মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:২৫ পূর্বাহ্ন

অ্যাডাল-১০ (হাঁপানি, ব্রংকাইটিস)

আরোগ্য হোমিও হল / ৭২ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ বৃহস্পতিবার, ১৪ মার্চ, ২০২৪, ৫:৩৯ অপরাহ্ন

অ্যাডাল-১০ (হাঁপানি, ব্রংকাইটিস)।
Adel-10 (asthma, bronchitis)।
আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “অ্যাডাল-(হাঁপানি, ব্রংকাইটিস)” কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।
প্রস্তুত প্রণালী : জার্মান কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ।
ব্যবহার : অ্যাডাল ১০ – ড্রপসটি শ্বাসযন্ত্রের ট্র্যাক্টে তীব্র এবং দীর্ঘস্থায়ী হাঁপানি,  ব্রঙ্কাইটিস, কার্ডিয়াক অ্যাজমার ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়।
অ্যাডাল – ড্রপসটির ইঙ্গিত : ব্রঙ্কিয়াল হাঁপানির জন্য, কার্ডিয়াক অ্যাজমা, ব্রঙ্কাইটিস ও ব্রঙ্কোস্পাজম।

আরও পড়ন – বায়ো কম্বিনেশন ২ (হাঁপানি এবং অ্যাজমা)

অ্যাডাল –১০ ড্রপসটির লক্ষণ : এটি শরীরের শৃঙ্খলকে লক্ষ্য করে যা হাঁপানির আক্রমণের দিকে পরিচালিত করতে পারে যেমন, শ্লেষ্মা তৈরির ফলে বুকে নিপীড়ন, ফুসফুসের টিউবগুলির হঠাৎ সংকীর্ণতা, স্পাস্টিক কাশি। এটি ব্রঙ্কিয়াল অ্যাজমা (শ্বাসনালীর প্রদাহজনক রোগ যা ব্রঙ্কিয়াল হাইপার রিঅ্যাকটিভিটি এবং শ্বাসযন্ত্রের বাধা দ্বারা চিহ্নিত করা হয়), কার্ডিয়াক অ্যাজমা (কনজেস্টিভ হার্ট ফেইলিউরের কারণে শ্বাসকষ্ট, কাশি অথবা শ্বাসকষ্ট), ব্রঙ্কাইটিস (ব্রংকিয়াল টিউবে শ্লেষ্মা ঝিল্লির প্রদাহ) এবং ব্রঙ্কো স্প্যাজম (শ্বাসনালী মসৃণ পেশীর খিঁচুনি, ব্রঙ্কাই সরু হয়ে যায়)। এটি দীর্ঘস্থায়ী এবং তীব্র হাঁপানিতে কার্যকর।
অ্যাডাল নং –১০ ড্রপসটির বিশেষ লক্ষণ :
(ক) শ্বাসনালীর হাঁপানি।
(ক) কার্ডিয়াক অ্যাজমা।
(গ) ব্রংকাইটিস।
(ঘ) ব্রঙ্কো-স্প্যাজম।
(ঙ) স্পাস্টিক কাশি।

আরও পড়ুন –   এইচ আর – ৪৭ (হাঁপানি-ব্রঙ্কাইটিস চিকিৎসায় কার্যকর)

অ্যাডাল নং –১০ ড্রপসটি সম্পর্কে ধারণা :  প্রাপ্তবয়স্কদের ও শিশুদের মধ্যে হাঁপানির লক্ষণগুলি সাধারণত শ্বাসকষ্ট, কাশি, বুকে শক্ত হওয়া বা শ্বাসকষ্ট হিসাবে প্রকাশ পায়। ফুসফুসের স্ফীত শ্বাসনালী হাঁপানিকে বোঝানো হয়েছে যা এটি একটি দীর্ঘস্থায়ী রোগ। হাঁপানিতে ফুসফুসের ভিতরে অথবা বাইরে বাতাস চলাচল কঠিন হয়ে পড়ে। যে সব অক্রান্ত ব্যাক্তির পারিবারিক হাঁপানি বা অ্যালার্জির ইতিহাস রয়েছে তাদের হাঁপানি হওয়ার প্রবণতা খুব বেশি। হাঁপানি সাধারণত বিভিন্ন উপায়ে প্রভাবিত করে যেমন – কিছু লোক অ্যালার্জি আছে তারা হাঁপানির আক্রমণে ভুগে বা ঠান্ডা বাতাসে শ্বাস নেওয়ার সময় কিছু ব্যাক্তি কষ্ট পায় অথবা ব্যায়াম করার সময় কিছু লোক কষ্ট পায়। হাঁপানির কারণগুলি যেমন –  অ্যালার্জি এবং ধোঁয়া ও দূষণের সংস্পর্শে আসা ইত্যাদি।  শ্বাসযন্ত্রের সংক্রমণ যেমন –  ঠান্ডা, খুব বেশি মানসিক চাপ, ব্যায়াম, পরাগ, ভাইরাল সংক্রমণ, ঘরের ধূলিকণা, পশুর পশম ইত্যাদি। প্রাপ্তবয়স্ক এবং শিশুদের হাঁপানির লক্ষণগুলি ওষুধের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব তবে এটি সম্পন্ন নিরাময় করা যাবে না।

আরও পড়ুন –  কেন্ট ০১ (হাঁপানি বা এজমা রোগে কার্যকর)

অ্যাডাল –১০ ড্রপসটির কম্বিনেশন :
(১) আম্মি ভিসনাগা 4x (Ammi Visnaga 4x)।
(২) অ্যারালিয়া রেসমোসা 4x (Aralia Racemosa 4x)।
(৩) এরিওডিক্টিয়ন ক্যালিফোরনিকাম 6x (Eriodictyon Californicum 6x)।
(৪) কোবাল্টাম নাইট্রিকাম 6x (Cobaltum Nitricum 6x)।
(৫) গ্রিন্ডেলিয়া রোবাস্তার 12x (Grindelia Robusta 12x)।
(৬) ড্যাকটাইলোপিয়াস কোকাস 4x (Dactylopius Coccus 4x)।
(৭) ল্যাকটুকা ভাইরোসা 4x (Lactuca Virosa 4x)।
(৮) ফসফরাস (Phosphorus 12x)।

আরও পড়ুন –  ব্রোলাক্স কফ সিরাপ (নতুন-পুরাতন কাঁশি ও ব্রংকাইটিস)

অ্যাডাল –১০ ড্রপসটির কার্যকারিতা :
(ক) আম্মি ভিসনাগা (Ammi Visnaga) :  এটি একটি সুপরিচিত ঔষধ যা অর্থোডক্স, ব্রঙ্কিয়াল স্পাসমোডিক ফাংশন হিসাবে ব্যবহার হয় । এটি শ্বাসনালী হাঁপানি এবং অন্যান্য স্পাস্টিক বিকাশের জন্য একটি দীর্ঘ অ্যান্টি-স্পাস্টিক অ্যান্টি-স্পাস্টিক (পেশীর খিঁচুনি দ্বারা প্রভাবিত) হিসাবে কাজ করে।
(খ) অ্যারালিয়া রেসমোসা (Aralia Racemosa) :  এটি হাঁপানি এবং অ্যালার্জিজনিত ক্যাটারাসের বিরুদ্ধে কাজ করে (অতিরিক্ত স্রাব বা মিউকাস মেমব্রেনের প্রদাহের সাথে যুক্ত শ্লেষ্মা তৈরি করে)। এটি কাশি এবং হাঁপানির জন্য গুরুত্বপূর্ণ ওষুধ (বাম পাশের ফুসফুস আক্রান্ত), বুকে শিস দিয়ে শ্বাস নিতে কষ্ট হয়ভ
(গ) এরিওডিক্টিয়ন ক্যালিফোরনিকাম (Eriodictyon Californicum) :  হাঁপানির একটি ধ্রুপদী ওষুধ, যা শ্লেষ্মা অপসারণে সহায্য করে, তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে একা ব্যবহার করলে বুকে শক্ত চাপ থাকে।
(ঘ) কোবাল্টাম নাইট্রিকাম (Cobaltum Nitricum) :  হাঁপানির অবস্থা হল এক ধরনের অসুস্থতা, যেখানে মেজাজের তারতম্য এমনকি হাঁপানির আক্রমণও ঘটাতে পারে। এই ধরনের ঘটনার বিরুদ্ধে কোবাল্টাম নাইট্রিকাম কাজ করে এবং একই সাথে সমস্ত স্বাভাবিক ক্যাটারার ইঙ্গিত দেয়।
আরও পড়ুন –
(ঙ) গ্রিন্ডেলিয়া রোবাস্তার (Grindelia Robusta) : এটি ফুসফুসের এম্ফিসেমা যা (ফুসফুসের বায়ু থলি ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং বড় হয়ে যায়, যাহার ফলে শ্বাসকষ্ট হয়) এবং শ্লেষ্মা কাশি, শ্বাসনালী হাঁপানি, দীর্ঘস্থায়ী ব্রঙ্কাইটিস এবং পালমোনারি এমফিসেমার শ্বাসকষ্টের বিরুদ্ধে কাজ করে। ডক্টর
(চ) ড্যাকটাইলোপিয়াস কোকাস (Dactylopius Coccus) : প্রচুর পরিমাণে নিঃসরণ সহ শ্বাসরোধের ইঙ্গিত সহ সেলাই বের করে দেয়। এটি একটি ভাল শ্লেষ্মা নিঃসরণ ও কিডনি প্রতিকার হিসাবে কাজ করে। তাই এটি কিডনি হাঁপানির যা আগে চাপা সংক্রমণ থেকে আসছে।
(ছ) ল্যাকটুকা ভাইরোসা (Lactuca Virosa) :  এটি একটি অত্যাচারী স্পাস্টিক কাশি, খাওয়ার সময় বা শুয়ে থাকা কাশি। এটি এতটাই শক্তিশালী যে, রোগীরা দম বন্ধ হয়ে পড়ে এবং তাজা বাতাসের দাবি করে। প্রধানত রোগী ব্রঙ্কিয়াল হাঁপানিতে ভোগেন।

আরও পড়ুন –  এন – ৪৩ (ব্রংকাইটিস ও হাঁপানি ড্রপস)

(জ) ফসফরাস (Phosphorus) :  এটি পুরো মানব শরীরে “আইটিক” প্রক্রিয়াগুলিকে শক্তিশালী প্রভাব গ্রহণ করে কারণ এটি অবক্ষয়জনিত বিকাশ বন্ধ করে এবং বাতিল করে। শ্বাসযন্ত্রের অঙ্গগুলির অন্তর্গত এর ইঙ্গিতগুলি দীর্ঘস্থায়ীভাবে ব্রঙ্কাইটিস, শ্বাসনালী হাঁপানি, ফুসফুসের যক্ষ্মা, রাইনাইটিস (নাকের মিউকাস মেমব্রেনের প্রদাহ, ভাইরাস সংক্রমণের কারণে) এবং হৃৎপিণ্ডের পেশীগুলির অবক্ষয় প্রক্রিয়া গুলি অন্তর্ভুক্ত।
অ্যাডাল – ১০ ঔষধ সেবন বিধি : প্রাপ্ত বয়স্করা জন্য ১৫ থেকে ২০ ফোঁটা, শিশুরা ৭ থেকে ১০ ফোঁটা ঔূষধ ১/৪  কাপ পানিতে মিশিয়ে দিনে ৩ বার অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করতে হবে।
চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।

সতর্কতা : গর্ভবতী মা অথবা দুগ্ধদানকারী মায়েরা ঔষধ সেবনের পূর্বে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করা উত্তম।

আরও পড়ুন –  র‌্যাক্স নং- ৩২ (একজিমা)

শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।
পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : এই ঔষধ সেবনে কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই।
ঔষধ সরক্ষণ : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।

ঔষধের গুণগতমাণ : এটি একটি প্রাকৃতিক পণ্য, এটি কখনও কখনও সামান্য বৃষ্টিপাত অথবা মেঘলা হতে পারে, কিন্তু এটি পণ্যের গুণমান এবং এর কার্যকারিতা প্রভাবিত করে না। যদি এটি ঘটে তবে পণ্যটি ব্যবহার করার আগে ভালভাবে ঝাঁকি নিন। একবার আপনি সীলটি ভেঙে ফেললে, ওষুধগুলি দ্রুত ব্যবহার করা উচিত।

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন।  এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।  সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন।  আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev