শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ০৬:৫৩ অপরাহ্ন

আর ৮২ (অ্যান্টি ফাঙ্গাল ড্রপ)

আরোগ্য হোমিও হল / ৯০ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ মঙ্গলবার, ২ এপ্রিল, ২০২৪, ৫:০৮ অপরাহ্ন
আর ৮২ (অ্যান্টি ফাঙ্গাল ড্রপ)

Dr.Reckeweg R 82/ আর ৮২ (অ্যান্টি ফাঙ্গাল ড্রপ)
R82 (Anti Fungal Drops)
আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “ আর ৮২ (অ্যান্টি ফাঙ্গাল ড্রপ) ” কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।
প্রস্তুত প্রণালী : Dr.Reckeweg R 82/ জার্মান কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথিক ঔষধ।
ব্যবহার : আর ৮২ ড্রপটি  দাদ, ভ্যাজাইনাল ইস্ট, ফাংগাল ইনফেকশন ইত্যাদিতে ব্যবহার করা হয়।
ব্যবহার : আর ৮২ ড্রপটি লক্ষণ :  ছত্রাকের সংক্রমণ যেমন – দাদ, জক ইচ, অ্যাথলিটের পায়ে, হাত-পায়ের সাদা ফ্ল্যাকি ত্বক, গলায় খোঁচা, ব্যথা, কানে চুলকানি, কানে ব্যথা, নখের নীচে সাদা বিবর্ণতা, যোনি খামির অথবা অন্যান্য ছত্রাকের ত্বকের সংক্রমণ।
আর ৮২ ড্রপটি মানুষিক লক্ষণ : রোগীর ক্লান্তি, বিরক্তি, অস্পষ্ট চিন্তাভাবনা, কর্মে মনোনিবেশ করতে অক্ষমতা, সাধারণ অসন্তোষ, মিষ্টির জন্য লালসা, পেট ফাঁপা, এলার্জি প্রকৃতির সংবেদনশীলতা বৃদ্ধি।
আর ৮২ ড্রপটি উপকার : এটি বিভিন্ন ধরনের ছত্রাক সংক্রমণের চিকিৎসায় কার্যকর। এতে ক্ল্যামাইডিয়া ট্র্যাকোমাটিস, ইচিনেসিয়া অ্যাঙ্গুস্টিফোলিয়া ইত্যাদির মতো গুরুত্বপূর্ণ উপাদান রয়েছে যা দাদ, জক ইচ (কুঁচকির অংশের ছত্রাক সংক্রমণ), অ্যাথলেটস ফুট (প্রধানত পায়ের আঙ্গুলের মাঝখানের ত্বককে প্রভাবিত করে ছত্রাক সংক্রমণ), পায়ের সাদা ফ্ল্যাকি ত্বকের মতো ছত্রাক সংক্রমণে কার্যকরী। হাত ও গলায় খোঁচা। এছাড়াও এটি ব্যথা, আঙুলের নখের নীচে সাদা বিবর্ণতা ও কানের চুলকানি, যোনিতে চুলকানি এবং অন্যান্য ছত্রাকের সংক্রমণের সাথে কানের ব্যথার সমাধান করে। এটি বিরক্তি, ক্লান্তি, ঘনত্বের অভাব, পেট ফাঁপা (খাদ্য খালে গ্যাস জমে), অ্যালার্জি প্রকৃতির সংবেদনশীলতা ইত্যাদির চিকিৎসায় কার্যকর। ।

আরও পড়ুন –  আর ৮৭ (অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল ড্রপ)

আর ৮২ ড্রপটি ইঙ্গিত : ছত্রাক সংক্রমণ সম্পর্কে ধারণা :  ধরনের ছত্রাক সংক্রমণ সাধারণ দাদ বিভিন্ন মানুষের মধ্যে মধ্যে দেখা যায়। দুর্বল রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা সম্পন্ন ব্যক্তিই ছত্রাকজনিত রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভবনা বেশি। এগুলি সাধারণত পরিবেশে খুব সাধারণ ছত্রাকের কারণে ঘটে। এটি সাধারণত নখ, ত্বক, ইউরোজেনিটাল ট্র্যাক্ট, শ্বাসযন্ত্রের ট্র্যাক্ট ইত্যাদি সহ শরীরের যে কোনও অংশকে সংক্রামিত করতে পারে। পায়ে ছত্রাক সংক্রমণকে অ্যাথলেটস ফুট বলা হয়। অ্যাথলিটদের পা একটি মাইক্রোস্কোপিক ছত্রাকের কারণে হতে পারে যেমন – পায়ের নখ, চুল ও বাইরের ত্বকের স্তরের মৃত টিস্যুতে বাস করে। এই কারণে লালভাব, চুলকানি, খোসা ছাড়ানো, জ্বালাপোড়া, ফোস্কা ও ঘা হয়। এই ছত্রাকটি মোজা, জুতা, সুইমিং পুল ইত্যাদির মতো আর্দ্র ও উষ্ণ পরিবেশে বৃদ্ধি পেতে পারে। এটি সাধারণত গ্রীষ্ম এবং আর্দ্র আবহাওয়ায় হয়ে থাকে। উপসর্গগুলির মধ্যে ফোসকা, লালভাব, পায়ের স্কেলিং, জ্বালাপোড়া, চুলকানি ইত্যাদি যুক্ত থাকে। শরীরের দাদ সাধারণত হাত-পা বা মুখের মতো উন্মুক্ত শরীরের অংশগুলিকে প্রভাবিত করে। দাদ ছোঁয়াচে অসুখ। এটি লাল রিং আকৃতির ফুসকুড়ি সৃষ্টি করে। গবাদি পশু, ভেড়া এবং পোষা প্রাণীর মতো গৃহপালিত প্রাণীও ছত্রাক বহন করে। সে ছত্রাক দাদ সৃষ্টি করতে পারে। ছত্রাক সংক্রমণের কারণগুলি হল অতিরিক্ত ওজন, শুষ্ক ত্বক, ছত্রাকের সংক্রমণে আক্রান্ত প্রাণী অথবা ব্যক্তির সংস্পর্শে আসা, দূষিত জিনিসের সংস্পর্শে আসা, অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস, গর্ভাবস্থা, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ইত্যাদি।

আরও পড়ুন –  বায়ো-কম্বিনেশন ২০ (চর্ম, ত্বক, ব্রণ, হারপিস)

আর ৮২ ড্রপটি মুল উপাদান মিশ্রণ :
(১) অ্যাসপারগিলাস নাইজার D12 (Aspergillus Niger D12)|
(২) ক্যান্ডিডা অ্যালবিকানস D30 (Candida Albicans D30)|
(৩) ক্ল্যামাইডিয়া ট্র্যাকোমাটিস D30 (Chlamydia Trachomatis D30)|
(৪) ইচিনেসিয়া অ্যাঙ্গুস্টিফোলিয়া D12 (Echinacea Angustifolia D12)|
(৫) জিঙ্কাম মেটালিকাম D10 (Zincum Metallicum D10)|
(৬) মাইকোসিস ফাংগয়েডিস D12 (Mycosis Fungoides D12)|
(৭) পেনিসিলিনাম D12 (Penicillinum D12)|
(৮) টেকোমা D5 (Tecoma D5)|

আরও পড়ুন –  হারপিস সিমপ্লেক্স ভাইরাস (ঠান্ডা ঘা)

আর ৮২ ড্রপটি কার্যকারিতা : 
(ক) Aspergillus Niger  (অ্যাসপারগিলাস নাইজার), Candida Albicans (ক্যান্ডিডা অ্যালবিকানস), Mycosis Fungoides  (মাইকোসিস ফাংগয়েডিস), Penicillinum পেনিসিলিনাম) : এই উপাদানটি শরীরের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থাকে উদ্দীপিত করে অ্যান্টিজেনিক বা নোডোসাল ত্রাণ প্রদান করে।
গবেষণা় ১০টি সুস্থ দেহ থেকে রক্ত নেওয়া হয়েছিল এবং মাইক্রোস্কোপের নীচে ছত্রাকের কোষের দিকে চলাচলের গতি, ফাগোসাইটোসিসের সহজতা ও সময়ের জন্য শ্বেত রক্তকণিকাগুলি পরিমাপ করা হয়। এই ছত্রাকের নোসোড অংশগ্রহণকারীদের দেওয়া হয়েছিল, ৩০ মিনিট পরে রক্ত পুনরায় নেওয়া হয়েছিল এবং শ্বেত রক্তকণিকার কার্যকারিতা পুনরায় পরিমাপ করা হয়। সব ক্ষেত্রেই শ্বেত রক্তকণিকা ছত্রাকের কোষ ধ্বংস করতে ২৫% থেকে ৩০% দ্রুত এবং আরো কার্যকরী ছিল।
(খ) ক্ল্যামাইডিয়া ট্র্যাকোমাটিস (Chlamydia Trachomatis) : রিকেটসিয়ার অ্যান্টিজেনিক নোসোডাল চিকিৎসা এবং ক্যান্ডিডা বৃদ্ধির ক্ল্যামিডোস্পোর পর্যায় বন্ধ করে।
(গ) ইচিনেসিয়া অ্যাঙ্গুস্টিফোলিয়া (Echinacea Angustifolia) : এটি লিম্ফ ক্লিনজার ও ইমিউন সিস্টেমকে শক্তিশালী করে।

আরও পড়ুন –  এইচ আর – ৭৫ (কার্বাঙ্কেল চিকিৎসায় কার্যকর)

(ঘ) জিঙ্কাম মেটালিকাম (Mycosis Fungoides) : কুয়াশাচ্ছন্ন (বিভ্রান্ত) মাথাব্যথা ও ঘনত্বের অভাব দূর করে। এটি জিঙ্কের পুষ্টি শোষণের উদ্দীপক হিসাবে কাজ করে।
(ঙ) টেকোমা (Tecoma) : এটি সবচেয়ে শক্তিশালী ছত্রাকবিরোধী ঔষধ হিসাবে পরিচিত।
আর ৮২ ঔষধ সেবন বিধি : প্রাপ্ত বয়স্করা জন্য ১৫ থেকে ২০ ফোঁটা, শিশুরা ৭ থেকে ১০ ফোঁটা ঔষধ ১/৪ কাপ পানিতে মিশিয়ে দিনে ৩ বার অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করতে হবে।

আরও পড়ুন –  কেন্ট ১৮ (চর্ম রোগে কার্যকর)

চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।
সতর্কতা : গর্ভবতী মা অথবা দুগ্ধদানকারী মায়েরা ঔষধ সেবনের পূর্বে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের পরামর্শে ঔষধ সেবন করা উত্তম।
শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।

আরও পড়ুন –  এন – ২৩ (একজিমা ড্রপস)

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : হোমিওপ্যাথি সর্বোত্তম চিকিৎসা প্রদান করে কারণ এটি নিরাপদ এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুক্ত।
ঔষধ সংরক্ষণ : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।
আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন।  এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন।  সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন।  আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev