটি কিডনির অস্বস্তি সহ ইউরোলজিক্যাল ট্র্যাক্টের সংক্রমণের সাথে ব্যথার জন্য সেরা ফলাফল অর্জন করবে।
এটি মূত্রনালী ফ্লাশ করতে ও নিরাময় প্রক্রিয়ায় সহায়তা করতে, রোগীদের প্রচুর পরিমাণে উষ্ণ তরল যেমন ভেষজ ক্যামোমাইল চা পান করা উচিত। মনে রাখবেন একটি নিয়ম হিসাবে, তীব্র সিস্টাইটিস একটি পদ্ধতিগত সংক্রমণ, যখন দীর্ঘস্থায়ী সিস্টাইটিস এটি বিপাক দ্বারা সৃষ্ট হয় যা বার্ধক্য বা প্রোস্টেট সংক্রমণের সাথে থাকে।

আরও পড়ুন  –  এইচ আর – ১৩ (ডায়াবেটিস রোগে কার্যকর)

অ্যাডাল ২৯ (আকুতুর) ঔষধের মিশ্রণ :
(১) অ্যাসিডাম বেনজোইকাম 10x (Acidum Benzoicum 10x)।
(২) অ্যাসিডাম নাইট্রিকাম 6x (Acidum Nitricum 6x)।
(৩) ইকিসেটাম আরভেনস 6x ((Eqisetum Arvense 6x)।
(৪) ক্লেমাটিস রেক্টা 8x (Clematis Recta 8x)।
(৫) জিঙ্গিবার অফিসিয়াল 6x (Zingiber Officinale 6x)।
(৬) পপুলাস ট্রেমুলোয়েডস 6x (Populus Tremuloides 6x)।
(৭) পালসেটিলা  12x (Pulsatilla Pratensis 12x)।
(৮) সলিডাগো ভিরগুরিয়া (Solidago Virgaurea 6x)।

আরও পড়ুন  –  এইচ আর – ২৫ (প্রোস্টেট গ্রন্থিতে কার্যকর)

অ্যাডাল -২৯ (আকুতুর) ঔষধের কার্যকারিতা :
(ক) অ্যাসিডাম বেনজোইকাম (Acidum Benzoicum) :  এটি কিডনির জ্বালা, অসংযম এবং মূত্রাশয়, মূত্রনালীর সংক্রমণ থেকে মুক্তি দেয়, এর পাশাপাশি ইউরিক অ্যাসিডের মাত্রাও নিয়ন্ত্রণ করে।
(খ) অ্যাসিডাম নাইট্রিকাম (Acidum Nitricum) : এটি স্নায়ুতন্ত্রের দুর্বলতা সহ শ্লেষ্মা ঝিল্লির সংক্রমণের সমাধান করে। এটি নেফ্রাইটিস ও পাইলোনেফ্রাইটিসেও উপকারী যা প্রস্রাবের সময় জ্বলন্ত সংবেদন এবং রক্ত থাকতে পারে এমন দুর্গন্ধযুক্ত প্রস্রাবে নির্দেশিত।
(গ) ইকিসেটাম আরভেনস (Eqisetum Arvense) : খারাপ প্রস্রাবের অবস্থার ক্ষেত্রে তীব্র ও ঘন ঘন ব্যথার জন্য একটি দুর্দান্ত নিরাময় করে।
(ঘ) ক্লেমাটিস রেক্ট (Clematis Recta) : এটি সমস্ত শ্লেষ্মা ঝিল্লি ও প্রদাহের সাথে একটি বিশেষ সম্পর্ক রয়েছে । এটি প্রস্রাবের উপায়ে নির্দেশিত হয়, যেখানে এটি জ্বলন্ত এবং স্টিকিং ব্যথার বিরুদ্ধে কাজ করে।
(ঙ) জিঙ্গিবার অফিসিয়াল (Zingiber Officinale) :  এটি মূত্রনালী ফ্লাশ করে – সংক্রমণ বন্ধ করে। এটি ছুরিকাঘাত, জ্বলন্ত ব্যথার বিরুদ্ধে লড়াই করে। এমন অবস্থায় নির্গত প্রস্রাব সাধারণত মেঘলা এবং দুর্গন্ধযুক্ত হয়। একটি গুরুতর নেফ্রাইটিস অথবা সিস্টাইটিস, কিডনির নিয়ন্ত্রণ করে।

আরও পড়ুন  –   অ্যাডেল নং – ৩৯ (সায়াটিকা, বাত ব্যথা)

(চ) পপুলাস ট্রেমুলোয়েডস (Populus Tremuloides) : মূত্রাশয়ের প্রদাহের লক্ষণগুলি উপশম করে, যার মধ্যে প্রস্রাবে পুঁজ ও বেদনাদায়ক প্রস্রাব। এই ধরনের সংক্রমণ প্রায়শই প্রস্টেট রোগে আক্রান্ত বয়স্ক রোগীদের এবং গর্ভবতী মহিলাদের মধ্যে দেখা যায় যারা জরায়ু ও যোনি সমস্যাও অনুভব করে ।
(ছ) পালসেটিলা (Pulsatilla Pratensis) :  এটি প্রটেনসিস ইউরোজেনিটাল ট্র্যাক্ট সহ সমস্ত শ্লেষ্মা ঝিল্লির ক্যাটারার উপশম করে। এটি লিভার, পাকস্থলী, অন্ত্র বা গলব্লাডারের কার্যকারিতা বাড়িয়ে সংক্রমণ থেকে বিষাক্ত পদার্থের পদ্ধতিগত নির্গমনকে উদ্দীপিত করতে সাহায্য করে।
(জ) সলিডাগো ভিরগুরিয়া (Solidago Virgaurea) : এটি রেনাল ফাংশন উদ্দীপিত ও একটি মূত্রবর্ধক হিসাবে কাজ করে। এটি মূত্রাশয় এবং কিডনি সঠিকভাবে নিয়ন্ত্রিত এবং নির্গত করার ক্ষমতা পুনরুদ্ধার করে, এই পদার্থটি ঘন ঘন ক্যাথেটার ব্যবহারের প্রয়োজনীয়তা কামায়। এটি তীব্র গ্যাস্ট্রাইটিস অথবা দীর্ঘস্থায়ী চর্মরোগ নিরাময়ে ও লিভারের কার্যকারিতাকে শক্তিশালী করতে সাহায্য করে ।

আরও পড়ুন  –  র‌্যাক্স নং- ২৫ (প্রোষ্টেট গ্লান্ডের বৃদ্ধি)

অ্যাডাল নং – ২৯ ঔষধ সেবন বিধি : প্রাপ্ত বয়স্করা জন্য ১৫ থেকে ২০ ফোঁটা, শিশুরা ৭ থেকে ১০ ফোঁটা ঔষধ  ১/৪ কাপ পানিতে মিশিয়ে দিনে ৩ বার অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করতে হবে।
চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।
শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।
পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : এই ঔষধ সেবনে কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই।
সতর্কতা : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।
বায়ো কম্বিনেশন ২৫ (অম্লতা, পেট ফাঁপা ও বদহজম)
আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন।  এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।  সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন।  আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev