সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:১২ অপরাহ্ন

অ্যাডাল-১১ (কোষ্ঠকাঠিন্যে)

আরোগ্য হোমিও হল / ৬২ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ বৃহস্পতিবার, ১৪ মার্চ, ২০২৪, ৪:৫৯ অপরাহ্ন

অ্যাডালা-১১ (কোষ্ঠকাঠিন্যে)
Adel-11 (for constipation)
আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “অ্যাডল – ১১ (কোষ্ঠকাঠিন্যে)” কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।
প্রস্তুত প্রণালী : জার্মান কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথিক ঔষধ।
ব্যবহার : অ্যাডাল – ১১ ডিফেটন ড্রপসটি তীব্র, দীর্ঘস্থায়ী কোষ্ঠকাঠিন্যে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ছাড়াই স্বাভাবিকভাবে আপনার মল চক্রকে নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে।
অ্যাডাল – ১১ ডিফেটন ড্রপসটি ইঙ্গিত: তীব্র এবং দীর্ঘস্থায়ী কোষ্ঠকাঠিন্য, শক্ত মল, সপ্তাহে তিনটিরও কম মল ত্যাগ করা, শক্ত মল থাকা, মলত্যাগের জন্য চাপ। মনে হচ্ছে যেন আপনার মলদ্বারে একটি বাধা রয়েছে যা মলত্যাগে বাধা দিচ্ছে সে ক্ষেত্রে কার্যকর।
অ্যাডাল – ১১ ডিফেটন ড্রপসটি লক্ষণ :
কোষ্ঠকাঠিন্য মূলত বিরল মলত্যাগকে বোঝানো হয়েছে যা মল পাস করা কঠিন। জলপাইয়ের তৈরি ফাইবার অথবা তেল সমৃদ্ধ খাবার কোষ্ঠকাঠিন্যের জন্য ভাল প্রাকৃতিক প্রতিকার। কোষ্ঠকাঠিন্যের লক্ষণগুলো হলো ছোট অথবা শক্ত মল, পেট ফুলে যাওয়া, পেটে ব্যথা, বমি, মলত্যাগের সময় চাপ পড়া সমস্যা দুর করে। কোষ্ঠকাঠিন্যের কারণগুলি নিষ্ক্রিয় হওয়া, ফাইবার এবং পানি কম খাওয়া, অতিরিক্ত জোলাপ ব্যবহার, অস্বাস্থ্যকর খাওয়া, বেশি দুগ্ধজাত দ্রব্য খাওয়া, স্ট্রেস, হাইপোথাইরয়েডিজম ইত্যাদি মতো হতে পারে। কোষ্ঠকাঠিন্য কখনও কখনও হাইপোথাইরয়েডিজম, ডায়াবেটিস ইত্যাদির মতো অন্যান্য স্বাস্থ্য সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে। এটি  অন্ত্রের কার্যকারিতা নিয়ন্ত্রণ করে এবং এটি মৃদু রেচক হিসাবে কাজ করে। এই প্রতিকারটি তীব্র বা দীর্ঘস্থায়ী কোষ্ঠকাঠিন্য, স্পাস্টিক কোলিক এবং স্নায়বিক বদহজম উপশম করে এবং মল সঠিকভাবে নির্গমনকে উদ্দীপিত করে।

আরও পড়ুন –  বায়ো কম্বিনেশন ৪ (কোষ্ঠকাঠিন্যে)

অ্যাডাল – ১১ ডিফেটন ড্রপসটি কম্বিনেশন :
(১) ইগনাটিয়া 12x (Ignatia 12x)।
(২) ডায়োসকোরিয়া ভিল 6x (Dioscorea vill 6x)।
(৩) বোল্ডো  (Boldo 6x)।
(৪) ফুমারিয়া অফ (Fumaria off)।
(৫) ফ্রাংগুলা (Frangula)।
(৬) রিউম প্যালামটাম (Rheum palmatum 12x)।
(৭) সাইনারা স্কোলিমাস 4x (Cynara scolymus 4x)।

আরও পড়ুন –  এইচ আর – ৩৯ (কোষ্ঠকাঠিন্য চিকিৎসায় কার্যকর)

অ্যাডাল – ১১ ডিফেটন ড্রপসটি কার্যকারিতা :
(ক) ইগনাটিয়া (Ignatia) : এটি কোষ্ঠকাঠিন্যের জন্য প্রাকৃতিক প্রতিকার হিসাবে কাজ করে যা হজম অঙ্গের ব্যাঘাত এবং স্নায়বিক বদহজম, তিক্ত বা টক স্বাদের সাথে মিলিত গ্যাস্ট্রাইটিস ও আলসার সৃষ্টির সাথে যুক্ত অভিযোগের সমাধান করে। মেজাজ পরিবর্তনের কারণে কিছু খাবারের প্রতি ঘৃণার চিকিৎসা করে।
(খ) ডায়োসকোরিয়া ভিল (Dioscorea Vill) : এটি পরিপাক অঙ্গের খিঁচুনি, অন্ত্রের ব্যথা ও পেটে তীব্র ব্যথা (শূল) দুর করে। এটি সঠিক ভাবে মলত্যাগে নির্গমনকে উদ্দীপিত করতে সাহায্য করে।
(গ) বোল্ডো (Boldo) : একটি প্রমাণিত এটি হজম ও যকৃতের উদ্দীপক । এটি ইউরিয়া নির্গমনকে উদ্দীপিত করার সময় পিত্তথলি থেকে পিত্তের প্রবাহ বাড়ায়তে সাহায্য করে।
(ঘ) ফুমারিয়া অফ (Fumaria off) : এটি পোর্টাল শিরাকে অবরোধ মুক্ত করে, বিপাককে উদ্দীপিত করে এবং পরিষ্কার করার সময় ব্যথা উপশম করতে সাহায্য করে।

আরও পড়ুন –  কেন্ট ২৩ (কোষ্ঠকাঠিন্য রোগে কার্যকর)

(ঙ) ফ্রাংগুলা (Frangula) : ঐতিহ্যগতভাবে এটি একটি মৃদু শোধনকারী হিসাবে ব্যবহার করা হয়েছে যা কোষ্ঠকাঠিন্যের সাথে থাকা লক্ষণগুলি সমাধান করতে সাহায্য করে, যার মধ্যে রয়েছে বৃহৎ অন্ত্রের দুর্বলতা, লিভারের দুর্বলতা, লিভার ব্লকেজ, পিত্ত-পিত্তনালী ব্লকেজ, হেমোরয়েডস এবং মাথাব্যথা ইত্যাদি লক্ষণগুলি দুর করতে সাহায্য করে।
(চ) রিউম প্যালামটাম (Rheum palmatum) :  কোনো ব্যথা সৃষ্টি না করেই মৃদু শোধনকারী হিসেবে কাজ করে। এমনকি এটি অন্ত্রের নির্গমনের জন্য টোনার এবং রেচক হিসাবে কাজ করে।
(ছ) সাইনারা স্কোলিমাস (Cynara Scolymus) : এটি পিত্তথলি ও লিভারের জন্য একটি চমৎকার নিষ্কাশনের ওষুধ এবং প্রোটিন, চর্বি এবং কার্বোহাইড্রেট বিপাককে উদ্দীপিত করে। এটি দৃঢ়ভাবে হজম ও নির্গমন প্রক্রিয়া সমর্থন করে।

আরও পড়ুন –  র‌্যাক্স নং- ৫৩ (কোষ্ঠ কাঠিন্য)

অ্যাডাল – ১১ ঔষধ সেবন বিধি : প্রাপ্ত বয়স্করা জন্য ১৫ থেকে ২০ ফোঁটা, শিশুরা ৭ থেকে ১০ ফোঁটা ঔষধ ১/৪ কাপ পানিতে মিশিয়ে দিনে ৩ বার অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করতে হবে।
চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন
শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।

সতর্কতা : গর্ভবতী মা অথবা দুগ্ধদানকারী মায়েরা ঔষধ সেবনের পূর্বে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করা উত্তম।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : এই ঔষধ সেবনে কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই।
ঔষধ সরক্ষণ : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।
ঔষধের গুণগতমাণ : এটি একটি প্রাকৃতিক পণ্য, এটি কখনও কখনও সামান্য বৃষ্টিপাত অথবা মেঘলা হতে পারে, কিন্তু এটি পণ্যের গুণমান এবং এর কার্যকারিতা প্রভাবিত করে না। যদি এটি ঘটে তবে পণ্যটি ব্যবহার করার আগে ভালভাবে ঝাঁকি নিন। একবার আপনি সীলটি ভেঙে ফেললে, ওষুধগুলি দ্রুত ব্যবহার করা উচিত।
আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন।  এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।  সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন।  আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev