শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ০৬:০৬ অপরাহ্ন

স্টারকুলিয়া অ্যাকুমিনাটা মাদার টিংচার

আরোগ্য হোমিও হল / ১৮ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ রবিবার, ২৩ জুন, ২০২৪, ১:৫১ পূর্বাহ্ন
স্টারকুলিয়া অ্যাকুমিনাটা মাদার টিংচার
স্টারকুলিয়া অ্যাকুমিনাটা মাদার টিংচার

Sterculia Accuminata Mother Tincture Q

স্টারকুলিয়া অ্যাকুমিনাটা মাদার টিংচার

আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “ স্টারকুলিয়া অ্যাকুমিনাটা হোমিওপ্যাথি মাদার টিংচার Q” হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।

স্টারকুলিয়া (কোলা আকুমিনাটা) মাদার টিংচার সম্পর্কে ধারণা :

প্রস্তুত প্রণালী : স্টেরকুলিয়া অ্যাকুমিনাটা মাদার টিংচার হল একটি হোমিওপ্যাথি ওষুধ যা স্টেরকুলিয়া উদ্ভিদ থেকে তৈরি। এই মাদার টিংচারটি ম্যাসারেশন এবং পারকোলেশনের মতো পদ্ধতি ব্যবহার করে প্রামাণিকভাবে প্রস্তুত করা হয়।
প্রচলিত নাম : কোলা-বাদাম (Kola-nut)।

হোমিওপ্যাথিক নাম : স্টেরকুলিয়া মাদার টিংচার।

স্টারকুলিয়া অ্যাকুমিনাটার বোটানিক্যাল নাম – কোলা ভেরা

পরিচিতি : স্টারকুলিয়া কোলা কোলা নামেও পরিচিত।

ইংরেজি নাম : Cola Acuminata, Sterculia Acuminata

স্টারকুলিয়া অ্যাকুমিনাটা কার্যকরীতা : অ্যান্টিঅ্যাস্থ্যাম্যাটিক, অ্যাফ্রোডিসিয়াক, অ্যাস্ট্রিনজেন্ট, কার্ডিও টনিক, পাচক, মূত্রবর্ধক, নার্ভাইন উদ্দীপক টনিক।

বায়ো কম্বিনেশন ২৫

স্টেরকুলিয়া অ্যাকুমিনাটার মাদার টিংচার এর কারণ ও লক্ষণ :
(১) স্টারকুলিয়া (কোলা) স্নায়ুর দুর্বলতায় একটি কার্যকর প্রতিকার হিসাবে কাজ করে।
(২) এটি শরীরে শক্তি এবং প্রাণশক্তি ফিরে পেতে সাহায্য করে।
(৩) স্টারকুলিয়া অ্যাকুমিনাটা সঞ্চালন নিয়ন্ত্রণ করে।
(৪) নাড়ির হারও নিয়ন্তন করে।
(৫) কার্ডিয়াক ছন্দ নিয়ন্ত্রণ করে।
(৬) এটি মূত্রবর্ধক হিসাবে কাজ করে।
(৭) মদ্যপানের অভ্যাস দূর করতে সাহায্য করে।
(৮) এটি হাঁপানির সাথে যুক্ত শ্বাসকষ্ট এবং শ্বাসরোধী সমস্যায় সহায়তা করে।

আরও পড়ুন – র‌্যাক্স নং- ১৪ (স্নায়ু দুর্বলতা)

(ক) মন ও মাথা : নিস্তেজতা, আত্মবিশ্বাসের অভাব, উদাসীনতা, ব্রুডিং, আরো শান্ত প্রকৃতির ইঙ্গিত স্টারকুলিয়া (কোলা)।

এটি অতি-সক্রিয় শিশুদের জন্য উপযুক্ত যারা অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাসী ও স্বৈরাচারী।

(খ) পেট এবং পেট : স্টেরকুলিয়া (কোলা) ক্ষুধা বৃদ্ধি করে এবং খাবার সঠিকভাবে হজম করতে সাহায্য করে, সমুদ্রের তীরে থেকে অসুস্থতা থেকে মুক্তি দেয়।

(গ) সাধারণতা : মাথাব্যথা, আলগা গতি সহ বিভিন্ন সমস্যায় ব্যাপক ব্যবহার করা হয়।

এটি মদের তৃষ্ণা কমায় ও এটি স্টেরকুলিয়ার বিশেষ বৈশিষ্ট্য।

স্টেরকুলিয়া (কোলা) একটি উদ্দীপক হিসাবে কাজ করে যা ক্লান্তি ও তন্দ্রা কাটিয়ে উঠার পাশাপাশি নিজেকে সতর্কতা বাড়ায়।
এটি পেশীর শক্তি বৃদ্ধি করে এবং শরীরের শক্তির মাত্রা বাড়াতে সাহায্য করে।
হৃদপিন্ড দুর্বল ও তার ক্রিয়ায় অনিয়মিত, সাধারণ পেশী দুর্বলতা নির্দেশ করে।
এটি শরীরের শক্তি প্রদান করে এবং দুর্বলতা দুর করতে সাহায্য করে।

আরও পড়ুন – আর ৪৩ (হাঁপানি ড্রপ)

ডাঃ কেএস গোপী এটি সুপারিশ করেন, “মদ্যপানের জন্য একটি কার্যকর প্রতিকার। এটি ক্ষুধা ও হজমশক্তি বাড়ায় এবং অ্যালকোহলের প্রতি আকাঙ্ক্ষা কমায়”।

সতর্কতা : সঠিকভাবে ঔষধ সেবন না করলে উচ্চ রক্তচাপ হতে পারে।  ডোজ ১৫ থেকে ২০ ফোঁটা ঔষধ  পানির সঙ্গে সেবন করা উচিত বেশি ডোজ বিপজ্জনক হতে পারে এবং আতঙ্কিত প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে, এর ফলে হার্ট অ্যাটাক হতে পারে এবং মৃত্যুর কারণ হতে পারে। লিভার, কিডনি, হৃদরোগে আক্রান্ত ব্যক্তি ও গর্ভবতী মহিলা, শিশু, বয়স্কদের চরম সতর্কতার সাথে এই ঔষধটি ব্যবহার করা উচিত।

সেবন বিধি : অবস্থার উপর দুই ঘন্টা পর পর সেবন করা যেতে পারে। খাবারের আধাঘন্টা আগে ১০ থেকে ১৫ ফোঁটা ঔষধ একঢোক পরিমাণ মত পানিতে মিশিয়ে দিনে ৩ বার সেবন করুণ। ঔষধ সেবনে কিছু উন্নতি হলে ঔষধ সেবনে পরিমান কমিয়ে  দিনে দুইবার সেবন করুণ। অসুখের লক্ষণ গুলি সম্পুর্ণ অদৃশ্য না হওয়া পর্যন্ত সেবন করুণ। অথবা চিকিৎসকের নির্দেশ মেনে ঔষধ সেবন করতে হবে।

চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন। ওষুধ খাওয়ার সময় তামাক খাওয়া বা অ্যালকোহল পান করা এড়িয়ে চলুন।

অন্যান্য ঔষধ : আপনি অ্যালোপ্যাথি ওষুধ, আয়ুর্বেদিক ইত্যাদির মতো অন্যান্য ওষুধে থাকলেও ওষুধ খাওয়া নিরাপদ।

আরও পড়ুন –  এইচ আর – ৭৩ (মূত্রবর্ধক চিকিৎসায় কার্যকর)

অন্যান্য ঔষধে  হস্তক্ষেপ : হোমিওপ্যাথিক ওষুধগুলি কখনই অন্য ওষুধের ক্রিয়াকলাপে হস্তক্ষেপ করে না।

বিশেষ সতর্কতা : সাধারণত গর্ভাবস্থায় এবং স্তন্যপান করানোর সময় ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ খাওয়া উচিত নয়|

শর্তাবলী : মাদার টিংচার হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : হোমিওপ্যাথি সর্বোত্তম চিকিৎসা প্রদান করে কারণ এটি নিরাপদ এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুক্ত। তবে প্রতিটি ওষুধ চিকিৎসকের নিয়ম মেনে খেতে হবে।

ঔষধ সংরক্ষণ : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন। ৩০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড (৮৬ ডিগ্রি ফারেনহাইট) এর বেশি নয় একটি স্থির তাপমাত্রায় সংরক্ষণ করা উচিত।

ঔষধের গুণগতমাণ : এটি একটি প্রাকৃতিক পণ্য, এটি কখনও কখনও সামান্য বৃষ্টিপাত অথবা মেঘলা হতে পারে, কিন্তু এটি পণ্যের গুণমান এবং এর কার্যকারিতা প্রভাবিত করে না। যদি এটি ঘটে তবে পণ্যটি ব্যবহার করার আগে ভালভাবে ঝাঁকি নিন। একবার আপনি সীলটি ভেঙে ফেললে, ওষুধগুলি দ্রুত ব্যবহার করা উচিত।

2454

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন। এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন লাইককমেন্ট করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে শেয়ার করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন। সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev