শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ০৭:১২ অপরাহ্ন

ভ্যালেরিয়ানা অফিসিয়ালিস মাদার টিংচার

আরোগ্য হোমিও হল / ৫৯ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ শুক্রবার, ১৪ জুন, ২০২৪, ১২:২২ পূর্বাহ্ন

Valeriana Officinalis Mother Tincture Q

ভ্যালেরিয়ানা অফিসিয়ালিস মাদার টিংচার

আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “ ভ্যালেরিয়ানা অফিসিয়ালিস মাদার টিংচার” হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।

ভ্যালেরিয়ানা অফিসিয়ালিস হোমিওপ্যাথি মাদার টিংচার সম্পর্কে ধারণা :
ভ্যালেরিয়ানা অফিসিয়ালিস মাদার টিংচার এর পরিচিত: গার্ডেন হেলিওট্রপ, সাধারণ ভ্যালেরিয়ান বা অল-হিল, ভ্যালেরিনা নামে পরিচিত।
প্রস্তুত প্রণালী : ভ্যালেরিয়ানাসি উদ্ভিদের শিকড় দিয়ে তৈরি থেকে ভ্যালেরিয়ানা অফিসিয়ালিস মাদার টিংচার প্রস্তুত করা হয়েছে।
ভ্যালেরিয়ানা অফিসিয়ালিস এর ব্যবহার : হিস্টিরিয়া, অতিরিক্ত সংবেদনশীলতা, স্নায়বিক স্নেহের ক্ষেত্রে ব্যবহার হয়, এটি সাধারণত হিস্টেরিক্যাল স্প্যাম ও স্নেহের ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়। ফাইটোথেরাপিতে এটি নিরাময়কারী হিসাবে পরিচিত। গবেষণায় দেখা গেছে, এটি ঘুমের মান উন্নত করে এবং স্নায়বিক কার্যকলাপ (নিউরোট্রান্সমিটার ইনহিবিটর) হ্রাস করে ও এর শামক প্রভাব এর রয়েছে।

বায়ো কম্বিনেশন ২৫

ভ্যালেরিয়ানা অফিসিয়ালিস মাদার টিংচার হল একটি হোমিওপ্যাথিক প্রতিকার যা বিভিন্ন স্বাস্থ্য উপকারিতা রয়েছে।, এটি পেট, গলা, কান এবং শ্বাসযন্ত্রের সাথে সম্পর্কিত বিভিন্ন রোগের চিকিৎসায়অত্যান্ত কার্যকর। এটি সাধারণত হিস্টিরিয়া এবং স্নায়বিক স্নেহের জন্য নির্দেশিত। মহিলাদের সম্পর্কিত ব্যাধি যেমন – দেরী বা স্বল্প মাসিকও এই প্রতিকার হিসাবে কাজ করে। এটি হিস্টেরিক্যাল খিঁচুনি এবং স্নেহ সাধারণত। হিস্টেরিক্যাল পেট ফাঁপা।

আরও পড়ুন –  আর ৫৬ (কৃমির জন্য ড্রপস)

ভ্যালেরিয়ানা অফিসিয়ালিসের এর লক্ষণ :

(১) এটি নৈতিক ব্যাঘাতের দুরারোগ্য ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়। এটি আবেগের এক চরম থেকে অন্য চরমে, সর্বোচ্চ আনন্দ থেকে গভীরতম শোকের দিকে ধাবিত হয়।

(২) এটি স্নায়বিক অভিযোগের পরে রোগীদের পুনরুদ্ধারের জন্য ভ্যালেরিয়ান অত্যান্ত কার্যকর।

(৩) এটি পেটে খিঁচুনি, সাধারণত সন্ধ্যায়, বিছানায় অথবা রাতের খাবারের পরে।

(৪) এটি বুকে ছোট, শক্ত নোডোসিটির বিস্ফোরণ।

(৫) এটি কৃমির সংক্রমণ বিশেষ করে মলদ্বারের অ্যাসকারাইডে কার্যকরী।

আরও পড়ুন – অ্যাডাল-১৯ (মানসিক ও শারীরিক ক্লান্তি)

ডা: বিকাশ শর্মা ভ্যালেরিয়ানা অফিসিয়ালিসের সুপারিশ করেন,

প্ল্যান্টার ফ্যাসাইটিস চিকিৎসার জন্য এটি স্বীকৃত, রোগী যেখানে হাঁটার ফলে পায়ের গোড়ালির ব্যথা ভালো হয়ে যায়। বসে থাকলে গোড়ালির ব্যথা আরও বেড়ে যায়। সায়াটিকার জন্য এটি সবচেয়ে উপযুক্ত ওষুধ যা দাঁড়িয়ে থেকে খারাপ হয়ে যায়। ব্যাথার জন্য, পেশীতে ক্র্যাম্পিং আক্রান্ত অংশ ঘষলে উপশম হয়।

ডা: গোপি মদ্যপানের জন্য ভ্যালেরিয়ানাকে সুপারিশ করেছেন, তিনি বলেছেন ” ভ্যালেরিয়ানা- একটি নিরাময়কারী হিসাবে কাজ করে – প্রতিদিন ৩ বার ১ ফোঁটা টিংচার সেবন করুণ”।

ডক্টর রশ্মি বলেন, ভ্যালেরিয়ানার গাছের শিকড়ের গুঁড়ো চায়ে ব্যবহার করলে মানসিক চাপ দূর করতে। এটিতে ভ্যালেরিয়ানিক অ্যাসিড রয়েছে যার গন্ধ ঘামের মোজার মতো। বিভ্রম, হিস্টিরিয়া ভুগছেন, চাপযুক্ত অবস্থা, আতঙ্কজনিত ব্যাধি, মৃগীরোগ ট্রিগার রোগীদের জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত ঔষধ। মাথা ঠান্ডা, মাথা ঘোরা ও সায়াটিকা বিশিষ্ট।

আরও পড়ুন –  আর ১৮৪ (উদ্বেগ, ঘুম এবং মানসিক)

ভ্যালেরিয়ানা অফিসিয়ালিসের রোগীর প্রোফাইল :

(ক) মন : মন পরিবর্তনশীল স্বভাব। হালকা লাগছে, যেন বাতাসে ভাসছে। অতিরিক্ত সংবেদনশীলতা, রাতে হ্যালুসিনেশন, খিটখিটে মেজাজ, কাঁপুনি।

(খ) মাথা : কপালে চাপ, প্রচণ্ড শীতলতার অনুভূতি ও নেশার অনুভূতি।

(গ) কান : ড্রাফ্ট ও ঠান্ডার সংস্পর্শে কানে ব্যথা। স্নায়বিক শব্দ।

(ঘ) গলা : গলবিল সংকুচিত, সংবেদন যেন একটা সুতো গলায় ঝুলে আছে। এর জন্য গলায় বমি বমি ভাব।

(ঙ) পেট : ক্ষুধা, বমি বমি ভাব, বিশ্রী গন্ধ সঙ্গে erucation. র্যান্সিড ফ্লুইড গলানোর সাথে হার্ট পোড়া। অজ্ঞান হওয়া, বমি বমি ভাব। স্তন্যপান করানোর পর শিশুর বমি বড় পিণ্ডে কুঁচকানো দুধ।

আরও পড়ুন –  এন – ০৫ (গ্যাসট্রিক ও পাকস্থলীর ড্রপস)

পেট: হিস্টিরিকাল ক্র্যাম্প সহ ফোলা পেট, পাতলা জলযুক্ত ডায়রিয়া, বাচ্চাদের হিংস্র চিৎকার সহ জমাট দুধের গলদ। সবুজ, পেপেসেন্ট, রক্তাক্ত মল, খাবারের পরে ও রাতে বিছানায় অন্ত্রে খিঁচুনি।

(চ) শ্বাসযন্ত্র : ঘুমিয়ে পড়ায় দম বন্ধ হয়ে যাওয়া অনুভূতি । ডায়াফ্রামের খিঁচুনি, নড়াচড়া সহ স্পাসমোডিক হাঁপানি।

(ছ) মহিলা : মাসিক দেরিতে হয় এবং অল্প পরিমাণ।

(ঝ) অঙ্গপ্রত্যঙ্গ : অঙ্গ-প্রত্যঙ্গে বাতজনিত ব্যথা। অবিরাম ঝাঁকুনি, অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের ভারী। মেঝেতে দাঁড়িয়ে থাকলে এবং বিশ্রাম করার সময় সায়াটিকার ব্যথা আরও বৃদ্ধি হয়। হেঁটে গেলে ভালো, বসে থাকলে গোড়ালিতে ব্যথা করে।

(ঞ) ঘুম : রাতে চুলকানি ও পেশীবহুল খিঁচুনি সহ নিদ্রাহীন, ঘুম থেকে উঠলে আরও বৃদ্ধি হয়।

(ত) জ্বর : দীর্ঘস্থায়ী তাপ, প্রায়ই মুখে ঘাম হয়, তাপ প্রাধান্য পায়, বরফ ও শীতলতার অনুভূতি।

আরও পড়ুন – অ্যাডাল-৩৯ (সায়াটিকা, বাত ব্যথা)

সতর্কতা : সঠিকভাবে গ্রহণ না করলে উচ্চ রক্তচাপ হতে পারে। যৌন কর্মহীনতার ক্ষত্রে ডোজ ১৫ থেকে ৩০ মিলিগ্রামের মধ্যে হওয়া উচিত। ১০০ মিলিগ্রাম ডোজ বিপজ্জনক হতে পারে এবং আতঙ্কিত প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে, এর ফলে হার্ট অ্যাটাক হতে পারে এবং মৃত্যুর কারণ হতে পারে। লিভার, কিডনি, হৃদরোগে আক্রান্ত ব্যক্তি ও গর্ভবতী মহিলা, শিশু, বয়স্কদের চরম সতর্কতার সাথে এই ঔষধটি ব্যবহার করা উচিত।

ভ্যালেরিয়ানা অফিসিয়ালিস মাদার টিংচার সেবন বিধি: মনে রাখবেন যে একক হোমিওপ্যাথিক ওষুধের ডোজ অবস্থা, বয়স, সংবেদনশীলতা ও অন্যান্য বিষয়ের উপর নির্ভর করে ড্রাগ থেকে ড্রাগে পরিবর্তিত হয়। কিছু ক্ষেত্রে তাদের নিয়মিত ডোজ হিসাবে ৩-৫ ড্রপ হিসাবে দিনে ২-৩ বার দেওয়া হয় যেখানে অন্যান্য ক্ষেত্রে তারা সপ্তাহে, মাসে বা এমনকি দীর্ঘ সময়ের মধ্যে শুধুমাত্র একবার দেওয়া হয়। আমরা দৃঢ়ভাবে সুপারিশ করছি যে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ওষুধ সেবন করা উচিত।

আরও পড়ুন –  বায়ো কম্বিনেশন ১১ (জ্বর)

চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।

সতর্কতা : সাধারণত গর্ভাবস্থায় এবং স্তন্যপান করানোর সময় ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ খাওয়া উচিত নয়|

শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : হোমিওপ্যাথি সর্বোত্তম চিকিৎসা প্রদান করে কারণ এটি নিরাপদ এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুক্ত।

ঔষধ সংরক্ষণ : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন। ৩০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড (৮৬ ডিগ্রি ফারেনহাইট) এর বেশি নয় একটি স্থির তাপমাত্রায় সংরক্ষণ করা উচিত।

ঔষধের গুণগতমাণ : এটি একটি প্রাকৃতিক পণ্য, এটি কখনও কখনও সামান্য বৃষ্টিপাত অথবা মেঘলা হতে পারে, কিন্তু এটি পণ্যের গুণমান এবং এর কার্যকারিতা প্রভাবিত করে না। যদি এটি ঘটে তবে পণ্যটি ব্যবহার করার আগে ভালভাবে ঝাঁকি নিন। একবার আপনি সীলটি ভেঙে ফেললে, ওষুধগুলি দ্রুত ব্যবহার করা উচিত।

2454

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন। এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন লাইককমেন্ট করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে শেয়ার করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন। সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev