শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ০৬:৩২ অপরাহ্ন

রুমেক্স ক্রিসপাস (Q -1X) হোমিওপ্যাথি মাদার টিংচার

আরোগ্য হোমিও হল / ১৫ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ রবিবার, ৭ জুলাই, ২০২৪, ১২:৩১ পূর্বাহ্ন
রুমেক্স ক্রিসপাস (Q -1X) হোমিওপ্যাথি মাদার টিংচার
রুমেক্স ক্রিসপাস (Q -1X) হোমিওপ্যাথি মাদার টিংচার

Rumex Crispus Q Homeopathy Mother Tincture 1X

রুমেক্স ক্রিসপাস (Q -1X) হোমিওপ্যাথি মাদার টিংচার

আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “রুমেক্স ক্রিসপাস (Q -1X) হোমিওপ্যাথি মাদার টিংচার” হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।

রুমেক্স ক্রিসপাস হোমিওপ্যাথি মাদার টিংচার সম্পর্কে তথ্য

পরিচিতি : রুমেক্স ক্রিসপাস ঔষধটি কার্লড ডক (Curled Dock) হলুদ ডক (Yellow Dock) নামেও পরিচিত।

রুমেক্স ক্রিসপাস হোমিওপ্যাথি মাদার টিংচার কার্যকারিতা :
রুমেক্স ক্রিসপাস হোমিওপ্যাথি মাদার টিংচার হল একটি হোমিওপ্যাথিক ঔষধ যা কাশি সংক্রান্ত সমস্যায় কার্যকর। এর প্রাকৃতিক গঠনে প্রকৃত কাঁচামাল রয়েছে, এটি অমেধ্য থেকে মুক্ত। এটি গলায় সুড়সুড়ি যা কাশির কারণ হয়ে থাকে তা নিরাময়ে করতে সাহায্য করে । এটি পেটে ব্যথা এবং ব্যথা নিরাময়েও কার্যকরী।

বায়ো কম্বিনেশন ২৫

রুমেক্স ক্রিসপাস ওষুধটি বিভিন্ন ধরণের ব্যথা দ্বারা চিহ্নিত করা হয় যা ব্যথাটি এক অবস্থানে স্থির নয়। এটি গলার গর্তে সুড়সুড়ির চিকিৎসা করে যা কাশির দিকে পরিচালিত করে, শ্লেষ্মা ঝিল্লির নির্গমন হ্রাস করে ও শ্বাসনালীর ঝিল্লির সংবেদনশীলতা বাড়ায়। ত্বকের উপর এটির ক্রিয়া চিহ্নিত করা হয় যেখানে প্রচুর চুলকানি , বর্ধিত লিম্ফ্যাটিক্স রয়েছে।

আরও পড়ুন – আর ৫ (পেট এবং হজম ড্রপ)

রুমেক্স ক্রিসপাসের কারণ ও লক্ষণ : রুমেক্স ক্রিসপাস ঔষধটি শ্লেষ্মা ঝিল্লির নিঃসরণ হ্রাস করে, বর্ধিত লিম্ফ্যাটিক গ্রন্থিগুলিতে কাজ করে। ত্বকের উপরে এর ক্রিয়া চিহ্নিত করা হয়, এটি তীব্র চুলকানি তৈরি করে। গলা-গর্তে লাগাতার সুড়সুড়ির কারণে সৃিষ্ট কাশি রুমেক্স খেলে উপশম হয়। একটি মূল বিষয় হল ঠান্ডা বাতাসের সংবেদনশীলতা। কাশি এবং ত্বকের লক্ষণগুলি উন্মোচন অথবা বাতাসের সংস্পর্শে আরো খারাপ হয়।

(ক) পেট : এটি পেটে শক্ত পিণ্ডের ব্যথা এবং সংবেদন, হেঁচকি, বমি বমি ভাব, পেট এবং বুকে ব্যথা যা গলার দিকে অগ্রসর হয়, অ্যালকোহল সেবনের পরে জন্ডিস এবং পেটে প্রদাহের চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়।

(খ) শ্বাস : প্রশ্বাসের লক্ষণ যেমন শুষ্কতা, নাক ও শ্বাসনালী থেকে শ্লেষ্মা নিঃসরণ, মুখ থেকে পাতলা, ফেনাযুক্ত নিঃসরণ যা শক্ত এবং কৃপণ, গলায় সুড়সুড়ি দেওয়া, শুষ্কতা, বাম কাঁধের অঞ্চলে ব্যথা এবং গলায় পিণ্ডের অনুভূতি .

(ঘ) মল : এটি মলদ্বারের চুলকানি, পাইলস, বাদামী ও জলযুক্ত ডায়রিয়া এবং কাশি দিয়ে বিছানা থেকে বের করে দেয় এবং ফুসফুসীয় যক্ষ্মা রোগে কার্যকর।

(ঙ) ত্বক : ত্বকের তীব্র চুলকানির চিকিৎসা করে যা ঠান্ডা বাতাসের সংস্পর্শে আরও খারাপ হয়ে যায়, ত্বকে ফুসকুড়ি এবং শরীরে বিস্ফোরণ হয়।

আরও পড়ুন – আর ১৮৭ (মাথা ব্যথা ড্রপস)

ডা: উইলিয়াম বরিকে মেটেরিয়া মেডিকা অনুযাী রুমেক্স ক্রিসপাস :

ক্রিসপাস ঔষধটি ব্যথা দ্বারা চিহ্নিত করা হয়, ব্যাথাটি অসংখ্য এবং বৈচিত্র্যময়, কোথাও স্থির বা ধ্রুবক নয়। গলার গর্তে একটানা সুড়সুড়ি দেওয়ার কারণে সৃষ্ট কাশি, যা সুড়সুড়ি শ্বাসনালীর টিউবের বিভাজন পর্যন্ত চলে যায় যা গলা-গর্তে স্পর্শ করলে কাশি হয়। ঠান্ডা বাতাস থেকে খারাপ হয়, বিছানার কাপড় দিয়ে সমস্ত শরীর এবং মাথা ঢেকে সমস্ত কাশি বন্ধ হয়। এটি শ্লেষ্মা ঝিল্লির নিঃসরণ হ্রাস করে এবং একই সাথে স্বরযন্ত্র এবং শ্বাসনালীর শ্লেষ্মা ঝিল্লির সংবেদনশীলতা বৃদ্ধি করে। ত্বকের উপর এর ক্রিয়া চিহ্নিত করা হয়, একটি তীব্র চুলকানি তৈরি করে। লিম্ফ্যাটিক্স বর্ধিত এবং ক্ষরণ বিকৃত।

রুমেক্স ক্রিসপাস হোমিওপ্যাথি মাদার টিংচারের লক্ষণ :

(১) মন : খিটখিটে, মানসিক পরিশ্রমের প্রতি অনিচ্ছুক রুমেক্সকে নির্দেশ করে।

(২) মাথা : মাথার বাম দিকে তীক্ষ্ণ ব্যথা বা তীক্ষ্ণ ছিদ্র, ঘুম থেকে ওঠার সময় থেঁতলে যাওয়া মতো অনুভূতি।

(৩) চোখ : প্রদাহ ছাড়াই চোখে কালশিটে অনুভূতি। ঢাকনা ফোলা সহ শুষ্কতা থেকে চোখে ব্যথা।

(৪) কান : রুমেক্স খেলে কানের গভীরে বাজানো ও চুলকানি উপশম হয়।

(৫) নাক : নাক বাঁধা, এমনকি পশ্চাৎ নারে শুষ্ক সংবেদন। এপিস্ট্যাক্সিস, হিংস্র হাঁচি এবং নাসারন্ধ্রের বেদনাদায়ক জ্বালা উপশম হয়।

(৬) মুখ : মুখ ও গলায় ঘা। ডান উপরের মোলারে দাঁতের ব্যাথা, জিহ্বার প্রান্তে উত্তেজনার অনুভূতি।

(৭) ত্বক : ত্বকের তীব্র চুলকানি, বিশেষ করে নিম্ন অঙ্গে, খারাপ, ড্রেসিং করার সময় ঠান্ডা বাতাসের সংস্পর্শে। ছত্রাক, সংক্রামক প্রুরিগো ইত্যাদি।

আরও পড়ুন –   আর ৪৫ (স্বরযন্ত্রের অসুস্থতা)

(৮) গলা : স্বরযন্ত্র এবং শ্বাসনালীর কাঁচাভাব। গলা শুকিয়ে যাওয়া, গিলে ফেলা কঠিন, গিলে ফেলার সময় বাম দিকে ব্যথা।

(৯) শ্বাস-প্রশ্বাস : নাক শুকিয়ে যাওয়া, গলা-গর্তে সুড়সুড়ি দিলে কাশি হয়। নাক ও শ্বাসনালী থেকে প্রচুর মিউকাস স্রাব নি:সরণ। শুষ্ক, জ্বালাতন কাশি, ঘুম ঘুম রোধ করে। চাপ, কথা বলা। বিশেষ করে শীতল বাতাস এবং রাতে অনুপ্রাণিত করে উত্তেজিত হয়। মুখ দিয়ে পাতলা, জলযুক্ত, ফেনাযুক্ত কফ পরে স্ট্রিং ও শক্ত। স্বরযন্ত্র এবং শ্বাসনালী কাঁচা, স্টার্নামের পিছনে ব্যথা, বিশেষ করে বাম পাশে, বাম কাঁধের অঞ্চলে। ক্ল্যাভিকলের নিচে কাঁচা ব্যথা। গলায় পিণ্ড ইত্যাদি।

(১০) পেট এবং পেট : পেটের গর্তে শক্ত পদার্থের অনুভূতি, মাংস হজম হয় না। এপিগাস্ট্রিয়ামে আঁটসাঁট, শ্বাসরোধকারী, ভারী ব্যথা। অত্যধিক মদ্য ব্যবহারের পরে জন্ডিস। পেটের গর্তে শক্ত পদার্থের সংবেদন। পেটে ব্যথার সঙ্গে ফুসফুসেও ব্যথা। দীর্ঘস্থায়ী গ্যাস্ট্রাইটিস, পেটের গর্তে ব্যাথা ও বুকে শ্যুটিং রুমেক্স দিয়ে উপশম হয়। পেটের গর্তে ব্যাথা, বাম বুকে ব্যাথা, ফুসকুড়ি, পেট ফাঁপা, পেটে ব্যাথা ও খাওয়ার পরে ব্যাথা। রুমেক্সের সাথে রম্বলিং সহ পেটে ভারীতা এবং পূর্ণতার অনুভূতি উপশম হয়।

আরও পড়ুন –  আর ১৩ (পাইলস ড্রপস)

(১১) মল এবং মলদ্বার : মলদ্বারে চুলকানি, মলদ্বারে লাঠির মতো অনুভূতি সহ পাইলস উপশম হয়। খুব সকালে ডায়রিয়া, রোগীকে বিছানা থেকে বের করে দিয়ে প্রতিকারের বৈশিষ্ট্যযুক্ত সঙ্গে কাশির সাথে যুক্ত। আপত্তিকর ফ্ল্যাটাস স্রাবের সাথে মলদ্বারে চুলকানি উপশম হয়।

(১২) প্রস্রাবের : কাশির কারণে প্রস্রাব বের হয়ে যায়, ঘন ঘন ঝোঁক অনুভব করা যেন প্রস্রাব বেশিক্ষণ ধরে রাখা যায় না।

(১৩) যৌন : পুরুষদের অভিযোগ যৌন ইচ্ছা কমে যায়, হারিয়ে যায়।

(১৪) ঘাড় : কটিদেশে যন্ত্রণা এবং প্রচণ্ড ক্লান্তির অনুভূতি। ডান স্যাক্রোইলিয়াক জয়েন্টের অগ্রভাগের কাছে পিঠের ছোট অংশে জ্বলা ও ব্যথা। স্ক্যাপুলের মধ্যে ব্যথা, ঘাড়ের পিছনের ব্যথা, পিছনে দৌড়ানো উপশম হয়।

(১৫) অঙ্গপ্রত্যঙ্গ : বাহু, হাত, কনুই ও ডান কব্জিতে থেঁতলে যাওয়া ব্যাথা এবং হুল ফোটানো ব্যথা। পা সংবেদনশীল, ভুট্টায় দংশন।

(১৬) চামড়া : ভেসিকুলার বিস্ফোরণ, চুলকানি যখন উন্মোচিত হয় ও ঠান্ডা বাতাসের সংস্পর্শে আসে। বিভিন্ন অংশে চুলকানি, নীচের অঙ্গে আরও খারাপ। Urticaria খোলা বাতাসে আরও খারাপ হয়।

(১৭) সাধারণতা : শুষ্ক, স্প্যাসমোডিক কাশি, যেমন হুপিং-কাশির শুরু, কাশি ঠান্ডা থেকে উষ্ণ বা উষ্ণ থেকে ঠান্ডায় আবহাওয়া পরিবর্তনের কারণে উস্কে দেয়। জ্বলছে, ডান বুকে ব্যথা। হৃদপিন্ডের বাম পাশে তীক্ষ্ণ ব্যথা। দুপুরে বাম স্তনে ধারালো কাটা ব্যথা এক ঘন্টা স্থায়ী হয়।

আরও পড়ুন –  আর ৮ (কাশির সিরাপ)

(১৮) বৃদ্ধি : সর্বনিম্ন ঠান্ডা বাতাস থেকে খারাপ; যাতে সন্ধ্যায় অস্থির। ব্যথা এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় ভ্রমণ করে।

(১৯) উপশম : বিছানার কাপড় দিয়ে সমস্ত শরীর এবং মাথা ঢেকে সমস্ত কাশি বন্ধ হয়।

(২০) ডোজ- তৃতীয় শক্তি থেকে ষষ্ঠ শক্তি।

সতর্কতা : সঠিকভাবে ঔষধ সেবন না করলে উচ্চ রক্তচাপ হতে পারে।  ডোজ ১৫ থেকে ২০ ফোঁটা ঔষধ  পানির সঙ্গে সেবন করা উচিত বেশি ডোজ বিপজ্জনক হতে পারে এবং আতঙ্কিত প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে, এর ফলে হার্ট অ্যাটাক হতে পারে এবং মৃত্যুর কারণ হতে পারে। লিভার, কিডনি, হৃদরোগে আক্রান্ত ব্যক্তি ও গর্ভবতী মহিলা, শিশু, বয়স্কদের চরম সতর্কতার সাথে এই ঔষধটি ব্যবহার করা উচিত।

সেবন বিধি : সেবন বিধি : অবস্থার উপর দুই ঘন্টা পর পর সেবন করা যেতে পারে। খাবারের আধাঘন্টা আগে ১০ থেকে ১৫ ফোঁটা ঔষধ আধা কাপ  পানিতে মিশিয়ে দিনে ৩ বার সেবন করুণ। ঔষধ সেবনে কিছু উন্নতি হলে ঔষধ সেবনে পরিমান কমিয়ে  দিনে দুইবার সেবন করুণ। অসুখের লক্ষণ গুলি সম্পুর্ণ অদৃশ্য না হওয়া পর্যন্ত সেবন করুণ। অথবা চিকিৎসকের নির্দেশ মেনে ঔষধ সেবন করতে হবে।চিকিৎসকের

কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন। ওষুধ খাওয়ার সময় তামাক খাওয়া বা অ্যালকোহল পান করা এড়িয়ে চলুন।

অন্যান্য ঔষধ : আপনি অ্যালোপ্যাথি ওষুধ, আয়ুর্বেদিক ইত্যাদির মতো অন্যান্য ওষুধে থাকলেও ওষুধ খাওয়া নিরাপদ।

আরও পড়ুন –  আর ৪১ (পুরুষের যৌন স্বাস্থ্য)

অন্যান্য ঔষধে  হস্তক্ষেপ : হোমিওপ্যাথিক ওষুধগুলি কখনই অন্য ওষুধের ক্রিয়াকলাপে হস্তক্ষেপ করে না।

বিশেষ সতর্কতা : সাধারণত গর্ভাবস্থায় এবং স্তন্যপান করানোর সময় ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ খাওয়া উচিত নয়|

শর্তাবলী : মাদার টিংচার হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : হোমিওপ্যাথি সর্বোত্তম চিকিৎসা প্রদান করে কারণ এটি নিরাপদ এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুক্ত। তবে প্রতিটি ওষুধ চিকিৎসকের নিয়ম মেনে খেতে হবে।

ঔষধ সংরক্ষণ : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন। ৩০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড (৮৬ ডিগ্রি ফারেনহাইট) এর বেশি নয় একটি স্থির তাপমাত্রায় সংরক্ষণ করা উচিত।

ঔষধের গুণগতমাণ : এটি একটি প্রাকৃতিক পণ্য, এটি কখনও কখনও সামান্য বৃষ্টিপাত অথবা মেঘলা হতে পারে, কিন্তু এটি পণ্যের গুণমান এবং এর কার্যকারিতা প্রভাবিত করে না। যদি এটি ঘটে তবে পণ্যটি ব্যবহার করার আগে ভালভাবে ঝাঁকি নিন। একবার আপনি সীলটি ভেঙে ফেললে, ওষুধগুলি দ্রুত ব্যবহার করা উচিত।

2454

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন। এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন লাইককমেন্ট করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে শেয়ার করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন। সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev