শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ০৫:৫৬ অপরাহ্ন

স্পার্টিয়াম স্কোপেরিয়াম হোমিওপ্যাথি মাদার টিংচার

আরোগ্য হোমিও হল / ১৬ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ মঙ্গলবার, ২৫ জুন, ২০২৪, ১১:৫৫ অপরাহ্ন
স্পার্টিয়াম স্কোপেরিয়াম হোমিওপ্যাথি মাদার টিংচার
স্পার্টিয়াম স্কোপেরিয়াম হোমিওপ্যাথি মাদার টিংচার

Spartium Scoparium Homeopathy Mother Tincture Q

স্পার্টিয়াম স্কোপেরিয়াম হোমিওপ্যাথি মাদার টিংচার 

আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “ স্পার্টিয়াম স্কোপেরিয়াম হোমিওপ্যাথি মাদার টিংচার” হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।

স্পার্টিয়াম স্কোপেরিয়াম (সাইটিসাস) হোমিওপ্যাথিক মাদার টিংচার সম্পের্কে ধারণা :

প্রস্তুত প্রণালী : মাদার টিংচার ফুল থেকে প্রস্তুত করা হয়।

স্পার্টিয়াম স্কোপেরিয়াম হোমিওপ্যাথি মাদার টিংচার এর ব্যবহার : হৃৎপিণ্ডের পেশী এবং স্নায়ু দুর্বল হয়ে পড়লে এটি একটি স্বনামধন্য হার্ট টনিক হিসাবে ব্যবহার করা হয়।

স্পার্টিয়াম স্কোপেরিয়াম সাধারণ নাম : Broom, Cytisus Scoparius।

পরিচিতি : স্পার্টিয়াম স্কোপেরিয়াম সাধারণত ব্রুম নামে পরিচিত।

স্পার্টিয়াম স্কোপেরিয়াম (সাইটিসাস) হোমিওপ্যাথিক মাদার টিংচার এর উপকারিতা : স্পার্টিয়াম স্কোপেরিয়াম একটি হোমিওপ্যাথিক মাদার টিংচার যা হার্টের টনিক হিসাবে ও এর শক্তিশালী প্রভাবের জন্য স্বীকৃত। এটি হৃৎপিণ্ডের কাছাকাছি পেশী শক্তি বাড়ানো ও স্নায়ুকে শক্তিশালী করার জন্য বিখ্যাত। স্পার্টিয়াম স্কোপেরিয়াম মাদার টিংচারটি কিডনি এবং মূত্রনালীর সমস্যাগুলির জন্য বিশেষভাবে কার্যকরী, জ্বলন্ত সংবেদন এবং প্রচুর প্রস্রাবের প্রবাহের মতো লক্ষণগুলি থেকে মুক্তি দেয়। এয়াড়াও এটি রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে এবং স্নায়ুতন্ত্রকে শক্তিশালী করতে ভূমিকা পালন করে। এনজাইনা পেক্টোরিস ও গ্যাস্ট্রিক যন্ত্রণার সাথে সম্পর্কিত অনিয়মিত হৃদস্পন্দনের মতো অবস্থাগুলি প্রতিকারের মাধ্যমে কার্যকরভাবে পরিচালিত হয়, এর পাশাপাশি অন্ত্রে উল্লেখযোগ্য গ্যাস জমে থাকা থেকে মুক্তি দেয়।

বায়ো কম্বিনেশন ২৫

স্পার্টিয়াম স্কোপেরিয়ামের ইঙ্গিত এবং সুবিধা :

(ক) কার্ডিয়াক সাপোর্ট : স্পার্টিয়াম স্কোপেরিয়াম একটি কার্যকর হার্ট টনিক হিসাবে অত্যন্ত মূল্যবান ঔষধ। বিশেষ করে এনজিনা পেক্টোরিস এবং অনিয়মিত হৃদযন্ত্রের ছন্দের মতো পরিস্থিতিতে এটি কার্ডিয়াক ফাংশন উন্নত করতে সাহায্য করে ।

(খ) মূত্রবর্ধক বৈশিষ্ট্য : স্পার্টিয়াম স্কোপেরিয়াম হোমিওপ্যাথি মাদার টিংচারটি প্রস্রাবের আউটপুট বাড়ায়, অ্যালবুমিনুরিয়া ও নেফ্রাইটিসের মতো পরিস্থিতিতে সাহায্য করে, যেখানে এটি কিডনির কার্যকারিতা সমর্থন করে এবং হার্টের চাপ থেকে মুক্তি দেয়। কিডনিতে ভাল কাজ করে যার ফলে হার্টের উপর ভার কমায়।এছাড়াও প্রস্রাবের পরিমাণ বাড়িয়ে হার্ট ফেইলিউরের কারণে শরীরে ফোলাভাব এবং তরল ধারণ হ্রাস করে।

আরও পড়ুন –  এন – ০৩ (হার্টের ড্রপস)

(গ) রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ : এটি সক্রিয় উপাদান, স্পার্টাইন সালফেট, সিস্টোলিক ও ডায়াস্টোলিক উভয় রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে।

(ঘ) হজমের স্বাস্থ্য : এটি অন্ত্রে গ্যাসের জমাট কমিয়ে হজম সংক্রান্ত সমস্যাগুলি থেকে মুক্ত দেয়, এইভাবে গ্যাস্ট্রিক সম্পর্কিত সমস্যাগুলিকে সহজ করে যা হার্টের ছন্দকে প্রভাবিত করতে পারে।

(ঙ) স্নায়ুতন্ত্রের সহায়তা : স্পার্টিয়াম স্কোপেরিয়াম হোমিওপ্যাথি মাদার টিংচারটি স্নায়ুতন্ত্রের মধ্যে দুর্বলতার সাথে লড়াই করতে সাহায্য করে, সামগ্রিক স্নায়ু স্বাস্থ্যকে উন্নত করতে সাহায্য করে।

উপশম : শীতল বায়ুচলাচল উপবাসে গ্যাস
খারাপ : বাম দিকে বাঁক।

অনুরূপ ওষুধ : কলমিয়া, স্পিগেলিয়া, আইবেরিস

আরও পড়ুন –   আর ৬৬ (অনিয়মিত হার্ট বিট)

সতর্কতা : সঠিকভাবে ঔষধ সেবন না করলে উচ্চ রক্তচাপ হতে পারে।  ডোজ ১৫ থেকে ২০ ফোঁটা ঔষধ  পানির সঙ্গে সেবন করা উচিত বেশি ডোজ বিপজ্জনক হতে পারে এবং আতঙ্কিত প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে, এর ফলে হার্ট অ্যাটাক হতে পারে এবং মৃত্যুর কারণ হতে পারে। লিভার, কিডনি, হৃদরোগে আক্রান্ত ব্যক্তি ও গর্ভবতী মহিলা, শিশু, বয়স্কদের চরম সতর্কতার সাথে এই ঔষধটি ব্যবহার করা উচিত।

সেবন বিধি : অবস্থার উপর দুই ঘন্টা পর পর সেবন করা যেতে পারে। খাবারের আধাঘন্টা আগে ১০ থেকে ১৫ ফোঁটা ঔষধ আধা কাপ  পানিতে মিশিয়ে দিনে ৩ বার সেবন করুণ। ঔষধ সেবনে কিছু উন্নতি হলে ঔষধ সেবনে পরিমান কমিয়ে  দিনে দুইবার সেবন করুণ। অসুখের লক্ষণ গুলি সম্পুর্ণ অদৃশ্য না হওয়া পর্যন্ত সেবন করুণ। অথবা চিকিৎসকের নির্দেশ মেনে ঔষধ সেবন করতে হবে।

চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন। ওষুধ খাওয়ার সময় তামাক খাওয়া বা অ্যালকোহল পান করা এড়িয়ে চলুন।

অন্যান্য ঔষধ : আপনি অ্যালোপ্যাথি ওষুধ, আয়ুর্বেদিক ইত্যাদির মতো অন্যান্য ওষুধে থাকলেও ওষুধ খাওয়া নিরাপদ।

আরও পড়ুন –  আর ৬৭ (হার্টের দুর্বলতা)

অন্যান্য ঔষধে  হস্তক্ষেপ : হোমিওপ্যাথিক ওষুধগুলি কখনই অন্য ওষুধের ক্রিয়াকলাপে হস্তক্ষেপ করে না।

বিশেষ সতর্কতা : সাধারণত গর্ভাবস্থায় এবং স্তন্যপান করানোর সময় ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ খাওয়া উচিত নয়|

শর্তাবলী : মাদার টিংচার হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : হোমিওপ্যাথি সর্বোত্তম চিকিৎসা প্রদান করে কারণ এটি নিরাপদ এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুক্ত। তবে প্রতিটি ওষুধ চিকিৎসকের নিয়ম মেনে খেতে হবে।

ঔষধ সংরক্ষণ : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন। ৩০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড (৮৬ ডিগ্রি ফারেনহাইট) এর বেশি নয় একটি স্থির তাপমাত্রায় সংরক্ষণ করা উচিত।

ঔষধের গুণগতমাণ : এটি একটি প্রাকৃতিক পণ্য, এটি কখনও কখনও সামান্য বৃষ্টিপাত অথবা মেঘলা হতে পারে, কিন্তু এটি পণ্যের গুণমান এবং এর কার্যকারিতা প্রভাবিত করে না। যদি এটি ঘটে তবে পণ্যটি ব্যবহার করার আগে ভালভাবে ঝাঁকি নিন। একবার আপনি সীলটি ভেঙে ফেললে, ওষুধগুলি দ্রুত ব্যবহার করা উচিত।

2454

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন। এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন লাইককমেন্ট করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে শেয়ার করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন। সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।

 


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev