শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ০৭:৪৬ অপরাহ্ন

স্পঞ্জিয়া টোস্টা 2x মাদার টিংচার

আরোগ্য হোমিও হল / ২০ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ সোমবার, ২৪ জুন, ২০২৪, ১১:৪৫ অপরাহ্ন
স্পঞ্জিয়া টোস্টা 2x মাদার টিংচার Q
স্পঞ্জিয়া টোস্টা 2x মাদার টিংচার Q

Spongia Tosta 2x Mother Tincture Q

স্পঞ্জিয়া টোস্টা 2x মাদার টিংচার Q

আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “স্পঞ্জিয়া টোস্টা 2x মাদার টিংচার Q” হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।

স্পঞ্জিয়া টোস্টা 2x মাদার টিংচার Q সম্পর্কে ধারণা :

প্রস্তুত প্রণালী : হোমিওপ্যাথিক প্রতিকারি স্পঞ্জিয়া টোস্টা প্রথমে ভুনা এবং তারপর সামুদ্রিক প্রাণী স্পঞ্জ পিষে প্রস্তুত করা হয়।

স্পঞ্জিয়া টোস্টা ব্যবহার : এটি একটি হোমিওপ্যাথিক প্রতিকার বিশেষত শ্বাসযন্ত্রের অঙ্গ, কাশি, ক্রুপ, ইত্যাদির লক্ষণগুলিতে কার্যকর। ফর্সা বর্ণের শিশুরা, আঁশের আঁশ, ফোলা গ্রন্থি, সামান্য পরিশ্রমের পর শরীরে ক্লান্তি ও ভারাক্রান্ত হওয়া, বুক, মুখমণ্ডলে রক্তের প্রচণ্ড উত্তেজনা। উদ্বেগ এবং শ্বাস কষ্ট ইত্যাদিতে ব্যবহার করা হয়।

বায়ো কম্বিনেশন ২৫

হোমিওপ্যাথিক মেটেরিয়া মেডিকা অনুসারে স্পঞ্জিয়া টোস্টা রোগীর প্রোফাইল :

(১) মন : উদ্বেগ ও ভয়, প্রতিটি উত্তেজনা কাশি বৃদ্ধি।

(২) মাথা : রক্তের ভিড়, ফেটে যাওয়ার মতো মাথাব্যথা, খারাপ, কপাল।

(৩) চোখ : জল, আঠালো অথবা শ্লেষ্মা স্রাব।

(৪) নাক : কোরিজা, থেমে যাওয়া। শুষ্কতা; দীর্ঘস্থায়ী, শুষ্ক, অনুনাসিক ক্যাটারা।

(৫) মুখ : জিহ্বা শুকনো এবং বাদামী, vesicles পূর্ণ।

আরও পড়ুন –  আর ৪৩ (হাঁপানি ড্রপ)

(৬) গলা : থাইরয়েড গ্রন্থি ফুলে যাওয়া, সেলাই ও শুষ্কতা, জ্বলন্ত এবং দংশন, গলা ব্যথা, মিষ্টি জিনিস খাওয়ার পরে খারাপ লাগে। সুড়সুড়ি দিলে কাশি হয়। রোগী প্রতিনিয়ত গলা পরিষ্কার করে।

 

(৭) পেট : অতিরিক্ত তৃষ্ণা, প্রচণ্ড ক্ষুধা, ট্রাঙ্কের চারপাশে আঁটসাঁট পোশাক সহ্য করতে পারে না ও হেঁচকি।

(৮) পুরুষ : শুক্রাণু ও অণ্ডকোষের ফুলে যাওয়া, ব্যথা এবং কোমলতা সহ অর্কাইটিস, এপিডিডাইমাইটিস অংশে তাপ।

(৯) মহিলা : মাসিকের আগে স্যাক্রামে ব্যথা, ক্ষুধামন্দা, ধড়ফড় করা, ঋতুস্রাবের সময় শ্বাসরোধকারী বানান (Cupr; Iod; Lach) সহ জেগে ওঠে। Amenorrhśa সহ হাঁপানি (Puls) ।

(১০) শ্বাসযন্ত্র : সমস্ত বায়ু-পথের শুষ্কতা। কর্কশতা, স্বরযন্ত্র শুকনো, পোড়া, সংকুচিত, শুষ্ক, ঘেউ ঘেউ খসখসে কাশি,স্বরযন্ত্র স্পর্শে সংবেদনশীল। ক্রুপ কাশি আরও খারাপ, অনুপ্রেরণার সময় এবং মধ্যরাতের আগে। শ্বাস-প্রশ্বাস ছোট, হাঁপাচ্ছে, কঠিন, স্বরযন্ত্রের একটি প্লাগ অনুভূতি. খাওয়া অথবা পান করার পরে কাশি কমে যায়, বিশেষ করে উষ্ণ পানীয়। শুষ্ক, দীর্ঘস্থায়ী সহানুভূতিশীল কাশি বা জৈব হৃদরোগের উপশম হয়

স্পঞ্জিয়া (নাজা) : বুকের গভীরে দাগ থেকে অদম্য কাশি, যেন কাঁচা ও কালশিটে। বুক দুর্বল, খুব কমই কথা বলতে পারে। ল্যারিঞ্জিয়াল phthisis। গলগন্ড, শ্বাসরোধী। ব্রঙ্কিয়াল ক্যাটার্হ, শ্বাসকষ্ট সহ, হাঁপানির কাশি, ঠান্ডা বাতাসে খারাপ হয়, প্রচুর কফ এবং শ্বাসরোধ, আরো খারাপ, মাথা নিচু করে এবং গরম ঘরে শুয়ে থাকা। নিপীড়ন এবং বুকের উত্তাপ সহহঠাৎ দুর্বলতা।

আরও পড়ুন – আর ৮ (কাশির সিরাপ)

(১১) হৃদপিন্ড : দ্রুত এবং হিংস্র ধড়ফড়, ডিস্পনসায় শুয়ে থাকতে পারে না। এছাড়াও অনুভূমিক অবস্থানে বিশ্রাম সবচেয়ে ভাল বোধ। ব্যথা ও শ্বাসরোধে মধ্যরাতের পরে হঠাৎ জেগে ওঠে, প্রস্ফুটিত, গরম এবং মৃত্যুতে ভীত (Acon)। ভালভুলার অপ্রতুলতা, অজ্ঞানতা, এবং উদ্বিগ্ন ঘাম। রক্তের উচ্ছ্বাস, শিরা প্রসারিত। বুকের মধ্যে হৃৎপিণ্ডের ঝাঁকুনি, যেন এটি জোর করে উপরের দিকে বেরিয়ে আসবে। হার্টের হাইপারট্রফি, বিশেষ করে ডানদিকে, হাঁপানির লক্ষণ।

(১২) ত্বক : গ্রন্থির ফোলাভাব ও অস্থিরতা এছাড়াও exophthalmic, সার্ভিকাল গ্রন্থি ফুলে যাওয়া মাথার দিকে টানটান ব্যথা, চাপে বেদনাদায়ক, গলগন্ড, চুলকানি ও হাম।

(১২) ঘুম : মনে হয় যেন দম বন্ধ হয়ে যাচ্ছে, ভয়ে ঘুম থেকে জেগে ওঠে এবং সাধারণত ঘুমের পরে খারাপ হয় বা ঘুমের মধ্যে এবং উত্তেজনা (লাচ)।

(১৩) জ্বর : উদ্বেগের সাথে তাপের আক্রমণ, মুখের তাপ এবং লালভাব ও ঘাম।

(১৪) মোডালিটিস : আরোহী, বাতাস, মধ্যরাতের আগে। ভাল, অবতরণ, মাথা নিচু করে শুয়ে থাকা।

(১৫) সম্পর্ক : তুলনা করুন: একন; হেপ, ব্রোম; ল্যাচ, Merc prot (গলগণ্ড)।

আরও পড়ুন – চেষ্টন (হাঁপানি, অ্যাজমা ও সর্দিকাশির জন্য)

স্পঞ্জিয়া টোস্টা  ডোজ সম্পের্কে  পরামর্শ: অনুগ্রহ করে মনে রাখবেন যে একক হোমিওপ্যাথিক ওষুধের ডোজ অবস্থা, বয়স সংবেদনশীলতা এবং অন্যান্য বিষয়ের উপর নির্ভর করে ড্রাগ থেকে ড্রাগে পরিবর্তিত হয়, কিছু ক্ষেত্রে নিয়োমিত ডোজ হিসাবে ১৫ থেকে ২০ ফোঁটা ঔষধ দিনে ২ থেকে ৩ বার দেওয়া হয়।  অন্যান্য ক্ষেত্রে সপ্তাহে, মাসে বা এমনকি দীর্ঘ সময়ের মধ্যে মাত্র একবার দেওয়া হয়। আমরা দৃঢ়ভাবে সুপারিশ করছি যে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ওষুধ সেবন করা উচিত।

সতর্কতা : সঠিকভাবে ঔষধ সেবন না করলে উচ্চ রক্তচাপ হতে পারে।  ডোজ ১৫ থেকে ২০ ফোঁটা ঔষধ  পানির সঙ্গে সেবন করা উচিত বেশি ডোজ বিপজ্জনক হতে পারে এবং আতঙ্কিত প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে, এর ফলে হার্ট অ্যাটাক হতে পারে এবং মৃত্যুর কারণ হতে পারে। লিভার, কিডনি, হৃদরোগে আক্রান্ত ব্যক্তি ও গর্ভবতী মহিলা, শিশু, বয়স্কদের চরম সতর্কতার সাথে এই ঔষধটি ব্যবহার করা উচিত।

সেবন বিধি : অবস্থার উপর দুই ঘন্টা পর পর সেবন করা যেতে পারে। খাবারের আধাঘন্টা আগে ১০ থেকে ১৫ ফোঁটা ঔষধ একঢোক পরিমাণ মত পানিতে মিশিয়ে দিনে ৩ বার সেবন করুণ। ঔষধ সেবনে কিছু উন্নতি হলে ঔষধ সেবনে পরিমান কমিয়ে  দিনে দুইবার সেবন করুণ। অসুখের লক্ষণ গুলি সম্পুর্ণ অদৃশ্য না হওয়া পর্যন্ত সেবন করুণ। অথবা চিকিৎসকের নির্দেশ মেনে ঔষধ সেবন করতে হবে।

চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন। ওষুধ খাওয়ার সময় তামাক খাওয়া বা অ্যালকোহল পান করা এড়িয়ে চলুন।

অন্যান্য ঔষধ : আপনি অ্যালোপ্যাথি ওষুধ, আয়ুর্বেদিক ইত্যাদির মতো অন্যান্য ওষুধে থাকলেও ওষুধ খাওয়া নিরাপদ।

আরও পড়ুন –  শিশুর ঘুংড়ী কাশি

অন্যান্য ঔষধে  হস্তক্ষেপ : হোমিওপ্যাথিক ওষুধগুলি কখনই অন্য ওষুধের ক্রিয়াকলাপে হস্তক্ষেপ করে না।

বিশেষ সতর্কতা : সাধারণত গর্ভাবস্থায় এবং স্তন্যপান করানোর সময় ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ খাওয়া উচিত নয়|

শর্তাবলী : মাদার টিংচার হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : হোমিওপ্যাথি সর্বোত্তম চিকিৎসা প্রদান করে কারণ এটি নিরাপদ এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুক্ত। তবে প্রতিটি ওষুধ চিকিৎসকের নিয়ম মেনে খেতে হবে।

ঔষধ সংরক্ষণ : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন। ৩০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড (৮৬ ডিগ্রি ফারেনহাইট) এর বেশি নয় একটি স্থির তাপমাত্রায় সংরক্ষণ করা উচিত।

ঔষধের গুণগতমাণ : এটি একটি প্রাকৃতিক পণ্য, এটি কখনও কখনও সামান্য বৃষ্টিপাত অথবা মেঘলা হতে পারে, কিন্তু এটি পণ্যের গুণমান এবং এর কার্যকারিতা প্রভাবিত করে না। যদি এটি ঘটে তবে পণ্যটি ব্যবহার করার আগে ভালভাবে ঝাঁকি নিন। একবার আপনি সীলটি ভেঙে ফেললে, ওষুধগুলি দ্রুত ব্যবহার করা উচিত।

2454

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন। এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন লাইককমেন্ট করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে শেয়ার করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন। সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev