মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:২৮ পূর্বাহ্ন

বায়ো কম্বিনেশন ১১ (জ্বর)

আরোগ্য হোমিও হল / ৭০ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ বৃহস্পতিবার, ১ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪, ৬:২৯ অপরাহ্ন
বায়ো কম্বিনেশন ১১ (জ্বর)

বায়ো কম্বিনেশন ১১ (জ্বর)

Bio Combination 11 (Fever)

আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো বায়ো কম্বিনেশন ১১ (জ্বর) বায়োকেমিক হোমিওপ্যাথিক ট্যাবলেট নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।

ক্যাটাগরি : বায়ো কম্বিনেশন, হোমিওপ্যাথি বায়োকেমিক ট্যাবলেট ।

বায়ো কম্বিনেশন ১১ হোমিওপ্যাথি বায়োকেমিক ট্যাবলেটের পরিচিতি : Bc 11, Bio Comb 11, Bio Comb 11 এই নামেও পরিচিত।

বায়ো কম্বিনেশন ১১ হোমিওপ্যাথি ট্যাবলেটের ব্যবহার : হঠাৎ তাপমাত্রা বৃদ্ধি, মৃদু জ্বর, জ্বর প্রদাহজনিত রোগের প্রাথমিক পর্যায়ের জন্য ব্যবহার হয়। সব ধরনের জ্বর ঠাণ্ডা, দ্রুত হঠাৎ ফুলে যাওয়া নিউমোনিয়া প্লুরিসি এবং স্নেহের প্রবণতায় ব্যবহার করা হয়। হাঁপানির ঝুঁকি কমানোর জন্য উপকারী এবং নাক দিয়ে পানি পড়ায় ব্যবহার করা হয়।

বায়ো কম্বিনেশন ১১ হোমিওপ্যাথি ট্যাবলেটের লক্ষণ :
(ক) জ্বরজনিত অবস্থা প্রাথমিক প্রদাহজনক অবস্থার সাথে যুক্ত, ঠান্ডা।
(খ) তাপমাত্রার হঠাৎ বৃদ্ধি এবং এমন পরিস্থিতিতে যা স্তন্যপানের দিকে ঝোঁক।
(গ) এটি সাধারণত সমস্ত হালকা জ্বরের অবস্থা কভার করে।

আরও পড়ুন – বায়ো কম্বিনেশন ১১ (জ্বর)

বায়ো কম্বিনেশন ১১ হোমিওপ্যাথি ব্যায়োকেমিক ট্যাবলেটের উপকারিতা:
(ক) হাঁপানির ঝুঁকি কমানোর জন্য উপকারী এবং নাক দিয়ে পানি পড়া উপশম করে।
(খ) ব্যথা উপশম করে এবং অতিরিক্ত ঘাম এবং ফেটে যাওয়া কাশি কমায়।
(গ) প্রদাহ এবং হিংস্র তৃষ্ণাও কমায়, যা শরীরের তাপমাত্রা কমায় এবং ফোস্কা দুর করে।

আরও পড়ুন – কেন্ট ০৮ (ইনফ্লুয়েঞ্জা জ্বরে কার্যকর)

বায়ো কম্বিনেশন ১১ কম্পোজিশন হোমিওপ্যাথি ট্যাবলেটের মুল উপদান:
(১) ক্যালিয়াম মিউরিয়াটিকাম 3x (Kalium muriaticum 3x)।
(২) ক্যালিয়াম সালফিউরিকাম 3x (Kalium sulphuricum 3x)।
(৩) ফেরাম ফসফোরিকাম 3x (Ferrum phosphoricum 3x)।
(৪) ন্যাট্রাম মিউরিয়াটিকাম 3x (Natrum muriaticum 3x)।
(৫) নেট্রাম সালফিউরিকাম 3x (Natrum sulphuricum 3x)।

আরও পড়ুন – র‌্যাক্স নং- ৬১ (জ্বর)

বায়ো কম্বিনেশন ১১ কম্পোজিশন হোমিওপ্যাথি ট্যাবলেটের কার্যকারিতা :

(১) ক্যালিয়াম মিউরিয়াটিকাম 3x (Kalium muriaticum 3x) : এটি প্রদাহজনক অবস্থা, ফাইব্রিনাস এক্সুডেশন, আইটিস ক্যাটারহাল ও উপ-তীব্র প্রদাহজনক অবস্থার জন্য ব্যবহার হয়। গ্রন্থির ফুলে যাওয়া, জিহ্বায় সাদা অথবা ধূসর আবরণ, ঘন সাদা কফ, ফলিকুলার টনসিলাইটিসের কারণে জ্বর, গলা ব্যথা, বদহজম, আমাশয়, জয়েন্টগুলি ফোলা । সমৃদ্ধ খাবার, চর্বি এবং গতির সাথে লক্ষণগুলি আরও বৃদ্ধি পায়।

(২) ক্যালিয়াম সালফিউরিকাম 3x (Kalium sulphuricum 3x) : প্রদাহের পরবর্তী পর্যায়ে ব্যবহার হয়। এটি প্রদাহের উন্নত পর্যায়ের জন্য নির্দেশিত হয়। তাপমাত্রা রাত্রি বাড়ে । জিহ্বা হলুদ প্রলেপযুক্ত এবং বিশিষ্ট চুলকানির লক্ষণগুলির সাথে ত্বক অস্বাস্থ্যকর। স্রাবের হলুদ শ্লেষ্মা, শরীরে ব্যথা স্থানান্তরিত হয়।

(৩) ফেরাম ফসফোরিকাম 3x (Ferrum phosphoricum 3x) : সমস্ত ক্যাটারহাল এবং প্রদাহজনিত প্রথম পর্যায়ের রোগে ব্যবহারিত হয়। জ্বরজনিত অবস্থার প্রাথমিক পর্যায়ে ব্যবহার হয়। শ্বাসযন্ত্রের সমস্যা, ওটিটিস, এপিস্ট্যাক্সিস, টনসিলাইটিস, কাশি, সর্দি, আর্টিকুলার রিউম্যাটিজম, রক্তাল্পতা এবং ঠান্ডার সাথে জ্বর, প্রতিদিন দুপুর ১ টায় জ¦র আসে। প্রদাহজনিত ও জ্বরজনিত অবস্থায় কার্যকর।।

(৪) ন্যাট্রাম মিউরিয়াটিকাম 3x (Natrum muriaticum 3x) : ৯ থেকে ১১ টার মধ্যে জ¦র অসে ও ঠান্ডা। বিরতিহীন জ্বর, রক্তাল্পতা, ক্লোরোসিস, এবং খাদ্যনালী এবং ত্বকে ব্যাঘাত নির্দেশ করে। জ্বর দুর্বলতা এবং ক্লান্তির সাথে যুক্ত। তাপ, হিংস্র তৃষ্ণা, শরীরের তাপমাত্রা বৃদ্ধি। শরীরে ঠাণ্ডা ভাব, ক্রমাগত ঠাণ্ডা ভাব খুব লাগে। পরিশ্রম করিলে ঘাম হয়। প্যাথোজেনেসিসের বিস্তৃত কভারেজ রয়েছে যেমন – রোদে মাথাব্যথা খারাপ, কোরিজা, অত্যধিক ঘাম এবং কোষ্ঠকাঠিন্য।

(৫) নেট্রাম সালফিউরিকাম 3x (Natrum sulphuricum 3x) : এটি মূলত একটি লিভারের প্রতিকার যা স্যাঁতসেঁতে হওয়ার কারণে আরও বাড়ে ক্যাটর, বদহজম, পিত্ত বমি, শিশুদের হাঁপানি, এবং জয়েন্ট ও পেশীর ব্যথার কারণে জ্বরের জন্য নির্দেশিত হয়। বৃষ্টির আবহাওয়ায় অবস্থা আরও বৃদ্ধি পায়।

বিশেষ দৃষ্টব্য : এটি অন্যান্য ওষুধের পরিপূরক হিসাবে দেওয়া যেতে পারে।

আরও পড়ুন – র‌্যাক্স নং- ৬২ (টাইফয়েড জ্বর)

বায়ো কম্বিনেশন ১১ ট্যাবলেট সেবন বিধি : প্রাপ্তবয়স্করা : প্রতি তিন ঘন্টা অথবা দিনে চারবার ৪ টি ট্যাবলেট, শিশুরা ১ থেকে ২ ট্যাবলেট দিনে ৪ বার কুসুম কুসুম গরম পানির সঙ্গে সেবন করতে হবে। অথবা চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করুন।

চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন

শর্তাবলী : বায়ো কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি বায়োকেমিক ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।

আরও পড়ুন – র‌্যাক্স নং- ৬৩ (ম্যালেরিয়া জ্বর)

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : এই ঔষধ সেবনে কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই।

ঔষধ সংরক্ষণ : সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালে বাহিরে রাখুন।

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন।এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন। এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন। সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev