সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১২:২০ অপরাহ্ন

অ্যাডল-১ (মাথা ব্যথা ও মাইগ্রেন)

আরোগ্য হোমিও হল / ৮৩ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ রবিবার, ১৭ মার্চ, ২০২৪, ৬:১৯ অপরাহ্ন

অ্যাডল-১ (মাথা ব্যথা ও মাইগ্রেন)
Adel-1 (headaches and migraines)
আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “ অ্যাডল-১ (মাথা ব্যথা ও মাইগ্রেন) ” কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।
প্রস্তুত প্রণালী : জার্মান কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ।
ব্যবহার : অ্যাডল-১ ড্রপসটি মাথাব্যথা, পায়ে এবং শরীরের অন্যান্য অংশে  অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের ব্যথা, মাইগ্রেন এবং আবহাওয়ার পরিবর্তনের প্রতি সংবেদনশীলতা দূর করতে ব্যথায় ব্যবহার করা হয়।
অ্যাডল-১ ড্রপসটির ইঙ্গিত :
(ক) মাইগ্রেন।
(খ) নিউরালজিয়া।
(গ) শরীর ও গোড়ালিতে ব্যথা।

আরও পড়ুন –   বায়ো কম্বিনেশন ১২ (মাথাব্যথা ও নিদ্রাহীনতা)

অ্যাডল-১ ড্রপসটির ভূমিকা :
মাথাব্যথা ও মাইগ্রেনের জন্য এটি নিদিষ্ট। মাথাব্যথা বিভিন্ন আকারে প্রকাশ পায় যেমন – সাইনাস মাথাব্যথা, মাইগ্রেন, টেনশন মাথাব্যথা ইত্যাদি। এছাড়া মাথা ব্যথার বিভিন্ন কারণ যেমন – মাথা ও ঘাড়ের বিভিন্ন অংশে অনুভূত হয়। পেশী উত্তেজনা মাথা ব্যথার অন্যতম প্রধান কারণ।
এটি প্রধানত স্নায়ুর ভিড় কনজেসটিভ নিউরালজিক হেডেক, হাত-পায়ের ব্যথা, মাইগ্রেন, আবহাওয়া পরিবর্তনের সংবেদনশীলতার কারণে সৃষ্ট মাথা ব্যথার চিকিৎসা করে। এটি স্নায়বিক উত্তেজনা, অনুপযুক্ত অভ্যন্তরীণ নিয়ন্ত্রণ (কর্মহীনতা) যা অন্ত্রের মাইক্রোবিয়াল ভারসাম্যহীনতা (অন্ত্রের ডিসবায়োসিস) সহ পেশী ব্যথা এবং জয়েন্টের ব্যথা উপশম করতেও ব্যবহৃত হয় যা সঠিকভাবে নীচের পিঠের অঞ্চল, ঘাড় এবং পায়ে ঘটে।

আরও পড়ুন –  এই আর – ০৯ (মাথাব্যথা এবং মাইগ্রেনে কার্যকর)

অ্যাডল-১ ড্রপসটির কম্বিনেশন :
(১) অ্যাকোনিটাম নেপেলাস 4x (Aconitum Napellus 4x)।
(২) জেলসেমিয়াম সেম্পের্ভিরেন্স 4x (Gelsemium Sempervirens 4x)।
(৩) মেন্যান্থিস ত্রিফলীয়াত 6x (Menyanthes Trifoliata 6x)।
(৪) পাইপার মেথিস্টিকাম 8x (Piper Methysticum 8x)।
(৫) সাবিডিলা 4x (Sabadilla 4x)।
(৬) ব্রায়োনিয়া ক্রেটিকা 6x (Bryonia Cretica 6x)।
(৭) স্পিগেলিয়া অ্যান্থেলমিয়া 6x (Spigelia Anthelmia 6x)।
(৮) সেমেকার্পাস অ্যানাকার্ডিয়াম 6x (Semecarpus Anacardium 6x)।

আরও পড়ুন –  কেন্ট ২৯ (মাইগ্রেন রোগে কার্যকর)

অ্যাডল-১ ড্রপসটির কার্যকারিতা :
(ক) অ্যাকোনিটাম নেপেলাস (Aconitum Napellus) :  মাথাব্যথা, অসাড়তা এবং পিঁপড়ার দৌড়, মানসিক চাপ, অতি সংবেদনশীলতা, শব্দের সংবেদন সহ ছুরিকাঘাত এবং জ্বলন্ত ব্যথার চিকিৎসা করে।
(খ) জেলসেমিয়াম সেম্পের্ভিরেন্স (Gelsemium Sempervirens) : এটি মানসিক উত্তেজনা দ্বারা সৃষ্টি মাইগ্রেন ও কনজেস্টিভ টাইপ মাথাব্যথা, সাইনাস সংক্রমণের কারণে মাথাব্যথা, কর্মহীনতা বা চোখের চাপ, হৃদযন্ত্রের অনিয়মের চিকিৎসা করে।
(গ) মেন্যান্থিস ত্রিফলীয়াত (Menyanthes Trifoliata) : এটি চাপের মাথাব্যথা এবং ট্রাইজেমিনাল নিউরালজিয়া থেকে মুক্তি দেয়। মাথাব্যথা, জ্বরের আক্রমণ, শরীরের তাপ নিয়ন্ত্রণে ব্যাঘাত, অঙ্গ ও জয়েন্টের ক্র্যাম্পের চিকিৎসা করে।
(ঘ) পাইপার মেথিস্টিকাম (Piper Methysticum) : এটি লিম্বিক সিস্টেমকে প্রভাবিত করে মানসিক ভারসাম্য বজায় রাখে এবং ভয় ও স্নায়বিক উত্তেজনা দ্বারা সৃষ্টি নিউরালজিয়া, মানসিকভাবে অতিরিক্ত চাপে চিকিৎসা করে।

আরও পড়ুন –  এন – ১৬ (মাথা ব্যথা)

(ঙ) সাবিডিলা (Sabadilla) : এটি মাথা ঘোরা, কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্রের ত্রুটি, মস্তিষ্কের কুয়াশা, সঠিক হৃদযন্ত্রের নিয়ন্ত্রণ করে।
(চ) ব্রায়োনিয়া ক্রেটিকা (Bryonia Cretica) :  এটি মাথাব্যথা বিভক্ত হওয়া ও ফেটে যাওয়া ব্যথা, পেট এবং অন্ত্রের সমস্যা (গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল ট্র্যাক্টের সমস্যা), জয়েন্টে ব্যথা সহ শরীরের বিভিন্ন অঙ্গে ছুরিকাঘাতের ব্যথা নিয়ন্ত্রণ করে ও  স্বাস্থ্যকর ঘুমের প্রচার করে।
(ছ) স্পিগেলিয়া অ্যান্থেলমিয়া (Spigelia Anthelmia) : এটি চোখ এবং নাকের অঞ্চলকে প্রভাবিত করে ট্রাইজেমিনাল নিউরালজিয়া, বাম দিকের ব্যথা দুর করে। এটি এই অবস্থার সাথে যুক্ত উত্তেজনা এবং হৃদপিণ্ডের পেশী ব্যথা সমাধান করে।
(জ) সেমেকার্পাস অ্যানাকার্ডিয়াম (Semecarpus Anacardium) : এটি মানসিক চাপের কারণে সৃষ্টি স্নায়বিক ক্লান্তির সমাধান করে, ছুরিকাঘাতের মাথাব্যথা, কানে গুনগুন বা বাজানোর শব্দ পায়।

আরও পড়ুন –  র‌্যাক্স নং- ৫৭ (মাইগ্রেন)

অ্যাডাল – ১ ঔষধ সেবন বিধি : প্রাপ্ত বয়স্করা জন্য ১৫ থেকে ২০ ফোঁটা, শিশুরা ৭ থেকে ১০ ফোঁটা ঔষধ ১/৪ কাপ পানিতে মিশিয়ে দিনে ৩ বার অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করতে হবে।
চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।
সতর্কতা : গর্ভবতী মা অথবা দুগ্ধদানকারী মায়েরা ঔষধ সেবনের পূর্বে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করা উত্তম।
শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।
পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : এই ঔষধ সেবনে কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই।
ঔষধ সরক্ষণ : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।
ঔষধের গুণগতমাণ : এটি একটি প্রাকৃতিক পণ্য, এটি কখনও কখনও সামান্য বৃষ্টিপাত অথবা মেঘলা হতে পারে, কিন্তু এটি পণ্যের গুণমান এবং এর কার্যকারিতা প্রভাবিত করে না। যদি এটি ঘটে তবে পণ্যটি ব্যবহার করার আগে ভালভাবে ঝাঁকি নিন। একবার আপনি সীলটি ভেঙে ফেললে, ওষুধগুলি দ্রুত ব্যবহার করা উচিত।
আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন।  এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।  সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন।  আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev