সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ১১:০০ অপরাহ্ন

অ্যাডাল-১৫ (লিউকোরিয়া)

আরোগ্য হোমিও হল / ৭৫ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ সোমবার, ১১ মার্চ, ২০২৪, ৫:২১ অপরাহ্ন
অ্যাডেল নং – ১৫ (লিউকোরিয়া)

Adel-15 (Leukorrhea)।
অ্যাডাল -১৫ (লিউকোরিয়া)।
আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “অ্যাডাল -১৫ (লিউকোরিয়া)“ কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।
প্রস্তুত প্রণালী : জার্মান কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ।
ব্যবহার : অ্যাডাল  – ১৫ ফ্লুফিন ড্রপসটি মহিলাদের যোনি থেকে শ্লেষ্মা বা সাদাস্রাব বা হলুদ বর্ণের স্রাব (লিউকোরিয়া) এবং যোনি স্রাব মহিলাদের অন্যান্য সম্পর্কিত সমস্যায় ব্যবহার করা হয়।
অ্যাডাল  -১৫ ফ্লুফিন ড্রপটির লক্ষণ : এটি লিউকোরিয়া বা যোনি স্রাব হল একটি সার্বজনীন সমস্যা যা সমস্ত মহিলা তাদের জীবনের কোন না কোন সময়ে সম্মুখীন হন। এর অর্থ যোনি থেকে সাদা বা হলুদ স্রাব নি:সরণ। মহিলাদের যৌনাঙ্গ খুব সহজে সংক্রমণের ঝুঁকিতে থাকে কারণ সেগুলি আর্দ্র থাকে এবং বেশিরভাগ সময় ঢেকে থাকে যা লিউকোরিয়ার মতো সমস্যার দিকে পরিচালিত করে। ইস্ট্রোজেন ভারসাম্যহীনতাই এই অবস্থার জন্য সাধারণ কারণ। অন্যান্য কারণগুলি হলো অপর্যাপ্ত স্বাস্থ্যবিধি ব্যবস্থা, সংক্রমণ, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার অভাব, যৌনবাহিত রোগ, ডায়াবেটিস, দীর্ঘস্থায়ী অসুস্থতা, অতিরিক্ত চা ও কফি পান এবং অ্যালকোহল সেবন ইত্যাদি। লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে দুর্গন্ধযুক্ত স্রাব, ক্লান্তি, মাথাব্যথা, কোষ্ঠকাঠিন্য, পেট ব্যথা, বিরক্তি ইত্যাদি।

আরও পড়ন –  বায়ো কম্বিনেশন ১৩ (লিউকোরিয়া)

অ্যাডাল  ১৫ ফ্লুফিন ড্রপটির কম্বিনেশন :
(১) অ্যাসিডাম সালফিউরিকাম 4x (Acidum Sulfuricum 4x)।
(২) ক্যালসিয়াম ফ্লোরাটাম 8x (Calcium Fluoratum 8x)।
(৩) ক্রিওসোটাম 6x (Cryosotum 6x)।
(৪) ল্যামিয়াম অ্যালবাম 1x (Lamium Album 1x)।
(৫) পালস্যাটিলা 6x (Pulsatilla 6x)।
(৬) হাইড্রাস্টিস ক্যানাডেনসিস 1x (Hydrastis Canadensis 1x)।
(৭) হেলোনিয়াস ডায়োইকা (Helonias Dioica 3x)।

আরও পড়ন –   এইচ আর – ৪৬ (লিউকোরিয়া চিকিৎসায় কার্যকর)

অ্যাডাল – ১৫ ফ্লুফিন ড্রপটির কার্যকারিতা :
(ক) অ্যাসিডাম সালফিউরিকাম (Acidum Dulfuricum) : মহিলাদের জন্য একটি সুপ্রমাণিত ঔষধ। এটি যোনি মিউকাসের চিকিত্সা করে যারা ক্লাইম্যাক্টেরিক অবস্থা এবং সাধারণভাবে দুর্বলতার সংমিশ্রণে অ্যাক্রিড, তীক্ষ্ণ ক্ষত, জ্বলন্ত লিউকোরিয়া এবং যোনি মিউকাস থেকে রক্তপাত হয়।
(খ) ক্যালসিয়াম ফ্লোরাটাম (Calcium Fluoratum) :  দুধযুক্ত যোনি স্রাবে এটি একটি দ্বিতীয় ঔষধ। ক্যালসিয়াম ফ্লোরাটাম যা বেশিরভাগ স্তনে ব্যথার সাথে মিলিত হয়। লিম্ফ্যাটিক নিষ্কাশনের জন্য সর্বোত্তম এবং শরীরের যে কোনও প্রদাহ ় নিরাময় করে।
(গ) ক্রেওসোটাম (Cryosotum) :  এটি (মিউকাস মেমব্রেনের প্রদাহ) চিকিৎসা করে। জরায়ু এবং যোনি এলাকায় আপত্তিকর, তীক্ষ্ণ এবং হলুদ রঙের স্রাব, চুলকানি এবং জ্বলন্ত ব্যথা সহ প্রদাহ নিরাময় করে।

আরও পড়ন –  কেন্ট ১০ (সাদা স্রাব রোগে কার্যকর)

(ঘ) ল্যামিয়াম অ্যালবাম (Lamium Album) :  ফ্লুর ভ্যাজাইনালিস (যোনি স্রাব) এর জন্য এটি একটি সুপরিচিত ঔষধ। এটি মহিলাদের অঙ্গ-জরায়ু, যোনি, ডিম্বাশয় ইত্যাদি এবং প্রস্রাবের অঙ্গগুলির জন্য এর একটি বিশেষ সখ্যতা রয়েছে।
(ঙ) পালস্যাটিলা (Pulsatilla) :  এটি সাধারণত মহিলাদের সমস্যায় বেশি ব্যবহার হয়। এটি শরীরের সমস্ত অংশে কাজ করে এবং এটি প্রধানত হালকা, মৃদু কোমল স্বভাব সহ একটি মহিলা প্রতিকার। এটি সমস্ত শ্লেষ্মা ঝিল্লিকে প্রভাবিত করে যেগুলির ঘন, মৃদু এবং হলুদ-সবুজ স্রাবে ব্যবহার হয়।
(চ) হাইড্রাস্টিস ক্যানাডেনসিস (Hydrastis Canadensis) :  সমস্ত শ্লেষ্মা ঝিল্লির প্রতিকার এবং এটি দীর্ঘস্থায়ী ক্যাটারাসের জন্য অত্যন্ত কার্যকরী। এটা প্রমাণিত হলুদ পুরু, আঠালো, স্ট্রিং লিউকোরিয়া এবং এছাড়াও ক্লাইম্যাক্টেরিক (মেনোপজ পিরিয়ড) সময় লিউকোরিয়া, ক্ষত এবং জরায়ু থেকে প্রবাহিত তীক্ষ্ণ তরল লক্ষণ গুলির চিকিৎসা করে ।

আরও পড়ন –  বোরাক্স ৩x (সাদা স্রাবে কার্যকরী)

(ছ) হেলোনিয়াস ডায়োইকা (Helonias Dioica) :  অতিরিক্ত চাপ এবং ক্লান্ত মহিলাদের জন্য প্রতিকার করে। এটি পিঠ এবং পেলভিক হাড়ের ব্যথা সহ জরায়ুর বিভিন্ন সমস্যা নিরাময় করে। এ লক্ষণগুলি সঙ্গে মহিলাদের মেজাজে অস্থির, তবে তারা ব্যস্ত থাকলে ভাল সুস্থ বোধ করেন।
অ্যাডাল – ১৫ ঔষধ সেবন বিধি : প্রাপ্ত বয়স্করা জন্য ১৫ থেকে ২০ ফোঁটা, শিশুরা ৭ থেকে ১০ ফোঁটা ঔষধ ১/৪ কাপ পানিতে মিশিয়ে দিনে ৩ বার অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করতে হবে।
চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।

আরও পড়ন –  র‌্যাক্স নং- ৬ (শ্বেত প্রদর)

শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।
পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া :  এই ঔষধ সেবনে কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া  নেই।
সতর্কতা : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।
আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন।  এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে  “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।  সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন।  আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev